• বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৩০ অপরাহ্ন |

পার্বতীপুরে প্রধান শিক্ষক ও সভাপতি মিলেমিশে দূর্নীতি

Durnitiমোঃ রুকুনুজ্জামান বাবুল, পার্বতীপুর (দিনাজপুর) : কোন কাজ না করেই বিদ্যালয়ের রিপিয়ারিং কাজের জন্য সরকারী বরাদ্দের সমুদয় টাকা মিলেমিশে আত্মসাত করেছেন পার্বতীপুর উপজেলার দোয়ানিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সভাপতি। বিক্রি করে দিয়েছেন গাছের ডালপালা। প্রতিবাদে উপজেলা শিক্ষা অফিসারের নিকট অভিযোগ করেছেন বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসী। বিষয়টি খতিয়ে দেখতে সহকারী শিক্ষা অফিসার পরিমল চন্দ্র বর্মনকে আহবায়ক করে ২সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন শিক্ষা অফিসার।
জানা গেছে, দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলার মমিনপুর ইউনিয়নের ৬৫ নম্বর দোয়ানিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নামে সরকারীভাবে বিদ্যালয় সংস্কারের জন্য ৩০ হাজার টাকা বরাদ্দ আসে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছাদেকুল ইসলাম ও বিদ্যালয়ের সভাপতি (পদাধিকার বলে প্রকল্প কমিটির সভাপতি) খতিবুর রহমান ল্যাট্রিন তৈরী ও চেয়ার কেনার প্রকল্প দাখিল করে ভূয়া ভাউচারে সমুদয় টাকা উত্তোলন করে আত্মসাত করেন। গত জুন মাসে প্রকল্পের কাজ শেষ হলেও আজ অবধি কাজ করা হয়নি।
গত ২৭ আগষ্ট বেলা ১১টায় বিদ্যালয়টি সরেজমিন পরিদর্শনে গেলে দেখা যায় তোবারক আলী নামের একজন সহকারী শিক্ষক স্কুলে উপস্থিত রয়েছে। হাজিরা খাতায় দু’দিনের সহি নেই প্রধান শিক্ষকের। প্রকল্পের কোন অস্তিত্ব মেলেনি বিদ্যালয়টিতে। দোয়ানিয়া গ্রামের ছাত্র অভিভাবক নুর আলম বলেন, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সভাপতি গত ১৫ এপ্রিল বরাদ্দের ৩০ হাজার টাকা তুললেও কোন কাজ করেননি। একই গ্রামের শিক্ষানুরাগী আবু তাহের বলেন, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সপ্তাহে দু’একদিন স্কুলে আসে । ফলে লেখা পড়ার মান একেবাইে পড়ে গেছে। বিদ্যালয়ের সহ-সভাপতি মোহসীন আলী বলেন, রেজুলেশন ছাড়াই বিদ্যালয়ের ১০টি আম গাছের ৫০ মনের অধিক ডালপালা কেটে বিক্রি করে গাছগুলোর সৌন্দর্যহানি করা হয়েছে। গাছের ডালপালাগুলো কিনেছেন পাশের দোয়ানিয়া হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক রোস্তম আলী ও সভাপতি নুরুল হক। বিক্রয় মূল্য দেখানো হয়েছে মাত্র ১হাজার ৩শ টাকা। সেই সাথে বিদ্যালয়ের ৫০টি পুরাতন ঢেউ টিন ও দরোজা জানালা বিক্রি করে দিয়েছেন প্রধান শিক্ষক। আত্মসাত করেছেন প্রথম শ্রেনীর শোয়েব আকরাম ও পলাশ নামের দুই ছাত্রের উপবৃত্তির টাকা।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছাদেকুল ইসলাম বলেন, নানা ঝামেলার কারনে তিনি রিপিয়ারিং এর কাজ করতে পারেননি। শ্রীঘ্রই কাজ শুরু করা হবে। তিনি বলেন, এলাকার একটি মহল আমাকে বিদ্যালয় থেকে সরিয়ে দিতে চাচ্ছেন। তার মতে আগামী দিনে ওই বিদ্যালয়ে নৈশ প্রহরী নিয়োগের সময় নিজেদের পছন্দের প্রার্থীকে নিয়োগ দেয়া সহজ হবে। গাছের ডাল কাটার বিষয়ে বলেন, এ ব্যপারে কমিটির রেজুলেশন রয়েছে। প্রয়োজনের সময় দেখানো হবে। অফিসিয়াল কাজ থাকায় মাঝে মধ্যে তিনি স্কুলে আসতে পারেন না বলে স্বীকার করেন।
তদন্তকারী কর্মকর্তা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার পরিমল চন্দ্র বর্মন জানান, বারবার তাগিদ দেওয়া স্বত্বেও রিপিয়ারিং এর কাজ করাতে পারিনি। ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছাদেকুল ইসলামের বিরুদ্ধে এর আগেও অনিয়ম ও দূর্নীতির  তদন্ত হয়েছিল। তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলা হলেও রহস্যজনক কারনে কোন ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়নি সে সময়। আর এ কারনে তিনি অনিয়ম ও দূর্নীতি করছেন লাগামহীন ভাবে।
উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মকবুল হোসেন বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ