• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ০৯:৪৮ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা: প্রধান আসামি জিতু গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় বিজিবি সদস্যকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ শ্রেণিকক্ষে রাবি শিক্ষিকাকে মারতে গেলেন ছাত্র! অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযােগ এনজিও’র দুই কর্মকর্তা গ্রেফতার জলঢাকায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নে কর্মশালা ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে মার্কেট-শপিং মলে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন খানসামায় র‌্যাবের অভিযান ইয়াবাসহ দুই মাদককারবারী গ্রেপ্তার ডোমার ও ডিমলায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ১০ উদ্যোগ নিয়ে কর্মশালা নীলফামারীতে ৫ সহযোগীসহ কুখ্যাত চোর ফজল গ্রেপ্তার

নতুন করে ইংরেজিতে প্রকাশিত হল তসলিমার ‘লজ্জা’

Toslimaসাহিত্য ডেস্ক: প্ররকাশনার ২০ বছরপূর্তি উপলক্ষে বিতর্কিত লেখিকা তসলিমা নাসরিনের সাড়া জাগানো উপন্যাস ‘লজ্জা’র নতুন করে ইংরেজিতে প্রকাশ করা হয়েছে। অধিকার কর্মী-লেখক অঞ্চিতা ঘটক তসলিমা নাসরিনের উপন্যাসটি নতুন করে ইংরেজিতে অনুবাদ করেছেন। ইংরেজিতে প্রকাশিত বইটি পেঙ্গুইন প্রকাশনীর ব্যানারে বাজারে এসেছে। দ্য হিন্দু
বইটি নতুন করে ইংরেজিতে প্রকাশিত হওয়ায় বেশ উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন খোদ তসলিমা নাসরিন। এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘লজ্জা তথ্য নির্ভর একটি উপন্যাস। উপন্যাসের চরিত্রগুলো কাল্পনিক কিন্তু উপন্যাসের প্রেক্ষাপট বাস্তব ঘটনার উপর নির্ভর করে তৈরি করা হয়েছে। লজ্জা উপন্যাসটি সর্বাধিক বিক্রিত বইয়ের মধ্যে অন্যতম। উপন্যাসটি ভারতের প্রায় সকল ভাষায় অনুদিত হয়েছে। পাশাপাশি ফ্রেঞ্চ, জার্মান, ইতালীয়ান, স্প্যানিশ, ডাচ সহ অনেকে বিদেশি ভাষাতেও উপন্যাসটি প্রকাশিত হয়েছে’।

লজ্জা উপন্যাসটি মূলত বাঙ্গালি হিন্দু একটি দত্ত পরিবারের গল্প যারা বাংলাদেশে বসবাস করতেন। গল্পটি ১৯৯২ সালের ভারতীয় সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার প্রেক্ষাপটে লেখা যখন বাবরী মসজিদ ভেঙ্গে ফেলা হয়েছিল। ১৯৯৩ সালে লজ্জা প্রকাশিত হয়েছিল। প্রকাশনার পর মৃত্যুর ভয়ে বাংলাদেশ ত্যাগ করতে হয়েছিল এর লেখিকা তসলিমা নাসরিনকে। এর পর থেকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অস্থায়ীভাবে বসবাস করতে থাকেন তসলিমা। সর্বশেষ ২০০৪ সালে ভারতে বিশেষ আশ্রয়ে বসবাস করা শুরু করেন তসলিমা। সম্প্রতি ২০১৫ সাল পর্যন্ত ভারতে বসবাস করার সুযোগ পেয়েছেন বিতর্কিত এই লেখিকা।

তসলিমা নাসরিনের উল্লেখযোগ্য বইগুলোর অন্যতম হল দ্বিখ-িত, অপরপক্ষ, আমার মেয়েবেলা, উতাল হাওয়া। ভিন্নমাত্রার উপন্যাস রচনা করার জন্য তসলিমা নাসরিন একাধিক আন্তর্জাতিক পুরষ্কার পেয়েছেন। ১৯৯৪ সালে সাখারভ এবং ২০০৮ সালে তিনি সিমন ডি বিভার পুরষ্কারে ভষিত হন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ