• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৫:৫৮ পূর্বাহ্ন |

চাঁদপুরে বহুতল ভবন নির্মাণের হিড়িক মানা হচ্ছে না বিল্ডিংকোড

SAM_4580শরীফুল ইসলাম, চাঁদপুর: চাঁদপুর শহরসহ বিভিন্ন উপজেলা শহরে একের পর এক বহুতল ভবন নির্মাণ হচ্ছে। চাঁদপুর শহরে গত কয়কে বছর ধরে বলতে গেলে বহুতল ভবন নির্মিণেরে হিড়িক পড়েছে। আবাসকি ভবন, বাণিজ্যিক ভবন নির্মিত হচ্ছে একরে পর এক। কিন্তু এসব ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে অধিকাংশ ভবন মালিকই বিল্ডি কোড তথা নিয়ম কানুন মানছনে না। বিশেষ করে বিল্ডি কোডের যে একটি অংশ ‘ফায়ার সার্ভিস ও সিভিলি ডিফিন্সে’র আওতায় তার র্শতাবলি রক্ষা করা হচ্ছে না। অথচ ভবনরে পর ভবন হচ্ছে। এ দিকে সংশ্লিষ্ট কারোরই কোনো তদারকি নেই। এতে করে জীবনরে ঝুঁকি থেকে যাচ্ছে। কোনো কোনো ভবন যেনো এককেটি মৃত্যু ফাঁদ। ভবন র্নিমণেরে সময় এবং নির্মিানের পর বসবাসরে জন্যে যে ফায়ার সার্ভিসের অনাপত্তি ছাড়পত্র নিতে হয় আর এ ছাড়পত্র নেয়ার ক্ষেত্রে ভবন তৈরি করতে যে ১২টি র্শত থাকতে হয় বাস্তবে এর কোনোটিই নেই ওইসব ভবনে। তারপরও বহুতল ভবন নির্মিত হচ্ছে একরে পর এক।
চাঁদপুর শহরে গত কয়েক বছর যাবৎ হাউজিং ব্যবসা খুব জমে উঠেছে। একের পর এক বহুতল ভবন/অ্যার্পাটমেন্ট হচ্ছে। প্লট বেচা-কেনা হচ্ছে। এ ছাড়া এককভাবে মালিকানাধীন বহুতল ভবনও হচ্ছে। বিধি অনুযায়ী ছয় তলার উপরে হলইে সেটা বহুতল ভবনরে আওতায়। আর চাঁদপুর শহরে এখন ১০-১৫ তলা ভবন হচ্ছে অহরহ। ছয়তলা ভবন তো কমন বিষয়। বশে কিছু ভবন/অ্যার্পাটমেন্ট ইতিমধ্যে নির্মিত হয়ে গেছে, নির্মাণাধীন রয়েছে বেশে ক’টি। হাজীগঞ্জসহ কয়কেটি উপজলোয়ও এমন ভবন বিদ্যমান রয়েছে এবং নির্মিতও হচ্ছে। এখন দেখার বিষয়, এসব ভবন/এর্পাটমেন্টে কতটুকু নিয়ম মেনে করা হচ্ছে। সরজমিনে ঘুরে দেখা গেছে যে, অধিকাংশ ভবন নির্মাণের ক্ষেত্েের ন্যাশনাল বিল্ডিং কোড মানা হচ্ছে না। বিশেষ করে এ ন্যাশনাল বিল্ডিং কোডের একটি অংশ ‘ফায়ার সার্ভিসি ও সিভিল ডিফেন্সের অনাপত্তি ছাড়পত্র নিতে হলে যেসব শত বাস্তবে থাকতে হবে তার সিংহভাগই নেই।
চাঁদপুর ফায়ার সাভিস ও সিভিল ডিফিন্সের উপ-সহকারী পরিচালকের কার্যালয় থেকে জানা গেছে, ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে প্রথমে ফায়ার সার্ভিসি ও সিভিল ডিফিন্সে অফিস থেকে অনাপত্তি ছাড়পত্র নিতে হয়। এরপর নির্মাণ শেষে বসবাসরে জন্য আবার অনাপত্তি ছাড়পত্র নিতে হয়। প্রথমবার নির্মাণের জন্য অনাপত্তি ছাড়পত্র দেয়ার সময় ১২টি র্শত প্রযোজ্য করে দেয়া হয়। এরপর নির্মাণ শেষে দেখা হয় ওই ১২টি র্শত বাস্তবে বিদ্যমান আছে কিনা। তা দেখে বসবাসের জন্য অনাপত্তি ছাড়পত্র দিয়ে থাকে ফায়ার সার্ভিস কর্তৃপক্ষ। আরো জানা গেছে, সর্বোচ্চ ছয়তলা র্পযন্ত ভবন নির্মাণের জন্য ফায়ার সাভিস ও সিভিল ডিফিন্সে চাঁদপুর-এর উপ-সহকারী পরচিালকের কার্যালয় থেকে অনাপত্তি ছাত্রপত্র দেৎয়া হয়। আর এর উপরে তথা বহুতল ভবন নির্মণের ক্ষেত্রে ছাড়পত্র দেয়া হয় এ সংস্থার মহাপরিচালকের দপ্তর থেকে।
ফায়ার সার্ভিসি কার্যালয় থেকে অনাপত্তি ছাড়পত্র দেয়ার সময় যে ১২টি প্রস্তাবনা দেয়া হয় সেগুলো হচ্ছে : আবাসিক ভবনে ফায়ারের গাড়ি সহজে প্রবশে ও কাজ করার সুবধিার জন্য ন্যূনপক্ষে দশ ফুট প্রশস্ত রাস্তার ব্যবস্থা নিশ্চিত করা, ভবনের চারদিকে উন্মুক্ত জায়গা রাখা, যাতে জরুরি প্রয়োজনের সময় নির্বিঘ্েিন চলাচল করা যায়, ভবনে বাধামুক্ত অগ্নি নির্বিাপণের জন্য ভবনের সম্মুখে বৈদ্যুিতক ওভার হেডলাইন না থাকা, ভবনরে আন্ডারগ্রাউন্ড/বেইজরেমন্ট ফ্লোরে বিশ হাজার লটারির পানির পাকা জলাধার সংরক্ষণ করা এবং অগ্নি নির্বাপণের জন্য র্সাবক্ষণকি পঞ্চাশ ভাগ পানির মজুদ নশ্চিতি করা, জলাধারের মুখ ২র্র্০  ডায়া মটির সম্পন্ন হওয়া, অগ্নি নির্বিপণের জন্য ভবনরে ছাদে একটি দশ হাজার লিটার ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন পানির পাকা জলাধার সংরক্ষণ করা এবং এতে ৫০% পানি মজুদ নিশ্চিত করা, বজ্রপাত হতে সৃষ্ট পরিস্থিতি প্রতিরোধে ছাদে লাইটিং কন্ডাস্টার স্থাপন করা, বৈদ্যুতকি মেইন সুইচ/পাওয়া র্বোড সঁিড়ি কোঠার নিচে থাকা, ভবনরে গ্রাউন্ড ফ্লোর হতে ছাদ র্পযন্ত চার ফুট চওড়া সঁিড়ি থাকা, ভবনরে প্রতি ফ্লোরে ৫৫০ র্বগফুটরে জন্য পাঁচ কিেজ ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন একটি এবিিস ড্রাই কেমিক্যাল পাউডার এক্সটংিগুইসার সংরক্ষণ করা এবং এর ব্যবহার বিিধ লেিখ রাখা, প্রতিিট রান্না ঘররে সামনে একটি ও ভতেরে একটি করে পাঁচ কিেজ ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন এবিিস ড্রাই কমেক্যিাল পাউডার এক্সটংিগুইসার সংরক্ষণ করা। কন্তিু বাস্তবে দখো গেেছ য,ে ফায়ার র্সাভসি র্কতৃপক্ষরে এসব প্রস্তাবনার অধকিাংশই রক্ষা করা হয় না। অথচ ভবন হয়ে যাচ্ছে এবং ফায়ার র্সাভসি র্কতৃপক্ষরে অনাপত্তি ছাড়পত্র পেেয় যাচ্ছ।ে বাস্তবে দখো গেেছ য,ে ভবনগুলো এমনভাবে নর্মিাণ করা হচ্ছে কোনো র্দুঘটনা ঘটলে ফায়ার র্সাভসিরে গাড়ি যাওয়ার রাস্তা নইে, আশপাশে কোনো জলাশয় নইে, ভবনে প্রয়োজনীয় জলাধার নইে এবং ভবনরে সঁিড়ওি থাকে খুব সঙ্কুচতি। ভবন করার ক্ষত্েের এতোসব অনয়িম কউেই দখেছে না। সরকারি কোনো সংস্থা বা ভবন করার জন্য অনুমোদন নেিত হয় এমন সংস্থারও কোনো তৎপরতা লক্ষ্য করা যায় না। ফলে নয়িমনীতরি তোয়াক্কা না করইে বহুতল ভবনরে পর ভবন নির্মিত হচ্ছে। এতে করে মানুষরে জীবন ও সম্পদ ঝুিঁকর মধ্যে থেকে যায়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ