• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০৩:১৫ অপরাহ্ন |

পার্বতীপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি অন্যতম সেরা করদাতা প্রতিষ্ঠান

Boropukuria Coal khoniরুকুনুজ্জামান বাবুল, পার্বতীপুর: পার্বতীপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি পরপর তিন বছর কোম্পানি পর্যায়ে অন্যতম সেরা আয়কর প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের মর্যাদা পেয়েছে। পেট্রোবাংলার এই প্রতিষ্ঠানটি বিগত তিন অর্থবছরে (২০১১-১২, ২০১২-১৩ ও ২০১৩-২০১৪) ৩৯৫ কোটি ৫৫ লাখ টাকা আয়কর দিয়ে এ মর্যাদা লাভ করেছে। ২০১২-১৩ ও ২০১৩-১৪ অর্থ বছরে সেরা আয়কর দাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমিনুজ্জামান ও পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান (পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান) ড. হোসেন মনসুরের হাতে ট্যাক্স কার্ড সম্মননা পত্র ((CIP) প্রদান করা হয়। সোমবার রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত জাতীয় পর্যায়ে নির্বাচিত ৪০ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানকে ট্যাক্স কার্ড সম্মাননা দেবেন। একই দিন সিটি করপোরেশন ও জেলা পর্যায়ে ৩৬৩ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানকেও সম্মাননা দেওয়া হবে। বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি জাতীয় পর্যায়ে নির্বাচিত সেরা করদাতা ৪০ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানের মধ্যে অন্যতম।
বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের (বিসিএমসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমিনুজ্জামান বলেন, বিগত তিন বছর ধরে ধারাবাহিকভাবে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি জাতীয়ভাবে অন্যতম সেরা করদাতা সম্মননা লাভ করেছে। এটা কোম্পানির জন্য বিরাট সাফল্য ও গর্বের বিষয়। ২০১৩-১৪ অর্থবছরে কোম্পানি নয় লাখ ৩৩ হাজার টন কয়লা বিক্রি করে ৯৯৮ কোটি টাকা আয় করেছে। সরকারি কোষাগারে জমা দিয়েছে প্রায় ৩০২ কোটি টাকা। তিনি আরো জানান, দেশের প্রাথমিক জ্বালানি হিসেবে প্রাকৃতিক গ্যাসের সঙ্গে কয়লার ভূমিকা ক্রমান্নয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ খনি থেকে উৎপাদিত হচ্ছে উন্নত মানের (বিটুমিনাস) কয়লা। এর তাপজনন ক্ষমতা অনেক বেশি। সালফারের পরিমাণ অত্যন্ত কম ও বড়পুকুরিয়ার কয়লা অনেক বেশি পরিবেশবান্ধব। এই কয়লা শুধু পার্শ্ববর্তী ২৫০ মেগাওয়াট তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের চাহিদাই পূরণ করছে না, দেশের শিল্প কারখানা ও ইটভাটায়ও ব্যবহৃত হচ্ছে। ইটভাটায় পর্যাপ্ত পরিমাণ কয়লা সরবরাহ করার ফলে বৃক্ষ নিধনের হার হ্রাস পাওয়ায় পরিবেশের ওপর ইতিবাচক প্রভাব পড়ছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। তিনি বলেন, ২০১৩-১৪ অর্থ বছরের সেরা করদাতা হিসেবে সোমবার এ কোম্পানিকে ট্যাক্স কার্ড সম্মননা দেওয়া হয়েছে। খনি কর্তৃপক্ষ জানায়, ২০০৫ সালের ১০ সেপ্টেম্বর কয়লার বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরুর পর থেকে চলতি বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত ৬৩ লাখ ৮২ হাজার ৬৪৭ মেট্রিক টন কয়লা উত্তোলন করা হয়েছে। এসব কয়লা বিক্রি করে খনির চার হাজার ২৫৮ দশমিক ১৬ কোটি টাকার রাজস্ব আয় হয়েছে। এ থেকে ভ্যাট, রয়ালিটি ও ট্যাক্স বাবদ সরকারি কোষাগারে জমা পড়েছে এক হাজার ৭৮ দশমিক ৮৩ কোটি টাকা।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলার হামিদপুর ইউনিয়নে অবস্থিত বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির ষষ্ঠ সিমের (স্তর) প্রথম স্লাইস থেকে ২০০৫ সালের ১০ সেপ্টেম্বর মাল্টিস্লাইস লংওয়াল পদ্ধতিতে (Multislice Longwall Mining Method) কয়লার বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু করে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান সিএমসি-এক্সএমসি কনসোর্টিয়াম। খনির উৎপাদন, ব্যবস্থাপনা ও রক্ষণাবেক্ষণের (এম অ্যান্ড পি) দায়িত্বও পালন করে আসছে প্রতিষ্ঠানটি। মাল্টিস্লাইস লংওয়াল পদ্ধতিতে প্রতিদিন গড়ে আড়াই থেকে তিন হাজার মেট্রিক টন কয়লা উত্তোলন করা সম্ভব হতো। পরে ২০১৩ সালের মে মাস থেকে সর্বাধুনিক লংওয়াল টপ কোল কেভিং পদ্ধতিতে (Longwall Top Coal Caving-LTCC)  দ্বিতীয় স্লাইস থেকে সর্বোচ্চ মাত্রায় কয়লা উত্তোলন শুরু করা হয়। এর মাধ্যমে প্রতিদিন গড়ে পাঁচ হাজার মেট্রিক টন কয়লা উত্তোলন করা হচ্ছে। সূত্র মতে, প্রথম  স্লাইস কয়লা উৎপাদন শেষ হয় ২০১২ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি। এ স্লাইসের ১১টি ফেইস থেকে প্রায় ৪২ লাখ মেট্রিক টন কয়লা উত্তোলন করা হয়। দ্বিতীয় স্লাইস থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ২২ লাখ মেট্রিক টন কয়লা উত্তোলন করা হয়েছে। বড়পুকুরিয়া কয়লা খনিতে কর্মরত দেশি প্রকৌশলী ও শ্রমিকরা চীনসহ বিভিন্ন দেশে কারিগরি প্রশিক্ষণ নিয়ে দিনে দিনে দক্ষ হয়ে উঠেছেন। ভূমি মালিকদের ক্ষতিপূরণ ও পূনর্বাসন করায় এবং নিজস্ব দক্ষ জনবল গড়ে উঠায় বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি এখন সম্ভাবনাময় প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির জেনারেল ম্যানেজার (অর্থ ও হিসাব) আব্দুল মান্নান পাটোয়ারী ও ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার গোপাল চন্দ্র সাহা জানান, চলতি বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত উৎপাদিত কয়লা বিক্রি করে রাজস্ব আয় হয়েছে চার হাজার ২৫৮ দশমিক ১৬ কোটি টাকা। এ সময়ে ট্যাক্স, ভ্যাট ও রয়্যালিটি বাবদ সরকারি কোষাগারে জমা করা হয় এক হাজার ৭৮ দশমিক ৮৩ কোটি টাকা। তারা আরো জানান, ২০০৯ সাল থেকে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। গত ছয় বছরে কয়লা বিক্রি করে এ খনি মুনাফা করেছে এক হাজার ৪২৯ দশমিক ৮১ কোটি টাকা। এর মধ্যে ২০০৮-২০০৯ সালে ১৪৮ দশমিক ৮৫ কোটি, ২০০৯-২০১০ সালে ৯৩ দশমিক ০৪ কোটি, ২০১০-২০১১ সালে ১৩৮ দশমিক ৯৩ কোটি, ২০১১-২০১২ সালে ৩৪০ দশমিক ৪৩ কোটি, ২০১২-২০১৩ সালে ৩৫৪ দশমিক ৭৬ কোটি ও ২০১৩-২০১৪ সালে ৩৫৩ দশমিক ৮০ কোটি টাকা। ১৯৮৫ সালে বাংলাদেশ ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তর বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি আবিষ্কার করে। চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না ন্যাশনাল মেশিনারি ইমপোর্ট অ্যান্ড এক্সপোর্ট করপোরেশন (সিএমসি) ১৯৯৪ সালের জুনে খনি উন্নয়ন কাজ শুরু করে। এক হাজার ৪০০ কোটি টাকা (১৯৪ দশমিক ৯১ মার্কিন ডলার) ব্যয়ে বাস্তবায়ন কাজ শেষ হয় ২০০৫ সালের ৩০ জুন। এখানে ছয় দশমিক ৬৮ বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে ছয়টি স্তরে কয়লার মজুদ রয়েছে। যার গড় পুরুত্ব ৩৬ ফুট।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ