• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৩৫ অপরাহ্ন |

পার্বতীপুরে বড়পুকুরিয়ায় কয়লা খনির ৩০০মেঃ টন কয়লা হরিলুট, থানায় জিডি| তদন্ত টিম গঠন

একরামুল হক বেলাল, সিসি নিউজ: পার্বতীপুর বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির ৩০০মেট্রিক টন কয়লা হরিলুট করেছে কর্তৃপক্ষ। খনির হিসাব নম্বরে কোন টাকা জমা না পলেও  বন্ধের দিনে কয়লা ডেলিভারী দেয়া হয়েছে । থানায় জিডি করার কথা খনির উর্ধত্বন কর্তৃপক্ষ স্বীকার করেছেন। ব্যাংক ও কয়লা ডেলিভারী গেটে তদন্ত কমিটির লোক জন তদন্তে আসলেও ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার জোর পায়তারা চলছে।

জানা গেছে, পার্বতীপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি থেকে ঢাকা সাভারের জিরানীবাজার এলাকার এক ব্যবসায়ী রবিন ট্রের্ডাস নামে ৩০০মেট্রিক টন কয়লা ভুয়া কাগজ-পত্রে ত্রুয় করে। যোগ সাজসে তিনি আরাফাত হোসেনে কাছে তা বিক্রয় করে। গত ১৫’মে বৃহস্পতিবার অগ্রনী ব্যাংক,ফুলবাড়ী শাখায়, ৯২০০(সরকারী বিত্রুয় মূল্য) টাকা প্রতি টন হিসেবে মোট কয়লার মুল্য ২৭ লাখ ৬০ হাজার টাকা জমা দানের জাল/ভুয়া একটি মুড়ি ও ব্যাংক প্রত্যায়ন পত্র/সাটিফিকেট তৈরী করে আবেদনের সাথে তা খনির কয়লা বিত্রুয় শাখায় জমা দেয় হয়।

কম্পিউটার অপারেটর শাকিল আহাম্মেদ এর কাছে আবেদন ও ব্যাংক সাটিফিকেট জমা দানের পর তিনি তা ডিজিএম (হিসাব) গোপাল চন্দ্র সাহার কাছে নিয়ম অনুযায়ী যাছাই বাছাইয়ের জন্য উপস্থাপন করেন। ডিজিএম (হিসাব) ব্যাংক কাগজ-পত্র সঠিক বলে জিএম আব্দুল মান্নান পাটোয়ারীর (অর্থ ও হিসাব) কাছে ডেলিভারী অর্ডার দানের জন্য পাঠিয়ে দেন। সেদিনে ১৫ মে বৃহস্পতিবার বিকেলে ডেলিভারী অর্ডার(ডিও) প্রদান করা হয়। কিন্তুু বৃহস্পতিবার রবিন ট্রের্ডাস পক্ষে উক্ত কয়লা ডেলিভারী নেয়া হয়নি। পরে শুত্রু ও শনি সরকারী ছুটির এ দুই দিনে ১৭ ট্রাকে ৩০০ মেঃ টন কয়লা ডেলিভারী দেয়া হয়।

বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির এমডি আলিমুজ্জামান সাহেবকে গত রবিবার ও সোমবার একাধিকবার মুঠোফোনে  যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোনটি রিসিভ করেনি।

এ বিষয়ে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির ঢাকা লিয়াজু অফিসের মহা-ব্যবস্থাপক আবুল কাসেম প্রধানীয়া গত রবিবার বিকেলে মুঠোফেনে এ প্রতিনিধিকে বলেন, ভুয়া ডিওতে ৩০০ মেঃ টন কয়লা উত্তোলনের ঘটনা সঠিক। জিএম(প্রশাসন) একেএম সিরাজুল ইসলামকে আহবায়ক, জিএম এটিএম নুরুজ্জামান চৌধুরি ও ডিজিএম সাইফুল ইসলামকে সদস্য করে ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত টিম গঠন করা হয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

জিএম(অর্থ ও হিসাব)আব্দুল মান্নান পাটোয়ারী মুঠোফেনে বলেন, আমি ছুটিতে আছি। তবে ঘটনাটি নিয়ে থানায় জিডি করা হয়েছে। তিনি ডিজিএম গোপাল চন্দ্র সাহার সংগে কথা বলতে অনুরোধ করেন। ডিজিএম গোপাল চন্দ্র সাহা ঘটনা সর্ম্পন্ন অস্বীকার করে বলেন, আমি এ সব বিষয়ে জানিনা।
এদিকে গুঞ্জন উঠেছে ডিজিএম গোপাল চন্দ্র সাহা প্রতিদিন শ শ ডিও যাছাই বাছাই করেন। তার পরও অগ্রনী ব্যাংকের উক্ত জাল সাটিফিকেটি কি ভাবে পাশ হলো ? তাহলে অথিতেও কি এ ভাবেই ব্যাংকের  জাল সাটিফিকেট দিয়ে ডেলিভারী অর্ডার প্রধান করা হয়েছে ?

ডিএম প্রশাসন মাসুদুর রহমান বলেন, ঘটনাটি আমরা গত ২০ দিন আগে জানতে পেরেছি। গত ৫ দিন পূর্বে পার্বতীপুর বড়পুকুরিয়া তদন্ত কেন্দ্রে একটি সাধারন ডাইরী করা হয়েছে। গঠিত তদন্ত টিম তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছেন।

এদিকে অগ্রনী ব্যাংক,ফুলবাড়ী শাখা ম্যানেজার প্রফুল্য চন্দ্র রায় বলেন, গত ১৫ মে রবিন ট্রের্ডাস নামে ৩০০ মেট্রিক টন কয়লার কোন ডিও এ ব্যাংক থেকে হয়নি। কয়েকদিন পূর্বে খনির ৩ জন কর্মকর্তা ভুয়া ব্যাংক সাটিফিকেট/ প্রত্যায়ন পত্র টি নিয়ে তদন্তে আমার কাছে এসেছিলেন। তাতে দেখা যায় সীল ও স্বাক্ষর জাল করা হয়েছে। ব্যাংক সাটিফিকেট/ প্রত্যায়ন পত্র টি ভুয়া প্রমানিত হয়েছে।

সূত্রটি জানায়, খনি গেট থেকে নুস আত ট্রের্ডাসের মালিক আরাফাত হোসেন ও তার ব্যবসায়ীক অংশিদার আব্দুস ছামাদ মাষ্টার কয়লা ডেলিভারী নেন। আরাফাত হোসেন বর্তমানে ফুলবাড়ীর আবুল হোসেনের বাড়ীর নীচ তালায় ভাড়া থাকেন। তিনি কিছু দিন পূর্বে একটি প্রাইভেট কার ত্রুয় করেন। এ ছাড়াও বিলাশবহুল জীবন যাপনের জন্য তিনি ফুলবাড়ী ও গ্রামের বাড়ী জয়পুরহাট জেলার কালাই উপজেলার হারাইল গ্রামে এসি লাগিয়েছেন।

সূত্রটি আরো জানায়, কম্পিউটার অপারেটার শাকিল আহাম্মেদ এর সাথে আরাফাত হোসেনের যথেষ্ট সু-সর্ম্পক রয়েছে। শাকিল আহাম্মেদও কিছুদিন পূর্বে একটি অত্যাধুনিক মটরসাইকেল ক্রয় করে চলা ফেরা করছেন।

নুস আত ট্রের্ডাসের মালিক আরাফাত হোসেনের সংগে শাকিল আহাম্মেদ এর সু-সর্ম্পক থাকায় এ ৩০০মেট্রিক টন কয়লার ডিও টি পরিকল্পিত ভাবে বিত্রুয় শাখা থেকে পার হয়ে যায়। এ ঘটনায় খনির একটি সিন্ডিকেট কাজ করছে বলে গুঞ্জন উঠেছে।

আরাফাত হোসেন ইতোপূর্বে আর এফ এল (প্লাটিক) কোম্পানির দিনাজপুর জেলার দায়ীত্বে থাকা অবস্থায় মোটা অংকের অর্থ কেলেঙ্কারীর ঘটনা ঘটে। যা পরে মিমাংশা করা হয়। পরে আরাফাত হোসেন তার শ্যালক জাকারিয়া হোসেন নয়নের, রহমান ট্রের্ডাস নামের লাইসেন্স দিয়ে তিন ভায়রা খোলাহাটি ডিগ্রী কলেজের ইংরেজী প্রভাষক দেলোয়ার হোসেন, পলাশবাড়ী ইউনিয়নের কালিকাপুর গ্রামের সাব্বির আহাম্মেদ ও আরাফাত হোসেন মিলে কয়লার ব্যবসা শুরু করে। এ সময় বিভিন্ন অনিয়মের কারনে দেলোয়ার হোসেন ও সাব্বির আহাম্মেদ প্রতিষ্টান থেকে কেটে পড়ে। পরে আরাফাত হোসেন নুস আত ট্রের্ডাস নামে লাইসেন্স করে আব্দুস ছামাদ মাষ্টারকে নিয়ে ব্যবসা শুরু করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ