• বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ১০:৪১ অপরাহ্ন |

নীলফামারীর অপহৃত স্কুলছাত্রী শাজাহানপুর থেকে উদ্ধার

Uddarসিসি ডেস্ক: ঢাকায় দুলাভাই কর্তৃক অপহৃত নীলফামারীর স্কুলছাত্রী লাবনী আক্তার (১১) কে ১ সপ্তাহ পর বৃহস্পতিবার বগুড়ার শাজাহানপুর থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ সময় ঘটনার হোতা দুলাভাই ও তার দুই সহযোগীকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলো নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার নবাবগঞ্জ গ্রামের টোনাই হোসেনের ছেলে লাবনীর দুলাভাই আনোয়ারুল (২৮), সিরাজগঞ্জ সদরের মাইছাকান্দি গ্রামের মৃত হবিবর রহমানের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম (৫০) ও উল্লাপাড়া শ্রীকুলা গ্রামের শফিকুল ইসলামের স্ত্রী সালমা বেগম (৪৫)। এ ঘটনায় ঢাকা মোহাম্মদপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।
পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ভোর ৫টার দিকে শাজাহানপুর উপজেলার বেতগাড়ী এলাকায় একটি ভাড়া বাসা থেকে লাবনীকে উদ্ধার করা হয়। সে নীলফামারী জেলার জলঢাকা উপজেলার নবাবগঞ্জ গ্রামের জাহিদুল ইসলামের মেয়ে এবং ঢাকার কুতুববাগ প্রিপারেটরি স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী।
লাবনীর বাবা জাহিদুল ইসলাম জানান, তিনি বর্তমানে ঢাকার মোহাম্মদপুর এলাকায় সপরিবারে একটি ভাড়া বাসায় থেকে তরকারির ব্যবসা করেন। গত ২১ আগস্ট বিকাল ৪টার দিকে প্রাইভেট পড়ার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয়ে বাড়ি না ফিরলে খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে তার সহপাঠীরা জানায় লাবনীকে তার দুলাভাই আনোয়ারুল ইসলামের সাথে ঢাকা উদ্যান রোডে দেখা গেছে। পরদিন ২২ আগস্ট বিকাল ৩টার দিকে একটি মোবাইল (০১৭৯৭-৮৮৩২১০) থেকে অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তি ফোন করে লাবনী তার কাছে আছে এবং তাকে পেতে হলে ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দিতে হবে বলে জানায়। পুলিশকে বললে তাকে জীবিত পাওয়া যাবে না বলেও হুমকি দেয় ওই ব্যক্তি। এ ঘটনায় ওইদিন আনোয়ারুল ইসলামসহ দুইজনের বিরুদ্ধে মোহাম্মদপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। জাহিদুল আরো জানান, আনোয়ারুল ইসলাম একজন জুয়াড়ি। বিয়ের পর বিভিন্ন সময় তাকে নগদ টাকা ও জমি-জমা দেয়া হলেও সে তা বিক্রি করে জুয়া খেলে নষ্ট করে ফেলে। এ নিয়ে তার সাথে দ্বন্দ্ব চলছিল। অপরদিকে অভিযোগ পাওয়ার পর থেকেই পুলিশ মোবাইল ট্র্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে অপরাধীদের অবস্থান জেনে ফেলে এবং ওই সূত্র ধরেই শাজাহানপুর থানার কৈগাড়ী ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই কোরবান আলী ফোর্সসহ অভিযান চালিয়ে লাবনীকে উদ্ধার করেন। উৎস: করতোয়া


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ