• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৪:০৭ অপরাহ্ন |

পদ্মাসেতু প্রকল্পে চাকরি দেয়ার কথা বলে জালিয়াতি : আটক ৩

Protaronaশরীয়তপুর : পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের নির্মাণ কাজে উচ্চ বেতনে চাকুরি দেয়ার কথা বলে বিভিন্ন জেলার শ্রমিকদের কাছ থেকে অর্ধকোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার পশ্চিম নাওডোবা থেকে প্রতারক চক্রের তিন সদস্যকে আটক করেছে জাজিরা থানা পুলিশ।
বৃহস্পতিবার বেলা তিনটার দিকে জাজিরা থানা পুলিশ প্রতারণার শিকার ৯৭ জনকে উদ্ধার করে। আটকৃতদের বিরুদ্ধে জাজিরা থানায় একটি প্রতারণা মামলার প্রস্তুতি চলছে।
প্রতারণার শিকার বাগেরহাটের বড়ইপাড়া গ্রামের ছেলে মাসুম শেখ, খুলনার পাবলা গ্রামের সাইদুর রমান, আক্তার হোসেন ও বাগেরহাটের বড় হাফেজ আব্দুর রহিম জানান, পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের নির্মাণ কাজে উচ্চ বেতনে চাকরি দেওয়ার কথা বলে দেশের বিভিন্ন জেলার শত শত লোক নিয়োগের প্রলোভন দেখিয়ে প্রায় শতাধিক লোকের কাছ থেকে ৩৫ থেকে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত ঘুষ নেয়া হয়েছে।
রাজধানীর আন্দবাজারের শিকদার ট্রেডিং কোম্পানির কার্যালয়ে নিয়ে কোম্পানির সিল মোহরকৃত প্যাডে নিয়োগপত্র দিয়ে একেক জনের কাছ এই টাকা নেয়া হয়।
পরে গত ২৩ আগস্ট শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার পশ্চিম নাওডোবা গ্রামের দাদন মেম্বারের বাড়িতে চারটি ঘর ভাড়া নিয়ে শ্রমিকদের এনে রাখে তারা। পাঁচ দিন পার হয়ে গেলেও কোনো শ্রমিককে কাজে যোগদান করাতে না পারায় বিষয়টি স্থানীয়দের জানান প্রতারিত শ্রমিকরা।
পরে স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দিলে বৃহস্পতিবার বেলা তিনটার দিকে জাজিরা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রতারণার শিকার ৯৭ জন মানুষকে উদ্ধার করে। উদ্ধারকৃতরা হলেন- খুলনা, বাগেরহাট, নেত্রকোনা, জামালপুর, চাদপুর, ফরিদপুরসহ বিভিন্ন জেলার বাসিন্দা।
এ সময় প্রতারক চক্রের সদস্য নওগা জেলার মাহাবুবুর রহমান (৫০), নেত্রকোনা জেলার আতিকুর রহমান (৫৫) ও খুলনার রফিকুল ইসলাম রানা নামে তিনজনকে আটক করা হয়। আটককৃতরা ঢাকার শিকদার ট্রেডিং কোম্পানি নামে একটি প্রতিষ্ঠানের সুপারভাইজর বলে পরিচয় দিয়েছে পুলিশের কাছে।
প্রতারণার শিকার শ্রমিক, খুলনা জেলার বদিয়া ঘাটা থানার খারাবাদ গ্রামের মাসুম বিল্লাহ, মাসুম শেখ, বাগেরহাট থানার বারইপাড়া গ্রামের মোহাম্মদ তারেক শেখ ও চাদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ থানার পুর্ব জয়শ্রী পাইকপাড়া গ্রামের বাসিন্দা গিয়াস উদ্দিন মিঝি বলেন, পদ্মাসেতু বহুমুখী প্রকল্পে নির্মাণ শ্রমিক হিসেব কাজ দেওয়া হবে। প্রতি মাসে ৩৭ হাজার টাকা বেতন দেওয়া হবে। খরচ বাবদ ৩৫-৫০ হাজার করে টাকা করে লাগবে বলে। উচ্চ বেতন পাবার আসায় আমরা তাদের টাকা দিয়েছি। এক সপ্তাহ ধরে আমাদের জাজিরা এনে বাড়ি ভাড়া করে রাখা হচ্ছে। আসলে যে সকল শর্ত দিয়ে আমাদের নিয়োগ দেয়া হয়েছে তার সত্যতা পাওয়া যাচ্ছে না। আমরা প্রতারিত হয়েছি। এই প্রতারক চক্রের বিচার চাই আমরা।
জাজিরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকরাম আলী মিয়া বলেন, এখানে বেশ কিছু লোক এনে রাখা হয়েছে এমন খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে যাই। পরে তাদের উদ্ধার করে বিদায় দেওয়া হয়। তিন প্রতারকে আটক করা হয়েছে। থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।
শরীয়তপুরের জেলা প্রশাসক রাম চন্দ্র দাস বলেন, পদ্মাসেতুর নির্মাণ কাজে শ্রমিক নিয়োগের কথা বলে শতাধিক শ্রমিক আনা হয়েছে বলে একটি তথ্য পাওয়ার পর দুদিন পর্যবেক্ষণ শেষে প্রতারক চত্রের তিনজনকে আটক করেছি। এই চক্রের মূল হোতাকে এখনো আটক করা সম্ভব হয়নি। উৎস: শীর্ষ নিউজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ