• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০২:৪১ পূর্বাহ্ন |

প্রাকৃতিক দুর্যোগের সাথে যুদ্ধ করে বেঁচে আছেন তিস্তা পাড়ের মানুষ

52075cba5d2a1-1সিসি নিউজ: কখনো খরা, কখনো বন্যা। আর বন্যা শেষ হতে না হতেই নদী ভাঙ্গন। খরা, বন্যা আর নদী ভাঙ্গন এই তিন প্রাকৃতিক দুর্যোগের সাথে যুদ্ধ করে বেঁচে আছে তিস্তা পাড়ের মানুষ। এসবের যেকোন একটি দুর্যোগ এলেই এলোমেলো করে দেয় নদী পাড়ের এসব মানুষকে। কখনো দুর্যোগ পরবর্তী সময়ে তাদের ভাগ্যে জোটে কিছু সরকারী ত্রাণ। তবে এখন আর ত্রাণ চাননা তারা। ত্রাণ নামের এই সরকারী ভিক্ষার বদলে কাজ করে সম্মানের সাথে বাঁচতে নানান প্রাকৃতিক দুর্যোগের সাথে ঘর করা এসব মানুষ।
বছরের বেশীর ভাগ সময়ই মরুভূমিতে রূপ নেয় স্রোতশ্বীনি তিস্তা নদী। এরপর বর্ষা এলেই স্বরূপে ফিরে আসে এই নদী। বাড়তে থাকে তিস্তার পানি। তখন নদীর দু’কুল ছাপিয়ে পানি ঢুকে পড়ে লোকালয়েও। শুরু হয় বন্যা। আর নদীর পানি নেমে গেলে শুরু হয় ভাঙ্গন। আর তাতেই ঘর-বাড়ি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ফসলি জমি যাকেই পেয়েছে নদীতে নিয়ে গেছে সর্বগ্রাসী তিস্তা। ফলে নীলফামারীর ডিমলা ও জলঢাকা উপজেলার নয়টি ইউনিয়নের অর্ধলাখ মানুষকে পোহাতে হয় চরম দুর্ভোগ।
উপজেলার পূর্ব ছাতনাই ইউনিয়নের ঝাড়সিংয়েশ্বর গাইড বাঁধে আশ্রয় নেয়া সত্তোরর্ধ বাদশা মিয়া বলেন, একসময় আমার ১৫ বিঘা জমি, বাড়ি, পুকুর সবই ছিলো। এখন আর কোন জমি নাই। সব তিস্তা নদীর গর্ভে চলে গেছে। সব কিছু হারিয়ে এখন তিস্তার গাইড বাঁধে আশ্রয় নিয়েছি।
ঝাড়সিংয়েশ্বর গ্রামের চাঁন মিয়া (৬৫) বলেন, তিস্তা নদীর ভাঙ্গনে তিনবার আমার বাড়ি ভাঙ্গতে হয়েছে। আমাদের সারা বছরই সমস্যা হয় তবে বন্যায় সময় কষ্ট আরো বেশী হয়।
পূর্ব ছাতনাই গ্রামের আব্দুল কুদ্দুস বলেন, আমি তিস্তা পাড়ের কাশফুল ও ঘাস কেটে তা বিক্রি করে সংসার চালাই। তবে বন্যা এলে সব জায়গায় পানি ওঠে। তখন কাজকর্ম বন্ধ থাকে। এসময়টায় পরিবার পরিজন নিয়ে খুব কষ্টে দিন কাটে আমাদের।
দুর্যোগ শেষে সরকারের পক্ষ থেকে এসব মানুষের হাতে তুলে দেয়া হয় কিছু সরকারী ত্রাণ। কিন্তু যতসামান্য এসব ত্রাণে তুষ্ট নন নদী পাড়ের মানুষ। তাইতো এখন আর ত্রান নয় তারা চান কর্ম। কাজ করে সম্মানের সাথে মাথা উঁচু করে বেঁচে থাকতে।
পূর্ব ছাতনাই ইউনিয়নের ঝাড়সিংয়েশ্বর গ্রামের খায়রুল আলম (৪০) বলেন, বন্যা হলে সরকারের পক্ষ থেকে ২০ কেজি চাল দেয়া হয়। এই সামান্য চাল দিয়ে তো আর সারা বছর চলেনা। ফলে বাকী সময়টুকু আমাদের কষ্ট থেকে যায়।
একই গ্রামের আনোয়ার হোসেন (৬৫) বলেন, সামান্য যে ত্রাণ দেয়া হয় তা দিয়ে বড়জোড় ৭/৮ দিন চলে। এর থেকে আমাদের জন্য যদি কাজের ব্যবস্থা করা হয় তাহলে আমরা মুক্তি পেতাম। কাজ করে সম্মানের সাথে বাঁচতাম।
তাই তিস্তা পাড়ের কর্মহীন এসব মানুষকে তাদের কষ্টগাঁথা জীবন থেকে মুক্তি দিতে দীর্ঘস্থায়ী কর্মসংস্থানের দাবি জানালেন পূর্ব ছাতনাই ইউপি চেয়ারম্যান প্রভাষক আব্দুল লতিফ খান। তিনি বলেন, প্রতিবারই বন্যা, খরা আর ভাঙ্গনের ফলে এসব এলাকার মানুষকে দূর্ভোগ পোহাতে হয়। দূর্যোগ পরবতৃী সময়ে তাদের হাতে কিছু সরকারী ত্রাণ তুলে দেয়া হয় তবে তা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। কর্মহীন এসব মানুষের জন্য স্থায়ী কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা গেলে তারা হয়তো স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে পারবেন।
তিস্তা পাড়ের এসব মানুষের দূর্ভোগের কথা স্বীকার করলেন নীলফামারীর জেলা প্রশাসক জাকীর হোসেন। তিনি বলেন, দূর্যোগ পরবর্তী সময়ে তাদের যে ত্রাণ দেয়া দেয়া হয় তা স্থায়ী কোন সমাধান নয়। এসব মানুষকে টিআর, কাবিখা বা ৪০ দিনের কর্মসূচীর মতো আয়মূলক কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত করা গেলে তাদের মৌলিক চাহিদা পূরণ করা সম্ভব হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ