• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৭:০৮ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুরে প্রাইমারী স্কুলের দপ্তরি নিয়োগে অনিয়ম: বঞ্চিতের মামলা

Oniomএম শাহজাহান আলী: সৈয়দপুরে নীতিমালা অনুযায়ি লিখিত পরীক্ষায় প্রথম হয়েও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরি কাম প্রহরি পদে চাকরী মিলেনি সিদ্দিকুর নামে এক যুবকের। এ নিয়ে ওই যুবক ন্যায় বিচারের আশায় নীলফামারী সহকারি জজ আদালতে সংশ্লিষ্ট নিয়োগ কমিটির বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেছেন। আর নিয়োগ সংক্রান্ত খোলা মেলা এ অনিয়মের বিষয়টি নিয়ে উপজেলায় ব্যাপক গুঞ্জন সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার কাশিরাম বেলপুকুর ইউনিয়নের হাজারিহাট প্রাথমিক বিদ্যালয়ে।
মামলা সূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশ সরকারের প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয়ের নীতিমালা অনুযায়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে “দপ্তরি কাম প্রহরী” পদে আাউট সোর্সিংয়ের মাধ্যমে নিয়োগে গত ৯ ডিসেম্বর এক স্বারক পত্র  প্রকাশিত হয়। পরে সংশোধনীর মাধ্যমে এ নিয়োগটি  বিজ্ঞপ্তি আকারে ২০১৩ সালের ১৬ জুলাই ও ৭  অক্টোবর প্রচার হয়।  আর নিয়মানুযায়ী উপজেলার কাশিরাম ইউপির পূর্ব-বেলপুকুর পাকাধারার মোঃ মমতাজ আলীর ছেলে সিদ্দিকুর এ পদে একই ইউনিয়নের হাজারিহাট প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চাকুরির আবেদন করেন। যাহা চলতি বছরের ২৫ মে যাচাইÑবাছাইয়ে লিখিত পরীক্ষা হয় নিয়োগ কমিটির  উপস্থিতিতে। এ পরীক্ষায় সিদ্দিকুর সর্বোচ্চ নম্বর পায়। তার পরেও এ পদে নিয়োগ পাননি  তিনি। আর তাই নিয়োগে অনিয়মকারীদের বিরুদ্ধে ন্যায় বিচার পেতে গত ৬ জুলাই নীলফামারী সহকারি জজ আদালতের আশ্রয় নিয়েছেন চাকুরীপ্রার্থী এ যুবক। যাহার মামলা নম্বর ৪৭/১৪।  তার দাবি নিয়মানুযায়ী নিয়োগ হলে মহামান্য আদালতের মাধ্যমে এ চাকরী সে পাবে।
সিদ্দিকুর জানায়, লিখিত পরীক্ষায় প্রথম হয়ে নিয়োগ কমিটির সুপারিশ সত্ত্বেও শূধু অর্থের বিনিময়ে সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতনরা প্রভাবিত হয়ে  ৩য় হওয়া ব্যাক্তিকে এ নিয়োগ দিয়েছে। অথচ আমাকে নিয়োগের বিষয়ে সহকারি উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও বিদ্যালয়টির ম্যানেজিং কমিটি এবং ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সুপারিশ করেছিলেন। তারপরেও কিভাবে এ চাকরি তার হল না তা তিনি জানেন না।
চুক্তিভিক্তিক এ নিয়োগে অনিয়ম হয়েছে বলে লিখিত পরীক্ষায় প্রথম হওয়া যুবকের অভিযোগ স্বীকার করেন বিদ্যালয়টির ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ মতিয়ার রহমান। তিনি বলেন, নিয়োগের চুক্তিনামাতে আমার সুপারিশের বিধান থাকলেও তা করা হয়নি। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষককে চাপের মুখে রেখে ৩য় হওয়া ব্যাক্তির নিয়োগ পত্রে স্বাক্ষর নিয়ে এ অবৈধ নিয়োগ দেয়া হয়েছে। তাই তদন্ত সাপেক্ষে এ অনিয়মকারীদের শাস্তি ও প্রকৃত প্রাপককে এ চাকরী দেয়ার দাবি করেছেন তিনি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কাছে। এ নিয়ে সৈয়দপুর উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ আহসান হাবিবের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, লিখিত পরীক্ষায় সিদ্দিকুর প্রথম হয়েছে এটা ঠিক। তবে নিয়োগের  বিষয়ে প্রথম হওয়া তিনজনের নামের তলিকা আমরা অনূমোদন করে নির্বাহী কর্মকর্তাকে দিয়েছিলাম। আর সেখান থেকেই বিধি অনুযায়ি ৩য় হওয়া রাজু আহমেদকে তিনি নিয়োগ দিয়েছেন। এখানে  আমাদের করণীয় কিছুই নেই।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ