• শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ১০:৩১ অপরাহ্ন |

হাইব্রিড হটাও আওয়ামী লীগ বাঁচাও

Pir Habiburপীর হাবিবুর রহমান:

১. রাজনৈতিক কলামে অতীত ঐতিহ্যের উদাহরণ টানতে গিয়ে আমি মেঘালয়ের কোলঘেঁষা গারো পাহাড়ের পাদদেশে ঠাঁই পাওয়া সীমান্ত জেলা ভাটির দুর্গখ্যাত হাওরের রাজধানী জলজোছনার সুনামগঞ্জকেই টেনে আনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতারা জননেতা আবদুজ জহুরকে খুব ভালো করে চেনেন। বাংলাদেশের তৃণমূল বিস্তৃত ঐতিহ্যবাহী ও এককালের গণমুখী রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের একজন ব্র্যান্ডেড নির্লোভ, নিরহঙ্কারী সাদামাটা জীবনের পোড় খাওয়া রাজনীতিবিদের মডেল ছিলেন। ছাত্রজীবন থেকে মানুষের কল্যাণে আদর্শবোধ নিয়ে রাজনীতির যে পথ নিয়েছিলেন সেখান থেকে আমৃত্যু বিচ্যুত হননি। দলের প্রতি, নেতৃত্বের প্রতি যেমন ছিল তার নিঃশর্ত আনুগত্য, তেমনি ছিল কর্মী দরদি এক অসাধারণ সংগঠকের হৃদয়। শিক্ষিত মানুষটি আইন পেশায়ও জড়াননি। কিছু দিন শিক্ষকতা করলেও জমি বিক্রি করে পুরো জীবন ফুলটাইম রাজনীতি করেছেন। পরিবারকে রাজনীতির জন্য বারবার অনিশ্চয়তা, টানাপড়েনের দিকে ঠেলে দিলেও লোভ-লালসা তাকে স্পর্শ করতে কেউ দেখেনি। পরিবারকেও সেভাবেই তৈরি করেছিলেন। ’৭৫ উত্তরকালসহ বার বার দীর্ঘ সময় জেল খেটেছেন আর তার আটপৌরে স্ত্রী, ছোট ছোট ছেলেমেয়েদের নিয়ে অভাব-অনটনের বেদনা মুখ বুজে সয়ে সংসারের হাল ধরেছেন। কর্মীদের হাসিমুখে খাইয়েছেন। মুক্তিযুদ্ধের অনন্য সাধারণ এই সংগঠক আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক থেকে আমৃত্যু জেলা সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন নিষ্ঠার সঙ্গে। ’৭০ থেকে ’৯১ সাল পর্যন্ত বার বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। দলের মনোনয়ন বঞ্চিত হয়েছেন নানা সময়ে। কিন্তু এ নিয়ে কখনো হাপিত্যেশ করেননি। দল ছাড়ার প্রশ্নই ওঠে না। সুনামগঞ্জ সদরের সংসদ সদস্য থাকা অবস্থায় তিনি কখনো প্রশাসনের ওপর খবরদারি দূরে থাক কারও জন্য একটি টেলিফোনও করতেন না। কোনো অনৈতিক আবদার নিয়ে কেউ তার কাছে যাওয়ার সাহসও পেতেন না। সারা জীবন সাদা পাজামা-পাঞ্জাবি, গায়ে কালো মুজিবকোট নিয়ে সাধারণ মানুষের কাতারেই জীবনযাপনের পরিধি রেখেছেন গণমানুষের এ নেতা। দেশ ও মানুষের প্রতি ছিল তার অকৃত্রিম দায়বদ্ধতা। মানুষের শ্রদ্ধা ভালোবাসা নিয়ে চিরনিদ্রা নিলেও হাইব্রিডরা তার স্মরণে একটি শোকসভাও করেনি। পঞ্চম সংসদে সংসদীয় গণতন্ত্রে দেশকে ফিরিয়ে আনতে পার্টির পার্লামেন্টারি সভায় যুক্তিনির্ভর বক্তৃতা করেছিলেন। সেই সময়ের একটি ঘটনা, জামালগঞ্জের ছাত্রলীগের নবীনবরণ অনুষ্ঠানে তাকে প্রধান অতিথি করা হয়েছিল। বক্তা হিসেবে তৎকালীন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ নেতা বর্তমান সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ। মিসবাহর মুখে শোনা জামালগঞ্জে যাওয়ার আগে সে যখন জহুর সাবের বাসায় গেল সেখানে পাউবির নির্বাহী প্রকৌশলীকে দেখতে পায়। সে বলল, লিডার ইঞ্জিনিয়ার সাবকে বললে স্পিডবোটে যেতে পারি আমরা। উত্তরে তিনি ধমক দিয়ে বলেন, তেলের টাকা তুমি দিবা? পরে তারা যখন ইঞ্জিন নৌকায় যাচ্ছিলেন তখন দেখতে পান তিন স্পিডবোটে বিএনপিতে যোগ দেওয়া কমিউনিস্ট এমপি যাচ্ছেন। দেখে লজ্জায় মুখ ঢেকে বলেন, রাজনীতিটা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। সারা দেশেই এমন অসংখ্য আদর্শবান রাজনীতিবিদ বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগকে সংগঠিতই করেননি, বিকশিতও করেছিলেন। জনগণের আস্থা, ভালোবাসায় একটি প্রকৃত দেশপ্রেমিক রাজনৈতিক দল হিসেবে আওয়ামী লীগকে তৃণমূল বিস্তৃতই করেননি, গণমুখী চরিত্র দিয়েছিলেন। নিজেদের স্বচ্ছতার সঙ্গে সঙ্গে আদর্শবান কর্মীনির্ভর সংগঠনে প্রাণের সঞ্চার করেছিলেন। বর্তমান আওয়ামী লীগে সেসব ত্যাগী নেতার পথহাঁটা কর্মীরা যেন নির্বাসিত, ঘুণপোকার মতো দলটির ভেতরটা কুরে কুরে খাচ্ছে হাইব্রিড রাজনীতিজীবীরা। তবু আজকের প্রাণহীন আওয়ামী লীগে রাজনীতিবিদ তৈরি এবং রাজনীতিবিদদের নিয়ন্ত্রণে দলকে শক্তিশালী করার কোনো উদ্যোগ নেই। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কথা বলে রাজনীতির নামে বাণিজ্য করে, কিন্তু তার আদর্শ অনুভব করে না, লালনও নয়। ৩২ নম্বর বাড়িটির মাহাত্ম্যও বোঝে না। ভিতরে গিয়ে দেখে না রাষ্ট্রপিতার জীবন কত সাদামাটা ছিল! এক সময় আওয়ামী লীগের জেলা নেতাদের যে সম্মান ছিল, গুরুত্ব ছিল আজ কোনো কোনো প্রেসিডিয়াম সদস্য থেকে সাংগঠনিক সম্পাদকদেরও তার বিন্দুমাত্র নেই। কেন? উত্তরও খুঁজে না দলটির নেতৃত্ব। বঙ্গবন্ধু সুনামগঞ্জের গভর্নর করেছিলেন জোতদার পরিবার থেকে আওয়ামী লীগে আসা আবদুল হেকিম চৌধুরীকে। সুনামগঞ্জ-১ আসনের নির্বাচিত হেকিম চৌধুরী কমরেড বরুন রায়ের জমানায় কেউ জানত না এটি অর্থনৈতিক রাজধানী। এখন জানে দুই হাতে লুটপাট করে ধনাঢ্য হওয়ার এ এক স্বর্ণপুরি আসন!

২. ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন রোজগার্ডেনে প্রতিষ্ঠিত আওয়ামী লীগের সভাপতি মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী হলেও ’৫৭ সালে কাগমারী সম্মেলনে ন্যাপ গঠনের মাধ্যমে বিদায় ঘটলে কার্যত গণতন্ত্রের মানসপুত্র হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর সংসদীয় গণতন্ত্রের আলোয় আলোকিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বেই আওয়ামী লীগের পুনর্জন্ম, বিকাশ এবং তার ঐতিহাসিক মর্যাদা লাভ ঘটে। সেই ইতিহাস সবার জানা। এই আওয়ামী লীগ স্বাধিকার, স্বাধীনতা সংগ্রামের পথে ’৭০-এর গণরায় নিয়ে সুমহান মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দিয়ে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠাই করেনি, মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার ভাত ও ভোটের লড়াইয়ে অবিরাম সংগ্রামের সিঁড়িপথ হেঁটেছে গৌরবের সঙ্গে। উপমহাদেশের রাজনীতিতে ঐতিহ্যের মহিমায় ভারতের কংগ্রেসের পর বাংলাদেশের আওয়ামী লীগই ইতিহাসে ধ্রুবতারার মতো উজ্জ্বলতা ছড়িয়ে আছে। বঙ্গবন্ধু থেকে তার কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগও সেই ঐতিহ্যের ধারা অব্যাহত রেখেছিল। ’৯১ সালের জাতীয় নির্বাচনে বিএনপির টাকাওয়ালা প্রার্থীদের কাছে পরাজয়ের পর ’৯৬ সালের নির্বাচন থেকে আওয়ামী লীগ নামের দলটি ঐতিহ্যের বৃত্ত থেকে বেরিয়ে আসতে শুরু করে। আওয়ামী লীগে মনোনয়ন বাণিজ্যেরই প্রবেশ ঘটেনি, রাতারাতি দলে যোগ দিয়ে ব্যবসায়ীদের বা বিত্তশালীদের মনোনয়ন লাভ থেকে দলীয় নেতৃত্বে ঠাঁই পাওয়ার সুযোগ ঘটতে থাকে। ধীরে ধীরে দলের পোড়খাওয়া নেতা-কর্মীদের কপালে অনাদর, অবহেলা আর হাইব্রিডদের জয়-জয়কার শুরু হয় দলের মধ্যে। ২০০৮ সালের জাতীয় নির্বাচনের পর এই ধারা চূড়ান্ত রূপ নেয়। এমনকি পরিস্থিতি উপলব্ধি করে হাইব্রিড আওয়ামী লীগদের নিয়ে ত্যাগী আওয়ামী লীগ কর্মীদের হৃদয় নিসৃত বক্তব্য উচ্চারণ করেন নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সাজেদুর রহমান। তারপর অনেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতিকে ফরমালিনমুক্ত করতেও মতামত দেন। কিন্তু এর উদ্যোগ নেই। আওয়ামী লীগ এখন ক্ষমতানির্ভর এক বিশাল সমর্থক গোষ্ঠীর নাম। রাজনৈতিক আদর্শনির্ভর শক্তিশালী সংগঠন নয়। ইদানীং কোন আমলে বাবা আওয়ামী লীগের এমপি ছিলেন, ছেলে রাজনীতির পাঠ নিতে দীর্ঘক্ষণ না হাঁটলেও তাকেই স্থানীয় নেতা-কর্মীদের উপেক্ষা করে বসিয়ে দেওয়া হচ্ছে। জীবনভর দল করা কর্মীরা হচ্ছে হতাশ।

৩. ইদানীং ফেসবুকে ঝড় উঠেছে ‘হাইব্রিড হটাও, আওয়ামী লীগ বাঁচাও’। বাংলাদেশের রাজনীতিতে গত ৪০ বছরে প্রগতিশীল রাজনীতির পথপ্রদর্শক ন্যাপ কমিউনিস্ট পার্টির মতো সংগঠন পরনির্ভর কৌশলী রাজনীতি করতে গিয়ে জনবিচ্ছিন্ন হতে হতে কার্যত এখন নির্বাসিত। স্বাধীনতা-উত্তরকালে ছাত্রলীগের সম্মেলনে বিভক্তির পথ ধরে আওয়ামী লীগ সরকারকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে মুজিব সরকার উৎখাতের উগ্র হঠকারী রাজনীতির পথ নেওয়া জাসদ নানা ভাঙাগড়ার ভেতর রিক্ত নিঃস্ব হয়ে নৌকায় চড়ে সংসদ ও ক্ষমতার অংশীদারিত্ব পেলেও সাংগঠনিক শক্তি বলে কোথাও কিছু নেই। আরেক শরিক এককালের মুজিব ও আওয়ামী লীগ বিদ্বেষী ওয়ার্কার্স পার্টি ও সাম্যবাদী দল সংসদ এবং ক্ষমতার অংশীদারিত্ব পেলেও কার্যত দু-একটি নির্বাচনী এলাকাভিত্তিক হালকা-পাতলা সাংগঠনিক শক্তি ছাড়া শক্তি বলতে কিছুই নেই। সাম্যবাদী দল তো কোথাও নেই। দীলিপ বড়–য়ার বাড়িতেও নেই। ’৭৫-এর মর্মান্তিক রাজনৈতিক পটপরিবর্তনের মধ্য দিয়ে সেনাশাসক জিয়াউর রহমানের ক্ষমতার হেরেম থেকে আওয়ামী লীগ ও মুক্তিযুদ্ধবিরোধী অতি বাম আর অতি ডানের সঙ্গে নবীনের সমন্বয়ে বিএনপির জন্ম হলেও সেটি একটি গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল হিসেবে আবির্ভূত হয় সেনাশাসক এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে পথ হেঁটে ’৯১ ও ২০০১ সালের জাতীয় নির্বাচনে গণরায় নেওয়ার মধ্য দিয়ে। কার্যত আওয়ামী লীগ বিরোধী রাজনৈতিক শক্তি হিসেবে ময়দানে এই দলটির অস্তিত্ব তৃণমূল বিস্তৃত হলেও মুক্তিযুদ্ধবিরোধী এবং পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর সহযোগী জামায়াতে ইসলামী এবং ইসলামী ভোটব্যাংকের নির্ভরশীলতা আর কখনো সখনো ধর্মনির্ভর রাজনীতি দলটিকে প্রশ্নবিদ্ধ করে রেখেছে আগাগোড়াই। দলটিতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্ভাসিত তারুণ্যের শক্তির আবেদন ক্ষমতালিপ্সু নীতিনির্ধারকদের নীতিহীন কৌশলের কাছে বারবার উপেক্ষিত হয়েছে। স্বাধীনতা-উত্তরকালে নিষিদ্ধ মুক্তিযুদ্ধবিরোধী সাম্প্রদায়িক রাজনৈতিক দল মুসলিম লীগের কবর রচিত হলেও জামায়াতে ইসলামীর সাংগঠনিক শক্তি অর্থ ও অস্ত্রনির্ভরতায় ধর্মীয় অনুভূতির পথে কতটা শক্তিশালী সেই জানান তারা দিয়েছে। জঙ্গিবাদীদের তৎপরতা গোপনে চলছে। সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচএম এরশাদ ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর কারাগারে বসে যেভাবে পাঁচটিতে বিজয়ী ও দমন-নির্যাতনে পতিত তার পার্টি ৩৫টি আসনে জয়লাভ করেছিল তাতে তৃতীয় রাজনৈতিক শক্তি হওয়ার সম্ভাবনা ছিল। কিন্তু একদিকে তাকে নিয়ে শাসকদের ইঁদুর-বিড়াল কেনা আর নিজের ভুলে দলে ভাঙাগড়ার কারণে সেটিও তিরোহিত। এইখানে মুক্তিযুদ্ধের চেতনানির্ভর অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক বাংলাদেশের জন্মের সঙ্গে নিবিড়ভাবে সম্পৃক্ত গণমুখী রাজনৈতিক দল বলতে এখনো অনেকের কাছে আওয়ামী লীগই সামনে এসে দাঁড়ায়। কিন্তু সাম্প্রতিককালে আওয়ামী লীগ নামের সংগঠনটি আদর্শবান পোড় খাওয়া ত্যাগী রাজনীতিবিদদের বদলে লুটেরা হাইব্রিডদের আগ্রাসনে পতিত। ত্যাগবাদী আওয়ামী লীগ দিনে দিনে নীরবে ঘাতক ক্যান্সারের মতো একটি আদর্শহীন ভোগবাদী আওয়ামী লীগে রুগ্ণ হতে যাচ্ছে। তাই আজ জেলায় জেলায় সুনামগঞ্জের আবদুজ জহুর, মাগুরার আসাদুজ্জামান, গাইবান্ধার লুৎফর রহমান, হবিগঞ্জের কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরীর মতো নেতাদের আদর্শ ও মূল্যবোধের উত্তরাধিকারিত্ব সংগঠনে প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে না। সারা দেশে খোঁজ নিলে আওয়ামী লীগের ইতিহাসের ক্যানভাসে এমন হাজার হাজার মুখ ভেসে উঠবে। তাদের জায়গায় একালের আওয়ামী লীগের জেলায় জেলায় রাতারাতি দল করে অঢেল বিত্তবৈভবের মালিক হওয়া হাইব্রিডদের মুখ ভেসে ওঠে। এদের সঙ্গে টেন্ডারবাজি, দখলবাজি, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি, এমনকি ইয়াবার মতো মাদক ব্যবসার খবর আসে!

৪. একসময় আওয়ামী লীগে দু-তিন বছর পরপর জেলা সম্মেলন হয়েছে। সামরিক শাসনামলেও তার ব্যত্যয় ঘটেনি। একালের আওয়ামী লীগে ১৭ বছর ধরে সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন হয় না। অনেক জেলারই চিত্র এমন। জেলায় জেলায় ছাত্রলীগ-যুবলীগের সম্মেলন বলতে কোনো কিছু যেন গঠনতন্ত্রে নেই। এক অদ্ভুত সিন্ডিকেট প্রথা লুটে নিয়ে যাচ্ছে প্রকাশ্য দিবালোকে মানুষের সম্পদ। এক সুনামগঞ্জ শহরেই ইদানীংকালে বন্যাকবলিত মানুষেরা লোডশেডিংয়ের কারণে টানা অন্ধকারে থেকেছে। অথচ প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিকতায় বিদ্যুতের সাবস্টেশন বসানোর নামে জমি অধিগ্রহণ করতে গিয়ে প্রশাসনের বিদায়ী কর্মকর্তার সঙ্গে ‘ধরি মাছ, না ছুঁই পানি’র মতো স্যুট টাই পরা এক যুবলীগ নেতা ও সৎ পিতার অসৎ ছেলে পাঁচ কোটি টাকা লুটে নিয়ে গেছে। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে এই দাম্ভিক লুটেরার কারণে প্রশ্ন রেখেছিলেন- আওয়ামী লীগ কি যুবলীগের নিয়ন্ত্রণে? এই কর্মীটিকে স্বয়ং মুজিবকন্যাও তৈরি করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু লোভের চোরাবালিতেই ডুবছে। বালু ও পাথর মহাল নিয়ে চলছে সরকারকে রাজস্ব বঞ্চিত করে হরিলুট। স্থানীয় সংসদ সদস্য সদর হাসপাতালের সংস্কার শুরু করেছিলেন দৌড়ঝাঁপ করে। এখানেও ঢাকায় বসে পূর্ত বিভাগের ঠিকাদার পাঁচ কোটি টাকার কাজের চার কোটিই ভাগ-বাটোয়ারা করে লুটে নিয়েছে। এমন খবরে প্রতিবাদমুখর শহর। এইচিত্র সারা দেশে। এর তদন্ত কি প্রয়োজন নেই? প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়ন এভাবেই ধূসর হয়ে যাচ্ছে লোভী হাইব্রিডদের জন্য। দলের সরকারের হচ্ছে দুর্নাম সিন্ডিকেট আর ব্যক্তির জন্য। যে আওয়ামী লীগ আজীবন ছিল জনগণের ওপর নির্ভরশীল, আস্থাশীল। জনগণকে নিয়ে জনগণের কল্যাণে কর্মসূচিনির্ভর রাজনীতি করেছে সেই আওয়ামী লীগ আজ সুযোগসন্ধানী দলকানা আমলা আর প্রশাসনের ওপর আস্থাশীল হয়ে উঠেছে। আজকের আওয়ামী লীগে আদর্শবান সৎ, গরিব রাজনৈতিক কর্মীরা তাচ্ছিল্যের শিকার। অন্যদিকে মানুষের কাছে চিহ্নিত দুর্নীতির বরপুত্র আর টেন্ডারবাজ, চাঁদাবাজদের বড় বেশি সমাদর! আওয়ামী লীগ নামের সংগঠনটি হাইব্রিডদের উন্নাসিক আচরণের ফলে, অনৈতিক কর্মকাণ্ডের কারণে, সিন্ডিকেট প্রথার সুবাদে গণমানুষ থেকেই নয়, কর্মী-সমর্থকদের কাছ থেকেও বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছে। যেন এ দল এখন আর গরিবের দল নয়। স্বাধীনতা-উত্তরকালে যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশ বিনির্মাণে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু যখন তার আদর্শবান নেতা-কর্মীদের নিয়ে অক্লান্ত পরিশ্রম করছিলেন তখনো একশ্রেণির হাইব্রিডার আর উন্নাসিক দুর্নীতিগ্রস্ত সিন্ডিকেট দল ও নেতৃত্বকে ইমেজ সংকটে ফেলেছিলেন। সেদিনও বঙ্গবন্ধুর কাছে সবটা পরিষ্কার ছিল না। এবারও বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার কাছে সব কিছু দৃশ্যমান নয়। ’৭৫-উত্তরকালে আওয়ামী লীগ নামের দলটির হাজার হাজার নেতা-কর্মী কারাগারে নিক্ষিপ্ত ছিলেন। চরম দমন-পীড়নের শিকার হয়েছিল নেতা-কর্মীরা। বঙ্গবন্ধু ও আওয়ামী লীগের নাম নেওয়া ছিল যেন বিপজ্জনক। আজকের আওয়ামী লীগের উন্নাসিক হাইব্রিড নেতা-কর্মীদের আচরণ দেখলে মনে হয় না অতীতের সেই দুঃসহ দিনগুলি দলটির মনে রয়েছে। সেই সময় বঙ্গবন্ধুর মতো মহান নেতাকে সপরিবারে হত্যাকাণ্ডের মধ্য দিয়ে, জাতীয় চার নেতাকে খুন করে গোটা আওয়ামী লীগকে কারাগারে নিক্ষিপ্ত করার পরও সারা দেশে এবং শিক্ষাঙ্গনে ছাত্রলীগের পতাকাতলে ‘এক মুজিব লোকান্তরে, লক্ষ মুজিব ঘরে ঘরে’ স্লোগান তুলে আদর্শবান তরুণরা প্রতিরোধের দীপ্ত শপথে জ্বলে উঠেছিলেন। বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরোত্তমের মতো আদর্শ সন্তানের নেতৃত্বে সশস্ত্র প্রতিরোধ যুদ্ধে জীবনের মায়াকে তুচ্ছ করে কর্মীরা বেরিয়ে এসেছিল। শতাধিক তরুণ জীবন দিয়েছিল। সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দীনের মতো মহীয়সী নারী স্বামী হারানোর বেদনা বুকে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের পতাকা নিয়ে আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করতে মাঠে নেমেছিলেন। বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া ব্যাপক জনপ্রিয় সংগঠক আবদুর রাজ্জাকের পাশাপাশি ’৬৯-এর গণআন্দোলনের নায়ক তোফায়েল আহমেদরা দলের জন্য আশার আলো হয়ে জ্বলে উঠেছিলেন। কর্মীদের আশ্রয়ের ঠিকানা হয়েছিলেন। তবুও ষড়যন্ত্রের ছোবল চলছিল। একটি ভাঙনের মুখে যখন দল তখন নেতা-কর্মীদের আশা-আকাক্সক্ষার পথে দলীয় ঐক্যের প্রতীক হিসেবে ভারতে নির্বাসিত মুজিবকন্যা শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগ নামের দলটির সভানেত্রী নির্বাচিত হয়ে দেশে ফিরে ঘোর অমাবস্যার অন্ধকারে পিদিমের আলো নিয়ে গণতন্ত্রের সংগ্রামে নিজেকে উৎসর্গ করেছিলেন। নতুন করে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক গণজাগরণ ঘটেছিল। আদর্শবান ত্যাগী নেতা-কর্মীদের উজ্জীবিত করে জনগণকে সংগঠিত করার মধ্য দিয়ে একুশ বছরের দীর্ঘ সংগ্রাম শেষে ’৯৬ সালে গণরায় নিয়ে দলকে ক্ষমতায় এনেছিলেন। তার পরের ইতিহাস সবারই জানা।

৫. আজকের আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের সামনে আদর্শিক কর্মসূচি নেই। কর্মশালা নেই। সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড নেই। সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড না থাকার কারণে রক্ত সঞ্চালন নেই। রক্ত সঞ্চালন নেই বলেই ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান আওয়ামী লীগ ৬৫ বছর বয়সে বার্ধক্যের জরাজীর্ণতায় ধুঁকছে। আওয়ামী লীগ এখন রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা বা প্রশাসননির্ভর রাজনৈতিক দল হওয়ার সুবাদে তার ঘুণে ধরা চিত্র দেখা যাচ্ছে না। দলটির জন্য যদি অদূর ভবিষ্যতে রাজনৈতিক চ্যালেঞ্জ বা বিপর্যয় নেমে আসে তাহলে প্রতিরোধের সংগ্রাম কতটা গড়তে পারবে তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, আওয়ামী লীগকে গণমানুষের দল হিসেবে জনগণের আশা-আকাক্সক্ষাকে লালন করেই পথ হাঁটতে হবে। সেই পথই আওয়ামী লীগের পথ। সুবিধাবাদী গণবিরোধী কর্মকাণ্ড আর ব্যক্তিস্বার্থে বিত্তবৈভব গড়ার অন্ধকার পথ আওয়ামী লীগের নয়। সেনাশাসনামলগুলোতে প্রতিষ্ঠিত রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতি আওয়ামী লীগসহ দেশের মানুষ বরাবর দুর্নীতি, লুটপাটসহ নানা অভিযোগের আঙ্গুল তুলেছে। সেই অভিযোগের আঙ্গুল যখন আওয়ামী লীগের মতো দলটির প্রতি ওঠে তখন টুঙ্গিপাড়ায় শায়িত বঙ্গবন্ধুর আত্মা কাঁদে। এটা সত্য, শেয়ার কেলেঙ্কারির সঙ্গে যারা জড়িত, সরকার গঠিত তদন্ত কমিটিতে যাদের নাম এসেছিল তারা কেউ আওয়ামী লীগের নন। ব্যাংকিং সেক্টরে সীমাহীন লুটপাটের নেপথ্যে যাদের নাম এসেছিল তারাও কেউ আওয়ামী লীগের নন। ক্ষমতা আশ্রিত মধ্যস্বত্বভোগী হাইব্রিড বা সুযোগসন্ধানী হতে পারেন। তবুও আওয়ামী লীগ নামের দলটি না দলীয় ফোরামে, না সরকারের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে আলোচনার মাধ্যমে ব্যবস্থা নিতে পেরেছে। মানুষের বুকের ভেতরে দিনে দিনে বেদনার স্তূপ জমা হতে থাকে। মানুষের প্রত্যাশা পূরণ করতে না পারলে শাসকের বিরুদ্ধে শরীর-মন বিদ্রোহ করে ওঠে। আর সেখান থেকেই নানা অজুহাতে যুগে যুগে দেশে দেশে এমনকি এই মাটিতেও গণবিক্ষোভের ঘটনা ঘটেছে। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক পরিবারের সন্তানই নন, দীর্ঘ সংগ্রামের পথ হাঁটা এক অভিজ্ঞ রাজনৈতিক নেত্রীও। এই দলে এখনো অনেক প্রজ্ঞাবান বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী রাজনীতিবিদ রয়েছেন। দলীয় কমিটির ভেতরে-বাইরে ছাত্রলীগের রাজনীতি থেকে ওঠে আসা মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য নেতৃত্ব ও সংগঠক রয়েছেন। কেন্দ্র থেকে জেলায় তাদের নিষ্ক্রিয় রাখা হয়েছে। দূরে রাখা হয়েছে। সেই নেতা সংগঠকদের সম্মিলন ঘটানো এখন সময়ের দাবি। হাইব্রিড, বিতর্কিত ও নিন্দিত নেতা-কর্মীদের বদলে আদর্শবান, গণমুখী নেতা-কর্মীদের দিয়ে কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যায়ে আওয়ামী লীগ নামের সংগঠনটিকে ঢেলে সাজানোই নয়, সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী করা এখন মাঠকর্মীদের প্রত্যাশা। ছাত্ররাজনীতির গৌরব ফিরিয়ে আনার মধ্য দিয়ে ছাত্রলীগ নামের সংগঠনটিকে টেন্ডারবাজি, চাঁদাবাজি, সন্ত্রাস আর অন্তর্কলহের কলঙ্কমুক্ত করে ঐতিহ্যের ধারায় ফিরিয়ে আনতে হলে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কলেজ পর্যন্ত ছাত্রসংসদ নির্বাচনের বদ্ধ দুয়ার খুলে দিতে হবে। ভাবতে হবে জেলা-উপজেলা পর্যায়ে ছাত্রলীগের কমিটি রাখার প্রয়োজনীয়তা আদৌ রয়েছে কিনা। নাকি ছাত্ররাজনীতি শুধু তাদের দাবি-দাওয়া ঘিরে নিয়মিত ছাত্রদের নিয়ে শিক্ষাঙ্গনেই সীমাবদ্ধ থাকবে।

৬. আওয়ামী লীগ নামের রাজনৈতিক দলটি নির্বাচনপূর্ব বিএনপি-জামায়াতের সহিংস হরতাল-অবরোধের কর্মসূচি থেকে দেশকে মুক্ত করে ক্ষমতা নিরঙ্কুশ করলেও ৫ জানুয়ারির ভোট কতটা প্রশ্নবিদ্ধ নিজেরাই ভালো জানে। একটি বড় রাজনৈতিক শক্তিই বাইরে নয়, ছোট ছোট অনেক দলও সংসদের বাইরে পড়ে আছে। তাদের মনে অসন্তোষ কম নয়। এমনকি সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণের সমর্থন নিয়ে পথ হাঁটতে গেলে সেই জনতার কল্যাণে উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের পথ হাঁটলেই হবে না, দলের উন্নাসিক হাইব্রিডদের কিংবা সিন্ডিকেটবাজদের টেন্ডারবাজি, দুর্নীতি থেকেও দেশকে মুক্ত করা জরুরি। গণমাধ্যম বরাবরই গণতন্ত্রের সংগ্রামে আওয়ামী লীগ নামের দলটির পাশে থেকেছে। ক্ষমতাসীনদের সমালোচনায় মুখর হলেও সরকারবিরোধী বা আওয়ামী লীগ বিদ্বেষী অবস্থানে যায়নি। গণমাধ্যমকে সম্প্রচার নীতিমালার নামে দূরে ঠেলে না দিয়ে কাছে টানার জন্য কী করণীয় তা নির্ধারণ করা এখন সময়ের দাবি। মিডিয়াবান্ধব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে এটি কোনো কঠিন কাজ নয়। যেসব আইন, বিধিবিধানের জোরে ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়া লাইসেন্স বা ডিকলারেশন নিয়েছে তা অনেক কঠিন। সরকারেরই অনুকূলে। নতুন করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ভাবমূর্তির দোহাই দিয়ে গণমাধ্যমের কণ্ঠ চেপে ধরতে গেলে সরকারের জন্য যেমন ইতিবাচক হবে না, তেমনি ভবিষ্যতে বিরোধী দলে আসা আওয়ামী লীগের জন্যও সুখকর হবে না। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সব সরকারের হয়েই কাজ করে। বিরোধী দলের হয়ে কাজ করে না। ক্ষমতায় কেউ চিরস্থায়ী নন। এটি উপলব্ধি আওয়ামী লীগ নেতৃত্বকে করতে হবে। আওয়ামী লীগের মন্ত্রী-নেতারা যা বিশ্বাস করেন তা খোলামনে প্রধানমন্ত্রীর কাছে তুলে ধরুন, সেটি কর্মীদের প্রত্যাশা। প্রধানমন্ত্রী দূরদর্শী চিন্তাভাবনা থেকে সম্প্রচার নীতিমালা নিজ উদ্যোগে স্থগিত করতে পারেন, সময় নিয়ে বিবেচনার জন্য। অতীতে অনেক ক্ষেত্রেই দেখা গেছে দায়িত্বশীলরা ব্যর্থ হলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই এগিয়ে এসে সিদ্ধান্ত দিয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে মানুষের ভাষা বোঝার ক্ষেত্রে কার্যকর ভূমিকা রেখেছেন। সবশেষে একটি কথাই বলা যায়, ১৭ বছর ধরে যদি একটি জেলায় আওয়ামী লীগ সম্মেলন না হয় তাহলে সেই সম্মেলনের দিন যারা শিক্ষাজীবন শেষ করে ছাত্রলীগের রাজনীতি থেকে বিদায় নিয়েছে বা আওয়ামী লীগের সদস্যপদ গ্রহণ করেছেন তাদের বয়স এখন পঞ্চাশের কাছাকাছি হলেও জেলা কমিটির সদস্যপদও লাভ করছেন না, নেতৃত্বে আসা দূরে থাক। বঙ্গবন্ধুর ছায়ায় ষাটের ছাত্রলীগের রাজনীতিতে পথ হেঁটে আওয়ামী লীগে অভিষিক্ত নেতাদের অনেকেই চিরনিদ্রা নিয়েছেন। তাদের ছায়ায় ’৭০ ও ’৮০-র দশকের ছাত্রলীগ নেতাদের যারা ইমেজ তৈরি করে সাংগঠনিক দক্ষতায় আওয়ামী লীগে ঠাঁই নিয়েছিলেন তারাও এখন অবহেলিত। ’৯০ দশক পর্যন্ত কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যায়ে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে নেতৃত্বদানকারী সংগঠকরা পরিচয় সংকটেই ভুগছেন। সব মিলিয়ে আওয়ামী লীগ নামের দলটিতে নতুন করে কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যন্ত প্রাণের সঞ্চার ঘটাতে, জাতীয় কাউন্সিল ও জেলা সম্মেলনের মাধ্যমে নেতৃত্বে আদর্শবান নবীন-প্রবীণের সমন্বয় ঘটাতে মুজিবকন্যা শেখ হাসিনার দিকেই সবার দৃষ্টি। সাংগঠনিক এই বিপর্যয় থেকে আওয়ামী লীগকে বের করতে তার বিকল্প নেতৃত্ব দলে নেই। তিনিই দলে শেষ কথা। গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের ধারায় দল সাজানোর দায়িত্ব তাকেই নিতে হবে।আহমদ ছফা বলেছিলেন, আওয়ামী লীগ জিতলে মুষ্টিমেয় লোক জিতে আর পরাজিত হলে জাতি হারে। তাই দেশ ও মানুষের জন্য একটি গণমুখী রাজনৈতিক দল হিসেবে আওয়ামী লীগকে ঢেলে সাজাতে ‘আওয়ামী লীগ বাঁচাও-হাইব্রিড হটাও’ স্লোগানকেই কার্যকর করা জরুরি। এখানে বিভেদ-বিভক্তি, ভুল বোঝাবুঝির বদলে দলের আদর্শবান নেতা-কর্মীর ইস্পাতকঠিন ঐক্য জরুরি। মানুষ চায় না আর সহিংসতা। হরতাল অবরোধের রাজনীতি। মানুষ হত্যার কর্মসূচি। মানুষ শান্তি চায়। উন্নয়ন চায়। বেপরোয়া দুর্নীতি, উন্নাসিকতা, দলীয়করণের মহোৎসবে কখনোই শান্তি ফিরে আসে না। অস্থিরতাই বাড়ে।

আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা লিখেছেন, বলেছেন, আওয়ামী লীগই পারে, আওয়ামী লীগ পারবে। আমরাও চাই পারুক। পারতে হলে আবদুজ জহুরদের মতো, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের একনিষ্ঠ কর্মী প্রয়োজন। যাদের নাম ইয়াবা, সন্ত্রাস, দখল লুটপাটে আসবে না। মানুষের কল্যাণে আসবে।

লেখক : নির্বাহী সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রতিদিন

উৎসঃ   বাংলাদেশ প্রতিদিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ