• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৩:২৬ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :

সৈয়দপুরের কামাররা দূর্দিন কাটিয়ে স্বচ্ছলতায় ফিরছে

Kamar pictureএম আর মহসিন, সিসি নিউজ: আসন্ন ঈদ-উল-আজহা উপলক্ষে গ্রাহক চাহিদা বাড়ায় সৈয়দপুর উপজেলার কামারশালাগুলোতে ব্যস্ততা বেড়েছে। কসাই কিংবা কোরবানিতে অংশ নেয়া ক্রেতাদের চাহিদা মেটাতে রাত-দিনের অবিরত শ্রমে দা, ছুড়ি, চাকু, কুড়াল, বটিসহ বিভিন্ন কর্তন সামগ্রী তৈরীতে দম ফেলার ফুরসত পাচ্ছেন না তারা। আর তাই স্বল্প সময়ের এ চাহিদার আনন্দে সংসারের স্বচ্ছলতা ফেরানোর আশায় প্রাচিন ঐতিহ্যর ধারকরা এখনো এ পেশার মাধ্যমে সুখ-স্বপ্নের ছবি আকঁছেন তারা।
শনিবার সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, এ উপজেলার বোতলাগাড়ি, কাশিরাম বেলপুকুর, খাতামধুপুর, কামারপুকুর ও বাঙ্গালিপুর ইউনিয়নসহ পৌর বিভিন্ন এলাকায় প্রায় দেড় শতাধিক কামারশালায় ৩ শত কামারের ব্যস্ত সময় কাটাতে। কয়লার দগদগে আগুনে লোহাকে পুড়িয়ে পিটিয়ে তৈরী করছেন তারা দা, ছুড়ি, চাকু, কুড়াল,বটিসহ বিভিন্ন্ ধারালো কর্তন সামগ্রী। কেহ অর্ডারকৃত আর কেউবা নিজের লোহা দিয়েই তৈরী করে পাইকারী দরে বেচছেন। তবে এসব তৈরীতে অত্যাধুনিকতার ছোয়া লাগেনি কামারশালাগুলোতে। পুরোনো সেকেলে নিয়মেই চলছে আগুনে পুড়ে লোহা হতে ধারালো কর্তন সামগ্রী তৈরীর কাজ।
কামাররা জানায়,  এ পেশায় অধিক শ্রম। আর শ্রম অনুযায়ি তারা এর যথাযথ মূল্য পান না। কারণ লোহার বাজার দর বেশি। পাশাপাশি খাদ্য দ্রব্যর মূল্যের সাথে ভারসাম্য রেখে যদি কামাররা তাদের লোহার ধারালো কর্তন সামগ্রী তৈরী করত তাহলে এ পেশাজীবিরাও মুল্যায়ন  পেতো বলে তারা মনে করেন। আর জীবিকা নিবার্হে কষ্ট  হলেও শুধু পবিারের ঐতিহ্য ধরে রাখতে এ পেশাটিতে তারা এখনও আকড়ে আছেন। সাড়া বছর পরিবারে ও কৃষি জমিতে ব্যাবহারের প্রয়োজনে অনেকে কাছে এসে তা তৈরী করে নিয়ে যাচ্ছে। তবে কোরবানির পশুর জন্য বেশি প্রয়োজন মনে হওয়ায় সকলই এখন ছুটছেন কামারদের কাছে। আর  এতেই এক মাসে এ পেশাটি জমজমাট হয়ে উঠেছে। দিনাজপুর রোডের নতুন বাবু এলাকার ইরফান(২৯) নামে এক কামার জানান, আমি আমার মামার এ পেশাটিতে কাজ শিখে দির্ঘ ২০ বৎসর যাবত করছি। সাড়া বছর কাস্তে, হাসুয়া ,পাসুন ,বাইশ ও কুড়াল তৈরী করি। এতে প্রতিদিন ২ শত থেকে ২৫০  টাকা পর্যন্ত  আয় হয়। এ আয় দ্বারা পরিবারের ভরোন-পোষন ও সন্তানদের লেখা পড়ার ব্যায় ভার মিটানো অসম্ভব। আর তাই আমার বছরের ৮ ও ১০ বছরের সন্তানদের সহযোগিতায় এ সব বানিয়ে কোন রকম দিন যাপন করছি।  আর স্বল্প সময়ের ঈদ মৌসুমে চাহিদা বাড়ায় দিন-রাতে ২০ থেকে ২৫টি কাজ করে গড়ে প্রতিদিন ৭শত থেকে ১ হাজর পর্যন্ত আয়ের করছি। আর এ আয় হতে সামান্য সঞয়ের মাধ্যমি আগামি কয়েক মাসের যোগান হওয়ায় তা দিয়ে জীবনের অনেক ছোট চাহিদা পুরোন করছি। শহরের ১ নং রেল গুমটি রেললাইনের ধারের নুর ইসলাম নামের এক কামার সিসি নিউজকে জানায়, একটি বড় দা ৫কেজির লোহা দিয়ে তৈরী করে মজুরি সহ ৫শত, কুড়াল ১কেজির ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা,বাইস ১৫০ থেকে ১৬০,বড় ছোড়া ওজন মতে ৩থেকে সাড়ে ৪শত ,পশু কুড়াল ২থেকে ৩ শত টাকা দরে বিক্রি করছি। তবে লোহা গ্রাহকের হলে শুধু তৈরী ও ধার বাবদ এ সামগ্রী গুলো প্রতি পিচ ৫০ থেকে ১৫০টাকা পর্যন্ত নিচ্ছি। একই কথা বলেন উপজেলার কাশিরাম বেল পুকুর ইউনিয়নের গোপাল (৪৫) নামের এক কামার।  ঈদে যে বেচা-কেনা হয় তা আর অন্য সময় হয় না। তাই  ঈদের আগে  এ পেশাজীবিদের স্বচ্ছল হওয়ার মোক্ষম সময় বলে তিনি সিসি নিউজকে জানান। আর ঈদকে উপলক্ষ করে অনেকে মজুদ করে বিভিন্ন হাট-বাজারে বিক্রয় করছেন।  তাই চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় এ পেশার মাধ্যমে তারা স্বপ্ন আকছেন স্বচ্ছল জীবনের। তবে এ পেশাজীবিরা হাজার বছরের পুরোনো নিয়মে এ সব সামগ্রী তৈরী করলেও অত্যাধুনিকতার ছোয়া লাগেনি এ নির্মান শিল্পে। আর তাইতো তারা জীর্ন-শীর্ণ শরীর নিয়েও একটু সুখের আশায় কাজ করে যাচ্ছেন অবিরত।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ