• বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ১০:২৭ অপরাহ্ন |

নীলফামারীর ঢেলাপীরে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল হচ্ছে!!

9a581575e4a3fb384b493f9bdfcfd4f1-BBCসিসি নিউজ: সৈয়দপুরের ঢেলাপীর ও সংলগ্ন নীলফামারী সদরের কিছু অংশ নিয়ে গড়ে উঠার সম্ভাবনা রয়েছে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল (এসইজেড)। এটি বাস্তবায়িত হলে লক্ষাধিক মানুষের কর্মসংস্থানের পাশাপাশি পাল্টে যাবে অত্রাঞ্চলের অর্থনেতিক চালচিত্র।
সূত্রমতে, দীর্ঘদিন থেকে প্রতিবেশি রাষ্ট্র ভারত বাংলাদেশে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল (এসইজেড) প্রতিষ্ঠায় আগ্রহ দেখিয়ে আসছে। এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে বাণিজ্য ঘাটতি প্রায় ৬’শ কোটি ডলার। বাংলাদেশে এসইজেড প্রতিষ্ঠা সম্ভব হলে এই বাণিজ্য বৈষম্য অনেকটা কমিয়ে আনা সম্ভব হবে বলে উভয় দেশের বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন। যে কারণে বাংলাদেশে ভারতের বিনিয়োগকারীরা এসইজেড প্রতিষ্ঠার জন্য বাংলাদেশে একটি সম্ভাব্য অঞ্চলের কথা বলে আসছে। চলতি সপ্তাহে দু’দেশের মধ্যে অনুষ্ঠিত পররাষ্ট্র মন্ত্রীদের মধ্যে যৌথ পরামর্শক কমিশনের (জেসিসি) বৈঠকে এ নিয়ে আলোচনা হয়। বাংলাদেশ এর পক্ষে ইতিবাচক সাড়া দিয়েছে বলে জানা গেছে। এতে সম্ভাব্য ১৬টি স্থানের মধ্যে নীলফামারী অর্থনৈতিক অঞ্চলও রয়েছে। যেটি গড়ে উঠবে সৈয়দপুর ও নীলফামারী সদরের অংশ নিয়ে গঠিত ঢেলাপীরে। সূত্রটি আরও জানায়, শ্রীঘ্রই ভারতের একটি প্রতিনিধি দল এসইজেড প্রতিষ্ঠার লক্ষে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ে বাংলাদেশে আসছে। প্রতিনিধি দল এ সময় সম্ভাব্য ওই অঞ্চলগুলো পরিদর্শন করবে। পরিদর্শন শেষে স্থানগুলোর অবস্থান ও গুরুত্ব যাচাই করে এ সংক্রান্ত মতামত দেবে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রাণালয়কে।
কয়েকটি সূত্রমতে, ঢেলাপীরে রয়েছে প্রায় ২’শ একরের বেশী খাস পতিত জমি। এখানে এসইজেড গড়ে উঠলে নতুন করে জমি হুকুম দখল করার প্রয়োজন হবে না। এছাড়া সৈয়দপুরের সাথে রয়েছে সড়ক, মিটার ও ব্রডগেজ রেলপথ এবং আকাশ পথের স্বাচ্ছন্দ যোগাযোগ ব্যবস্থা। এ কারণেই অঞ্চলটি গুরত্ব পাবে বলে সূত্রগুলি দাবি করছে।
উল্লেখ, নীলফামারীতে বিশেষ অর্থনেতিক অঞ্চল গড়ে তুলতে দীর্ঘদিন থেকে সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর ও বিরোধীদলীয় হুইপ আলহাজ্ব শওকত চৌধুরী এমপি সরকারের উর্ধ্বতন মহলে দেন-দরবার করে আসছেন।
এ প্রসঙ্গে বিরোধীদলীয় হুইপ বলেন, ঢেলাপীরে নীলফামারী বিশেষ অর্থনেতিক অঞ্চল গড়ে উঠলে পাল্টে যাবে এ অঞ্চলের অর্থনৈতিক প্রেক্ষাপট। এখানে প্রায় লক্ষাধিক মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টির মাধ্যমে দূর হবে বেকারত্ব। তিনি সরকারের এ উদ্যোগ দ্রুত বাস্তবায়নের দাবি জানান।
সৈয়দপুর বণিক সমিতির সভাপতি ইদ্রিস আলী সিসি নিউজকে বলেন, এ অঞ্চলের মানুষে দাবির প্রেক্ষিতে গড়ে ওঠা উত্তরা ইপিজেডে’র সুফল ইতিমধ্যে মানুষ পাচ্ছে। তেমনি এসইজেড প্রতিষ্ঠা এ অঞ্চলে শিল্প সম্ভাবনার দুয়ার খুলে দেবে। এখানকার উৎপাদিত পণ্য দেশের চাহিদা মিটিয়ে আন্তর্জাতিক বাজারে স্থান করে নেবে। ফলে সৈয়দপুরের পরিচিতি ছড়িয়ে পড়বে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে।
নীলফামারী চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি আব্দুল ওয়াহেদ সরকার সিসি নিউজকে জানান, ঢেলাপীরে নীলফামারীর বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার সম্ভাবনা খুবই উজ্জ্বল। এর ফলে শিল্প অবকাঠামোয় অনগ্রসর নীলফামারী জেলার অর্থনৈতিক চেহারা পাল্টে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আমরা এর দ্রুত বাস্তবায়নসহ এ অর্থনৈতিক অঞ্চলের সফলতা আনতে সীমান্তের স্থলবন্দরগুলোর অবকাঠামো উন্নয়ন ও মালামাল পরিবহনের সুযোগ সুবিধা বাড়ানোর দাবি জানাচ্ছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ