• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০২:৪০ পূর্বাহ্ন |

রাজারহাটে কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোতে রোগীদের আস্থা বাড়ছে

Rajarhat Pic-03রফিকুল ইসলাম, রাজারহাট (কুড়িগ্রাম): দেশের স্বাস্থ্য সেবায় প্রত্যন্ত এলাকায় অবস্থিত কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোতে স্থানীয় রোগীদের ভিড় ক্রমেই বেড়েই চলেছে। রাজারহাট উপজেলায় ২৯টি কমিউনিটি ক্লিনিকের মাধ্যমে মানুষের দোঁড়-গোড়ায় স্বাস্থ্যসেবা পৌছে দেয়া হচ্ছে। হাতের কাছে ফ্রি-চিকিৎসা সেবা ও ওষুধ পেয়ে জনসাধারণ মহা খুশি। এছাড়া কমিউনিটি ক্লিনিকগুলো মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদার হওয়ায় আস্থা বেড়েছে সাধারণ মানুষের। এখানে ৩১ প্রকার ওষুধ বিনামূল্যে বিতরণের পাশাপাশি স্বাস্থ্য, পরিবার-পরিকল্পনা ও পুষ্টি বিষয়ক পরামর্শ দেয়া হয়। ফলে বড় ধরণের রোগ-বালাই ছাড়া উপজেলা ও জেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে যাওয়া কমিয়ে দিয়েছে প্রান্তিক জনপদের এসব মানুষজন। রাজারহাট উপজেলা সদর থেকে ৭কি.মি দুরে রাজারহাট  ইউনিয়নের প্রত্যন্ত পল্লীতে অবস্থিত নাটুয়ামহল ক্লিনিকটি। সরজমিনে নাটুয়ামহল কমিউনিটি ক্লিনিকটি ঘুরে দেখা গেছে, গ্রামীণ জনপদের রোগীদের প্রচন্ড ভিড়। পুরুষ ও মহিলারা পৃথক দুটি লাইনে দাঁড়িয়ে সু-শৃংখলভাবে পর্যায়ক্রমে চিকিৎসা নিচ্ছেন। তাদেরকে চিকিৎসা দিচ্ছেন কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার শাহজালাল মিয়া (৩২)। রোগী সামলাতে তাকে রীতিমতো হিমশিম খেতে হচ্ছে। দুপুর তখন ১টা পর্যন্ত তিনি চিকিৎসা দিয়েছেন ৩০ জন রোগীকে। ওই ক্লিনিকে চিকিৎসা নিতে আসা পারুল বেগম (২৫), মিনা রাণী পাল (২৮), ভারতী রাণী (৩৫), মঞ্জু রাণী (২৫) ও অনিতা রাণী (২৮) জানান, আগে তাদেরকে চিকিৎসা সেবা নিতে ৭ কি.মি দুরে রাজারহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে  যেতে হতো। এখন বাড়ীর কাছে ক্লিনিকে সকল প্রকার স্বাস্থ্য সেবা পাচ্ছি। এর পাশাপাশি আরডিআরএস-বাংলাদেশ সামাজিক স্বাস্থ্য কর্মসূচীর আওতায় তাদেরকে গর্ভকালীন, প্রসবকালীন ও প্রসব পরবর্তী সেবা, নিরাপদ মাতৃত্ব, সংক্রামক ব্যাধি নিয়ন্ত্রণ, দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের চিকিৎসা, সেবা, স্যানিটেশন, এইচআইভি/এইডসসহ বিভিন্ন বিষয়ে পরামর্শ দিচ্ছে। ফলে গ্রামের মানুষেরা আগের চেয়ে অনেক বেশি সচেতন হয়েছে। ছোট-খাটো যে কোন বিষয় হলেই তারা কমিউনিটি ক্লিনিকে গিয়ে সেবা নিচ্ছে। কমিউনিটি ব্যবস্থাপনা কমিটির কোষাধ্যক্ষ আব্দুল হাই (৪৮) জানান, এ কমিটির ১৭জন এবং সাধারণ পরিষদের অপর ৫১জন প্রতিমাসে ২০ থেকে ৫০ টাকা হারে চাঁদা দেয়। এছাড়া স্থানীয় বিত্তবানরা সহায়তা করে। এই সহায়তার টাকায় ক্লিনিকের স্বাস্থ্যসেবার মান উন্নয়নে বারান্দা দেয়া, মাঠ ভরাট, ঝাঁড়–দারের বেতন, বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের জন্য টিউবওয়েল স্থাপন করা হয়েছে এবং প্রতিমাসে বিদ্যুৎ বিলও দেয়া হয় এই ব্যবস্থাপনা কমিটির উদ্যোগে। আরডিআরএস’র কর্মসূচি ব্যবস্থাপক মো. এরশাদুল ইসলাম রাজারহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের হলরুমে সোমবার এক মিডিয়া ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠানে জানান, গ্রামীণ জনগণের মানসম্মত স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতকরণ ও কমিউনিটি ক্লিনিক থেকে স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণে উৎসাহিত করতে ‘স্ট্রেন্দেনিং দ্য রুরাল হেলথ সার্ভিস এ্যাট গ্রাসরুট লেভেল অব বাংলাদেশ’ নামক প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। এই প্রকল্পের আওতায় সেবাগ্রহীতা, সেবাদাতা, স্বাস্থ্য প্রশাসন ও ক্লিনিক ভিত্তিক ব্যবস্থাপনা কমিটি’র সদস্যদের মান উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। মিডিয়া ক্যাম্পেইনে সভাপতিত্ব করেন রাজারহাট উপজেলা প.প. কর্মকর্তা ডা, আশুতোষ কুমার রায়। এতে বক্তব্য রাখেন- উর্দ্ধতন স্বাস্থ্য কর্মকতা আতিকুল ইসলাম, স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জেসমীন আক্তার, কুড়িগ্রাম বিটিভি ও যুগান্তর প্রতিনিধি আহসান হাবীব নীলু, সাংবাদিক হুমায়ুন কবির সূর্য্য, তৌহিদুল বকসী ঠান্ডা, লাইলী বেগম, একরামুল হক স¤্রাট, রফিকুল ইসলাম প্রমুখ। এ বিষয়ে কুড়িগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. জয়নাল আবেদিন জিল্লুর জানান, সরকার প্রতি ৬ হাজার মানুষের জন্য একটি করে কমিউনিটি ক্লিনিক স্থাপন করেছে। প্রত্যন্ত চর ও গ্রামাঞ্চলের প্রান্তিক মানুষজন এখন ঘরে বসে সকল ধরনের স্বাস্থ্য সেবা পাচ্ছে। শুধু তাই নয়, গর্ভবতী মা’দের  নিরাপদ প্রসবও করা হয় এ সব ক্লিনিকে। এ ব্যাপারে রাজারহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য প. প. কর্মকর্তা ডা. কে কে পাল বলেন, অত্র উপজেলায় ২৯টি কমিউনিটি ক্লিনিক গ্রামীণ মানুষের স্বাস্থ্য সেবা দেখভাল করতে নিরলসভাবে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে এবং তার মধ্যে নাটুয়ামহল ক্লিনিকটি ওই এলাকার জনসাধারণের সঠিক তদারকিতে ব্যাপকভাবে সাড়া জাগিয়েছে এ উপজেলায়। বেসরকারি সংস্থা আরডিআরএস ও টিডিএইচ মানুষকে সচেতন করে তোলায় ক্লিনিকগুলোতে সেবা গ্রহীতার সংখ্যা দিনদিন বেড়েই চলছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ