• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৪:৪৪ পূর্বাহ্ন |

গরুর মাংসের টাকায় সন্ত্রাস!

91038_1আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতে অবৈধভাবে হাজার হাজার গরু জবাই করে সেই মাংসের টাকায় সন্ত্রাসবাদে মদত দেওয়া হচ্ছে এমন চাঞ্চল্যকর অভিযোগ করে হইচই ফেলে দিয়েছন বিজেপির মন্ত্রী এবং গান্ধী পরিবারের পুত্রবধূ মানেকা গান্ধী।

তিনি বলেন, এই সব পশুর একটা বড় অংশ বাংলাদেশে পাচার করা হচ্ছে এবং তারা প্রসেসড গরুর মাংস রপ্তানি করে ফায়দা লুটছে।

যদিও মানেকা গান্ধী দাবি করেছেন, এই অভিযোগের সঙ্গে ধর্মের কোনও সম্পর্ক নেই, মুসলিম নেতারা তার বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ করেছেন। তবে এই বিতর্কে ক্ষমতাসীন দল বিজেপি মানেকা গান্ধীর পাশেই দাঁড়িয়েছে।

ভারতের নারী ও শিশুকল্যাণমন্ত্রী মানেকা গান্ধী উত্তরপ্রদেশের পিলিভিট থেকে নির্বাচিত বিজেপি-র সাংসদই শুধু নন, পশু অধিকার রক্ষার আন্দোলনের নেত্রী হিসেবেও তিনি সুপরিচিত।

কিন্তু রোববার জয়পুরে পশুপ্রেমীদের এক সমাবেশে ভাষণ দিতে গিয়ে তিনি ভারতে অবৈধ গবাদি পশুর জবাই নিয়ে যা বলেছেন মুসলিম সম্প্রদায়ের নেতারা তো বটেই, ভারতের মাংস ব্যবসায়ী ও রপ্তানিকারকরাও তার তীব্র প্রতিবাদ করছেন।

উত্তরপ্রদেশ পুলিশের বছর চারেকের একটি পুরনো রেকর্ড উদ্ধৃত করে মানেকা গান্ধী সেখানে দাবি করেন অবৈধ পশু জবাইয়ের সঙ্গে সন্ত্রাসবাদের সরাসরি যোগাযোগ আছে।

তিনি বলেন, যেসব পশুকে অবৈধভাবে জবাইয়ের জন্য নিয়ে যাওয়া হচ্ছে, তাদের মাংস বেচার টাকাতেই সন্ত্রাসবাদ চলছে, সেই টাকাতেই আমাদের ওপর বোমা মারা হচ্ছে, আমাদের হত্যা করা হচ্ছে। কেন আমরা এটা হতে দেব?

তবে তিনি এও বলেন, এর সঙ্গে মুসলিম ধর্মের কোনও সম্পর্ক নেই।

তিনি বলেন, হিন্দুরাও তাদের গরুমোষ বেঁচছে, ট্রাকচালকদের মধ্যেও সব ধর্মের লোকই আছে। বিষয়টা ধর্মের নয়, টাকার।

মানেকা গান্ধী শুধু এটুকু বলেই থেমে যাননি, জানিয়েছেন দুগ্ধবতী ও গবাদি পশুর একটা বড় অংশ অবৈধভাবে পাচার হচ্ছে বাংলাদেশে।

মুসলিমদের প্রতিবাদ:

তার এই মন্তব্যের প্রতিবাদ করেছেন অনেক মুসলিম নেতা।

উত্তরপ্রদেশের প্রভাবশালী রাজনীতিক ও আইন-বিশেষজ্ঞ কামাল ফারুকি বলেছেন গুরুতর এই অভিযোগের আগে মন্ত্রীর উচিৎ ছিল তথ্যপ্রমাণ হাজির করা।

তিনি বলেন, দুটো মারাত্মক অভিযোগ করেছেন তিনি একটা হল গবাদি পশুর অবৈধ জবাই, আর একটা সেই ব্যবসার টাকা সন্ত্রাসবাদে ব্যবহার করা। কিন্তু এমন গুরুতর অভিযোগ করার আগে একজন ক্যাবিনেট মন্ত্রীর আরও সতর্ক হওয়া উচিত, আরও তথ্যপ্রমাণ পেশ করা উচিত।

ভারতে কোনও কোনও রাজ্যে অল্প কিছু নির্দিষ্ট জায়গাতেই কেবল গরু জবাই করার অনুমতি আছে। কিন্তু সারা দেশেই গোধন আর গোমাতাকে রক্ষার নামে গোহত্যা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করা বিজেপির পুরনো একটা দাবি।

নরেন্দ্র মোদি সরকারের চার মাস পূর্ণ হওয়ার আগেই মানেকা গান্ধীর মন্তব্যে অনেকে সেই দাবি নতুন করে তোলার প্রয়াস দেখতে পাচ্ছেন। সূত্র : বিবিসি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ