• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৬:৩৩ অপরাহ্ন |

সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের চেয়ারম্যান খন্দকারের পদত্যাগ

sector_commanders_forum_899267957_51872ঢাকা : সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের চেয়ারম্যান পদ  থেকে পদত্যাগ করেছেন মুক্তিযুদ্ধের উপ-প্রধান সেনাপতি এবং সাবেক পরিকল্পনামন্ত্রী এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) এ কে খন্দকার, বীরউত্তম। এছাড়া তিনি সংগঠনটির প্রাথমিক সদস্যপদ থেকে নিজেকে প্রত্যাহার করে নিয়েছেন।
বুধবার সন্ধ্যার পর মহাসচিব বরাবর লেখা পদত্যাগপত্র ফোরামের ধানমন্ডি কার্যালয়ে পৌঁছানো হয়। ফোরামের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব হারুন হাবীব এটি গ্রহণ করেন।
এতে বলা হয়, ‘‘আমি (এ কে খন্দকার) অদ্য ১৭/০৯/২০১৪ খ্রি. তারিখ থেকেই সজ্ঞানে এবং সুস্থ্য মস্তিষ্কে সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের ‘চেয়ারম্যান’ এর পদ থেকে পদত্যাগ করছি এবং অদ্য ১৭/০৯/২০১৪ খ্রি. তারিখ থেকে সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের সদস্য পদ থেকে আমার নাম প্রত্যাহার করছি।’’
বয়সের কারণে বর্তমানে ওই পদে থেকে ফোরামের সার্বিক দায়িত্ব পালন করা সম্ভব হয়ে উঠছে না বলেও উল্লেখ করেন তিনি।
সম্প্রতি প্রথমা প্রকাশনী থেকে এ কে খন্দকারের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসভিত্তিক বই ‘১৯৭১: ভেতরে বাইরে’ প্রকাশিত হয়। বইটিতে বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ভাষণ ও স্বাধীনতার ঘোষণা সংশ্লিষ্ট কিছু মন্তব্যের কারণে বইটি নিয়ে বিতর্ক অব্যাহত রয়েছে। বইটি নিষিদ্ধ করার দাবি উঠেছে সংসদে। বিবৃতি দেওয়া হয় সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের পক্ষ থেকে।
এতে বলা হয়, ‘বইটিতে তিনি মুক্তিযুদ্ধের প্রাণপুরুষ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ সম্পর্কে যে দাবি উত্থাপন করেছেন, তা বাস্তবতাবিবর্জিত। স্বাধীনতার ৪৩ বছর পর এমন বিভ্রান্তিকর বক্তব্য আমাদের হতবাক করেছে। এই বইয়ের বক্তব্য এ কে খন্দকারের একান্তই নিজস্ব। বইয়ে তার বক্তব্য ও মন্তব্যের সঙ্গে ফোরামের নীতি, আদর্শ ও ঐতিহাসিক সত্য উপলব্ধির মিল নেই।
উল্লেখ্য, ‘১৯৭১ : ভেতরে বাইরে’ বইয়ের ৩২ পৃষ্ঠায় এ কে খন্দকার লিখেছেন, ঐতিহাসিক ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ভাষণের শেষ শব্দ ছিল ‘জয় পাকিস্তান’। এছাড়া এ কে খন্দকার তার বন্ধু মঈদুল হাসানের বরাত দিয়ে বলেছেন, তাজউদ্দীন আহমদ ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে স্বাধীনতার একটি ঘোষণাপত্র লিখে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে তা পাঠ করতে বললেও তিনি রাজি হননি। উল্টো তিনি বলেন, ‘এটা আমার বিরুদ্ধে একটা দলিল হয়ে থাকবে। এর জন্য পাকিস্তানিরা আমাকে দেশদ্রোহের বিচার করতে পারবে।’
এ কথা শুনে তাজউদ্দীন আহমদ ক্ষিপ্ত হয়ে বঙ্গবন্ধুর বাসা থেকে বেরিয়ে যান। এছাড়া ‘মুজিব বাহিনী ভারতীয়দের কাছ থেকে সম্মানী পেতো’, ‘মুজিব বাহিনী অস্থায়ী সরকার ও মুক্তিবাহিনীকে অবজ্ঞা করতো’ মুক্তিযুদ্ধকালীন এমন আরো কিছু তথ্য তিনি তার বইয়ে উল্লেখ করেছেন।
মুক্তিযুদ্ধের শুরুতে বঙ্গবন্ধুসহ তৎকালীন রাজনৈতিক নেতৃত্বের যথেষ্ট প্রস্তুতি ছিল না বলেও মন্তব্য রয়েছে বইটিতে।
মুক্তিযুদ্ধের জীবন্ত কিংবদন্তী এ কে খন্দকার বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর প্রধান ছিলেন, অবসরগ্রহণের পর সক্রিয় রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হন এবং ২০০৮-এর জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। দায়িত্ব পান পরিকল্পনামন্ত্রী হিসেবে মহাজোট ও নির্বাচনকালীন সরকারে দায়িত্ব পালন করেন। শারীরিক অবস্থা বিবেচনায় নিজে থেকে গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে অংশ নেননি তিনি।
মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদানের জন্য তিনি ২০১১ সালে পেয়েছেন স্বাধীনতা পদক। তার নামে ঢাকার একটি রাস্তার নামকরণও রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ