• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০২:১০ পূর্বাহ্ন |

সামাজিক মাধ্যমে চলছে ‘ফ্রি সাঈদী’ ক্যাম্পেইন

91384_1সিসি ডেস্ক: জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমির মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর রায় নিয়ে তোলপাড় চলছে বাংলাদেশসহ বিশ্বে৷ সাঈদীর সমর্থক কিংবা তাঁর বিরুদ্ধে আন্দোলনরত কোনো পক্ষই আদালতের আদেশে দৃশ্যত সন্তুষ্ট নয়৷টুইটারে চলছে ‘ফ্রি সাঈদী’ ও ‘হ্যাং সাঈদী’ ক্যাম্পেইন৷

বাংলাদেশে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বলতে মূলত ফেসবুককেই বিবেচনা করা হয়৷ তবে দেখা যাচ্ছে ভিন্ন চিত্র৷ একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে অভিযুক্ত জামায়াত নেতা সাঈদীর শাস্তি বদলের খবরে অনেকে সোচ্চার টুইটারে৷ গত ২৪ ঘণ্টায় (জার্মান সময় বুধবার দুপুর একটা পর্যন্ত) ইংরেজিতে ‘ফ্রি সাঈদী’ হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে টুইট করা হয়েছে প্রায় চারশো’র মতো৷ পাশাপাশি হ্যাশট্যাগ হিসেবে শুধু ‘সাঈদী’ ব্যবহার হয়েছে প্রায় তিনশো বার৷ আরো যে হ্যাশট্যাগটি অনেকে ব্যবহার করছেন সেটি হচ্ছে ‘হ্যাং সাঈদী’৷

একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীদের শাস্তির দাবিতে গড়ে ওঠা গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার টুইটারে অত্যন্ত সক্রিয়৷ আপিল বিভাগ সাঈদীর শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বদলে আমৃত্যু কারাদণ্ড ঘোষণার আগে ইমরান টুইটারে ইংরেজিতে লিখেন, গত ৪৩ বছর ধরে আমরা বিচারের অপেক্ষায় আছি৷ একাত্তরে গণহত্যার বিচার৷ একাত্তরের নায়কদের সম্মান জানানোর এখনই সময়৷

ইমরানের এই পোস্ট পুনরায় টুইট করা হয়েছে ৫৮ বার৷ আর ‘ফেভারিটের’ তালিকায় যোগ হয়েছে ৩৬ বার৷ তবে আপিল বিভাগ রায় ঘোষণার পর কোনো টুইট করেননি শাহবাগ আন্দোলনের সঙ্গে শুরু থেকে সম্পৃক্ত ইমরান৷

এদিকে তিনি তার ফেইসবুকে ক্ষোভ প্রকাশ করে লিখেছেন, টুইটারে রাজাকার ছানারা ব্যাপকভাবে বাংলাদেশবিরোধী অপপ্রচার চালাচ্ছে। সবাইকে অনুরোধ করছি টুইটারে সক্রিয় হয়ে এদের অপপ্রচারের জবাব দিবেন। অবশ্যই ইংরেজিতে লিখবেন এবং আমাকে মেনশন করবেন যেনো আমি সেগুলো রিটুইট করে ছড়াতে পারি। #Shahbag #WarCriminal #Genocide #Bangladesh #WarCrimes #Justice4Genocide ইত্যাদি হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করবেন।

কমিউনিটি বাংলা ব্লগ আমার ব্লগের অন্যতম অ্যাডমিন সুশান্ত দাস গুপ্ত আদালতের রায় ঘোষণার আগে টুইটারে লিখেছেন, হ্যাংসাঈদী৷ নো এক্সকিউজ প্লিজ৷

বলাবাহুল্য, আদালতের আদেশে সুশান্ত-র প্রত্যাশার প্রতিফলন ঘটেনি৷ বুধবার রায় ঘোষণার পর তিনি ইন্টারন্যাশনাল ক্রাইমস স্ট্রাটেজি ফোরামের (আইসিএসএফ) প্রকাশিত একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি পোস্ট করেছেন৷

সাঈদীর শাস্তি কমানোর আদেশের বিরোধীতা করে শাহবাগে জনতা সমবেত হতে চাইলে পুলিশ বাধা দেয়৷ প্রতিবাদকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ার গ্যাস, রাবার বুলেট ও জল কামান ব্যবহার করে পুলিশ৷ সালাউদ্দিন ইউসূফ নামক একজন টুইটার ব্যবহারকারী এ সংক্রান্ত একটি ছবি পোস্ট করেছেন৷

‘ফ্রি সাঈদী’ ক্যাম্পেইন: এদিকে, থেমে নেই ‘ফ্রি সাঈদী’ হ্যাশট্যাগ ব্যবহারকারীরাও৷ জামায়াতে ইসলামীর অনলাইন প্রচারণার সঙ্গে সম্পৃক্ত ‘বাঁশেরকেল্লা’-র একটি টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে এই রায়ে হতাশা প্রকাশ করা হয়েছে৷ টুইট পোস্টে দাবি করা হয়েছে, ইসলামের জন্য জীবন উৎসর্গ করা একজন মানুষের সঙ্গে অবিচার করা হয়েছে৷

বাংলা ভাষাতেই টুইটারে মন্তব্য করছেন অনেকে৷ তবে এক্ষেত্রে ব্যক্তিগত মতামতের চেয়ে বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত সংবাদের লিংক শেয়ার করা হয়েছে বেশি৷

খোমেনী ইহসান নামে একজন তার ফেইসবুকে লিখেছেন, যদি আগেই সমঝোতা হতো, তবে বহু প্রাণ ক্ষয় এড়িয়েও এই আমৃত্যু কারাদ-ের ব্যাপারে আদালত, সরকার ও জামায়াত একমত হতে পারতো। অথবা সাঈদীর রায়টি প্রথমে দিলে, পরে আবদুল কাদের মোল্লার রায় দিলে, আজ তাকে আমৃত্যু কারাদ- দেয়া যেত। এখন তাহলে ঘটনা কী দাঁড়ালো, ৫ জানুয়ারির পরের প্রত্যেকটি বিচারিক প্রক্রিয়া, তা হোক না ট্রাইব্যুনালের রায় বা আপিলের রায়, এটাই বলছে যে পক্ষগুলান আন্তরিক হলে আবদুল কাদের মোল্লার ফাঁসি এড়ানো যেত। কালো ও গরিব বলে মোল্লার উপর আপনাদের খুব ক্ষোভ ছিল। অথবা সাঈদীর চেয়ে মোল্লা অন্যরকম মানুষ।

সাঈদীর ফাঁসির রায়ের পর অনেক মানুষ মারা গেল, সাঈদী জেলখানা থেকে ‘শহীদদের’ জন্য দোয়া করলেন। আর আবদুল কাদের মোল্লা তার ফাঁসি কার্যকরের পরে সবাইকে অনুুরোধ করলেন সহিংসতা না করতে, প্রতিশোধ না নিতে এবং শহীদ না হতে। অথবা ২০১০ সালে আমাকে শোনানো গল্পটি এমন যে, সাঈদীকে নিয়ে হাজতখানা ও জেলখানায় নানা অলৌকিক কা- ঘটছে এবং তাকে চাঁদে দেখা গেছে আর আবদুল কাদের মোল্লা নাকি জেলখানায় অস্বাভাবিক আচরণ করেছেন (বরাত: একজন ডিফেন্স ল’ ইয়ার)।

আমরা হয়তো ডিকনস্ট্রাকশনের জমানা অতিক্রম করছি, কুরআনের পাখি বলে কিছু নাই বা মানুষকে চাঁদে দেখা যাওয়ারও কোনো সুযোগ নাই। কিন্তু ইসলামে রয়েছে শহীদের ধারণা, যেখানে শহীদ সবুজ পাখি হয়ে বেহেশতে উড়ে বেড়ান ডালে ডালে এবং খেতে পান। আবদুল কাদের মোল্লারই ফাঁসি হলো, হিসাব মতে তাকেই শহীদ বলা চলে, কাজেই তিনিই সবুজ পাখি, অথচ তাকে না চান্দে দেখা গেল, না তাকে পাখি বলা হলো। আচ্ছা আমরা দুই জন মানুষের ব্যাপারে একটু ঝুঁকি নিচ্ছি, আবদুল কাদের মোল্লা ও মুহাম্মদ কামারুজ্জামানকে যুদ্ধাপরাধের যে কোনো বিচার প্রক্রিয়ায় জড়ানো এ কারণে ঝুঁকিপূর্ণ যে, যতজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে তাদের মধ্যে এ দু’জন সত্যিই ১৯৭১ এ নিরীহ ও নিরাপরাধ ছিলেন। মোল্লাকে তো ফাঁসি দিয়েই দিলেন, কামারুজ্জমানকে রেহাই দিতে পারেন। যদিও তিনি প্রাণরক্ষার সমঝোতা প্যাকেজে অন্তর্ভুক্ত নন বা সরকার, শাহবাগ ও আদালত মনে করবে না যে তাকে ফাঁসি দেয়া ঠিক হবে না। যাই হোক সাঈদীকে চাঁদে দেখা না গেলেও তিনি একজন চাঁদকপালেৃ

শাহবাগ আন্দোলনের সঙ্গে সম্পৃক্ত অ্যাক্টিভিস্ট আজিজা আহমেদ পলা সাঈদীর শাস্তি কমানোর ঘোষণার পর ব্যঙ্গ করে লিখেছেন, কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকর ফিরায়ে নেয়া হোক৷

এদিকে শাহবাগে গণজাগরণ মঞ্চের বিক্ষোভ মিছিলে বাধা দিয়েছে পুলিশ। গণজাগরণ মঞ্চের একাংশ ইমরান এইচ সরকারের নেতৃত্বে বিক্ষোভ সমাবেশ শেষে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে বিক্ষোভ মিছিল বের করলে পুলিশ তাতে বাধা দেয়।

পুলিশের বাধার মুখে ইমরান এইচ সরকার নেতাকর্মীদের নিয়ে কিছুক্ষণ সেখানে অবস্থান করেন। পরে পুলিশ জলকামান প্রস্তুত করলে আস্তে আস্তে নেতাকর্মীরা সটকে পড়েন। কিছু সংখ্যক কর্মীদের উপস্থিতিতে প্রতিক্রিয়া জানান ইমরান। পরে তিনি বিক্ষোভ-সমাবেশ মঞ্চে ফিরে যান।

মঞ্চে ফিরে এক প্রতিক্রিয়ায় ইমরান এইচ সরকার বলেন, মৌলবাদী ও যুদ্ধাপরাধীদের সঙ্গে সরকার আঁতাত করে আমাদের আন্দোলনে বাধা দিচ্ছে।

এই আন্দোলন করতে গিয়ে গণজাগরণ মঞ্চ তিন ভাগে বিভক্ত হয়ে গেছে। এর একাংশের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার। অপর দিকে কামাল পাশার নেতৃত্বাধীন একাংশ।

জাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরানের প্রতি কামাল পাশার নেতৃত্বে একাংশের অনাস্থা জানানোর পর বিভক্তির মাঝে সেখানে ক্রিয়াশীল কয়েকটি ছাত্র সংগঠন নিয়ে ‘শাহবাগ আন্দোলন’ নামে একটি আলাদা মঞ্চ হয়, যার সমন্বয়কের দায়িত্বে আছেন বাপ্পাদিত্য।

উল্লেখ্য, একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে গত বছরের ২৮শে ফেব্র“য়ারি সাঈদীকে মৃত্যুদ-াদেশ দেয় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১৷ কিন্তু এবার, আপিল বিভাগের রায়ে সাঈদী সেই মৃত্যুদ- থেকে রেহাই পেলেন৷


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ