• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৫৪ অপরাহ্ন |

মন্ত্রিসভা থেকে নেতাদের পদত্যাগের নির্দেশ এরশাদের

Arsadসিসি নিউজ: মন্ত্রিসভা থেকে দলের নেতাদের পদত্যাগ করতে বললেন জাতীয় পার্টি (জাপা) চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদ। রোববার সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত দলের পার্লামেন্টারি পার্টির বৈঠকে তিনি এই নির্দেশ দেন। তার বক্তব্যের সঙ্গে একমত পোষণ করেছেন দলের পার্লামেন্টারি পার্টির প্রধান ও বিরোধী দলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদও। তবে গতকালের বৈঠকে এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়নি। পার্লামেন্টারি পার্টির পরবর্তী বৈঠকে এ বিষয়ে দলের মন্ত্রীরা নিজেদের সিদ্ধান্ত জানাবেন বলে সবাই সম্মত হয়েছে বলে জানা গেছে।

আজ সোমবার শুরু হতে যাওয়া দশম সংসদের তৃতীয় অধিবেশনকে সামনে রেখে জাপার পার্লামেন্টারি পার্টির এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। রওশন এরশাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এরশাদও যোগ দেন। বৈঠকে উপস্থিত জাপার একাধিক সংসদ সদস্য ইত্তেফাককে জানান, দলের নেতাদের মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগের বিষয়টি উত্থাপন করেন এরশাদ। এসময় এরশাদ বলেন ‘আমরা বিরোধী দল, এটা দেশের মানুষ বিশ্বাস করে না। আমরা সত্যিকারের বিরোধী দল হতে চাই। কিন্তু মন্ত্রিসভায় থেকে সত্যিকারের বিরোধী দলের ভূমিকা পালন করা সম্ভব হচ্ছে না। আমি বিভিন্ন জায়গায় যাচ্ছি, সবখানেই সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলছি, সরকারের সমালোচনা করছি। কিন্তু মানুষ এনিয়ে হাসে, তারা আমাকে বলে-নিজেরা সরকারে থেকে আবার বিরোধিতাও করছে। আমাকে নিয়ে পত্রপত্রিকায় কার্টুনও ছাপা হচ্ছে। এটা আমার জন্য লজ্জার। সেজন্য আমি তোমাদেরকে বলবো (দলের মন্ত্রীদের)-তোমরা অবিলম্বে সরকার থেকে বেরিয়ে এসো।’

এরশাদের এই বক্তব্যে সমর্থন দিয়ে রওশন এরশাদ বলেন ‘দলের চেয়ারম্যান যেটা বললেন, সেটি সত্য কথা। এটা একটা সমস্যা। আসলে সরকারে থেকে বিরোধী দলের ভূমিকা যথাযথভাবে পালন করা যায় না। এনিয়ে মানুষের মধ্যেও বিভ্রান্তি রয়েছে। তাছাড়া আমাদের অনেক এমপি আমার কাছে অভিযোগ করেছেন, তারা দলের মন্ত্রীদের কাছ থেকে কোনো সহযোগিতা পাচ্ছেন না। যদি দলের কোনো উপকারে না আসে, তাহলে আর মন্ত্রিসভায় থেকে লাভ কী? সেজন্য আমিও মনে করি, সরকার থেকে বেরিয়ে আসলে দলের জন্য ভালো হবে। আমরা সত্যিকারের বিরোধী দল হিসাবে ভূমিকা পালন করতে চাই।’

সূত্রমতে, রওশনের এই বক্তব্যের জের ধরে জাপার এমপি এবং পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গা বলেন ‘আমরা মন্ত্রী হয়েছি বলে যা খুশি তা করতে পারি না। আমাদের সীমাবদ্ধতা রয়েছে। তাছাড়া এটা জাপার সরকার নয়, সরকারের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ।’ একথার পর এরশাদের উদ্দেশে রাঙ্গা বলেন ‘স্যার আপনিও কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত, পূর্ণ মন্ত্রীর মর্যাদায়। সুতরাং সিদ্ধান্ত নিতে হলে সবকিছু ভেবে-চিন্তেই নেয়া উচিত।’

মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগের বিষয়ে আলোচনাকালে জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য ও পানিসম্পদ মন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেন ‘সত্যিকারে যখন আমরা পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নেব, এটা নিয়ে তখন আলোচনা করাই ভালো। এর আগে এনিয়ে কথা বললে পত্রপত্রিকায় লেখালেখি হবে, এটা ঠিক হবে না।’

সূত্রমতে, এই পর্যায়ে দলের মন্ত্রী-এমপিদের উদ্দেশে এরশাদ আবারও বলেন ‘আমরা তো বিরোধী দল। এটা তো তোমরা মানো, নাকি! সরকারি দল হিসাবে তো আমরা সংসদে বসি না, আমরা তো বিরোধী দল। তাহলে মন্ত্রী থাকি কী করে? আমরা যদি সত্যিকারের বিরোধী দল হতে না পারি, তাহলে জনগণ আমাদের কাছ থেকে মুখ ফিরিয়ে নেবে। এতে লাভ হবে বিএনপি-জামায়াতের। তাহলে সুযোগ পেয়েও আমরা কেন অযথা সময় নষ্ট করছি। আমি তোমাদের ভালো চাই, দলের মঙ্গল চাই, তাই আমার নির্দেশ হলো-কালক্ষেপণ না করে তোমরা সরকার থেকে বেরিয়ে এসো।’

জানা গেছে, বৈঠকে বিরোধী দলীয় উপ-নেতা মনোনয়নের বিষয়টিও উঠে আসে। কাজী ফিরোজ রশীদকে বিরোধী দলীয় নেতা হিসেবে নিয়োগের ব্যবস্থা করার জন্য নিজে স্পিকারকে চিঠি দিয়েছেন উল্লেখ করে রওশন বলেন ‘ও (ফিরোজ রশীদ) সংসদে ভালো করছে, সরকারের ভুলত্রুটি নিয়ে ভালো কথা বলে। এজন্য সে আমাদের উপনেতা হলে ভালো হয়। একথা চিন্তা করেই আমি স্পিকারকে চিঠি দিয়েছি।’

এসময় এরশাদকে লক্ষ্য করে রওশন বলেন ‘আমি স্পিকারকে চিঠি দেয়ার পর তুমি তাকে একটা পাল্টা চিঠি দিয়েছ, চিঠি দিয়ে তুমি ফিরোজের বিরোধিতা করেছ। এটা করার সময় তো আমার সাথে আলোচনা করতে পারতে।’ এসময় এরশাদ নিশ্চুপ ছিলেন, রওশনের উদ্দেশে শুধু বলেছেন ‘তুমিও তো আমার সঙ্গে আলাপ করোনি।’

দলের একাধিক এমপি জানান, সংসদে বিরোধী দলের চিফ হুইপ তাজুল ইসলাম চৌধুরী ও হুইপ শওকত চৌধুরীরও সমালোচনা করেন এরশাদ। তাদের উদ্দেশ করে এরশাদ বলেন ‘তোমরা সবকিছু নিজেরা সিদ্ধান্ত নাও। আমাকে জিজ্ঞাসাও করো না। এতে দলের মধ্যে বিভক্তি, উপদল, কোন্দল সৃষ্টি হয়েছে।’

এদিকে, বৈঠক শেষে বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ তাজুল ইসলাম চৌধুরী সাংবাদিকদের জানান, সংসদের এবারের অধিবেশনে বিচারপতিদের অভিশংসনের ক্ষমতা সংসদের হাতে ফিরিয়ে আনতে সংবিধান সংশোধনের প্রস্তাব এলে জাপা বিরোধিতা করবে বলে পার্লামেন্টারি পার্টির বৈঠকে কথা হয়েছে। জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালা নিয়েও একই অবস্থান নেবে বিরোধী দল। তিনি বলেন, আমরা নীতিগতভাবে সংবিধান সংশোধনের প্রস্তাবের বিরোধিতা করব, বিরোধী দলের মতোই বিরোধিতা করব। তবে বিলটি সংসদে আসার পর খুঁটিনাটি পরীক্ষা করব, ভালো কিছু থাকলে সমর্থন করব। বৈঠক শেষে প্রতিমন্ত্রী রাঙ্গাও সাংবাদিকদের বলেন, আমরা সংবিধান সংশোধন বিলের বিরোধিতা করব।– সূত্র: ইত্তেফাক


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ