• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১২:৫২ অপরাহ্ন |

নীলফামারীতে তিস্তার বন্যায় বিপর্যস্ত জনজীবন, ত্রাণের জন্য হাহাকার

Nilphamari Tista Flood-01বিশেষ প্রতিনিধি: জেলার তিস্তা অববাহিকার বন্যাকবলিত মানুষ দিন দিন হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়ছেন। কারণ, বহু এলাকায় এখনো কোনো ত্রাণসামগ্রী পৌঁছায়নি। বানভাসী অসহায় মানুষের দিন কাটছে দুর্যোগময় পরিস্থিতির মধ্যে। অনেকের ঘরবাড়ী ভেসে গেছে। মানবেতর জীবন যাপন করছেন তারা। ডুবে গেছে ফসলি জমি। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে রাস্তাঘাট, স্কুল-কলেজ সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। এখন এসব বানভাসী মানুষের প্রয়োজন বিশুদ্ধ পানি আর ব্যাপক ত্রাণ সহযোগীতা। পানিবন্দী অর্ধ লাখ মানুষের এটাই এখন একমাত্র চাওয়া। কিছু কিছু এলাকায় এখন পর্যন্ত কোনো ত্রাণসামগ্রী পৌঁছায়নি। দুর্ভোগের পাশাপাশি দুর্গত এলাকায় চলছে ত্রাণের জন্য হাহাকার। এ অবস্থায় খেয়ে না খেয়ে দিন কাটাতে হচ্ছে বানভাসীদের। ত্রাণের জন্য অসহায় মানুষ ধরনা দিচ্ছে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের দ্বারে দ্বারে। বন্যাকবলিত যেসব এলাকায় সরকারী ত্রাণ বিতরণের ব্যবস্থা হলেও পরিমাণে তা অপ্রতুল বলে অভিযোগ উঠেছে। এ দুঃসময়ে কোন বেসরকারী সংস্থা বা কোন রাজনৈতিক সংগঠন কোন প্রকার ত্রান বিতরন করেনি। তবে জামায়াতে ইসলামী দুএকদিনের মধ্যে ত্রান বিতরন করবেন বলে ডিমলা উপজেলা জামায়াতের সেক্রেটারী ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক মজিবর রহমান জানান। এ ব্যাপারে ডিমলা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও স্থানীয় সংসদ সদস্য আফতাব উদ্দিনের সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ না করায় তার বক্তব্য জানা যায় নি। এমনি নানা চরম দুর্ভোগে দিন কাটছে নীলফামারীর তিস্তার বানভাসী মানুষের। বন্যার পানি নেমে গেলেও দূর্ভোগ কাটেনি এসব মানুষের। দিন দিন বেড়েই চলছে এসব বানভাসী মানুষের দুর্ভোগ। কাজকর্মহীন হয়ে পড়ায় খেয়ে না খেয়ে দিন কাটছে তাদের। সরকারীভাবে এ দুই উপজেলায় প্রায় ৩৫শত ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের তালিকা করা হয়েছে। বাস্তব অবস্থা এর চেয়েও কয়েকগুন বেশী। এসব এলাকায় বিশুদ্ধ খাবার পানির অভাবে বাড়ছে ডায়রিয়া, আমাশয়সহ পানিবাহিত রোগ দেখা দেবার আশংকা করা হচ্ছে। এসব পরিবারের মাঝে আজ শনিবার পর্যন্ত পরিবার প্রতি ২০ কেজি করে চাল, শুকনা খাবার ও বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ করা হয়েছে বলে জানান ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রেজাউল করিম। যা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। ক্ষতিগ্রস্ত প্রায় ১০ হাজার হেক্টর ফসলের ক্ষেত। এসব ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকের জন্য এখন পর্যন্ত কোন বরাদ্দের ব্যাবস্থা করা হয়নি। জেলার জলঢাকা উপজেলার ডাউয়াবাড়ী ইউনিয়নের সিদ্ধেশ্বরী, গোলমুন্ডা ইউনিয়নের নাড্ডা পাড়া, চারআনি, শৌলমারী ইউনিয়নের বান পাড়া ও তালুক শৌলমারী এলাকায় বন্যার্ত ৫শত পরিবারকে দুর্যোগ ব্যবস্থপনা ও ত্রান মন্ত্রণালয় হতে ১০ মে.টন চাউল ও ২০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। গত মঙ্গলবার ডিমলা উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থপনা কমিটির উদ্দ্যোগে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে ইউএনও রেজাউল করিমের সভাপতিত্বে দুর্যোগ ব্যবস্থপনা কমিটির জরুরী সভায় বন্যার্ত মানুষের পাশে দাড়ানোর জন্য সরকারী দপ্তরের পাশাপাশি এনজিওদের আহবান জানানো হলেও আজ কোন সাড়া মেলেনি। এদিকে তিস্তা নদীর টানা বন্যায় এলাকার মানুষজনের চরম দুভোর্গের কথা চিন্তা করে ডিমলা উপজেলার প্রশাসন মঙ্গলবার বিভিন্ন বে-সরকারি প্রতিষ্ঠান ও জনপ্রতিনিধিদের সাথে জরুরী বৈঠক করেছে। বৈঠকে সরকারী ত্রানের পাশাপাশি বিভিন্ন এনজিও প্রতিনিধিদের বানভাসীদের ত্রান সরবরাহের জন্য আহবান জানানো হয়। ইউপি চেয়ারম্যানদের অভিযোগ ডিমলায় ১৮টি এনজিও হতদরিদ্রদের ভাগ্যের উন্নয়নের ধোয়া তুলে কাজ করলেও বন্যার্ত মানুষের পাশে দাড়ায়নি। এমনকি সৌহার্দ্য-২ জেএসকেএসের টেকনিক্যাল কর্মকর্তা (দুর্যোগ ব্যাবস্থপনা) ফরিদউদ্দিন আকতার জানায়, তিস্তার পাড়ে বন্যা হয়নি। বিষয়টি সাংবাদিকদের বাড়াবাড়ি। নানা প্রতিকুলতার মাঝে তিস্তার পাড়ের বন্যার্তদের খাদ্য সংকটের পাশাপাশি শুকনা খাবার, পয়নিস্কায়ন, বিশুদ্ধ পানির চরম সংকট দেখা দিয়েছে। খালিশা চাপানির ছোটখাতা গ্রামের মৃত ফকির উদ্দিনের পুত্র রঞ্জু (৩৫) জানান, দিনে একবেলা খেয়ে পার করতে হচ্ছে। বন্যায় ক্ষত্রিগ্রস্থ এসব কৃষকের এখন চরম দুর্দিন। উজানের ঢলের সাথে ভারী বর্ষনের যেন আরো অসহায় করেছে তিস্তাপাড়ের মানুষকে। গত কয়েকদিন থেকে তিস্তা পাড়ের হাজার হাজার মানুষ পানিবন্দী থাকার পর পানি নেমে গেলেও তারা আছেন চরম দুর্ভোগে। এসব মানুষের খাদ্য সংকটের সঙ্গে দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ পানীয় জলের অভাব। তাই অনাহার অর্ধাহারে দিন যাপন করছে এসব বানভাসী মানুষ। দূর্গতদের মাঝে বিশেষ করে শুকনা খাবার ও বিশুদ্ধ পানির সরবরাহ করা জরুরী হয়ে পড়েছে। আজ শনিবার নীলফামারীর ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানি কমে সকাল ছয়টা থেকে বিপদসীমার (৫২.৪০ মিটার) নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তিস্তা অববাহিকার বিভিন্ন ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধিরা জানান, বন্যা কবলিতদের জন্য সরকারী ভাবে তালিকা পাঠানো হলেও এখন পর্যন্ত তারা সামান্য কোন ত্রান সহায়তা পেয়েছে। নীলফামারীর জেলা প্রশাসক জাকীর হোসেন জানান, বন্যা কবলিত ডিমলা উপজেলার জন্য ১৫মেট্রিক চাল ও ৩০ হাজার টাকা এবং জলঢাকা উপজেলায় পাঁচ মেট্রিকটন চাল ও ১০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা নিজ নিজ এলাকায় এসব বিতরণ করেছেন। উল্লেখ্য যে, বন্যার কারনে গত বুধবার হতে ছোটখাতা গ্রামের দুটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ছুটি ঘোষনা করা হয়েছে। তিস্তা নদীর র্তীরবর্তী ডিমলা উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের গ্রামবাসীরা জানান, গত ১৫ দিন থেকে নদীর বানের পানিতে বাড়ী ঘর কোমড় সমান পানিতে তলিয়ে রয়েছে। পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বাঁধের ওপড় আশ্রয় নিয়েছে বন্যা দুর্গতরা। বানের পানিতে ঘরে থাকা চাল, চুলাসহ সকল আসবাবপত্র তলিয়ে রয়েছে। গত কয়েক দিন থেকে এক মুঠো ভাত খেতে পারেনি এমন অনেক পরিবার রয়েছে। শুধুমাত্র চিড়াগুড় খেয়ে তারা বেচে আছে। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ এলঅকাগুলো হচ্ছে জেলার ডিমলা উপজেলার নদী তীরবর্তী টেপাখড়িবাড়ী, পুর্বছাতনাই, খগাখড়িবাড়ী, গয়াবাড়ী, ঝুনাগাছ চাঁপানী, পূর্ব টেপা খড়িবাড়ী সহ পাশ্ববর্তী বাইশপুকুর চর, কিসামত ছাতনাই, ঝাড়শিঙ্গের চর, বাঘেরচর, টাবুর চর, ভেন্ডাবাড়ী, ছাতুনামা, হলদিবাড়ী, একতার চর, ভাষানীর চর, খালিশাচাঁপানী ও জলঢাকা উপজেলার ডাউয়াবাড়ী, শৌলমারী, কৈমারী এলাকার নদী তীরবর্তী চরগ্রামগুলো। এসব এলকার অন্তত ১০ সহ¯্রাধিক পরিবার বন্যাকবলিত হয়ে পড়েছে বলে জানান স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ