• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১২:৪৭ অপরাহ্ন |

অনিয়মের অভিযোগে হাশেম ও তার দুই ছেলেকে দুদকে তলব

Hasamঢাকা : ১৫০ কোটি টাকার চিনি আমদানিতে অনিয়মের অভিযোগে পারটেক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান এম এ হাশেম ও তার দুই ছেলেকে আগামীকাল তলব করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।ঋণ জালিয়াতির মাধ্যমে সোনালী ব্যাংকের দেড়শ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে পারটেক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান এম এ হাসেম ও তার দুই ছেলে শওকত আজিজ ও রুবেল আজিজকে তলব করা হয়।মঙ্গলবার সকাল দশটায় তাদের দুদকের প্রধান কার্যালয়ে হাজির হতে বলা হয়েছে।নোটিশের বিষয়ে সোমবার দুপুরে নিশ্চিত করেন দুদকের অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা ও উপ-পরিচালক মীর জয়নুল আবেদীন শিবলী।

শওকত পারটেক্স গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং রুবেল প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক।দুদকের কাছে আসা অভিযোগে দেখা যায়, বিদেশ থেকে অপরিশোধিত চিনি আমদানির নামে ২০১১ সালে মাত্র সাত কোটি ৪২ লাখ টাকার এফডিআরের বিপরীতে (১৮০ দিন বিলম্বে পরিশোধের ভিত্তিতে) বঙ্গবন্ধু এভিনিউ শাখায় ১৫০ কোটি টাকার দুইটি এলসি খোলে পারটেক্স সুগার মিলস।এলসির বিপরীতে ৩০ হাজার টন অপরিশোধিত চিনি আমদানি করলেও তা বিক্রি করে কোনও টাকা ব্যাংকে জমা করেনি। এতে পারটেক্স সুগার মিলসের কাছে সোনালীব্যাংকের পাওনা দাঁড়ায় ১৩৬ কোটি টাকা। এলসি খোলার আগেও পারটেক্স গ্রুপের ২২ কোটি টাকা দায় ছিল। ব্যাংকের নিয়মানুযায়ী অনাদায়ী থাকাকালে নতুন এলসি খোলা যায় না।
দুদকের বিশেষ অনুসন্ধান ও তদন্ত বিভাগ সূত্র আরো জানায়, পারটেক্স সুগারের চারটি এলসির বিপরীতে পাঁচ শতাংশ নগদ অর্থ জামানত হিসাবে দেওয়ার নিয়ম। কিন্তু নিয়ম ভেঙে প্রতিষ্ঠানটি ও সোনালী ব্যাংকের কিছু কর্মকর্তা ওই চারটি এলসির বিপরীতে জমা রেখেছেন প্রতিষ্ঠানটির এফডিআর (স্থায়ী আমানত)।আর নিয়ম অনুযায়ী এফডিআর থেকে প্রাপ্ত সুদ সব সময় জমা হয় গ্রাহকের হিসাবে। ফলে এলসির বিপরীতে আমানত রাখা এফডিআরের সুদ জমা হয়েছে পারটেক্স সুগারের হিসাবে। অন্যদিকে ব্যাংকের হিসাবের খাতায় কোনো অর্থ জমা হয়নি। এভাবে ১৫০ কোটির টাকার বেশি আর্থিক ক্ষতি করা হয়েছে সোনালী ব্যাংকের।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ