• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৫৭ অপরাহ্ন |

উত্ত্যক্ত হওয়ার কথা অধ্যক্ষকে আগেই জানিয়েছিল রিতু

40367_f4সিসি ডেস্ক: উত্ত্যক্ত হওয়ার কথা লজ্জায় বাবা-মাকে জানায়নি কিশোরী উম্মে কুলসুম রিতু। জানিয়েছিল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষকে। অধ্যক্ষ আশ্বাসও
দিয়েছিলেন কিছু একটা ব্যবস্থা নেবেন। পুলিশকে জানানোর কথাও বলেছিলেন তিনি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত কিছুই করেননি। এদিকে ধারাবাহিক উত্ত্যক্তে বিপর্যস্ত। মানসিক যন্ত্রণায় ভুগছিল রিতু। সারাক্ষণ বাসায় বসে থাকতো। স্কুলে আসা-যাওয়া বাদে ঘর থেকে আর বেরই হতো না। কিন্তু বখাটে শিমুল শেষ পর্যন্ত রিতুদের বাড়িতে পর্যন্ত ঢুকে যায়। করে শ্লীলতাহানি। বন্ধুরা মিলে তাকে তুলে নেয়ার চেষ্টা করে। রিতুর চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসে। বিষয়টি জানাজানি হলে লজ্জায়-অপমানে আত্মহননের পথ বেছে নেয় মেধাবী রিতু। গতকাল ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে ও রিতুদের খিলগাঁও নন্দীপাড়ার বাসায় গিয়ে জানা যায় এসব তথ্য। অধ্যক্ষও স্বীকার করেন নিজের ভুল। কিন্তু এখন আর করার কিছুই নেই। পুলিশ বখাটে শিমুল ও তার বন্ধুদের কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। ঘটনার পর বখাটে শিমুল ও তার পরিবারের লোকজন এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে।
গত শনিবার সন্ধ্যায় খিলগাঁও থানাধীন মাদারটেকের পূর্ব নন্দীপাড়ার ১ নম্বর স্কুল রোডের বরিশাল হাউসের টিনশেডের বাড়ি থেকে বখাটে শিমুল ও তার চার বন্ধু মিলে রিতুকে তুলে নেয়ার চেষ্টা করে। এসময় রিতু বাধা দিলে শিমুল তার শ্লীলতাহানি করে। তার চিৎকারে আশপাশের বাসিন্দারা এগিয়ে এলে বখাটে শিমুলসহ অন্যরা পালিয়ে যায়। পরে অপমানে রিতু কীটনাশক পান করে আত্মহত্যা করে। রাতেই পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। গতকাল সকালে মর্গে গিয়ে দেখা যায়, রিতুর মা-বাবা আহাজারি করছেন। অন্য স্বজনেরাও শোকাচ্ছন্ন। মাঝে মধ্যেই মূর্ছা যাচ্ছিলেন মা শান্তি আক্তার। বলছিলেন, নিজেরা স্বামী-স্ত্রী গার্মেন্টে কাজ করে ছেলেমেয়েদের লেখাপড়া করাচ্ছিলাম। মেয়েটা পড়াশোনায় ভাল ছিল। তার ইচ্ছা ছিল ডাক্তার হওয়ার। সেই স্বপ্ন তো দূরের কথা, বখাটে শিমুলের কারণে আমি মেয়েটিকেই হারালাম।
নিহতের ফুফু ও ২৮ নম্বর ওয়ার্ডের মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আমেনা আক্তার মণি জানান, রিতুর পিতা আশিক ও মা শান্তি আক্তার দু’জনই ডেমরার মাতুয়াইলের কাঠেরপুল এলাকায় অবস্থিত ইমপ্রেস ফ্যাশন লিমিটেড নামে একটি পোশাক কারখানায় কাজ করে। বাড়ি থেকে সকাল ৮টায় বের হয়ে যায় তারা। ফেরে রাত ১০টায়। কর্মজীবী মানুষ। বাড়িতে শুধু রিতু আর তার নানী ফাতেমা বেগম থাকতো। তিনি আরও বলেন, রিতু স্থানীয় ইস্ট পয়েন্ট এডুকেশন স্কুল অ্যান্ড কলেজের নবম শ্রেণীর ছাত্রী ছিল। প্রায় ৩ মাস ধরে স্কুল যাতায়াতের পথে স্থানীয় বখাটে শিমুল তাকে নানাভাবে উত্ত্যক্ত করে আসছিল। রিতুকে বিভিন্ন কুপ্রস্তাব দিতো। কিন্তু, রিতু পরিবারের কোন সদস্যকে তাকে উত্ত্যক্ত করার বিষয়টি জানায়নি।
শান্তি বেগম জানান, তার দুই মেয়ে ও এক ছেলে। রিতু, মিতু ও আশরাফুল। রিতু বড়। তাদের গ্রামের বাড়ি জয়পুরহাট জেলার আক্কেলপুর থানার ভিকনি এলাকায়। রিতু স্কুলছাড়া বাড়ির বাইরে বের হতো না। সবসময় পড়াশোনা নিয়ে থাকতো। তিনি আর বলেন, কিছুদিন ধরে সে ভাল মতো পড়াশোনা করতে পারছিলো না। তাকে আমরা অনেক বকাঝকা করি। সে কোন কথা না বলে শুধু বলে তার মন ভাল নেই। মো. আশিক বলেন, বখাটে শিমুলের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না হওয়া পর্যন্ত তার মেয়ের আত্মা শান্তি পাবে না। রিতুর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ইস্টপয়েন্ট এডুকেশন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ জহিরুল ইসলাম বলেন, ‘রিতু জেএসসি ও পিএসসিতে এ প্লাস পেয়েছিল। মেধাবী ছাত্রী ছিল। বখাটে শিমুলের উত্ত্যক্তের কথা আমাকে জানিয়েছিল। আমি তাকে বলেছিলাম, শিমুলের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। বিষয়টি থানা পুলিশকে জানানো হবে। কিন্তু পরে আর জানানো হয়নি।
এদিকে, গতকাল দুপুরে শিমুলের বাড়ি খিলগাঁওয়ের পশ্চিম নন্দীপাড়ার কাঁঠালতলার ১১২৬ নম্বর টিনশেড বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, বাড়িটি তালা বদ্ধ। রিতুর আত্মহননের খবর পেয়ে শিমুল ও তার পরিবার ওই এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দা ও স্কুল শিক্ষক আল-আমিন হোসেন রকি অভিযোগ করে বলেন, শিমুল প্রাইমারী পর্যন্ত লেখাপড়া করেছে। এর আগেও সে এলাকার বিভিন্ন মেয়েকে উত্ত্যক্ত করেছে। অনেকে থানা পুলিশের কাছেও অভিযোগ দিয়েছে। কিন্তু, শিমুলের পিতা চিত্তরঞ্জন মণ্ডল ও মা মালতী রানীর এলাকার প্রভাবশালী লোকজনের সঙ্গে সম্পর্ক থাকায় পুলিশ শিমুলের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়নি। খিলগাঁও থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান জানান, স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যার ঘটনায় নিহতের মা বাদী হয়ে আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগ এনে শিমুল চন্দ্র ও তার পরিবারের লোকজনকে আসামি করে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। পুলিশ বখাটে শিমুলকে আটক করার জন্য বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালাচ্ছে। উৎস: দৈনিক মানবজমিন (৮/৯/২০১৪)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ