• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০১:৫৫ পূর্বাহ্ন |

পদ্মাসেতু মামলা শেষ হওয়ার আগেই শেষ!

padma-bridge-e1404131544366ঢাকা: অবশেষে দেশে বিদেশে বহুল আলোচিত-সমালোচিত পদ্মাসেতু দুর্নীতি ষড়যন্ত্রের মামলার অধ্যায় শেষ হওয়ার আগেই শেষ করে দিল দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুদক কার্যালয়ের কনফারেন্স রুমে বুধবার বিকেলে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে পদ্মাসেতু মামলার এফআরটির (চূড়ান্ত প্রতিবেদন) বিষয়টি জানান দুদক চেয়ারম্যান মো. বদিউজ্জামান। অথচ কানাডার আদালতে মামলাটি এখনও চলমান।

কানাডার আদালতে চলছে দেশে শেষ কেন? দুদক চেয়ারম্যানকে এ ব্যাপারে সাংবাদিকরা প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, ‘কানাডার কোর্টের মামলার ধরন ও বাংলাদেশের মামলার ধরন আলাদা। কানাডায় যে মামলা চলছে তা ষড়যন্ত্রের মামলা নয়। তবে আমাদের দেশে যে মামলা হয়েছিল তা ষড়যন্ত্রের মামলা। ফলে কানাডার আদালতের রায়ে আমাদের এ মামলায় কোনো প্রভাব ফেলবে না।’

তিনি বলেন, ‘আমরা এমন কোনো তথ্য প্রমাণ পাইনি যা আদালতে উপস্থাপন করা যাবে। আমরা তদন্ত করে দেখেছি পরামর্শক নিয়োগে কোনো ষড়যন্ত্র হয়নি।’

কানাডীয় নির্মাণ প্রতিষ্ঠান এসএনসি-নাভালিনের কর্মকর্তা রমেশের শাহর ডায়েরি নিয়ে কানাডা ও বাংলাদেশে ব্যাপক তোলপাড় হয়েছে। ওই ডায়েরিতে কমিশনের হিসাব নিকাশ লেখা ছিল বলে শুনা যায়। এ ব্যাপারে তথ্য নিতে দুদক টিম কানাডা ঘুরেও এসেছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে কমিশনার সাহাবুদ্দিন চুপ্পু দাবি করেন, ‘রমেশের ডায়েরির কোনো অস্তিত্ব নেই। রমেশের ডায়েরি বলে কিছু নেই। শুধুমাত্র বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদনে ‘ডায়েরি’ শব্দটা ছিল। কানাডার আদালতে তা বলা হয়েছে ‘নোটবুক’। আমরা ওই নোটবুকের কপি পর্যালোচনা করে দেখেছি। তাতে কোনো আসামিকেই দোষী সাব্যস্ত করা যায় না।’

তাহলে বিশ্বব্যাংকের চাপেই মামলা হয়েছিল কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘প্রশ্নই ওঠে না। তবে বিশ্বব্যাংকের কাছ থেকে তথ্য-প্রমাণ পাওয়ার আশায় আমরা এজাহার করেছি। তদন্তের স্বার্থে এজাহারভুক্ত আসামিদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’

এখন যেহেতু তারা নির্দোষ প্রমাণিত হলেন তাহলে আসামিদের সামাজিকভাবে সম্মানহানি হয়েছি কি না, আর দুদক এটা করতে পারে কি না জানতে চাইলে দুদক চেয়াম্যান মো. বদিউজ্জামান বলেন, ‘দুদক আইন মেনেই সকল কার্যক্রম পরিচালনা করেছে এবং করবে। আর দুদক যদি কাউকে সন্দেহ করে তাহলে তাকে আসামি করতেই পারে এই অধিকার দুদকের রয়েছে।’

বিশ্বব্যাংক পদ্মাসেতুতে ফের অর্থায়ন করতে রাজি হয়েছে বলেই কি মামলা থামিয়ে দেয়া হলো? এমন প্রশ্নে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, ‘মোটেই না। বিশ্বব্যাংকের অনুরোধেই আমরা অনুসন্ধান এবং তদন্ত করেছি। বরং তারা আমাদেরকে সহায়তা করবে বলে কথা দিয়েও কোনো সহায়তা করেনি।’

সর্বশেষ প্রশ্নে পদ্মাসেতুতে বিশ্বব্যাংকের দুর্নীতি ষড়যন্ত্রের অভিযোগ উদ্দেশ্যমূলক ছিল কি না জানতে চাইলে উত্তরে কমিশনার চুপ্পু বলেন, ‘সামথিং ওয়াজ দেয়ার।’

উল্লেখ্য, কানাডার আদালত থেকে তথ্য পাওয়ার পর অনেকটা লুকোচুরি করে সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন এবং সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আবুল হাসানকে জিজ্ঞাসাবাদ সম্পন্ন করে দুদক। গত ১২ জুলাই আবুল হাসান চৌধুরীকে এবং পরদিন ১৩ জুলাই সৈয়দ আবুল হোসেনকে দুদকের বাইরে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে সৈয়দ আবুল হোসেন ছয় পৃষ্ঠার একটি লিখিত বক্তব্য দেন। তাতে তিনি আবারও পদ্মাসেতু প্রকল্পে ন্যূনতম দুর্নীতি বা দুর্নীতির ষড়যন্ত্র হয়নি দাবি করেন।

তাদের চতুর্থবারের মতো জিজ্ঞাসাবাদ করেন দুদকের উপপরিচালক ও তদন্ত কর্মকর্তা মির্জা জাহিদুল আলম। এছাড়াও ঢাকায় পদ্মাসেতুর পরামর্শক নিয়োগে দুর্নীতির ঘটনায় এই পর্যন্ত যত জনের নাম এসেছে তাদের সবার বক্তব্য আবার নেয়া হয়েছে। পাশাপাশি নেয়া হয়েছে বিশেষজ্ঞ কমিটির বক্তব্য।

২০১২ সালের ১৭ ডিসেম্বর রাজধানীর বনানী থানায় (মামলা নং ১৯) মোট সাতজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে দুদক। মামলায় আসামিরা হলেন- সেতু বিভাগের সাবেক সচিব মোশাররফ হোসেইন ভূঁইয়া, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী কাজী মো. ফেরদৌস, সড়ক ও জনপথ বিভাগের (সওজ) নির্বাহী প্রকৌশলী মো. রিয়াজ আহমেদ জাবের, ইপিসির উপব্যবস্থাপনা পরিচালক গোলাম মোস্তফা, কানাডীয় প্রকৌশলী প্রতিষ্ঠান এসএনসি লাভালিনের ভাইস-প্রেসিডেন্ট কেভিন ওয়ালেস, আন্তর্জাতিক প্রকল্প বিভাগের প্রাক্তন ভাইস-প্রেসিডেন্ট রমেশ শাহ এবং প্রাক্তন পরিচালক মোহাম্মদ ইসমাইল।

তবে মামলার এজাহারভুক্ত আসামি না হলেও সৈয়দ আবুল হোসেন এবং আবুল হাসান চৌধুরীকে সন্দেহভাজনের তালিকায় রাখা হয়েছিল।

এদিকে কানাডার অন্টারিওর সুপিরিয়র কোর্ট অব জাস্টিসের আদালতে আগামী বছরের ১৩ এপ্রিল পদ্মাসেতু দুর্নীতি ষড়যন্ত্র মামলার বিচার শুরু হবে বলে জানা গেছে।

কানাডার রয়্যাল অন্টারিও মাউন্টেড পুলিশের (আরসিএমপি) দাবি, পদ্মাসেতু প্রকল্পের কাজ পাইয়ে দিতে দুর্নীতির যে ষড়যন্ত্র হয়েছে তার যথেষ্ট প্রমাণ আরসিএমপির হাতে রয়েছে এবং তারা সেগুলো আদালতে উপস্থাপন করেছে।

উল্লেখ্য, ঘুষ দিয়ে বাংলাদেশের পদ্মাসেতু প্রকল্পের কাজ পাইয়ে দিতে ষড়যন্ত্র করার অভিযোগে রয়্যাল অন্টারিও মাউন্টেড পুলিশ (আরসিএমপি) এসএনসি লাভালিনের সাবেক কয়েকজন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে। এদের মধ্যে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মোহাম্মদ ইসমাইল, ভারতীয় বংশোদ্ভূত রমেশ শাহ, কেভিন ওয়ালেস ছাড়াও বাংলাদেশের সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আবুল হাসান চৌধুরীকে অভিযুক্ত করা হয়। পরে আদালতের এখতিয়ার নিয়ে তোলা প্রশ্নের পরিপ্রেক্ষিতে আবুল হাসান চৌধুরীকে মামলা থেকে আপাতত অব্যাহতি দেয়া হয়

বাংলামেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ