• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৪৭ পূর্বাহ্ন |

ভুয়া নিয়োগ: কুড়িগ্রামে ৫২ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারকচক্র

Protaronaকুড়িগ্রাম : কুড়িগ্রামে ভুয়া নিয়োগপত্র দিয়ে একটি প্রতারকচক্র ১৩ জন যুবক-যুবতীর কাছ থেকে ৫২ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। চক্রটি প্রত্যেকের কাছ থেকে ৪ লাখ টাকা করে নিয়ে সেনাবাহিনীর এরিয়া স্টেশন সদর দফতর, রিক্রুটিং ইউনিট, ঢাকা সেনানিবাস থেকে তাদের জিডি এবং এমটি কোরের ট্রেড-১-এ ভর্তি চূড়ান্ত দেখিয়ে এই নিয়োগপত্র দেয়। নিয়োগপ্রাপ্তরা ঢাকা সেনানিবাসের সিএমএইচ-এ নিয়োগপত্রের নির্দেশনা অনুযায়ী এইচবিএসএজি এবং এন্টি এইচসিভি পরীক্ষার জন্য গেলে প্রতারণার ঘটনাটি ধরা পড়ে। তখন থেকে প্রতারিতরা হন্যে হয়ে ঘুরেও টাকা ফেরত না পেয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।

প্রতারণার শিকার নাগেশ্বরী উপজেলার বোর্ডেরহাট গ্রামের আরিফুল ইসলাম, রাজারহাট উপজেলার হরিশ্বর তালুক গ্রামের সামিউল আলম ও শাপলা আক্তার, চিলমারী উপজেলার খারুভাজ গ্রামের বেলাল হোসেন অভিযোগ করেছেন, সেনাবহিনীর বিভিন্ন কোরে চাকরি দেওয়ার জন্য চলতি বছরের প্রথম দিকে প্রত্যেকের কাছ থেকে দুই থেকে তিন দফায় ৪ লাখ টাকা করে নেয় রাজারহাট উপজেলার হরিশ্বর তালুক গ্রামের ময়নাল হক। এরপর তাদের এমটি এবং জিডি কোর এর ট্রেড-১-এ ভর্তি চূড়ান্ত দেখিয়ে একাধিক সিল মারা কম্পিউটারে কম্পোজকৃত নিয়োগপত্র দেওয়া হয়। নিয়োগপত্রে ঢাকা সেনানিবাসের এএসএসডি’র রিক্রুটিং অফিসার হিসেবে আরিফ হোসেনের নাম ও স্বাক্ষর রয়েছে। চলতি বছরের মার্চ মাসের ৩ থেকে ২৫ তারিখ পর্যন্ত সময়ে নিয়োগপত্রগুলো ইস্যু করা হয়। এরপর নিয়োগপত্রের নির্দেশনা অনুযায়ী চলতি বছরের ২২ জুন এইচবিএসএজি এবং এন্টি এইচসিভি পরীক্ষার জন্য ঢাকা সেনানিবাসের সিএমএইচ-এ গেলে এ ধরনের কোনো নিয়োগ করা হয়নি মর্মে তাদের জানানো হলে প্রতারণার ঘটনাটি ধরা পড়ে। এরপর থেকে ময়নাল হকের পেছনে ঘুরেও টাকা ফেরত পাচ্ছেন না ভুক্তভোগীরা।

জমিজমা বিক্রি করে টাকাগুলো দিয়েছিলেন প্রতারণার শিকার চাকরিপ্রার্থীরা। এভাবে প্রতারকচক্রটি পার্শ্ববর্তী লালমনিরহাট জেলার নয়াহাট গ্রামের রবিউল ইসলাম ও আইনুল হক, সাতভিটা গ্রামের সাইফুল ইসলাম, কিশামত নগরবন্দ গ্রামের সোহেল রানা ও রুবেল রানাসহ ১৩ জনের কাছ থেকে ৪ লাখ টাকা করে মোট ৫২ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

টাকা গ্রহণকারী ময়নাল হক দাবি করেছেন, ‘চলতি বছরের প্রথম দিকে রংপুর সেনানিবাসের সাবেক গাড়ি চালক আব্দুল মোত্তালেবের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। তিনিই তাকে প্রতিজন ৪ লাখ টাকার বিনিময়ে সেনাবাহিনীতে চাকরি দেওয়ার কথা বলেন। এজন্য তাকে জনপ্রতি ১০ হাজার টাকা করে দেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়। এরপর তিনি গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ এলাকার অধিবাসী বলে মেজর কিবরিয়া (আসল নাম জবেদুল), মেজর জাকির (আসল নাম রাসেল), সজিব (আসল নাম জাহাঙ্গীর) এবং আল-আমিন (আসল নাম শামীম কবির)-এর সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন। তাদের কথায় বিশ্বাস করে চাকরি প্রার্থী ১৩ জনের কাছ থেকে কয়েক দফায় ৪ লাখ করে নেওয়া হয়। এই টাকার মধ্যে নগদ ৩০ লাখ টাকা রংপুর সেনানিবাসের সামনে একটি চায়ের দোকানে সজিবকে (আসল নাম জাহাঙ্গীর) প্রদান করা হয়। অবশিষ্ট টাকা কুড়িগ্রামে অবস্থিত করতোয়া কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে ঢাকা, মীরপুর এবং বগুড়ার ঠিকানায় সজিব, হেলাল ও আল-আমিনের কাছে পাঠানো হয়। টাকা পাঠানোর রশিদ তার কাছে রয়েছে। এখন এদের খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। সবাই উধাও হয়ে গেছে। তাদের দেওয়া মোবাইল নম্বরগুলো বন্ধ। ফলে বিপাকে পড়েছেন সবাই।

এ প্রসঙ্গে রাজারহাট থানার অফিসার ইনচার্জ ময়নুল ইসলাম জানান, এক সপ্তাহ আগে শামীম কবিরকে রাজারহাটে খুঁজতে আসেন তার মা। এরপর আহত অবস্থায় শামীমকে রাজীবপুর থেকে এনে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জেনেছেন। এরই সূত্র ধরে ময়নাল হক ৪ দিন আগে থানায় এসে সেনাবাহিনীতে চাকরি দেওয়ার কথা বলে শামীমসহ প্রতারক চক্রের টাকা হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনাটি জানান। তাকে সংশ্লিষ্ট থানায় মামলা করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ