• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৪০ পূর্বাহ্ন |

রাজারহাটে মাদ্রাসার সুপারসহ দু’টি পদে ১৫ লাখ টাকার নিয়োগ বাণিজ্য

Takaরফিকুল ইসলাম, রাজারহাট (কুড়িগ্রাম): কুড়িগ্রামের রাজারহাটের নাককাটীহাট দাখিল মাদ্রাসার সুপার ও এমএলএসএস’র দু’টি পদে ১৫ লাখ টাকার নিয়োগ বাণিজ্য চুপিসারে সম্পন্ন করার চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে। প্রকাশ, উপজেলার চাকিরপশার ইউপি’র নাককাটীহাট দাখিল মাদ্রাসাটিতে সুপার ও এমএলএসএস’র পদ দু’টি দীর্ঘদিন ধরে শূন্য ছিল। কয়েক দফা ওই প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করার লক্ষ্যে এলাকার প্রভাবশালী ওই প্রতিষ্ঠানের সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে আসছিল। এরই সূত্র ধরে সভাপতি নিয়োগ দু’টি সম্পন্ন করার জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে এবং শুক্রবার সকাল ১০টায় কুড়িগ্রাম সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে পরীক্ষার স্থান নির্ধারণ করে তার নিজের পছন্দের মনোনীত প্রার্থীকে নিয়োগ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ করা হয়। সেই মোতাবেক নিয়োগ পরীক্ষায় ডিজি’র প্রতিনিধি ছিলেন ওই প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক ও রাজারহাট উপজেলাধীন উমর মজিদ ইউপি’র বাসিন্দা মো. খালেদ সিদ্দির্কী ওরফে মানিক মাষ্টার। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, সুপার পদে ৭ জন প্রার্থী আবেদন করলে পরীক্ষায় ৫ জন এবং এমএলএসএস পদে ৬ জন প্রার্থী অংশ নেন। নিয়োগ পরীক্ষায় সভাপতি তার মনোনীত প্রার্থীদেরকে উত্তীর্ণ করার লক্ষ্যে প্রক্সি প্রার্থীদের দিয়ে আবেদন করিয়ে পরীক্ষায় অংশ নেয়ার একাধিক অভিযোগ উঠেছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে সুপার পদের এক প্রার্থীর সঙ্গে কথা হলে তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, ভাই পরীক্ষা দিয়ে লাভ কি? কারণ জানতে চাইলে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, বর্তমান মেধা দিয়ে কাজ নেই। নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি গোপনে প্রকাশ করে ওই দিনের পত্রিকার কপিগুলো সবগুলো কিনে নেন প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ। শুনেছি রাজারহাট উপজেলাধীন চায়নাবাজার নামক এলাকার জনৈক ব্যক্তি লালমনিরহাট সদরের বড়বাড়ী ইউপি’র একটি মাদ্রাসার সহ. সুপার মো. ছামশুল হকের কাছ থেকে সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক ও প্রতিষ্ঠানের ভারপ্রাপ্ত সুপার ওই প্রার্থীর কাছ থেকে সুপার পদে নিয়োগ সম্পন্ন করার লক্ষ্যে সাড়ে ৭ লাখ টাকা নিয়েছেন। এ দিকে এমএলএসএস’র পদটিতেও রিয়াজুল ইসলামকে মনোনীত করে তার কাছ থেকে সাড়ে ৪ লাখ টাকা নেয়ার একাধিক অভিযোগ উঠেছে। অপরদিকে কুড়িগ্রাম সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত ওই নিয়োগ পরীক্ষায় ওই প্রতিষ্ঠানের সহকারী শিক্ষক গোলাম মোস্তফা নামের এক ব্যক্তি মনোনীত প্রার্থীকে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ করার লক্ষে উত্তরপত্র সরবরাহ করার চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে এবং তিনি রংপুর বিভাগীয় উপ-পরিচালক (ডিডি) মো. রফিকুল ইসলামের বন্ধু হওয়ার সুবাদে তিনি ওইসব নিয়োগ পরীক্ষাগুলোতে উত্তরপত্র সরবরাহ করাসহ যে কোন ধরণের সমস্যা সংক্রান্ত সমাধান করে থাকেন। গত দু’মাস পূর্বে গোলাম মোস্তফা কর্তৃক রৌমারী উপজেলার একটি প্রতিষ্ঠানের নিয়োগ পরীক্ষায় হাতে লেখা উত্তরপত্র দেয়ার সময় সহকারী শিক্ষক গোলাম মোস্তফাকে রৌমারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার রেজাউল করিম তা দেখে নিয়োগটি স্থগিত করেন। এ বিষয়ে ডিজির প্রতিনিধি কুড়িগ্রাম সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. খালেদ সিদ্দির্কীর কাছে জানতে চাইলে তিনি নিয়োগ পরীক্ষাটি সুষ্ঠভাবে সম্পন্ন করার কথা বলেন। রাজারহাট উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার চঞ্চল কুমার ভৌমিক বলেন, উৎকোচ গ্রহণের বিষয়টি তার জানা নেই এবং ওই নিয়োগ বোর্ডের সদস্য হিসেবে আমাকে তো বলতেই হবে, নিয়োগটিতে কোন অনিয়ম হয়নি। কুড়িগ্রাম জেলা শিক্ষা অফিসার ভবতোষ শর্মার সঙ্গে তার মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, ওই নিয়োগের উত্তীর্ণ প্রার্থীদের কাগজপত্র এমপিও ভুক্তির জন্য আমার দপ্তরে পাঠানো হলে বিষয়টি খতিয়ে দেখবো বলে তিনি বিষয়টি কৌশলে এড়িয়ে যান। নাককাটীহাট দাখিল মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আব্দুর রাজ্জাকের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, নিয়োগ পরীক্ষায় বোর্ডের সদস্যদের মতামত এবং রাজারহাট উপজেলার সরকারি দলের জনৈক এক নেতার সহায়তায় নিয়োগ পরীক্ষা সম্পন্ন করতে পেরেছি বলে তিনি ফোনটি কেটে দেন। রাজারহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সাজেদুর রহমানের সঙ্গে তার মুঠোফোনে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ওই মাদ্রাসার নিয়োগ সম্পর্কে আমি কিছু জানিনা এবং আমাকে অবহিত করা হয়নি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ