• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১২:৩৩ অপরাহ্ন |

দেবীদ্বারে ইউপি চেয়ারম্যানের কাণ্ড!

89857_1সিসি ডেস্ক: কুমিল্লার দেবীদ্বারে চুরির অভিযোগে প্রতিবেশী এক যুবককে অমানবিক শারীরিক নির্যাতন শেষে মাথা ন্যাড়া করে পুলিশে সোপর্দ করেছে এক ইউপি চেয়ারম্যান। ঘটনাটি ঘটে বুধবার বিকেলে দেবীদ্বার উপজেলার ৯নং গুনাইঘর উত্তর ইউনিয়নের গুনাইঘর গ্রামে চেয়ারম্যানের অস্থায়ী কার্যালয়ে।
স্থানীয়রা জানান, বুধবার বিকালে উপজেলার গুনাইঘর গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমের পুত্র দেবীদ্বার পৌরসভার অফিস সংলগ্ন গুনাইঘর ইউপি চেয়ারম্যানের অস্থায়ী কার্যালয়ের সামনে দিয়ে যাওয়ার পথে ইউপি চেয়ারম্যান মো. খোরশেদ আলমের নির্দেশে চৌকিদার জাহাঙ্গীর আলম ওই যুবককে চুরির অভিযোগে আটক করে এবং চেয়ারম্যানের অস্থায়ী কার্যালয় নিয়ে যায়। ওখানে চেয়ারের সাথে হাত-পা বেঁধে তার ওপর মধ্যযুগীয় কায়দায় চলে অমানবিক শারীরিক নির্যাতন। স্থানীয়রা আরো জানান, মো. মনিরুল ইসলাম এলাকায় ছিচকে চোর হিসেবে পরিচিত। অস্থায়ী কার্যালয়ের পাশেই রয়েছে রোজ গার্ডেন স্কুল।
স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, স্কুলটিকে দির্ঘদিন যাবৎ চেয়াম্যান তার টর্চার সেল হিসেবে ব্যাবহার করে আসছে। এলাকার যেকোনো ধরনের সালিস/ বৈঠকের রায়ে অপরাধীদের শাস্তি ওই স্কুলে কার্যকর করা হয়ে থাকে। প্রভাবশালী ওই চেয়ারম্যানের এসব কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদের সাহস কেউ না করায় নির্যাতনের মাত্রা দিন দিন বেড়েই চলেছে।
বর্বরোচিত ওই নির্যাতনের ভয়াবহ চিত্র তুলে ধরতে যেয়ে চুরির অভিযোগে আটক মনিরুল ইসলামের দাদি সাজিয়া বেগম (৬৫) জানান, তার নাতিকে একটি চেয়ারের সাথে দুই হাত বেঁধে, বাঁশ দিয়ে পায়ের উপর চাঁপ দিয়ে লাঠি পেটায় মারাত্মক আহত করে। শারীরিক নির্যাতনের একপর্যায়ে চেয়ারম্যান খোরশেদ আলমের নির্দেশে তার মাথা ন্যাড়া করে কোমরে রশি বেঁধে জনসম্মুখে ঘুরিয়ে চৌকিদার জাহাঙ্গীর আলমের নেতৃত্বে কয়েকজন চৌকিদার দিয়ে মনিরুলকে থানায় সোপর্দ করেন। দাদি আরো জানান, চেয়ারম্যানের পায়ে ধরে নির্যাতন বন্ধ করতে অনুরোধ করলে উল্টো পরিবারের সবাইকে চুরির মামলায় আসামি করার হুমকি দেন। তিনি জানান, মনিরুলের হাতের আঙুল ছেচে দেওয়াই নয়, ব্লেড দিয়ে মাথার বিভিন্ন অংশ কেটে দেন।
পুলিশ আহত মনিরুল ইসলামের শারীরিক অবস্থার অবনতি দেখে রাতেই দেবীদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এনে চিকিৎসাসেবা প্রদান করেন। বৃহস্পতিবার সকালে থানায় নাপিত ডেকে এনে তার এলোমেলো ও বিকৃত অর্ধ ন্যাড়া মাথার পুরোটার চুল পরিষ্কার করিয়ে দেন। এলাকার লোকজন চেয়ারম্যানের একচ্ছত্র আধিপত্য ও নির্যাতনে ক্ষুব্ধ হলেও মুখ খুলতে সাহস পান না কেউ। কারণ, যে তার বিরুদ্ধে যাবে তাকেই নির্যাতন ভোগই নয়, মিথ্যা মামলায়ও হয়রানির শিকার হতে হয়।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকার একাধিক ব্যক্তি জানান, টর্চার সেলে লোকজন ধরে এনে মারধর, পারিবারিক বা জমিসংক্রান্ত বিরোধসহ নানা কারণে অভিযুক্তদের সালিসের মাধ্যমে জরিমানা, শারীরিক নির্যাতন এমনকি নারীদের দেহভোগসহ নানা অনৈতিক কাজ করা হয়। জরিমামার টাকাও ভোক্তভোগীদের না দেয়ারও অভিযোগ রয়েছে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে। এ ছাড়া সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের অনেক পরিবারের জমি দখল করারও অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। বর্তমান রোজ গার্ডেন স্কুল ও তার অস্থায়ী অফিস কার্যালয়’র জমি ও মার্কেট হিন্দু সম্প্রদায়ের কাছ থেকে জোরপূর্বক বেদখল করে নেয়ারও অভিযোগ রয়েছে। বিষয়টির সত্যতা যাচাইয়ে প্রশাসনের নিরপেক্ষ তদন্ত কমিটির তদন্তেই সব সত্য বেড়িয়ে আসবে।
এ ব্যাপারে উপজেলার ৯নং গুনাইঘর উত্তর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. খোরশেদ আলমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমার কোন টর্চার সেল নেই, অপরাধ দমনে কাজ করি তাই প্রতিপক্ষ ঈর্ষান্বিত হয়ে আমার বিরুদ্ধাচারণ করছে। আমি অভিযুক্ত চোর মনিরুল ইসলামকে ধরে এনে শাস্তি দেই নাই, তাকে গ্রামবাসীরা চুরির অভিযোগে গণপিটুনি দিয়ে এবং মাথা ন্যাড়া করে আমার কাছে হাজির করেছে। আমি তাকে চৌকিদার দিয়ে থানায় পাঠাই, তার শারীরিক অবস্থার অবনতি দেখে থানায় রাখতে চায়নি, আমি ওসিকে বলে রেখেছি। এর আগে মনিরুলের সীমাহীন চুরির অভিযোগে গ্রামবাসী অতীষ্ট হয়ে উঠে। মনিরুলকে ধরিয়ে দেয়ার জন্য ৫ হাজার টাকা পুরস্কার ঘোষণাও দিয়েছিলাম।
অভিযুক্ত মো. মনিরুল ইসলাম জানান, আমি কোম্পানীগঞ্জ বাজারে চটপটি ব্যবসা করি সকালে যাই রাতে আসি। চেয়ারম্যান অফিসের সামনে দিয়েই আমার যাতায়াত। আমাকে ধরার জন্য পাঁচ হাজার টাকা পুরস্কার ঘোষণা দেওয়ার বিষয়টি সাজানো।
দেবীদ্বার থানার ওসি মো. মিজানুর রহমান বলেন, চোর ধরলে কিংবা চোরের শাস্তি নিশ্চিত করণে পুলিশ প্রশাসন ও বিচার বিভাগ রয়েছে, অন্য কারোর নয়। মাথা ন্যাড়া করে দেওয়ার বিষয়টি মানবাধিকার লঙ্ঘিত কাজ। অভিযুক্ত মনিরুল ইসলামকে বৃহস্পতিবার বিকেলে কুমিল্লা কোর্ট হাজতে চালান করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে দেবীদ্বার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ হোসেন জানান, বিষয়টি নিয়ে কেউ অভিযোগ করেনি। চোরের বিচার আইনানুগভাবেই হবে। তার জন্য প্রশাসন রয়েছে। মাথা ন্যাড়া করে কোমড়ে রশি বেঁধে প্রকাশে জনসম্মুখে ঘুরিয়ে শাস্তি দেওয়া মানবাধিকারের লঙ্ঘন। বিষয়টি তদন্ত স্বাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেবেন বলেও তিনি জানান।
উৎসঃ   কালের কণ্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ