• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৮:০৮ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুর ষ্টেডিয়াম এখন গোচারণ ভূমি

DSC07347এম আর মহসিন, সিসি নিউজ: সৈয়দপুরে উপজেলার ষ্টেডিয়াম মাঠে দির্ঘ দিন গড়ায়নি বয়স ভিক্তিক কিংবা সিনিয়র ফুটবল লীগের কোন খেলা। এতে খেলার অভাবে বড় ঘাসে ঘাসে ভরে মাঠটি গোচারন ভূমিতে পরিণত হয়েছে। আর দির্ঘ বিরতির অনিয়মিত আয়োজনে কোন মেধাবি খেলোয়াড় উঠে না আসায় ফুটবলারের সংকটে এ খেলার অস্তিত্বই পড়েছে  হুমকিতে। তাই  ফুটবল খেলা রক্ষা ও পরিকল্পিত ভাবে মেধাবি খেলোয়াড় সৃষ্টিতে নিয়মিত সব ধরণের লীগ দাবি করছেন সাবেকসহ বর্তমান ফুটবলার ও সংগঠকরা।
সৈয়দপুর উপজেলা ক্রীড়া পরিষদ সূত্রে জানা যায়, শহরের পশ্চিমে কুন্দল দহলা এলাকায় সৈয়দপুর উপজেলার একমাত্র ষ্টেডিয়াম। সৈয়দপুর পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ বখতিয়ার কবিরের উদ্যোগে ১৯৭৮ সালে প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান প্রায় ৫ একর জমির উপর এ ষ্টেডিয়ামের ভিক্তি দেন। পরে এটি সৈয়দপুর ক্রীড়া পরিষদের অধীনে দেয়া হয়।  এরপর পরিচর্যা আর অফিস ঘর নিমার্ণের পরই ১৯৮৫সালে সিনিয়র লীগের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিক ভাবে শুরু হয় ফুটবল খেলা। আর নিয়মিত চর্চার মধ্যমে পাড়ায়-মহল্লায় গড়ে ওঠে ক্লাব। ১৯৯০সাল পর্যন্ত নিয়মিত ফুটবল লীগ হলেও নানা কারণে ৯২ও ৯৩ সালে খেলা হলেও তা বন্ধ থাকে।। এরপর মেধাবিদের অন্বেষনে ৪ ফুট ৬ ইঞ্চির উচ্চতায় ক্ষুদে খেলোয়াড়দের নিয়ে ১৯৯১ সালে একটি কিশোর লীগ হয়। পরবর্তিতে এ লীগের খেলোয়াড়রা ২০০৪ সালের সিনিয়র লীগে খেলে। তবে এ লীগটি ফাইনাল ছাড়া শেষ হয়। আবারো দির্ঘ বিরতির পর ২০১২ সালে একটি সিনিয়র লীগ অনুষ্ঠিত হয় এ মাঠে।  এতে আড়ালে থেকে যায় মেধাবিদের উঠে আসা কিশোর লীগ।  সিনিয়র লীগ অনিয়মিত হলেও দির্ঘ ২ যুগ  কিশোর লীগ আর মাঠে গড়ায় নি। অথচ সেই ক্ষুদে উচ্চতার কিশোর লীগ থেকেই নীলফামারীর হয়ে প্রতিনিধীত্ব করেছে  এ জনপদের ফুটবলাররা। প্রিমিয়ার লীগ না খেলেলেও ১ম বিভাগে মোয়াজ্জেম, লাড্ডান, মোকছেদ, আতাউর রহমান গ্যাদা, স্বপন, স্যামূয়েল, শিপন, ইলিয়াস কাল্ঠু, তাহের, স্বপনসহ অনেক খেলোয়াড় ঢাকার মাঠ মাতিয়েছে দির্ঘ দিন। তারপরেও কিশোর লীগ মেধাবি তৈরীর প্রথম সিড়ি হলেও দির্ঘ দিন  এ উপজেলার মাঠে ক্ষুদেদের নিয়ে কোন ফুটবল প্রতিযোগিতার আয়োজনে পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে না।  এতে  ফুটবলের এ দৈন্য দশায় সাবেক এসব খেলোয়াড়রা আক্ষেপ প্রকাশ করেন। আতাউর রহমান গ্যাদা জানান, ফুটবল খেলা পরিচালনায় আহামরি কোন অর্থ লাগেনা। চাই শুধু  উদ্যোগি  মানসিকতার সংগঠক।
গত মঙ্গলবার  এ মাঠে গিয়ে দেখা যায়,  মাঠটির চারিপাশ উচু ঘন জঙ্গলে ভরে গেছে। মাঝ মাঠে দেড় ফুট উচ্চতার ঘাস ফুলের চাদঁর। এ যেন গোচারনের আদর্শ একটি ক্ষেত। তবে খেলা-খেলোয়াড় মাঠে না থাকলেও ষ্টেডিয়াম পাড়ার ক্ষুদে বারো বছর বয়সি লিয়ন, লিটন, মিশু, আরিফ, হানিফ,  শুভ, ফাহিম, মুক্তা, ইয়াসিন, রবি, সাজুদের দেখা গেছে একটি চামড়া ছাড়ানো বল নিয়ে খেলতে। এদের স্বপ্ন এ ফুটবল খেলাকে নিয়ে। তাই নতুন বলের দাবি ওদের। এ বিষয়ে সৈয়দপুর উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার  সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সাত্তারের সাথে কথা হলে তিনি জানান,অবশ্যই বয়স ভিক্তিক লীগ উঠতি মেধাবী ফুটবলারদের জন্য সহায়ক। আর ভালো মানের খেলোয়াড় ধরে রাখতে নিয়মিত সিনিয়র লীগ প্রয়োজন। আর নিয়মিত খেলা হলে অবশ্যই মাঠটি পরিস্কার থাকবে। পাশাপাশি এগিয়ে যাবে এ জনপদের ফুটবল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ