• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১০:৫৮ অপরাহ্ন |

দুবাই থেকে পালিয়ে যে ভাবে দেশে ফিরলেন মিনারা

89858_1সিসি ডেস্ক: দুবাইয়ে বিক্রি হওয়া মিনারা বেগম দেশে ফিরেছেন। গত ১৮ই আগস্ট বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের একটি ফ্লাইটে তিনি চট্টগ্রামে পৌঁছেন। দেশে ফিরে বিক্রি হওয়া ও সেখান থেকে ফিরে আসার বর্ণনা দিয়েছেন তিনি। মিনারা জানান, এ বছরের ২১শে মার্চ চট্টগ্রাম এয়ারপোর্ট থেকে দুবাইয়ের উদ্দেশে রওয়ানা হন। এয়ারপোর্টে তাকে বিদায় জানান তার ছোট বোন, ভগ্নিপতি ও সেতারা বেগম। সেতারা বেগমের মাধ্যমে তিনি দুবাইয়ের ভিসা সংগ্রহ করেছিলেন। দুবাইয়ে পৌঁছানোর পর তাকে নাজমা বেগম নামে এক মহিলা এয়ারপোর্টে গ্রহণ করে বাসায় নিয়ে যান। নাজমার বাসায় গিয়ে মিনারা অসুস্থ হয়ে পড়েন। ওই অবস্থায় তাকে গৃহকর্মীর কাজ করতে হতো। এক মাস নাজমার বাসায় থাকার পর তাকে একটি ম্যাসাজ পার্লারে পাঠানো হয়। পার্লারের মালিক মমতাজের কাছে ৮০০০ দিরহামের বিনিময়ে বিক্রি করে দেন নাজমা। সেখানে তাকে কাজের ট্রেনিং দেয়া হয়। কিন্তু পার্লারে কাজ শুরু করার পর মিনারা বুঝতে পারেন সেখানকার পরিবেশ ভাল না। ওই প্রতিষ্ঠানে আরও কয়েকজন মেয়ে কাজ করে। তাদের দ্বারা ম্যাসাজের নামে অনৈতিক কাজ করানো হতো। তখন পার্লারে কাজ করতে অস্বীকৃতি জানান মিনারা। এ জন্য তাকে মারধর করে মাথার চুল কেটে দেয়া হয়। এরপর মমতাজ ভারতীয় এক ব্যবসায়ীর কাছে ৯০০০ দিরহামের বিনিময়ে মিনারাকে বিক্রি করে দেন। তাকে একটি বাসায় নিয়ে যান ওই ভারতীয় নাগরিক। বাসার সামনের গেট সবসময় তালাবদ্ধ থাকতো। পেছনের গেট দিয়ে বাসার লোকজন যাতায়াত করতো। বাসার তৃতীয় তলায় আরও ৫ মেয়েকে রাখা হয়েছিল। তাদের দিয়ে দেহ ব্যবসা করানো হতো। ওই মেয়েদের সঙ্গে কথা বলে মিনারা পালানোর বুদ্ধি আঁটেন। তিনতলা থেকে নামার জন্য কয়েকটি শাড়ি পেঁচিয়ে রশির মতো তৈরি করা হয়। এরপর খাটের সঙ্গে রশির একপ্রান্ত বেঁধে অপরপ্রান্ত ফেলে দেয়া হয়। সেই রশি বেয়ে ওই ৫ মেয়েসহ মিনারা নিচে নামেন। এরপর রাস্তায় নামলে তারা পুলিশের চেকপোস্টে ধরা পড়েন। তাদের কাছে কাগজপত্র দেখতে চাইলে তারা কোন প্রকার কাগজ দেখাতে পারেননি। মিনারা জানান, তার কাগজপত্র মমতাজ নামে পার্লার ব্যবসায়ী রেখে দেয়। তখন তাদের গোয়েন্দা পুলিশের হেডকোয়ার্টারে নেয়া হয়। মিনারাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে মমতাজের খোঁজ জানতে চাওয়া হয়। মমতাজের ঠিকানা না পাওয়ায় পুলিশ মিনারাকে দুবাইয়ের আবির কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠিয়ে দেয়। প্রায় তিন মাস জেলে থাকার পর তাকে আদালতে হাজির করা হয়। মিনারা দাবি করেন, আদালতে এক বাঙালি মহিলার দেখা পান তিনি। ওই মহিলার ছেলে আবির জেলের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা। ওই মহিলার মাধ্যমে তিনি বাংলাদেশে তার পিতাকে ফোন করে তার বিপদের কথা জানান। এ ঘটনার ৩-৪দিন পর জেলখানার মাইকে তাকে ডেকে নেয়া হয়। এরপর জেলের সেই কর্মকর্তা তাকে দেশে পাঠানোর সব ব্যবস্থা করে দেন। ওই কর্মকর্তার গাড়িতে করে সরাসরি বিমানবন্দরে চলে যান। ১৭ই আগস্ট মিনারা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসে একটি ফ্লাইটে করে দুবাই ত্যাগ করেন। ১৮ই আগস্ট ঢাকায় পৌঁছলে তার সঙ্গে থাকা কাগজপত্র পুলিশ রেখে দেয়। মিনারা দাবি করেন, তার গ্রামের বাড়ি ভোলার কয়েকজনের কাছ থেকে টাকা ধার করে দুবাইয়ে গিয়েছিলেন। পাওনাদারদের টাকা ফেরত দেয়ার ভয়ে তিনি দেশে আসার বিষয়টি গোপন করেছেন। এ জন্য দেশে ফেরার পর আত্মগোপনে চলে যান। এমনকি তার পিতা আবুল কাশেমের সঙ্গেও তিনি যোগাযোগ করেননি।  আবুল কাশেম মেয়ের সন্ধান চেয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, জাতীয় নিরাপত্তা ও গোয়েন্দা সংস্থা, জাতীয় মানবাধিকার কমিশনসহ বেশ কয়েকটি সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চিঠি দেন। তার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, মিনারার দেশে আসার বিষয়টি তিনি জানতেন না। উৎসঃ   মানবজমিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ