• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৮:৪৮ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

আবারও খেল শুরু এরশাদের!

90616_1সিসি ডেস্ক: জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান ৮৫ বছর বয়স্ক এইচ এম এরশাদ আবার খেলছেন। তার এই খেলা এবং নানামুখী আচরণে জাপাতে অস্থির পরিস্থিতি বিরাজ করছে। এ নিয়ে বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদ লবিতে অপ্রীতিকর ঘটনাও ঘটেছে। দলের মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুর সঙ্গে প্রেসিডিয়ামের পদ থেকে সদ্য অব্যাহতি পাওয়া প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গা ও বিরোধী দলীয় চীফ হুইপ তাজুল ইসলাম চৌধুরীর মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়েছে। এদের মধ্যে হাতাহাতির উপক্রম হলে কয়েকজন সংসদ সদস্যের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

১৯৮২ সালে ক্ষমতা দখল এবং ১৯৯০ সালে ক্ষমতা ছেড়ে দেয়ার পর দীর্ঘ ২৪ বছর এরশাদ নানাভাবে খেলেছেন। এখনো অক্লান্ত খেলছেন। ১৯৯৬ সালে জেলে বসে বিএনপি সরকারের মন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন, পরে নিরুপায় হয়ে আওয়ামী লীগকে সরকার গঠনে সমর্থন দিয়েছেন । জেল থেকে বের হওয়ার কিছুদিন পর সংসদ বর্জন করে যোগ দেন খালেদা জিয়ার নেতৃত্বাধীন চার দলীয় জোটে। সংসদ বর্জন এবং চার দলীয় জোটে যোগদানকে কেন্দ করে তার দলে দেখা দেয় ভাঙ্গন। সেই সময়ও দলীয় ফোরামে কোন সিদ্ধান্ত ছাড়াই মন্ত্রিসভা থেকে সরে আসার ধোয়া তুলেন। এবারও একই পরিস্থিতি তৈরী করেছেন। গত এক মাস যাবৎ তিনি তার দলের সদস্যদেরকে মন্ত্রিসভা থেকে সরে আসার আহবান জানাচ্ছেন। এ প্রসঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক এম শাহীদুজ্জামান বলেন, ‘এরশাদ হয়ত আবার নতুন কোন খেলা শুরু করবেন। নতুবা শুধু শুধু তিনি দলীয় মন্ত্রীদের পদত্যাগ করতে বলতেন না। তিনি বলেন, এরশাদ সারা জীবনই খেলেছেন এবং আমৃত্যুই খেলবেন।’

শুধু মন্ত্রিসভা থেকে দলের সদস্যদের পদত্যাগে আহবান নয়, বিরোধী দলের উপনেতার পদে কাজী ফিরোজ রশীদের নিয়োগের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন এরশাদ। তাকে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূতের পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর কথা বলায় মশিউর রহমান রাঙ্গা এবং তাজুল ইসলামকে প্রেসিডিয়ামের পদ থেকে অব্যাহতি দিয়েছেন। একইসঙ্গে তাদের দু’জনের নেতৃত্বাধীন রংপুর এবং কুড়িগ্রাম জেলার জাপার কমিটি বিলুপ্ত করেছেন। এ ঘটনার জের ধরে গতকাল সংসদে দলীয় এমপিদের মধ্যে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে। এরশাদ, ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ ও জিয়াউদ্দিন বাবলু গতকাল বিকালে সংসদ অধিবেশনেও যোগ দেয়ার কিছুক্ষণ পর রাঙ্গা ও তাজুল তাদের পেছনের সারিতে নিজেদের আসনে বসেন। তবে রাঙ্গা ও তাজুলের সঙ্গে এরশাদের কোনো কথা হয়নি, কেউ কারও দিকে তাকানওনি। তবে মাগরিবের নামাজের বিরতির সময় এরশাদ ও ব্যারিস্টার আনিস লবিতে ছিলেন না। এসময় বাবলুকে উদ্দেশ্য করে রাঙ্গা বলেন ‘আপনি তো এখন অনেক বড় নেতা হয়ে গেছেন, উড়ে এসে জুড়ে বসেছেন। যখন তখন যে কাউকে দল থেকে বের করে দিচ্ছেন, অব্যাহতি দিচ্ছেন। আপনি আমার এলাকার কমিটি ভেঙ্গে দিলেন, এগুলো করছেন কেন?’ জবাবে বাবলু বলেন ‘আমি কিছু জানি না’। রাঙ্গা বলেন ‘আপনিই তো সবকিছুু করছেন’। উত্তেজিত কণ্ঠে বাবলুকে রাঙ্গা গালাগাল করেন, রাঙ্গা চিৎকার করে বলেন, রংপুরে আমি দল চালাই, আমার টাকায় দল চলে, আর সেখানে নাকি আমার ছবি পোড়ানো হচ্ছে, আমিও এরশাদের একশ ছবি পোড়াবো। রাঙ্গার সমর্থনে উচ্চস্বরে কথা বলেন তাজুলও, তিনি বাবলুকে উদ্দেশ্য করে বলেন ‘আপনি আজ প্রেস কনফারেন্সে আমাকে যুদ্ধাপরাধী বলেছেন, আমি সাতবার এমপি, কেউ কখনও কোনো অভিযোগ করতে পারেনি, আপনি এসব মিথ্যা কথা ছড়াচ্ছেন কেন? বিরোধী দলের উপনেতা হতে না পেরে আপনি এসব করছেন, উপনেতা হতে চাইলে আপনি আমাদেরকে বলতেন, আপনি তো বলেননি।’ সূত্র মতে বাবলুর সঙ্গে রাঙ্গা-তাজুলের হাতাহাতির উপক্রম হলে দলের কয়েকজন সংসদ সদস্যের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়। পরে এনিয়ে এরশাদ তার সংসদ ভবন অফিসে ব্যারিস্টার আনিস ও বাবলুসহ কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলেন। সূত্র মতে, রাঙ্গা ও তাজুলের বিরুদ্ধে আবারও ব্যবস্থা নিতে পারেন এরশাদ।

এদিকে রাঙ্গা  বলেছেন ‘আমার কাছে এটা চৈত্র মাসের বন্যার মতো মনে হচ্ছে। হঠাৎ করে এসব করা সবসময় সাজে না।’ আর তাজুল ইসলাম বলেছেন ‘উনি আগে থেকেই স্বৈরাচার, স্বৈরাচারি আচরণ এখনও ছাড়তে পারেননি। বিরোধী দলীয় নেতা হতে না পেরে দুরভিসন্ধি থেকে উনি এসব করছেন। আসলে এরশাদের পৃথিবী ছোট হয়ে আসছে।’

রাঙ্গা-তাজুলের এই প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে এরশাদ বলেন, ‘তাদের বক্তব্যের জবাব দেয়া আমার পক্ষে সম্ভব নয়। এটা তো আমাকে মানায়ও না। আমি যা করেছি তা দলের স্বার্থেই করেছি। তাছাড়া গঠনতন্ত্রে আমাকে সেই ক্ষমতা দেয়া আছে। সুতরাং, কে কি বললো, তাতে কিছু যায় আসে না।’ তিনি বলেন, জাপায় কোনো সংকট নেই। আমরা ভালো আছি, আমার দল ভালো আছে।

জাপার এই ত্রিধাবিভক্তির অন্যতম কারণ মন্ত্রিসভায় দলের নেতাদের থাকা না থাকার ইস্যু। ৩১ আগস্ট সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত জাপার সংসদীয় দলের সভায় এরশাদ বলেছিলেন ‘সরকারে থেকে বিরোধী দলের ভূমিকা পালন করা যায় না। সুতরাং মন্ত্রিসভা থেকে আমাদের বের হয়ে আসতে হবে। কারণ লোকে আমাদের নিয়ে হাসাহাসি করে, তারা আমাদের বিরোধী দল মনে করে না।’ এরশাদের এই বক্তব্যে সেদিন একমত পোষণ করেন বিরোধী দলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদও। দলের মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীদের উদ্দেশে রওশনও বলেছিলেন ‘আমার কাছে আমাদের অনেক এমপি অভিযোগ করেছেন-তারা আপনাদের কাছে গিয়ে কোনো উপকার পান না, কাজেই যদি দলের কোনো উপকার না হয়, তাহলে মন্ত্রিসভায় থাকার দরকার কী!।’ এরশাদ-রওশনের এই অবস্থান নিয়ে মন্ত্রিসভায় থাকা দলীয় নেতারাসহ বেশ ক’জন এমপি অসন্তুষ্ট। গত সোমবার সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত পার্লামেন্টারি পার্টির বিতর্কিত বৈঠকে প্রতিমন্ত্রী ও রাঙ্গা স্পষ্ট করেই বলেছেন ‘পদত্যাগ করতে হলে আগে এরশাদকেই প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূতের পদ ছাড়তে হবে।’

মন্ত্রিসভা থেকে বের হওয়া না হওয়ার বিষয় নিয়ে দলের ভেতরে সৃষ্ট মতবিরোধের বিষয়ে এরশাদ বলেন ‘এটা তো আমার কথা নয়। ৩১ আগস্টের পার্লামেন্টারি পার্টির বৈঠকে রওশনই কথাটি নিয়ে এসেছিলেন। সেখানে আমিও বলেছি-সত্যিকারের বিরোধী দল হতে হলে আমাদেরকে মন্ত্রিসভা থেকে বের হতে হবে। এ ব্যাপারে তো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি, আমরা নিজেরা আলোচনা করেছি।’

সংসদ নেতা হিসেবে প্রধানমন্ত্রী আমাদেরও নেতা: বাবলু গতকাল দুপুরে রাজধানীর বনানীতে জাপা চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন জিয়াউদ্দিন বাবলু। তার ব্রিফিংয়ের সময় এরশাদ নিজ অফিসে থাকলেও তিনি সেখানে সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনো কথা বলেননি। অফিস থেকে বের হওয়ার সময় সাংবাদিকরা তার বক্তব্য জানতে চাইলেও তিনি এড়িয়ে যান। চলমান পরিস্থিতির ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে জাপা মহাসচিব বাবলুও এরশাদের ভাষায় বলেন, আমাদের দলে কোনো সংকট নেই। জাপা অতীতের যেকোনো সময়ের তুলনায় এখন অনেক বেশি শক্তিশালী। গণমাধ্যমে গত ক’দিন ধরে জাপাকে নিয়ে যেভাবে লেখালেখি হচ্ছে সেটিই এর প্রমাণ।

দলের অভ্যন্তরীণ সমস্যা নিয়ে আপনারা সবাই বার বার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে ছুটে যান। তাহলে কী জাপার নিয়ন্ত্রণও প্রধানমন্ত্রীর হাতে? এরকম এক প্রশ্নের জবাবে জাপা মহাসচিব বলেন, ‘সংসদীয় গণতন্ত্র ও রীতিনীতিতে প্রধানমন্ত্রী বা সংসদ নেতা সংসদে থাকা সব দলেরই নেতা কিংবা অভিভাবক। কারণ তিনি লিডার অব দ্যা হাউজ। সে হিসেবে তিনি আমাদেরও নেতা বা বিরোধী দলেরও নেতা।’ তিনি বলেন, জাপা একটি স্বতন্ত্র দল।

তিনি বলেন, দলীয় শৃক্সখলা ভঙ্গের জন্য দলীয় চেয়ারম্যান দুজনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছেন। দলের গঠনতন্ত্রে তাকে সেই ক্ষমতা দেয়া আছে। এ নিয়ে তিনি একমাত্র দলের কাউন্সিলে জবাবদিহি করতে বাধ্য, এছাড়া অন্য কারও কাছে জবাবদিহি করতে তিনি বাধ্য নন। এই প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, তাজুল ইসলাম এর আগে ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের নির্বাচনে বিএনপির টিকেটে এরশাদের বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন, একবার পিডিপিতে গেছেন, মোট চারবার তিনি দল ছেড়ে যান। গঠনতন্ত্রের সেই ৩৯ ধারার ক্ষমতাবলেই এরশাদ তাকে আবার দলে ফিরিয়ে নেন। তখন তো তাজুল চেয়ারম্যানের এই এখতিয়ার নিয়ে প্রশ্ন তোলেননি। কাজেই এখন এরশাদের দুনিয়া ছোট হয়ে আসছে বলা তাজুলের ধৃষ্টতা ছাড়া কিছুই নয়। বুধবার গণমাধ্যমে দেয়া তাজুলের পুরো বক্তব্য এরশাদের নজরে এসেছে, তিনি তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেবেন। তাছাড়া তাজুলের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ রয়েছে বলেও আমরা শুনেছি, তিনি একজন বিতর্কিত লোক।

আপনি নিজেই নাকি বিরোধী দলের উপনেতা হতে চান? এর জবাবে জাপা মহাসচিব বলেন, আমি পার্টির মহাসচিব। এটিই অনেক বড় পাওয়া। আমার তো আর কিছু হওয়ার দরকার নেই। বিরোধী দলীয় উপনেতা হওয়ার আমার কোনো ইন্টারেস্ট নেই। তিনি বলেন, ৩১ আগস্টের পর দলের পার্লামেন্টারি পার্টির আর কোনো বৈঠক হয়নি। সেখানে উপনেতার বিষয়ে কোনো আলোচনাও হয়নি। যেহেতু বিরোধী দলীয় নেতা একজনকে উপনেতা করার জন্য স্পিকারকে একটি চিঠি দিয়েছেন, সে কারণে বিষয়টি স্পষ্ট করতে দলের চেয়ারম্যান হিসেবে এরশাদও স্পিকারকে চিঠি দেন। তাহলে কি বিরোধী দলীয় নেতা নিজেও শৃক্সখলা ভঙ্গ করেছেন? এমন প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, সে বিষয়টি দেখার এখতিয়ার দলের চেয়ারম্যানের।

ফ্ল্যাশব্যাক ৫ জানুয়ারির নির্বাচন :

৫ জানুয়ারির জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে বহুরূপী ভূমিকায় ছিলেন এরশাদ। শুরুতে এককভাবে নির্বাচনে অংশ নেয়ার প্রস্তুতি নেন। এর অংশ হিসেবে দলীয় প্রার্থীদের নামের তালিকাও প্রকাশ করেন। নির্বাচনকালীন সরকারের মন্ত্রিসভায় কারা যোগ দেবেন এবং নির্বাচনের নানা দিক নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে কয়েক দফা বৈঠকও করেন। বঙ্গভবনে নির্বাচনকালীন সরকারের শপথ গ্রহণে যোগ দেন। দলীয় প্রার্থীদের সঙ্গে মনোনয়নপত্রও দাখিল করেন। কিন্তু মনোনয়নপত্র দাখিলের পর হঠাৎ দলীয় প্রার্থীদের নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর নির্দেশ দেন এরশাদ। তিনি বলেন, ‘আমাকে মেরে ফেলা হলেও নির্বাচনে যাব না।’ তিনি বলেন, নির্বাচনে যেতে বাধ্য করা হলে প্রয়োজনে পিস্তল ঠেকিয়ে মাথায় গুলি করে আত্মহত্যা করব। কিন্তু এরশাদের সব খেলা ব্যর্থ হওয়ার পর কোন এক রাতে র‌্যাবের গাড়িতে চড়ে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তি হন। ৫ জানুয়ারির নির্বাচন এবং নতুন সরকারের শপথ গ্রহণের আগের দিন পর্যন্ত তিনি ছিলেন হাসপাতালে। সেখানে থেকে খেলতে গিয়েছেন গলফ। পরে এমপি হিসেবে শপথও নেন এবং নতুন সরকারের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে যোগ দেন। এর আগে সকল রীতিনীতি ও শিষ্টাচার লংঘন করে ভারতের পররাষ্ট্র সচিব সুজাতা সিংয়ের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতার সকল তথ্য সংবাদ সম্মেলন করে ফাঁস করে দেন। সুজাতা সিংয়ের সঙ্গে সাক্ষাতের সময় এরশাদ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে দলীয় নেতা-কর্মীদেরকে তার বারিধারার বাসায় জড়ো করেন। জাপা কর্মীদের সঙ্গে পুলিশের ধাক্কাধাক্কির মধ্যে তার বাসা ত্যাগ করেন সুজাতা সিং। সে সময় এরশাদ বলেছিলেন, সুজাতা সিং ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে অংশ নেয়ার জন্য এরশাদকে আহবান করেছিলেন। সুজাতা সিং নাকি তাকে বলেছেন, আওয়ামী লীগের সঙ্গে থেকে ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে অংশ নেন। বিএনপি-জামায়াত জোটের সঙ্গে গেলে বাংলাদেশে মৌলবাদী শক্তির উত্থান ঘটবে। এ প্রসঙ্গে এরশাদ বলেছিলেন, যে শক্তিরই উত্থান ঘটুক আমি ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে অংশ নেব না। ওই এরশাদই ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর সবকিছুর জন্য দুঃখ প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চিঠি দেন।

এরশাদের নতুন খেলা

মন্ত্রিসভা থেকে দলের নেতাদের পদত্যাগ করার নির্দেশ দিয়ে নতুন এক খেলায় নেমেছেন এরশাদ। দলীয় কোন ফোরামে মন্ত্রিসভা থেকে সরে আসার কোন সিদ্ধান্ত না হলেও গত এক মাস ধরে বিভিন্ন সভা-সমিতিতে তিনি বের হওয়ার কথা বলছেন। যেমনটি তিনি করেছিলেন ১৯৯৬ সালে। এ অভিমত খোদ জাতীয় পার্টির নেতাদেরই। তারা বলেন, এরশাদ কখন কি করেন সবসময় তা বুঝে ওঠা দায়। হেফাজতে ইসলামের হাজার হাজার কর্মী যখন মতিঝিলে অবস্থান নিয়েছিলেন তখন এরশাদের ধারণা হয়েছিলো সরকারের পতন হবে। এরশাদের নির্দেশে নগরীর বেশ কয়েকটি পয়েন্টে শরবত বিতরণের কেন্দ্র খোলে জাপা। কাজী জাফরের নেতৃত্বে হেফাজতের সমাবেশে দলের প্রতিনিধিও পাঠান তিনি। সুতরাং এরশাদ সাহেব সবসময়ই খেলেন, আগামীতেও খেলবেন। তিনি একজন পাওয়ার প্লেয়ার।

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রের মতে, এরশাদ জানেন তিনি আহবান জানালেও তার দলের এমপিরা মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করবেন না। কেন না এর আগেও তিনি নির্বাচনে অংশ না নিতে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করতে তাদের নির্দেশ দিয়েছিলেন। তারপরও তারা নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন। এতকিছু জানার পরও এরশাদ কেন তাদের পদত্যাগের নির্দেশ দিয়েছেন সেটাই রহস্যময়। উৎসঃ   ইত্তেফাক


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ