• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ০৯:৪৫ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা: প্রধান আসামি জিতু গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় বিজিবি সদস্যকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ শ্রেণিকক্ষে রাবি শিক্ষিকাকে মারতে গেলেন ছাত্র! অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযােগ এনজিও’র দুই কর্মকর্তা গ্রেফতার জলঢাকায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নে কর্মশালা ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে মার্কেট-শপিং মলে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন খানসামায় র‌্যাবের অভিযান ইয়াবাসহ দুই মাদককারবারী গ্রেপ্তার ডোমার ও ডিমলায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ১০ উদ্যোগ নিয়ে কর্মশালা নীলফামারীতে ৫ সহযোগীসহ কুখ্যাত চোর ফজল গ্রেপ্তার

শুধুমাত্র একটি পতাকা জাতীয় সংগীত ও দুর্বল সরকার

http://www.dreamstime.com/stock-image-3d-flag-map-bangladesh-image5174561মোবায়েদুর রহমান : গত ২৩ শে সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার দৈনিক ‘ইনকিলাবে’ ব্যারিস্টার মওদূদ আহমদের সর্ব শেষ পুস্তক সম্পর্কে আমার একটি পর্যালোচনামূলক লেখা প্রকাশিত হয়। শিরোনাম ছিল ‘মওদূদের বই: খালেদা ও হাসিনা সম্পর্কে অজানা তথ্য’। ওই লেখায় আমি কথা দিয়েছিলাম যে লেখাটির দ্বিতীয় কিস্তি প্রকাশিত হবে বৃহস্পতিবার। আজ বৃহস্পতিবার সেই দ্বিতীয় এবং শেষ কিস্তি প্রকাশিত হল।

মওদূদ আহমদ তাঁর গ্রন্থে কতগুলো অমোঘ সত্য কথা বলেছেন। আর কিছু ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন। তার অন্যতম অমোঘ সত্য বচন বিধৃত হয়েছে ৭৬ পৃষ্ঠায়। সেখানে তিনি বলেছেন, “যতদিন পর্যন্ত খালেদা জিয়া এবং শেখ হাসিনা দেশের ভেতরে থাকবেন ততদিন নতুন কোনো রাজনৈতিক দলের অভ্যুদয় ঘটানোর কোনো ভবিষ্যৎ নেই, তা এই দুই নেত্রী মুক্ত অবস্থায়ই থাকুন, আর অন্তরীণ অবস্থায়ই থাকুন।”

খালেদার অনমনীয়তা

দেশবাসী জানেন যে ১/১১-এর জরুরী শাসন বেগম জিয়ার কাছে প্রথমদিন থেকেই অগ্রহণযোগ্য ছিল। জেনারেল মইনের অঘোষিত সামরিক শাসন সম্পর্কে প্রথম দিন থেকেই তিনি ছিলেন আপোষহীন। মইনের চেলা চামুন্ডারা প্রথম দিন থেকেই খালেদা জিয়া, তারেক এবং কোকোকে সায়েস্তা করার পরিকল্পনা করছিল। এ সম্পর্কে পুস্তকের ৮২ পৃষ্ঠায় মওদূদ লিখছেন, “বেগম জিয়া দেশ ছাড়লেন না। তাঁর ছেলে কোকোর বিরুদ্ধে একটা মামলা রুজু করা হয়েছে। ওরা খালেদা জিয়াকে ব্ল্যাকমেইল করে তার ছেলেদের ভবিষ্যৎ নিয়ে দেন দরবার করতে চাইছে। মনে হচ্ছে না তিনি এত সহজে আত্মসমর্পণ করবেন। আসলে মামলা রুজু করা হয়েছে এক ধরনের প্রতিহিংসা বশত।”

তারেক রহমান

বেগম জিয়ার জ্যেষ্ঠ পুত্র তারেক রহমানের মধ্যে জনাব মওদূদ আহমদ ৭ বছর আগেই নেতৃত্বের গুণাবলী দেখতে পেয়েছিলেন। সে কথা তিনি প্রকাশ করেছেন ১৭৫ পৃষ্ঠায়। দিনটি ছিল ২০০৭ সালের ১৫ অক্টোবর। তিনি লিখছেন, “তারেক রহমান এসেছিল পরামর্শের জন্য। তার সঙ্গে কথা বলে একটা জিনিস সব সময় আমার ভালো লেগেছে। বেশিরভাগ সময়ে দেশের বিভিন্ন মৌলিক সমস্যাসমূহ, যেমন আমাদের মত একটি স্বল্পোন্নত দেশের কোটি কোটি মানুষের জীবন ধারণের মান কীভাবে উন্নত করা যায়, কীভাবে তা অর্জন করা যায়, সে বিষয়ে তার অনুসন্ধিৎসু ব্যাকুলতা এবং গভীর আন্তরিকতা আমাকে আনন্দ দিয়েছে। শহীদ জিয়াউর রহমানের মতো সংযমতা এবং ঠা-া মাথায় চিন্তা করার অনেকগুলো গুণ তার মধ্যে রয়েছে।”

তারেকের ওপর নির্যাতন

২১৬ পৃষ্ঠায় লেখক তারেক রহমানের ওপর নির্যাতনের বর্ণনা দিয়েছেন এভাবে, “তারেক রহমান এক ভয়াবহ অবস্থায় আজ রিমান্ড থেকে ফিরে এসেছে। তাকে পেটানো হয়েছে নির্দয়ভাবে, চোখ বেঁধে করা হয়েছে শারীরিক নির্যাতন ও ইংরেজি ডিকশনারিতে যতরকম অশ্রাব্য শব্দ আছে সেগুলো প্রয়োগ করে তাকে গালাগাল করা হয়েছে। তাকে আষ্টেপৃষ্ঠে বেঁধে ঘরের সিলিং-এ হাত বাঁধা অবস্থায় ঝুলিয়ে লাঠি ও লাথি পেটা করা হয়েছে। এক সময় ধপাস করে ফেলে দেয়া হয়েছে মেঝেতে।

আঘাতের চোটে ওর শির দাঁড়া ভেঙে গেছে। মৃত্যুর মুখোমুখি নিয়ে গিয়ে আপাতভাবে তাকে এমন পঙ্গু করে দেয়া হয়েছে যাতে তরুণ এই নেতা বাংলাদেশের রাজনীতি থেকে নিশ্চিহ্ন হয়ে যায়।”

শেখ হাসিনা ওদের সাথে আপোষ করলেন

ব্যারিস্টার মওদূদ আহমেদ তাঁর বইয়ে দেখিয়েছেন, কীভাবে শেখ হাসিনা জেনারেল মইনের সামরিক জান্তার সাথে আপোষ করেন এবং কীভাবে বেগম জিয়া আপোষহীন রয়ে যান। পুস্তকের ২৯৩, ২৯৪ ও ২৯৫ পৃষ্ঠায় তিনি লিখেছেন, “রোববার ৮ জুন ২০০৮। আমি যা সন্দেহ করেছিলাম তাই হতে চলেছে। শেখ হাসিনা জামিন ব্যতিরেকে তার মুক্তি নিশ্চিত করে সরকারের সাথে একটি আপোষ-রফা করতে যাচ্ছেন, যার ফলে প্যারোলের একটি প্রশাসনিক আদেশের ভিত্তিতে তাকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে যেতে দেয়া হবে এবং একই সাথে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় বিভিন্ন আদালতে তাঁর বিরুদ্ধে আনীত ১৩টি মামলায় ব্যক্তিগত হাজিরা দান থেকে অব্যাহতি পাবেন। তাছাড়া সেনা প্রধানের সরকারের সাথে সমঝোতার কোনো শর্ত তাকে প্রকাশ ও করতে হবে না।

এই সমঝোতার ফলে সামরিক বাহিনীর কাঠামোতেও পরিবর্তন নিয়ে আসা হচ্ছে। ফলে সেনাবাহিনীতে আওয়ামী লীগ ভারত- অংশীদারিত্ব ও তার ওপর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রত্যক্ষ মদদের বিষয়টি আজ আরো স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। এভাবে বাংলাদেশর গোটা রাজনীতি নতুন এক মোড় নিতে যাচ্ছে। ”

আজ মঙ্গলবার ১১ জুন ২০০৮ রাষ্ট্রপতির এক প্রশাসনিক নির্দেশে শেখ হাসিনাকে চিকিৎসার্থে বিদেশে যাওয়ার জন্য প্যারোলে ৮ সপ্তাহের জন্য মুক্তি দেয়া হয়েছে। তিনি গতকাল বাসায় ফেরত গেছেন, নেতাদের সাথে বৈঠক করেছেন এবং দুয়েক দিনের মধ্যে পাড়ি জমাবেন বিদেশে। এতে প্রমাণিত হলো যে, সরকারের সাথে তার সমঝোতা অক্ষরে অক্ষরে পালিত হয়েছে।

একেই বলে রাজনীতি। রাজনৈতিক বাধ্য-বাধকতা কিংবা সুবিধার কাছে আইন, বিধি, আদালতের সিদ্ধান্ত কিংবা সংবিধানের পবিত্রতা সবকিছুই তুচ্ছ হয়ে যায়। হাতের এক তুড়িতে সেনাবাহিনী, জরুরি আইন ও আপিল বিভাগের জামিন প্রত্যাখ্যানকে ধরাশায়ী করে জেলের বাইরে এসে যখন হাসিনা মুক্তির স্বাদ নিচ্ছিলেন তখন ট্রায়াল কোর্টের দিনগুলোর কথা মনে করে নিশ্চয়ই তিনি মুচকি হেসেছিলেন। এভাবে দেখা যাচ্ছে, আইনের অপব্যবহার করে রাজনীতিকদের যেমন নাজেহাল করা যায়, তেমনি পাঁচটি মামলা বিচারাধীন এবং আরো ৮টি মামলা বিচারের বিভিন্ন পর্যায়ে থাকা সত্ত্বেও বিনা জামিনে আইনের অপব্যবহার করে একজন রাজনীতিবিদকে কারাগার থেকে মুক্ত করে দেয়া যায়। অন্যদিকে, সেই নির্যাতক সেনা সরকারই নিজ হাতে আজ তার মুক্তি নিশ্চিত করেছে।

এখন দেখা যাক বেগম খালেদা জিয়ার ভাগ্যে কী আছে!”

কিন্তু খালেদা অনড়

শেখ হাসিনার এই ভূমিকার পাশাপাশি বেগম খালেদা জিয়ার ভূমিকা দেখুন। আমরা এ সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট কোন মন্তব্য করব না। আমরা এব্যাপারে জনাব মওদূদের বক্তব্য তুলে ধরছি। সেই বক্তব্য থেকে পাঠকবৃন্দ সহজেই নিজ নিজ উপসংহার টানতে পারবেন। ২৯৫ পৃষ্ঠায় মওদূদ আহমদ লিখছেন, “বৃহস্পতিবার ১২ জুন ২০০৮। বেগম খালেদা জিয়ার সাথে সরকারের মাঝরাতের দেন দরবার চলছে। প্রায় প্রতিরাতেই সিনিয়র আর্মি অফিসাররা খালেদার সাথে দেখা করছেন সাব জেলে। সেনা অফিসাররা চাচ্ছেন হাসিনার মতো খালেদাও দেশ ছেড়ে চলে যান এবং তিনি রাজি হলে তার ব্যাপারে শেখ হাসিনার মতোই অনুরূপ ব্যবস্থা নেয়া হবে। নাইকো মামলার শুনানি চলাকালে কোর্টে আমার পাশে বসে আজ ১২-জুন-২০০৮, বেগম জিয়া আমাকে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়েছেন। তিনি দেশ ছাড়ার প্রস্তাব সরাসরি প্রত্যাখ্যান করেছেন। তাঁর প্রথম শর্ত হলো, তাঁর দুই ছেলের মুক্তি। সামরিক অফিসাররা কোকোকে মুক্তি দিতে রাজি হয়েছেন, তবে তারেক রহমানকে নয়। খালেদা জিয়া এতে রাজি হননি। তিনি আমাকে বলেছেন যে, জেনারেল মঈনের গ্রুপের একটি অংশ এখনো মাইনাস-টু থিওরি বাস্তবায়নে আগ্রহী এবং সেজন্যই তারা খালেদাকেও দেশের বাইরে পাঠিয়ে দিতে চাইছেন। হাসিনার সম্মতির পাশাপাশি এবার তারা খালেদার কাছ থেকেও দেশ ছাড়ার প্রতিশ্রুতি আদায় করে রাজনীতিতে নিজেদের ফায়দা হাসিল করতে চাইছেন। এ কারণে তারা খালেদার ওপর প্রবল চাপ প্রয়োগ করছেন। এখন বেগম জিয়া এক প্রচ- স্নায়ুযুদ্ধে পড়েছেন।”

তারেক কোকোর মুক্তি প্রসঙ্গ

এসম্পর্কে মঙ্গলবার ১৭ জুন ২০০৮ মওদূদ আহমদ লিখছেন, “বেগম জিয়া তাঁর দুই ছেলের মুক্তি ও চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর অনুমতি ছাড়া অন্য কিছু বিবেচনা করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন এবং সেটাই স্বাভাবিক। আমাদের এটা বুঝতে হবে যে, বেগম জিয়া শুধু একজন রাজনীতিবিদই নন, তিনি একজন মা। তাঁর কাছে তাঁর নিজের জীবনের চাইতে সন্তানদের মূল্য অনেক বেশি।

খালেদা জিয়ার সাথে সেনা বাহিনীর দর কষাকষি

দেখা গেল যে সেনাবাহিনীর সাথে আপোষ রফা করে শেখ হাসিনা সাব জেল থেকে মুক্তি পেয়েছেন এবং সেনা বাহিনীর ওপর কতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করছেন। কিন্তু বেগম জিয়াকে এব্যাপারে আপোষহীন এবং অনড় দেখা যায়। তিনি সেনাবাহিনীর প্রস্তাব সরাসরি প্রত্যাখ্যান করেন। এব্যাপারে মওদূদ আহমদ ২৯৭ পৃষ্ঠায় বলছেন, “বুধবার-১৮-জুন-২০০৮ নাইকো মামলায় বিচারক প্রচলিত নীতিমালা অনুসরণ না করে শুনানি শুরু করার জন্য চাপ দিলে আদালতে বিশৃঙ্খলার এক পর্যায়ে মামলা মুলতবি রাখা হয়। বেগম জিয়ার কাছ থেকে আজ অনেক ঘটনার বিস্তারিত বিবরণ পেলাম। সিনিয়র সেনা অফিসারদের সাথে আলোচনার ভিত্তিতে তিনি আমাকে জানালেন যে (১) সেনাপ্রধান বর্তমান সাংবিধান কাঠামোতে একটি পরিবর্তন নিয়ে আসতে চাইছেন। প্রধান মন্ত্রীর ক্ষমতা কমিয়ে সেনাবাহিনী মনোনীত রাষ্ট্রপতির ক্ষমতা বাড়ানো হবে যাতে করে দু’জনের ক্ষমতার মধ্যে ভারসাম্য বজায় থাকে। আমি তাকে বোঝালাম যে, এমনটি করা হলে সংসদীয় গণতন্ত্রের মর্যাদা ক্ষুণœ হবে এবং রাষ্ট্রমূলত একটি সামরিক কর্তৃত্বপরায়ণ প্রতিষ্ঠানে পরিণত হবে। সেনাবাহিনী প্রধানকে প্রেসিডেন্টের পদে পার্লামেন্টের মাধ্যমে নির্বাচন করা হলে সামরিক সরকারের কর্তৃত্ব বর্তমান সংবিধানে উল্লেখিত প্রতিটি গণতান্ত্রিক খুঁটিকে উপড়ে ফেলবে। বেগম জিয়া আমাকে জানালেন যে, প্রস্তাবটি তিনি সরাসরি প্রত্যাখ্যান করেছেন। (২) নয়া পার্লামেন্টে বর্তমান সরকারের করা প্রতিটি কর্মকা-কে বৈধতা দেয়ার ব্যবস্থা রেখে সরকারের দেয়া প্রতিটি আদেশ, বিধি, সিদ্ধান্ত ইত্যাদি বৈধ বিবেচনা করতে হবে। বেগম জিয়া এ নিয়ে কোনো প্রতিশ্রুতি দিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে বলেছেন যে, এ বিয়ষটি ছেড়ে দিতে হবে পার্লামেন্টের হাতে।”

সেনাবাহিনীর আরো দর কষাকষি

বেগম জিয়া সেনাবাহিনীর শর্তসমূহ প্রত্যাখ্যান করলেও তারা বসে থাকেনি। তারা নিয়মিত তাঁর সাথে দেন দরবার করতেই থাকে। এসম্পর্কে ৩০৬ পৃষ্ঠায় তাদের শর্তসমূহের সংক্ষিপ্ত সার মওদূদ দিয়েছেন এভাবে “(১) সেনাবাহিনী প্রধানকে প্রেসিডেন্ট বানাতে হবে (২) রাষ্ট্রপতির ক্ষমতা আরো বাড়িয়ে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতার মধ্যে একটা ভারসাম্য আনতে হবে (৪) যেসব রাজনীতিবিদ জেলে রয়েছেন, সাজাপ্রাপ্ত হোক বা না হোক, তারা নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না এবং দল থেকে তাদের বহিষ্কার করতে হবে এবং (৫) সেনাদের সরবরাহকৃত তালিকা মোতাবেক নির্বাচনে মনোনয়ন দিতে হবে। অবশ্য খালেদা জিয়া এদের একটি প্রস্তাবেও রাজি হননি। কিন্তু হাসিনার বেলায় কী হবে? তিনি কি এসব মেনে নিয়েই মুক্তির নিশ্চয়তা পেয়েছেন? সরকারের সাথে তাঁর সমঝোতার ভিত্তি কি এটাই ছিল?

জেঁকে বসলো ভারত এবং সেনাবাহিনী

শেখা হাসিনার আপোষ তাঁকে ক্ষমতার রাস্তা দেখিয়ে দিল বটে, কিন্তু সেটি গণতন্ত্র এবং সার্বভৌমত্বের লাল আলো জ্বালিয়ে দিল। এব্যাপারে মওদূদ আহমদ ৩১০ পৃষ্ঠায় লিখছেন, “মঙ্গলবার-১৫ জুলাই-২০০৮। শেখ হাসিনার পূর্ব ব্যবস্থাকৃত বিদেশ গমনের পর দলের মধ্যম সারির নেতারা বুঝতে পেরেছেন যে, সরকারের বিরুদ্ধে আর কোনো জোরদার আন্দোলনের প্রয়োজনীয়তা নেই। তাই আন্দোলন ও দলীয় কর্মকা- অনেকটা স্তিমিত হয়ে এসেছে। আওয়ামী লীগ আরো উপলব্ধি করেছে যে, তাদের বড় সম্পদ হলো ভারত এবং বাংলাদেশের ওপর ভারতের অবস্থানও এখন যথেষ্ট সুদৃঢ়। মঈন উদ্দীনের সেনাবাহিনীর সমর্থন লাভের পর বাংলাদেশের রাজনীতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে আওয়ামী লীগই এখন ভারতের একমাত্র শক্তির উৎস নয় এবং এর ফলে আওয়ামী লীগ ভারতের ওপর আরো বেশি নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। কাজেই আওয়ামী লীগ ভারতের হাতে পুরোপুরিভাবে বাঁধা পড়ে গেছে। ভারতের ওপর আওয়ামী লীগের নির্ভরশীলতা এভাবে বেড়ে যাওয়ায় বাংলাদেশের মৌলিক জাতীয় স্বার্থের পরিপন্থী বিষয়ে প্রতিবাদ জোগানোর মতো শক্তিও তাদের হ্রাস পেয়েছে উল্লেযোগ্যভাবে।

বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ

লেখাটি বড় হয়ে যাচ্ছে। আরো অনেক কিছু উদ্ধৃত করার ইচ্ছে ছিল। কিন্তু স্থানাভাবে আর একটি মাত্র উদ্ধৃতি দিয়ে এই লেখা শেষ করছি। বাংলাদেশের ভবিষ্যতকে মওদূদ কীভাবে দেখেন? এ সম্পর্কে পুস্তকের ৩২২ পৃষ্ঠায় তিনি স্পষ্ট ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন এভাবে, “ভারত হবে বাংলাদেশের রাজনীতি পরিচালনার মূল নিয়ামক শক্তি। সার্বভৌম একটি রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশ তার নিজস্ব রাজনৈতিক শক্তি হারিয়ে ফেলবে ও বৃহৎ প্রতিবেশী রাষ্ট্রের ক্রীড়নক হয়ে পড়বে। জাতীয়তাবাদী শক্তিসমূহের ক্ষমতা ক্রমশক্ষীণ হতে থাকবে। সামরিক বাহিনী পরিণত হবে একটি দুর্বল এবং স্বার্থপর প্রতিষ্ঠানে; রাজনৈতিক উদ্দেশ্য সাধনের একটি যন্ত্রে।

একপর্যায়ে এসে দুই বৃহৎ রাজনৈতিক দলের নেতৃত্বাধীন গণতান্ত্রিক শক্তিগুলো পরস্পরের সঙ্গে জড়িয়ে পড়বে তুমুল বিবাদ, দ্বন্দ্ব ও সংঘর্ষে এবং অন্যদিকে সুসংহত হবে ইসলামী মৌলবাদ- যারা সমাজে সৃষ্টি করবে অরাজকতা, আইনহীনতা এবং সামাজিক অস্থিতিশীলতা। সামরিক বাহিনীকে তখন দাঁড় করানো হবে জনগণের মখোমুখি ও এভাবে সামরিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে ধ্বংস করে ফেলা হবে। বাংলাদেশের তখন একমাত্র সম্বল হবে একটি জাতীয় পতাকা, জাতীয় সঙ্গীত ও একটি দুর্বল সরকার- তা নির্বাচিত বা অনির্বাচিত যাই হোক না কেন। এর বেশি আর কোনো কিছুর অস্তিত্বই থাকবে না।”


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ