• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৫৮ পূর্বাহ্ন |

২০ মিনিটে যেভাবে হত্যা করা হয় মাওলানা ফারুকীকে

Faruki-2সিসি ডেস্ক: খুন করার আগে ঘাতকরা শাইখ নুরুল ইসলাম ফারুকীকে বলেছিল, ‘আল্লাহ্‌কে ডাকেন হুজুর। কি কি দোয়া জানা
আছে পড়ে নেন।’ তিনি দোয়া পড়তে শুরু করেন। তারপরই ঘাতকরা তাদের নৃশংস অপারেশন চালায়। বাসায় প্রবেশের সময় থেকে হত্যাকাণ্ড সংঘটন পর্যন্ত সর্বোচ্চ ২০ মিনিট সময় নেয়। এই হত্যাকাণ্ড ঘটাতে তিন দিন ধরে ফারুকীর পূর্ব রাজাবাজারের বাসায় যাতায়াত করেছে দুর্বৃত্তরা। তবে তার অনেক আগে থেকেই ফারুকীকে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে। হামলা করা হয়েছে তার গাড়িতে। এ সব কারণে জীবন নিয়ে শঙ্কিত ছিলেন নুরুল ইসলাম ফারুকী। তিনি তার সন্তানদের প্রায়ই বলতেন, আমাকে ওরা বাঁচতে দেবে না। তবে তোরা সাবধানে থাকিস্‌। নুরুল ইসলাম ফারুকীর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে আলাপকালে জানা গেছে এসব তথ্য। তারা মনে করেন ধর্মীয় মতবিরোধের কারণেই ফারুকীকে হত্যা করা হয়েছে। এছাড়া তার কোন শত্রু ছিল না বলে দাবি করেন তারা। যদিও পুলিশ সম্ভাব্য আরও কিছু কারণ সামনে রেখে ঘটনা তদন্ত করছে। পুলিশের তেজগাঁও জোনের উপ-কমিশনার বিপ্লব কুমার সরকার বলেন, ধর্মীয় মতবিরোধের পাশাপাশি পারিবারিক, ব্যবসায়িক কোন শত্রু ছিল কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।
নিহত ফারুকীর পরিবারের বিভিন্ন সদস্যের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ঘটনার শুরু থেকেই ফারুকীসহ বাসায় ছিলেন তার স্ত্রী লুবনা কুলসুম, ভাগ্নে মুহাম্মদ মারুফ, শাশুড়ি জয়গুণ নেসা, গৃহপরিচারিকা শরীফা খাতুন ও ফারুকীর দুই নারী ভক্ত। এই দুই নারী প্রায়ই ফারুকীর বাসায় আসা-যাওয়া করতেন। নুরুল ইসলাম ফারুকী তার মালিকানাধীন ফারুকী ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলসের মাধ্যমে হজে লোক পাঠাতেন। মারুফ জানান, দুর্বৃত্তদের দু’জন ফারুকীকে হত্যার আগে আরও দু’দিন হজ সংক্রান্ত কাজের অজুহাতে বাসায় গিয়েছিল। প্রথমে তারা ওই বাসায় যায় ২৫শে আগস্ট সন্ধ্যায়। তাদের বয়স ২৫ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে। একজন ফর্সা, চোখে চশমা। অন্যজন শ্যামলা। কলিংবেল বাজতেই দরজা খুলে দেয় মারুফ। পরে ড্রয়িংরুমে বসে ফারুকী তাদের সঙ্গে কথা বলেন। হজ সংক্রান্ত বিষয়েই তারা কথা বলেছেন বলে জানান মারুফ। ওইদিন অল্প সময় কথা বলে তারা চলে যায়। পরদিন একই সময়ে ফারুকীর বাসায় যায় ওই দুই যুবক। কিন্তু সেদিন ফারুকী বাসার বাইরে থাকায় তারা চলে যায়। সর্বশেষ গত বুধবার সন্ধ্যার পর দুর্বৃত্তদের ওই দু’জন ফারুকীর বাসায় যায়। সন্ধ্যা ৭টা ২০ মিনিটে ফার্মগেট থেকে বাসায় ফেরে মারুফ। এ সময় ড্রয়িংরুমে তাদেরকে দেখতে পায় সে। তাদের মধ্যে একটি গ্রুপের হজে যাওয়া নিয়ে কথা হচ্ছিল। শ্যামলা ছেলেটি জানায়, বড় ভাই এলে বিস্তারিত আলাপ করা যাবে। এ সময় ফারুকী তাদের বলেন, আপনাদের ভাইদের আসতে বলেন। আমার সময় কম। বাসায় মেহমান। মোবাইল ফোনে কল দেয়ার পর কিছু সময়ের মধ্যেই ৬ থেকে ৭ জন যুবক ঘরে প্রবেশ করে। তাদের প্রত্যেকের বয়স ২৫ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে। পরনে প্যান্ট, শার্ট ও টি-শার্ট। ড্রয়িংরুমে বসার চেয়ার না থাকায় একজন দাঁড়িয়ে ছিল। ফারুকী তার জন্য চেয়ার আনতে বলেন। মারুফ চেয়ার নিয়ে যেতেই দেখে ড্রয়িংরুমের এক কোণে ফারুকীর মাথায় পিস্তল ও গলায় রামদা ধরে আছে তিন যুবক। সঙ্গে সঙ্গে মারুফের গলায় চাপাতি ধরে এক যুবক বলে, কোন চালাকি বা শব্দ করলে জানে মেরে ফেলবো। দুর্বৃত্তরা তখন ফারুকীর কাছে জানতে চায়, এটা কে? ফারুকী বলেন, এটা আমার ভাগ্নে। ওরে মারবেন না। দুর্বৃত্তদের একজন তখন বলে, ভাগ্নের চিন্তা করিস্‌ না, আগে নিজের চিন্তা কর্‌। দুর্বৃত্তরা জানতে চায়, তোর কাছে ৫০ লাখ টাকা আছে। টাকা কোথায় রেখেছিস্‌। ফারুকী তাদের জানান, এত টাকা বাসায় নেই। টাকা যা আছে তা দিয়ে দেবো। কয়েক মিনিটের মধ্যেই ড্রয়িংরুমের খাটের চাদর ছিঁড়ে ফারুকী ও মারুফের হাত ও মুখ বাঁধে দুর্বৃত্তরা। মুখ বাঁধার আগে ফারুকী অনুনয় করে বলেন, আমার হাতটা ভাঙা একটু খুলে দেন। সঙ্গে সঙ্গে ফারুকীকে পা দিয়ে আঘাত করে একজন। এ সময় ফারুকীকে তাদের অন্য একজন বলে, ‘আল্লাহ্‌কে ডাকেন হুজুর। কি কি দোয়া শিখেছেন পড়ে নেন।’
নুরুল ইসলাম ফারুকীর স্ত্রী লুবনা জানান, ফারুকীর কাছে বিভিন্ন শ্রেণীর লোকজন আসা-যাওয়া করতো। নারীরা বেডরুমে যেতো। তাদের সঙ্গে কথা হতো। কিন্তু পুরুষদের সঙ্গে কথা হতো না। এমনকি পুরুষরা ড্রয়িংরুমে থাকলে পর্দা মেনে চলতেন বাসার নারীরা। তারা ড্রয়িংরুমে যেতেন না। যে কারণে ড্রয়িংরুমে কি হচ্ছিল তারা বুঝতে পারেননি। হঠাৎ বেডরুমে ছুটে যায় দুর্বত্তরা। কিছু বুঝে ওঠার আগেই অস্ত্র উঁচিয়ে জিম্মি করে তাকেসহ শাশুড়ি, গৃহপরিচারিকা ও ফারুকীর দুই নারী ভক্তের হাত ও মুখ বাঁধে তারা। মুখ বাঁধার পর এক বেডরুমে বাসার সকল নারীকে আটক রাখে দুর্বৃত্তরা। এর মধ্যেই কলিংবেল বাজে। অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে দরজা খুলে দুর্বৃত্তরা আগত তিন জনের একই কায়দায় হাত ও চোখ বাঁধে। শফিক, রফিক ও বেলাল নামের এই তিন ব্যক্তি একটি মাহফিলে ফারুকীকে দাওয়াত দিতে গিয়েছিলেন বলে তারা পুলিশকে জানিয়েছেন। ওই তিন ব্যক্তি ড্রয়িংরুমে প্রবেশের পর মারুফ তার হাতের বাঁধন খোলার চেষ্টা করলে দুর্বত্তরা তাকে মারধর করে। তাদের একজনের চড়ের আঘাতে জ্ঞান হারায় সে।
টাকা কোথায় আছে তা দেখিয়ে দেয়ার জন্য ফারুকীকে টেনে ড্রাইনিং রুমে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। এ সময় ফারুকীকে রামদা দিয়ে কুপিয়ে ও গলা কেটে খুন করা হয়। তার গলায় এলোপাতাড়ি আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। ফারুকীকে খুন করার পর লুবনাকে দুর্বৃত্তরা ‘তোদের কাউকে বাঁচিয়ে রাখবো না’ বলে হুমকি দিয়ে চলে যায়। দুর্বৃত্তরা চলে যাওয়ার পর নিজেই নিজের হাতের বাঁধন খুলে চিৎকার করেছেন লুবনা। চিৎকার শুনে প্রতিবেশী ফাতেমা বেগম ছুটে যান ওই বাসায়। তখন রক্তে ভেসে গেছে ডাইনিং রুম। মেঝেতে ফারুকীর নিথর দেহ। কিছু সময় পরে বাসায় ফিরে এই দৃশ্য দেখেন ফারুকীর মেজ ছেলে নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির ছাত্র ফয়সাল ফারুকী। লুবনা ও মারুফ জানান, ২০ মিনিটের মধ্যেই দুর্বৃত্তরা হাত বাঁধা থেকে শুরু করে ফারুকীকে হত্যা করেছে।
ফয়সাল ফারুকী জানান, দুর্বত্তরা আলমারি ভেঙে দেড় লক্ষাধিক টাকা মূল্যের স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ ২ লাখ টাকা নিয়ে গেছে। তবে টাকা বা স্বর্ণালঙ্কার নেয়া তাদের মূল উদ্দেশ্য ছিল না দাবি করে তিনি বলেন, ইসলামী মতবিরোধের কারণেই তাকে হত্যা করা হয়েছে। তিনি জানান, শাইখ নূরুল ইসলাম ফারুকী হিযবুত তাওহীদ, জামায়াতে ইসলামী ও হেফাজতে ইসলামের বিরোধিতা করতেন। তিনি হযরত মুহম্মদ (সাঃ)-এর শানে দাঁড়িয়ে মিলাদ ও মাজারের পক্ষে মত পোষণ করতেন। একই সঙ্গে তিনি সুন্নি ভিত্তিক সংগঠন আহ্‌লে সুন্নাত ওয়াল জামাতের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ও ইসলামিক ফ্রন্টের প্রেসিডিয়াম সদস্য ছিলেন। এর কারণেই তাকে হত্যা করা হতে পারে। ফয়সাল আরও জানান, গত বছরের শুরুতে তাকে দুর্বৃত্তরা ফোনে হুমকি দিয়ে বলেছে, জুমা পড়ানোর আগে তুই কাফনের কাপড় নিয়ে তৈরি থাকিস্‌। শুধু তাই নয়, গত এপ্রিলে টাঙ্গাইলে একটি ওয়াজ মাহফিলে বক্তব্য দিয়ে ফেরার পথে তার গাড়িতে হামলা চালিয়েছিল দুর্বৃত্তরা।
উল্লেখ্য, বেসরকারি স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল আইয়ের উপস্থাপক শাইখ নূরুল ইসলাম ফারুকী ১৯৫৯ সালের ২৪শে নভেম্বর পঞ্চগড় জেলার নাউতারী নবাবগঞ্জ গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মাওলানা জামশেদ আলী। মাওলানা ফারুকী সংসার জীবনে দুই বিয়ে করেন। তার প্রথম স্ত্রী আয়শা বেগমের গর্ভে তিন সন্তান মাসুদ রেজা, হুমায়রা তাবাসুম তুবা ও লাবনী লুবা। তারা থাকেন মালিবাগে। দ্বিতীয় স্ত্রী লুবনা কুলসুমের তিন সন্তান- আহমদ রেজা, ফয়সাল ফারুকী ও ফুয়াদ আল মাহদী। ঘটনার দিন দ্বিতীয় স্ত্রীর পূর্ব রাজাবাজারের বাসায় ছিলেন ফারুকী। দুই স্ত্রীর সঙ্গেই তার ভাল সম্পর্ক ছিল বলে তার স্বজনরা জানান। নুরুল ইসলাম ফারুকী নীলফামারী জেলার ডোমার থানার অন্তর্গত চিলাহাটি জামিউল উলুম সিনিয়র মাদরাসা থেকে ১৯৭৫ সালে দাখিল ও পরবর্তীতে আলিম পাস করেন। ১৯৮১ সালে পুরান ঢাকার রায়সাহেব বাজার জামে মসজিদের খতিব হিসেবে যোগ দেন। ঢাকাসহ বিভিন্ন মসজিদে ৩৩ বছর ইমাম ও খতিবের দায়িত্ব পালন করেন। পাশাপাশি বিভিন্ন আলিয়া মাদরাসায় ১৫ বছর শিক্ষকতা, রেডিও, টেলিভিশনে ২৫ বছর ওয়াজ-নসিয়তের অনুষ্ঠান করেন। তার উল্লেখযোগ্য অনুষ্ঠানের মধ্যে ‘কাফেলা’ ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করে। তিনি হযরত শরফদ্দিন চিশতির দরবারের খাদেম ও সুপ্রিম কোর্ট জামে মসজিদের খতিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। গতকাল আসর নামাযের পর চ্যানেল আই প্রাঙ্গণে নিহত নুরুল ইসলাম ফারুকীর প্রথম নামাজে জানাজা হয়। মাগরিবের পর পূর্ব রাজাবাজারে তার দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। আজ জুমার পর জাতীয় ঈদগাহে মরহুমের তৃতীয় জানাযা হবে।
থানায় ডাকাতি ও হত্যা মামলা: রাজাবাজারের নিজ বাসায় মাওলানা নূরুল ইসলাম ফারুকীকে গলা কেটে হত্যার ঘটনায় নিহতের মেজো ছেলে ফয়সাল ফারুকী বাদী হয়ে শেরেবাংলানগর থানায় একটি মামলা (নং ২৭) দায়ের করেছেন। মামলায় ডাকাতির উদ্দেশ্যে প্রথমে ২ জন ও পরে ৬-৭ জন লোক তাদের বাসায় ঢুকে তার পিতাকে হত্যা করে বলে অভিযোগ করেছে। মামলার এজাহারে সূত্রে জানা গেছে, দুর্বৃত্তরা নিহত ফারুকীর শয়ন কক্ষের একটি স্টিলের ফাইল কেবিনেটের ড্রয়ার থেকে নগদ ২ লাখ টাকা, দেড় লাখ টাকা মূল্যের একটি সনি ক্যামেরা, একটি স্যামসাং ট্যাব, তিন জোড়া স্বর্ণের কানের দুল, তিনটি স্বর্ণের চেইন, চারটি স্বর্ণের আংটি নিয়ে যায়। ঘটনাটি সন্ধ্যা ৭টা থেকে ৮টা ৫ মিনিট পর্যন্ত ঘটে। ফয়সাল ফারুকী বলেন, আসামিরা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে তার পিতাকে হত্যা করেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ