• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৬:০০ পূর্বাহ্ন |

ডোমার সাব-রেজিস্ট্রারের দূর্নীতির প্রমাণ পেয়েছেন তদন্ত টীম

Durnitiসিসি নিউজ: নীলফামারীর ডোমার সাব-রেজিস্ট্রার আব্দুল হালিম প্রধানের বিরুদ্ধে দাতা ছাড়াই ভুয়া দলিল রেজিস্ট্রী, জমির মূল্য কম দেখিয়ে রেজিস্ট্রী সহ তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন দূর্নীতির সত্যতা পেয়েছেন গঠিত তদন্ত টীম । এদিকে দূর্নীতির প্রমানসহ একটি প্রতিবেদন উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের নিকট তদন্ত টীম দাখিল করলেও এখনও বহাল তবিয়তে রয়েছেন ওই সাব-রেজিস্ট্রার।
অভিযোগ মতে, আব্দুল হালিম প্রধান ডোমার সাব-রেজিস্ট্রী অফিসে যোগদানের পর থেকে বিভিন্ন অনিয়ম করে আসছেন। এর মধ্যে ২০১৪ সালের ১৮ মার্চ মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে দাতা ছাড়াই একটি দলিল রেজিস্ট্রী করেন তিনি। যাহার দলিল নং-৬৬৮। পরবর্তীতে জমির প্রকৃত মালিক কাওছারুল হক চৌধুরী ঘটনাটি জানতে পেরে বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেন। এ ছাড়া বিভিন্ন সময়ে দাতা ও দাতার টিপসই ছাড়াই ৬৯৬,৭৫৮,৭৬০,৭৬৫,৮১৫ ও ৮৩৩ নম্বরের দলিল গুলো ডোমার সাব-রেজিস্ট্রী অফিসে রেজিস্ট্রী করা হয়েছে। আদালতে মামলা চালাকালীন জমির দলিল করার নিয়ম না থাকলেও ওই সাব-রেজিস্ট্রী অফিসে দলিল সম্পাদন করা হয়েছে।  এছাড়া আট শতক জমিকে ঘষামাজা করে আটাত্তর করা,প্রতি সপ্তাহের মঙ্গলবার ও বৃহস্পতিবার অফিসে অনুপস্থিত থাকা, তার অনুপস্থিতিতে একজন দলিল লেখককে দিয়ে অফিস পরিচালনা করা সহ সাব-রেজিস্ট্রারের বিভিন্ন অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগ বিভিন্ন জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকায় একাধিক সংবাদ প্রকাশিত হয়। এর প্রেক্ষিতে গত ২৪ জুলাই ঢাকা নিবন্ধন অফিসের মহা-পরিদর্শক নীলফামারী জেলা রেজিস্ট্রারকে প্রধান করে একটি তদন্ত টীম গঠন করেন। যার স্মারক নং-নিপ/নিয়োগ/রেজিঃশাখা-১/৭০৮১। এদিকে তদন্ত টীম গত ১৯ আগষ্ট থেকে ডোমার সাব-রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের তদন্ত কাজ শুরু করেন। তদন্তকালে তদন্ত টীম উল্লেখিত নম্বরের দলিল ও বালাম বহি যাচাই-বাচাই, অভিযোগকারী ভুক্তভোগী, স্থানীয় সাংবাদিক, দলিল লেখক,এলাকাবাসির সাথে কথা বলেন ও তাদের লিখিত জবানবন্দী গ্রহণ শেষে গত ৩১ আগষ্ট ৭৮ পৃষ্টার একটি তদন্ত প্রতিবেদন মহা-পরিদর্শকের নিকট দাখিল করা হয়। যার স্মারক নং-২৬৭ তারিখ-৩১/০৮/১৪। তদন্ত প্রতিবেদনে ডোমার সাব-রেজিষ্ট্রারের বিরুদ্ধে আনীত দূর্নীতির অভিযোগের সত্যতা মিলেছে বলে উল্লেখ করা হয়। এদিকে ডোমার সাব-রেজিস্ট্রারের দূর্নীতির অভিযোগ প্রমানিত হলেও এখনও তিনি বহাল তবিয়তে রয়েছেন বলে জানা গেছে।
এব্যাপারে তদন্ত কমিটির প্রধান জেলা রেজিস্ট্রার খলিলুর রহমান তদন্ত কালে ডোমার সাব-রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে দূর্নীতির প্রমাণ পেয়েছেন স্বীকার করে বলেন এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন নিবন্ধন অধিদপ্তরের মহা-পরিচালক নিকট প্রেরণ করা হয়েছে। তারাই সাব-রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে জানান তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ