• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১২:২৫ অপরাহ্ন |

তিস্তাপাড়ের মানুষের আহাজারী: নদীর ভাঙ্গন থেকে হামাক বাচান বাহে

HASANহাসানুজ্জামান সিদ্দিকী হাসান, জলঢাকা: টানা কয়েকদিনের ভারী বর্ষন ও উজান থেকে ধেয়ে আসা পাহাড়ী ঢলে তিস্তার পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে  ডানতীর বাঁধ ভেঙ্গে নিম্ন এলাকা প্লাবিত হওয়ায় শত শত পরিবারের ঘরবাড়ী ও মন্দিরসহ আবাদী জমি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ক্ষতিগ্রস্থ পরিবাররা বাঁধসহ বিভিন্ন জায়গায় আশ্রয় নিয়েছে। খবর পেয়ে নীলফামারী-৩ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক গোলাম মোস্তফা ও জেলা প্রশাসক জাকির হোসেন জলঢাকা উপজেলার ডাউয়াবাড়ী ও শৌলমারীতে তিস্তার ভাংগন এলাকা পরিদর্শনকালে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ গংগা রানী (৫৫) সহ অনেকেই বলেন, নদীর ভাংগন থেকে হামাক বাচান বাহে। হামরা আর বাঁচিচি না। নদী হামার সৌক (সব) কাড়ি নিছে। এ প্রসঙ্গে এমপি অধ্যাপক গোলাম মোস্তফা তাদের আশ্বস্ত করে বলেন, বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশটাকে মায়ের মত করে দেখছেন। তিনি আপনাদের সেবায় সার্বক্ষণিক নিয়োজিত আছেন, চিন্তার কোন নেই। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার হাসান হাবিব, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মনোয়ারুল ইসলাম। পরে উপজেলার ৩টি ইউনিয়নের বন্যাক্রান্ত ৫শত পরিবারের মাঝে ত্রান বিতরণ করা হয়েছে। উপজেলা প্রকল্প বাস্তাবায়ন অফিস সুত্রে জানা যায়, ডাউয়াবাড়ী ইউনিয়নের সিদ্ধেশ্বরী,  গোলমুন্ডা ইউনিয়নের নাড্ডা পাড়া, চারআনি, শৌলমারী ইউনিয়নের বান পাড়া ও তালুক শৌলমারী এলাকায় বন্যাক্রন্ত ৫শত পরিবারকে দুর্যোগ ব্যবস্থপনা ও ত্রান মন্ত্রণালয় হতে দেওয়া ১০ মে.টন চাউল ও ২০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। উলে¬খ্য তিস্তার পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় ও গত কয়েক দিনের  অবিরাম বৃষ্টির পানি গ্রাম গুলোতে ঢুকে পড়লে ওই এলাকার পরিবারগুলোর ঘরবাড়িসহ ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ