• শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ১০:৪৫ অপরাহ্ন |

বিরলে সুন্দরী তরুনীদের দিয়ে প্রতারনার অভিনব কৌশল

Protaronaদিনাজপুর প্রতিনিধি: জেলার বিরলে অভিনব কায়দায় প্রতারনা করে সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে নগদ টাকাসহ সর্বস্ব হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে এক প্রতারককে আটক করা হয়েছে। প্রতারকচক্রটি দীর্ঘদিন ধরে নারী লেলিয়ে দিয়ে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে সাধারণ ও নিরিহ মানুষের কাছ থেকে নগদ টাকাসহ সর্বস্ব লুটে নিচ্ছিল। তবে প্রতারকচক্রের এক সদস্য আটক হলেও ঘটনার সাথে জড়িত মূল হোতারা এখনো ধরা-ছোঁয়ার বাইরে রয়েছে।
বিরল থানায় দায়ের করা মামলা সূত্রে জানা গেছে, গত রোববার সন্ধ্যা ৬টা ৩৮ মিনিটে উপজেলার ধর্মপুর ইউপি’র দক্ষিণ রামপুর গ্রামের চটেন্দ্রনাথ সরকারের ছেলে হেলাল চন্দ্র সরকার (৩০) ব্যবহৃত মোবাইলে ০১৭৩৩-৯৩৭৬৬৬ হঠাৎ করে ৫০ টাকার ফ্লেক্সিলোড আসে। তার কিছুক্ষণ পর দিনাজপুর শহরের বালুয়াডাঙ্গা অন্ধ হাফেজ মোড় এলাকার নাসিমের স্ত্রী লাবনী (৩৫) তার ব্যবহৃত মোবাইল (০১৯৬১-১১৪১১০) নম্বর থেকে হেলালের মোবাইল ফোন দেয়। লাবনী পরিচয় দিয়ে বলে আপনার মোবাইলে ভূল করে আমার ৫০ টাকা ফ্লেক্সিলোড গেছে, ফেরত দিলে ভালো হয়। হেলাল ২ ঘন্টার মধ্যে ফেরত দেয়ার কথা জানালেও লাবনী বার বার হেলালের মোবাইলে মিসকল দেয়। ফলে হেলাল কালিয়াগঞ্জ বাজারে এসে ৫০ টাকা ফ্লেক্সিলোড ফেরত দেয়। এর পর পরেই শুরু হয় হেলালের সাথে মোবাইল ফোনে কথোপকথোন। বার বার ফোন দিয়ে লাবনী হেলালকে বলে আপনি খুব ভালো মানুষ, আপনাকে এক নজর আমার দেখার খুব ইচ্ছা এমন নানা কথা।
সে মোতাবেক হেলাল গত সোমবার বিকেলে বাবু নামের একজনকে সাথে নিয়ে মোটরসাইকেলযোগে বিরলের পর্যটন কেন্দ্র খ্যাত কড়াই বিল নামক স্থানে লাবনীর সাথে সাক্ষাত করে। এ সময় পূর্ব পরিকল্পিতভাবে ১০/১২ জনের একটি প্রতারকচক্র উপস্থিত হয়ে হেলাল ও বাবুকে বিভিন্ন রকম ভয় ভীতি প্রদর্শন করে। এক পর্যায়ে প্রতারকচক্রটি হেলাল ও বাবুকে দেশীয় অস্ত্রের মূখে জিম্মি করে মোটরসাইকেলযোগে দিনাজপুর শহরের বালুয়াডাঙ্গাস্থ একটি বাসায় নিয়ে যায়। প্রতারকচক্রটি লাবনীর সাথে হেলালের জোরপূর্বক অশ্লীল ছবি মোবাইলে ধারণ করে হেলালের নিকট থেকে ২ টি নন জুডিশিয়াল ফাঁকা ষ্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করে নেয়। পরে প্রতারকচক্র প্রথমে ৫ লাখ টাকা দাবী করে। পরে ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে হেলাল ও বাবুকে ছেড়ে দেয়।
এ ঘটনার পর বুধবার বিকেল সাড়ে ৩ টার দিকে ঘটনার সাথে জড়িত বিজোড়া ইউপি’র ভবানীপুর বানিয়াপাড়া গ্রামের কামিল সরকারের ছেলে মেহেদী  হাসান পারভেজকে (২৫) বিরল পাইলট স্কুলের সামনে দেখতে পেয়ে  হেলাল ও তার লোকজন তাকে আটক করে থানায় সপোর্দ করে। এ ব্যাপারে হেলাল চন্দ্র বাদী হয়ে ধৃত যুবকসহ ৬ জনের নাম উল্লেখ করে বিরল একটি মামলা দায়ের করে। যার নং ২৫, তারিখ ২৭.০৮.২০১৪।
এদিকে প্রতারক চক্রের সদস্য মেহেদী হাসানকে ছাড়িয়ে নেয়ার জন্য জগতপুর তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ শরিফুল ইসলামের নেতৃত্বে প্রতারক চক্রের লোকজন দীর্ঘ সময় বিরল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল হাই সরকারের সাথে যোগাযোগ করে তাকে ছাড়িয়ে নিতে ব্যর্থ হয়।
বিরল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আব্দুল হাই সরকার জানান, হেলাল চন্দ্রের স্বাক্ষর করা ফাঁকা নন জুডিশিয়াল ষ্ট্যাম্প ২টি প্রতারকচক্রের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। আটককৃত মেহেদী হাসান পারভেজ পুলিশের সামনে ঘটনার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে বলে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বিরল থানার এসআই আশরাফুল ইসলাম জানান।
উল্লেখ্য, প্রতারনার শিকার এলাকার একাধিক ব্যক্তি জানায়, প্রতারক চক্রের সদস্য লাবনী প্রথমে দেহ প্রসারীনী হিসাবে চলাফেরা করলেও এখন সে প্রতারকচক্রের সক্রিয় সদস্য হিসাবে কাজ করছে। তার মোবাইল ফোনের প্রতারনার জালে পড়ে ইতিপূর্বে বিভিন্ন এলাকার ব্যবসায়ী, চাকুরীজীবিসহ অনেকে সর্বস্ব হারালেও প্রতারকচক্রের মূল হোতারা রয়েছে পুলিশের ধরা ছোয়ার বাইরে। ভূক্তভোগিরা প্রতারকচক্রের মূল হোতাদের দ্রুত আটক করে আইনের আওতায় আনার দাবী জানিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ