• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১২:৪৭ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে মার্কেট-শপিং মলে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন খানসামায় র‌্যাবের অভিযান ইয়াবাসহ দুই মাদককারবারী গ্রেপ্তার ডোমার ও ডিমলায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ১০ উদ্যোগ নিয়ে কর্মশালা নীলফামারীতে ৫ সহযোগীসহ কুখ্যাত চোর ফজল গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে তথ্যসংগ্রহকারী ও সুপারভাইজারদের দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত জয়পুরহাট বিনা খরচে আইনের সেবা পেতে সেমিনার শিক্ষক লাঞ্চনা ও হেনস্তার বিরুদ্ধে সৈয়দপুরে উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর প্রতিবাদ সমাবেশ সৈয়দপুরে শহীদ আমিনুল হকের স্মরণসভা অনুষ্ঠিত ফুলবাড়ীতে বিনামূ‌ল্যে বীজ ও সার বিতরণ

ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে ফিলিস্তিনিরা : এই যুদ্ধ শেষ যুদ্ধ নয়

89169_1আন্তর্জাতিক ডেস্ক: গাজায় ৫১ দিনের যুদ্ধে ইসরাইলের পরাজয়ের মুখে স্থায়ী যুদ্ধ বিরতির পর ফিলিস্তিনি সংগঠনগুলো এখন ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে। প্রতিরোধ যুদ্ধের মধ্যদিয়ে এই সাফল্য এসেছে বলে মনে করে ফিলিস্তিনিরা।
গাজা ছাড়াও পশ্চিম তীর, রামাল্লায় হামাসের জনসমর্থন বেড়েছে। এর মধ্যে ইসরাইল ১৯৬৭ সালের সীমান্তে ফিরে যেতে রাজি হয়েছে বলে বিভিন্ন মিডিয়ায় খবর প্রকাশিত হয়েছে। স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র গঠনের ক্ষেত্রে বড় অর্জন বলে মনে করা হচ্ছে।
হামাসের রাজনৈতিক প্রধান খালেদ মিশাল বলেছেন, হামাস ও ইসরাইলের মধ্যে সদ্য সমাপ্ত যুদ্ধটিই দুই পক্ষের মধ্যে শেষ লড়াই নয়, বরং এটা ছিল ‘লক্ষ্যে পৌঁছার একটি মাইলস্টোন।’

কাতারের রাজধানী দোহায় বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘এটাই শেষ যুদ্ধ নয়। এটা স্রেফ আমাদের লক্ষ্যে পৌঁছার একটি মাইলস্টোন। আমরা জানি যে ইসরাইল শক্তিশালী এবং তাকে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় সহায়তা করে। তা-ই বলে আমরা আমাদের স্বপ্ন ছোট করব না বা আমাদের দাবির সাথে আপস করব না।’

প্রবাসী এই নেতা বলেছেন, গাজা কখনোই তার ‘গোপন’ অস্ত্র ত্যাগ করবে না। তিনি বলেন, ‘রকেট আর সুড়ঙ্গ রয়ে গেছে। আলোচনা যদি ব্যর্থ হয়, তবে এগুলোর দরকার হবে। আমরা আমাদের লক্ষ্য পূরণ না হওয়া পর্যন্ত প্রতিরোধ চালিয়ে যাব।’

মিশাল বলেন, গাজায় ইসরাইলি অবরোধ ব্যর্থ হয়েছে। এই যুদ্ধ আমাদের ওপর চাপিয়ে দেয়া হয়েছিল। কিন্তু এটাই আমাদেরকে মুক্তির পথে গুরুত্বপূর্ণ স্থানে নিয়ে গেছে।

ইসরাইলের সাথে দীর্ঘস্থায়ী যুদ্ধবিরতি চুক্তির পর তিনি এই মন্তব্য করলেন।
তিনি বলেন, এই যুদ্ধ ফিলিস্তিনিদের ‘জেরুসালেম, আকসা মসজিদ এবং আমাদের পবিত্র স্থানগুলোর কাছাকাছি নিয়ে গেছে।’

মিশাল বরেন, এই যুদ্ধের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিল এটা ‘ভীতি প্রদর্শনের তত্ত্বকে ব্যর্থ করে দিয়েছে এবং যুদ্ধকে ইসরাইলের কেন্দ্রে নিয়ে গেছে। তিনি ইসরাইল প্রসঙ্গে বলেন, ‘তাদের গোয়েন্দা সক্ষমতা দুর্বল হয়ে পড়ায় তাদের অভ্যন্তরীণ ফ্রন্ট অরক্ষিত হয়ে পড়েছে।’

হামাসের রাজনৈতিক নেতা বলেন, ‘গাজা পুনর্গঠন করা জাতীয় ঐক্য সরকার এবং মুক্ত বিশ্বের দায়িত্ব।’
তিনি দৃঢ়তার সাথে বলেন, ফিলিস্তিনিরা অবরোধ প্রত্যাহার এবং গাজায় বিমানবন্দর ও সমুদ্রবন্দর নির্মাণের দাবি থেকে সরে আসবে না।

তিনি রাফা সীমান্ত ক্রসিং খুলে দেয়ার জন্য মিসরের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ‘আমরা ভ্রাতৃসুলভ আচরণ দেখিয়ে রাফা সীমান্ত খুলে দেয়ার জন্য মিসরের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।’
তিনি জানান, গাজায় প্রতিরোধ আন্দোলনের জয়োল্লাস চলছে। গাজা ও ফিলিস্তিনের প্রতিটি মানুষ এই জয়ের অংশীদার।

এদিকে ইসরাইল ১৯৬৭ সালের সীমান্তে ফিরে যেতে রাজি হয়েছে বলে বিভিন্ন মিডিয়ায় খবর প্রকাশিত হয়েছে। এর ফলে স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র গঠনের পথ সুগম হবে। ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের উদ্ধৃতি দিয়েই এখবর প্রকাশিত হয়েছে। তবে ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু দাবি করেছেন, তা সত্য নয়। তবে তিনি মাহমুদ আব্বাসের সাথে অতি সম্প্রতি তার গোপন বৈঠক হওয়ার কথাটি অস্বীকার করেননি।

বৃহস্পতিবার রাতে ফিলিস্তিন টিভিকে দেয়া সাক্ষাতকারে মাহমুদ আব্বাস বলেছেন, ১৯৬৭ সালের যুদ্ধে ইসরাইল যেসব স্থান দখল করেছিল, সেসব স্থান থেকে সরে যেতে সম্মত হয়েছেন ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু। ইসরাইলি প্রত্যাহারের পর সেখানে স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠিত হবে।

তিনি বলেন, তিনি ইসরাইল ও যুক্তরাষ্ট্রের কাছে ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের সীমান্ত চিহ্নিত করার দাবি জানিয়েছেন। ইসরাইল যদি তাতে সম্মত না হয়, তবে ‘যা করার দরকার হয় তা আমরা করব?’ তিনি এর মাধ্যমে বিষয়টি আন্তর্জাতিক পরিম-লে নিয়ে যাওয়ার প্রচ্ছন্ন হুমকি দিয়েছেন বলে টাইমস অব ইসরাইল জানিয়েছে।

তিনি বলেন, ‘আমরা এ, বি ও সি এলাকা নিয়ে আলোচনা করব না। আমাদের সুনির্দিষ্ট সীমানা দরকার। বিশ্বে ইসরাইল একমাত্র রাষ্ট্র যার কোনো চিহ্নিত সীমান্ত নেই।’

মাহমুদ আব্বাস বলেন, ‘আমরা এক দিন, এক সপ্তাহ বা এক মাস অপেক্ষা করতে প্রস্তুত। কিন্তু ২০ বছর নয়।
তিনি জানান, সায়েব ইরাকাত ও মাজিদ ফারাজ সীমান্ত নিয়ে আলোচনার জন্য মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরির সাথে বৈঠক করবেন। তবে কবে এই বৈঠক হবে তা তিনি বলেননি।

তিনি বলেন, ‘তারা যদি রাজি হয়, তবে আমরা আমরা আমাদের সীমান্ত নিয়ে স্বাধীন হব। ইসরাইল দুই বছর পর পর আমাদের ওপর হামলা চালাবে, তা আমরা মেনে নেব না।’
তিনি আরো বলেন, ফিলিস্তিনিরা কখনো তাদের ওপর পরিচালিত ইসরাইলি

অপরাধকে ক্ষমা করবে না, ভুলে যাবে না।
তবে নেতানিয়াহু জানিয়েছেন, প্রাক-১৯৬৭ রেখার ভিত্তিতে আলোচনার কথা অস্বীকার করেছেন।

উৎসঃ   অন্যদিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ