• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১১:৩১ পূর্বাহ্ন |

২০ দলের হরতালে ১৭ দলই লাপাত্তা

BNP Jotজাহাঙ্গীর আলম আনসারী : বিচারপতিদের অভিশংসনের ক্ষমতা সংসদের হাতে নেওয়ার প্রতিবাদে ২০ দলীয় জোটের ডাকা সোমবারের হরতালে রাজধানীতে জোটের ১৭ দলের নেতা-কর্মীদেরই মাঠে নামতে দেখা যায়নি।

বিভিন্ন ঘরোয়া সভা-সমাবেশে সরকার পতনের হুমকি-ধমকি দিলেও হরতালে এসব দলের নেতা-কর্মী মিছিল বা পিকেটিং করতে রাজপথে নামেননি।

তবে জোটের বড় দুই দল বিএনপি-জামায়াত ছাড়া জাগপা, জাতীয় পার্টি (জাফর) ও লেবার পার্টি মিছিল করেছে বলে দল তিনটির নেতারা দাবি করেছেন।

আসাদ গেট এলাকায় জাগপা সভাপতি শফিউল আলম প্রধান কিছু নেতা-কর্মীদের নিয়ে হরতালের সমর্থনে একটি মিছিল বের করেন।

এ বিষয়ে কথা বললে শফিউল আলম প্রধান বলেন, ‘জাগপাই হলো ২০ দলীয় জোটের একমাত্র দল যার সভাপতি ও সেক্রেটারি দু’জনই রাজপথে আছেন।’

জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) মহাসিচব মোস্তফা জামাল হায়দারের সঙ্গে কথা বললে তিনি জানান, ‘হরতালের সমর্থনে ফকিরাপুল এলাকায় তাদের কিছু নেতা-কর্মী অবস্থান নিয়েছিলেন।’

নয়াপল্টনের একটি গলিতে লেবার পার্টি ঢাকা মহানগর শাখার ১০/১৫ জন নেতা-কর্মী একটি মিছিল করেছে বলে দাবি করেছেন দলটির চেয়ারম্যান ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান।

তবে ওই এলাকার স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সকালে তারা ৫/৭ জন লোককে একসঙ্গে হাঁটাহাঁটি করতে দেখেছেন। লেবার পার্টির ব্যানারে কোনো মিছিল-মিটিং হয়নি বলে জানান তারা।

জোটের অন্যতম শরীক দল বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির (বিজেপি) চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আন্দালিব রহমান পার্থের কাছে হরতালের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বাইরে আছেন বলে তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনের সংযোগটি বিচ্ছিন্ন করে দেন।

এছাড়া জোটের আরেক শরিক এনডিপির চেয়ারম্যান খন্দকার গোলাম মোর্তজা জানান, ‘তাদের কিছু নেতা-কর্মী মালিবাগে মাঠে নামার চেষ্টা করেছে। কিন্তু পুলিশের বাধার কারণে মিছিল করতে পারেনি।’

হরতালে মাঠে না নামার বিষয়ে জানতে চাইলে জোটের শরিকদল কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল অবসরপ্রাপ্ত সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহীম (বীরপ্রতীক) বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করেছি কিন্তু পুলিশের বাধার কারণে নামতে পারিনি।’

পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান এডভোকেট গরীবে নেওয়াজের মোবাইলে চেষ্টা করে তার ফোনটি বন্ধ পাওয়া গেছে। এ দলের কোনো তৎপরতা রাজধানীর কোথায়ও লক্ষ্য করা যায়নি।

জোটের অন্যতম শরিক এলডিপির চেয়ারম্যান কর্নেল (অব.) অলি আহমেদের মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া গেছে এবং দলের মহাসচিব ড. রেদওয়ান আহমদের নম্বরে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। এ দলেরও কোনো তৎপরতা গণমাধ্যম কর্মীদের নজরে আসেনি।

জোটভুক্ত দল জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের এক নেতার সঙ্গে কথা বললে তিনি জানান, ‘আমরা কোনো মিছিল করতে পারিনি।’

কেন করতে পারেননি এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘কিছু সমস্যার কারণে আজ কোনো তৎপরতা চালানো সম্ভব হয়নি।’

জোটের আরেক শরিক দল খেলাফত মজলিসও সোমবারের হরতালে মাঠে ছিল না। এ দলের একজন নেতা-কর্মীও রাজপথে কোনো তৎপরতা চালায়নি। এ বিষয়ে দলটির প্রচার সম্পাদক অধ্যাপক মাওলানা আব্দুল জলিল বলেন, আমরা মিছিল বা পিকেটিং করতে পারিনি। সামনের দিনের কর্মসূচিগুলোতে তৎপরতা চালাবেন বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

জোটের আরেক শরিক ইসলামী ঐক্যজোটের অবস্থাও একই। এ দলের চেয়ারম্যানের পদে শাইখুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হক ও পরবর্তীতে মুফতি ফজলুল হক আমিনী থাকার সময় অনেকটা তৎপর থাকলেও এখন এ দলে চলছে স্থবিরতা। আমিনীর সময়ে মহাসচিব বর্তমানে পার্টির চেয়ারম্যান হলেও দলটির মাঠে ময়দানে তেমন কোনো তৎপরতা নেই। গত ৫ জানুয়ারির পর ২০ দলের এটা প্রথম হরতাল হলেও মাঠে নামেনি দলটি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চেয়ারম্যান মাওলানা আব্দুল লতিফ নেজামী জানান, তিনি এবার হজ করতে যাবেন। এ নিয়েই ব্যস্ত তিনি।

মাঠে নামেনি জোটের আরেক শরিক ইসলামিক পার্টির কোনো নেতা-কর্মীও।

জোটে থাকা মুসলিম লীগের সেক্রেটারি আতিকুল ইসলাম মাঠে না নামার কারণ হিসেবে  বলেন, ‘সরকারের নির্দেশে পুলিশ গুলি করছে। গুলির মুখে কিভাবে রাস্তায় মিছিল করবেন?’

তিনি বলেন, ‘যেখানে বিএনপিই মাঠে নামতে পারছে না সেখানে আমরা কিভাবে নামবো?’

ঘরোয়া প্রোগ্রামে সরব থাকলেও হরতালে মাঠে নামেনি ন্যাপের কোনো নেতা-কর্মী। ন্যাপের মহাসচিব গোলাম মোস্তফা ভূঁইয়া জানান, তাদের কোনো মিছিল হয়নি।

ডেমোক্রেটিক লীগের নেতা সাইফুদ্দিন আহমদ মানিকের মোবাইল ফোন নম্বরটি বন্ধ পাওয়া গেছে। ফোন রিসিভ করেননি জোটের আরেক শরিক সাম্যবাদী দলের নেতা সাইদ আহমদও। আর ন্যাপ ভাসানীর চেয়ারম্যান আজহারুল ইসলাম জানান, তারা আজ কোনো মিছিল সমাবেশ করেননি।

শীর্ষ নিউজ ডটকম


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ