• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৬:১১ পূর্বাহ্ন |

ছাত্রলীগের ক্যাডার শিক্ষক বিসিএস পুলিশ

Rejরেজোয়ান সিদ্দিকী: যে ছবি দেশের সংবাদপত্রগুলোতে প্রকাশিত হয়েছে তা চমকে ওঠার মতো। হঠাৎ করেই চমকে দেয়ার মতো। ছবিটি কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক সজীবুল ইসলাম সজীবের। সাথে আছেন আরো তিনজন। তাদের একজন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সংসদের সহসভাপতি আজিজুল হক মামুন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগ থেকে পড়াশোনা শেষে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে গণিত বিভাগে প্রভাষক হিসেবে যোগ দেন। ৩২তম বিসিএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ বিসিএস ক্যাডার হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। বর্তমানে তিনি সাভার লোক-প্রশাসন কেন্দ্রে প্রশিক্ষণরত। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নকালেও তিনি ছাত্রলীগের নেতা ছিলেন। অপরজন মতিয়ার রহমান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের নেতা ছিলেন। লেখাপড়া শেষে তিনি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রভাষক হিসেবে যোগ দিলেও বর্তমানে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রভাষক হিসেবে কর্মরত। আছেন সজীব ও তার সহযোগী সালাহউদ্দিন।
ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে, কালো প্যান্ট সাদা শার্টের ওপর ব্লেজার গায়ে মতিয়ার রহমান পিস্তল থেকে গুলি ছুড়ছেন। তার এই সাফল্য দেখে পাশে দাঁড়িয়ে হাসছেন সজীব। আর এডিডাসের ব্যাগ থেকে গুলি সরবরাহ করছেন সালাউদ্দিন। এরা সবাই ছাত্রলীগের ডাকসাইটে নেতা। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর থেকেই ছাত্রলীগ নেতারা সন্ত্রাস ও খুনের উৎসবের সব সীমানা লঙ্ঘন করেছে। প্রায় সব ক্ষেত্রেই সরকারের তরফ থেকে তাদের শুধু প্রশ্রয়ই দেয়া হয়েছে। দমন করার কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। কখনো কখনো আওয়ামী লীগ নেতারা এই বলে বিরোধী দলকে শাসিয়েছেন যে, বিরোধী দলকে মোকাবেলা করার জন্য ছাত্রলীগই যথেষ্ট, আওয়ামী লীগের প্রয়োজন হবে না।

বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগ অস্ত্রবাজির রেকর্ড করেছে। পুলিশের পাশাপাশি প্রকাশ্যে অস্ত্র উঁচিয়ে হামলা করেছে। পুলিশের সামনে অবৈধ অস্ত্রে গুলি ভরে প্রতিপক্ষকে আক্রমণ করেছে। হত্যার উৎসবে উন্মত্ত হয়েছে ছাত্রলীগ ক্যাডাররা; কিন্তু আজ পর্যন্ত শুনিনি তাদের কারো বিরুদ্ধে কার্যকর কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এই অস্ত্র প্রশিক্ষক সজীবের বিরুদ্ধেও নয়। ২০১৩ সালে পুলিশের হাত থেকে রাইফেল ছিনিয়ে নিয়ে ছাত্রদলের ওপর গুলি করে খুব নাম করেছিলেন সজীব। তার আগে থেকেই তাকে ডাকা হতো ‘পিস্তল সজীব’ বলে। গত বছর ৭ সেপ্টেম্বর নিজের অস্ত্র দিয়েও প্রতিপক্ষের ওপর হামলা চালান সজীব। তারপর কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ লোক দেখানোর জন্য ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত করে দেয়; কিন্তু কিছু দিনের মধ্যেই অস্ত্রবাজ সজীবকে যুগ্ম আহ্বায়ক করে নতুন কমিটি গঠন করা হয়। এতে প্রতীয়মান হয়, ছাত্রলীগে যে যত বড় অস্ত্রবাজ, খুন-খারাবিতে যে যত বড় ওস্তাদ, তাদের কদর তত বেশি।
অবৈধ অস্ত্রের প্রশিক্ষণদাতা এই সজীবকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে; কিন্তু বহিষ্কার-ফহিষ্কারে সজীবের কিছুই আসে যায় না। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন ও মুসলিম বিধান বিভাগে সজীব ভর্তি হয়েছিলেন ২০০৬-২০০৭ শিক্ষাবর্ষে। এই সাত বছরেও তিনি আর তৃতীয় বর্ষে উঠতে পারেননি। ফেল করে করে দ্বিতীয় বর্ষেই খাবি খাচ্ছেন। ফলে ছাত্রত্ব থাকল বা গেল, তাতে তার তার কিছুই আসে যায় না; কিন্তু এ পর্যন্ত ঘটনাবলি প্রমাণ করে, তার সাময়িক বহিষ্কার সাময়িকই থাকবে। অবিলম্বে তিনি আবার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ নেতা হিসেবে ফিরে আসবেন বলে ধারণা করি।

পত্রিকার রিপোর্টে বলা হয়েছে, এই সজীব ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে এবং জেলার আরো কিছু স্থানে অস্ত্র প্রশিক্ষণকেন্দ্র গড়ে তুলেছেন। তার এই অস্ত্র প্রশিক্ষণ ক্যাম্প থেকে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক বিসিএস ক্যাডার থেকে শুরু করে স্থানীয় সন্ত্রাসী ও চরমপন্থীরা প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন। যে ছবিটি প্রকাশিত হয়েছে, তা বিশ্ববিদ্যালয় মেডিক্যাল সেন্টারের পেছনে নির্জন স্থান, প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের। এখান থেকে গোলাগুলির শব্দ শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা নিয়মিতই পান। ক্যাম্পাসে যারা বসবাস করেন, তারাও পান। হয়তো আতঙ্কিত হন; কিন্তু প্রতিকারের কোনো পথ তাদের জানা নেই। ফলে মেনে নেয়া ছাড়া আর কী-ই বা করার আছে? সজীব যেহেতু ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্ববায়ক, ফলে পুলিশ-প্রশাসনের কারো যেন কিছুই বলার নেই। গুলি করা, অস্ত্র প্রশিক্ষণকেন্দ্র খোলা, খুনজখমÑ এর সবই যেন ছাত্রলীগের অধিকারে পরিণত হয়েছে। প্রতিকার চাওয়ার কেউ নেই। প্রতিকার কোথায়ও নেই। সজীবকে বহিষ্কার করা হয়েছে বটে, কিন্তু পুলিশ বা প্রশাসন কেউই আজ পর্যন্ত বলেনি যে, তাকে গ্রেফতারের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ধারণা করি, তেমন কোনো উদ্যোগ কখনো নেয়া হবে না।

সম্প্রতি প্রকাশিত তিনটি ছবিতে দেখা যায়, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের সাবেক শিক্ষক ও বর্তমান বিসিএস ক্যাডার আজিজুল হক মামুন নানা আঙ্গিকে গুলি ছুড়ছেন। একটি ছবিতে দেখা যায়, গুলি ছোড়ার পর পিস্তলের নল দিয়ে ধোঁয়া বের হচ্ছে। তার পরনে আছে সাদা শার্ট, কালো প্যান্ট আর নীল-কালো সাদা চেক হাফ সোয়েটার।
এখানেই আমাদের দ্বিতীয় প্রশ্ন। বেছে বেছে ছাত্রলীগের নীতি-নৈতিকতাহীন চরিত্রহীন অস্ত্রবাজদের সরকার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক বা সরকারি চাকরিতে নিয়োগে অগ্রাধিকার দিচ্ছে। এ ক্ষেত্রে নিশ্চয়ই মেধার কোনো মূল্য দেয়া হয়নি। মেধার মূল্য যদি দেয়াই হতো তাহলে একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও একজন বিসিএস ক্যাডার ছাত্রলীগের অস্ত্রবাজের কাছে অস্ত্র প্রশিক্ষণ নিতে যেতেন না। ছাত্রলীগ করেন বলে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক বা বিসিএস ক্যাডার হতে পারবেন নাÑ এমন উদ্ভট দাবি করছি না; কিন্তু এদের অস্ত্রবাজি প্রমাণ করে, মেধা তাদের যোগ্যতা নয়। ছাত্রলীগ পরিচয়ই যোগ্যতার বড় দিক। এই নীতিস্খলিত শিক্ষকের কাছ থেকে একজন ছাত্রের কী শেখার আছে? কিংবা কী শিক্ষা তিনি তাদের দিতে পারবেন? মাস্তানি, অস্ত্রের প্রশিক্ষণ, বিশ্বজিতের মতো নিরীহ দর্জি-শ্রমিককে কুপিয়ে হত্যা ও তার কৌশলÑ এসবই বোধ করি তারা শেখাতে পারবেন।
বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তিও বোধকরি দলীয় প্রভাবে নিয়োজিত প্রশাসকদের বিবেচনার ওপর নির্ভরশীল, যোগ্যতার ওপর নয়। নগরজুড়ে এখন পরীক্ষাকেন্দ্র খোলা হয়েছে। সেসব পরীক্ষাকেন্দ্র ছাত্রলীগ নেতারা নিয়ন্ত্রণ করছেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি নিশ্চিত করে দেবো, ২০ হাজার, ৫০ হাজার টাকা দাও। বিভিন্ন কলেজকেন্দ্র ডাকে ওঠে। যোগ্যতা নয়, বাণিজ্যিক ভিত্তিতে ভর্তি কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এমনকি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি জালিয়াতি নিয়মিত ঘটনায় পরিণত হয়েছে। এসব জালিয়াতিতে অংশ নিচ্ছেন বিচারপতির মেয়ে, ওসির ছেলে এমনি সব প্রভাবশালী লোকদের স্বজনেরা। খুব স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠবে, এই ব্যক্তিরা কী যোগ্যতায় এসব পদে আসীন হয়েছেন। যে যোগ্যতায়ই হোক, সাধারণ মানুষের মনে হবে যে, তারাও নিযুক্তি পেয়েছেন দলীয় বিবেচনায়। যিনি দলীয় বিবেচনায় শিক্ষক পদে নিয়োগ পেলেন, তিনিই দলীয় বিবেচনায় বিসিএস ক্যাডার হলেন। অর্থাৎ ভবিষ্যতে আমার সন্তান বা তার সন্তানদের এরাই লেখাপড়া শেখাবেন। প্রশাসনে এসব লোকই থাকবেন, যারা দলকানা; ন্যায়নীতি বিচার বিশ্লেষণের ঊর্ধ্বে; দেশের স্বার্থে নয়, দলীয় স্বার্থে কাজ করে যাবেন। সে এক ভয়াবহ অন্ধকার দিনের আভাস।
ঘটনার এখানেই শেষ নয়। গত ১১ সেপ্টেম্বর দৈনিক যুগান্তর এক রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। শিরোনাম Ñ অস্ত্র ক্রেতা র‌্যাব, বিক্রেতা পুলিশ/পিস্তল গুলিসহ এসবির এসআই গ্রেফতার। রিপোর্টে বলা হয়েছে, অস্ত্র ক্রেতা র‌্যাব, বিক্রেতা পুলিশ-ছাত্রলীগ। এভাবেই ধরা পড়ল অস্ত্র বিক্রেতা সিন্ডিকেট। বুধবার (১০ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর উত্তরা এলাকা থেকে পুলিশের বিশেষ শাখার এসআই মোহাম্মদ আসাদুজ্জামানসহ চারজনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। গ্রেফতারকৃত অন্যরা হলেন মাহমুদুর রহমান অপু, মশিউর রহমান প্লাবন ও সাইফুল ইসলাম সাইফ। গ্রেফতারের সময় তাদের কাছ থেকে একটি বিদেশী অস্ত্র ও তিন রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক (সিও) লে. ক. তুহিন মোহাম্মদ মাসুদ জানান, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব জানতে পারে, উত্তরা এলাকায় একটি সঙ্ঘবদ্ধ সিন্ডিকেট অস্ত্র কেনাবেচা করে। র‌্যাবের একজন সদস্য তাদের কাছ থেকে অস্ত্র কেনার ফাঁদ পাতেন। ওই দিন বেলা আড়াইটার দিকে উত্তরার ছয় নম্বর সেকশনের দুই নম্বর রোডের ১০ নম্বর বাড়ির সামনে তারা সবাই একত্র হন। তারপর কৌশলে তাদের গ্রেফতার করা হয়।
র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক জানিয়েছেন, অস্ত্র উদ্ধারে তারা বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করেন। এই কৌশলের অংশ হিসেবে তারা কখনো কখনো নিজেরাই ক্রেতা সেজে বিক্রেতার কাছে যান। সেভাবেই অস্ত্র উদ্ধার করা হলো। র‌্যাব জানিয়েছে, গ্রেফতারকৃত উপপরিদর্শক আসাদুজ্জামান পুলিশের বিশেষ শাখার উত্তরা অঞ্চলের কর্মকর্তা। তিনি উত্তরা ইউনিভার্সিটি থেকে লেখাপড়া শেষ করে এক বছর আগে পুলিশে যোগ দেন।

গ্রেফতারকৃত মশিউর রহমান আর সাইফুল ইসলামও এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। এসআই আসাদুজ্জামান জানিয়েছেন, ওই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় তিনি ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ছাত্রলীগ করার কারণে গ্রেফতারকৃতদের সাথে তার সখ্য গড়ে ওঠে। তারাও ছাত্রলীগের সাথে সম্পৃক্ত এবং অস্ত্র কেনাবেচা করে। গ্রেফতারকৃত অপর ব্যক্তি মাহমুদুর রহমানের পেশা রাজমিস্ত্রি এবং ছোটখাটো ব্যবসায়। অস্ত্র বিনিময়ের সময় র‌্যাব সদস্য টাকা দিতে দেরি করায় তাকে গুলি করার ভয় দেখানো হয়। র‌্যাবের ওই সদস্য অস্ত্রধারীকে জাপটে ধরে মাটিতে ফেলে দেন। ততক্ষণে র‌্যাবের অন্য সদস্যরা এসে হাজির হন। রাজমিস্ত্রি মাহমুদুর রহমান জানিয়েছেন, তিনি অস্ত্র কিনতে যোগাযোগ করেন ছাত্রলীগ নেতা সাইফুলের সাথে। সাইফুল এসআই আসাদের কাছ থেকে অস্ত্র কেনে। আসাদুজ্জামান বলেছেন, সীমান্তে তাদের লোক আছে। তারা বিভিন্ন কৌশলে তাকে টাকা দেন। তার পোশাক কাজে লাগান। এর ফলে চেকপোস্ট বা অন্য কোথায়ও কেউ চ্যালেঞ্জ করে না। মশিউর ও সাইফুল জানান, তারা উত্তরা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ কমিটিতে ছিলেন। সেভাবেই আসাদুজ্জামানের সাথে তাদের পরিচয়। সীমান্ত থেকে ১০-১৫ হাজার টাকায় তারা অস্ত্র কেনেন এবং ঢাকায় ৫০-৬০ হাজার টাকায় বিক্রি করেন। চোরাই অস্ত্রের ব্যবসা দুনিয়াজুড়ে আছে; কিন্তু তার সাথেও জড়িত ছাত্রলীগ থেকে পুলিশে যোগদান করা এসআই আর ছাত্রলীগের নেতারা। এই যে আসাদুজ্জামান, ধারণা করি, তিনিও যোগ্যতার বিচারে নয়, ছাত্রলীগ বিচারে পুলিশের চাকরি পেয়েছেন। এখন অস্ত্র ব্যবসায় নিয়োজিত হয়েছেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, তার মন্ত্রিসভার সদস্যরা, ‘ফটর-ফটর’ নেতারাÑ সবার কাছে প্রশ্ন করতে চাই, এই যে ছাত্রলীগ, এই যে শিক্ষক-ক্যাডার, এই যে পুলিশ, যাদের সবার ব্যাকগ্রাউন্ড ছাত্রলীগ, তারা কি আপনাদের সম্পদ হয়েই থাকবে? মনে হয় না। একদিন স্বার্থের দ্বন্দ্বে ফ্র্যাঙ্কেনস্টাইনের (পড়েছেন তো) এই দানবেরা আপনাদের ঘাড়ও মটকে দেবে। আর আপনাদেরও পরবর্তী প্রজন্ম একেবারেই ধ্বংস হয়ে যাবে। বিপন্ন হয়ে পড়তে পারে দেশের অস্তিত্বও।
লেখক : সাংবাদিক ও সাহিত্যিক
( নয়া দিগন্ত )


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ