• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৫২ অপরাহ্ন |

নীলফামারীতে টানা ১৪ দিনের বৃষ্টিপাতে ৫’শত হেক্টর রোপা আমন ক্ষেত পঁচে সাবার

imagesসিসি নিউজ : ১৪ দিনের অব্যাহত টানা বর্ষণ আর উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে সৃষ্ট বন্যায় তিস্তা নদীর অববাহিকা নীলফামারী জেলার ডিমলা  ও জলঢাকা উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের  পাঁচ শত হেক্টর জমির রোপা আমন ক্ষেত পচে সম্পূর্ন নষ্ট হওয়া  অন্তত চার কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। আর এই ক্ষতি হওয়ায় চরম বিপাকে পড়েছে দুই উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের তিন হাজার পাঁচ শত ৪২ জন কৃষক। তবে এই সকল ক্ষতিগ্রস্ত কৃষককে আর্থিক সহায়তা দিতে তালিকা তৈরী করে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে বলে দাবি জেলা কৃষি বিভাগের।
রবিবার নীলফামারী জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) এম.এ ওয়াজেদ জানান, গত ১৪ আগস্ট থেকে ২৮ আগস্ট পর্যন্ত ১৪ দিনের টানা বৃষ্টিপাত আর পাহাড়ী ঢলে ফুসে উঠে তিস্তা নদী। এতে নদীর অববাহিকার নীলফামারীর ডিমলা ও জলঢাকা উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে দেখা দেয় বন্যা। ১৪ দিনের জলবদ্ধতায় ডিমলা উপজেলার  র্প্বূ ছাতনাই-খগাখড়িবাড়ি-টেপাখড়িবাড়ি-গয়াবাড়ি-খালিশাচাঁপানী-ঝুনাগাছচাঁপানী ইউনিয়নের তিন শত ৭৫ হেক্টর জমির রোপা আমন ক্ষেত বানের পানিতে তলিয়ে থাকায় পচে নস্ট হয়ে যায় চারাগুলো। এতে ওই নয় ইউনিয়নের দুই হাজার সাত শত ৯২জন কৃষককের  ২ কোটি ৮৫ লাখ ৬০ হাজার টাকা নগদ অর্থ ক্ষয়ক্ষতি হয়। অপর দিকে একই ভাবে জলঢাকা উপজেলার চার ইউনিয়ন গোলমুন্ডা-ডাউয়াবাড়ি-শৌলমারী ও কৈমারী ইউনয়নের এক শত ২৫ হেক্টর জমির রোপা আমন ক্ষেত বানের পানিতে তলিয়ে থাকায় পচে নস্ট হয়ে যায় চারাগুলো। এতে ওই উপজেলার চার ইউনিয়নের সাত শত পঞ্চাশ জন কৃষককরে  ৯৫ লাখ ২০ হাজার টাকা নগদ অর্থ ক্ষয়ক্ষতি হয়। এসব ক্ষতিগ্রস্ত কৃষককের তালিকা তৈরীসহ ক্ষয়ক্ষতির পরিমান নির্ণয় করে ইতো মধ্যে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। সরকারি ভাবে অনুদান পাওয়া গেলে ক্ষতিগ্রস্থ্য কৃষকদের মাঝে বিতরন করা হবে।
ডিমলা উপজেলার খালিশাচাপানী ইউনিয়নের কৃষক জয়নুদ্দিন মন্ডল, অহিদুজ্জামান ও জলঢাকা উপজেলার গোলমুন্ডা ইউনিয়নের কৃষক আলম হোসেন, মিজানুর রহমানসহ বেশ কয়েক জন কৃষক জানান, ধার-দেনা করে যখন জমিতে আমন চারা রোপন করি তখন ছিল পানির আকাল। আর আজ সেই পানি কাল হয়ে দাড়ালো। গত ১৪ দিনে একটানা বৃষ্টিপাতে পানিতে জমিসহ রোপাআমন ক্ষেত তলিয়ে থাকায় জমির সব চারা পচে স¤পূর্ণ নস্ট হয়ে গেছে। বানের পানিতে আমাদের যে ক্ষতি হয়েছে তা কিভাবে পুষিয়ে উঠোবো ভেবে পায়না। এ পর্যন্ত কৃষি বিভাগ থেকে কোন প্রকার সহায়তা পায়নি। মাঝখানে কয়দিন আগে আমাদের নামের তালিকা নিয়ে গেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ