• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৩:২১ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :

নীলফামারী জেলা জাপার আহবায়ককে অবৈধ দাবি করে আদালতে মামলা

jatio_partyসিসি নিউজ : নীলফামারীতে জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক মাহবুব আলী বুলুকে অবৈধ দাবি করে তার সকল কার্যক্রমের ওপড় নিষেধাজ্ঞা চেয়ে আদালতে মামলা দায়ের হয়েছে। এছাড়াও এই মামলায় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদক, মহাসচিব জিয়া উদ্দিন বাবলু ও জেলা জাতীয় পার্টির সাবেক সভাপতি জয়নাল আবেদীনকেও মোকাবেলা বিবাদী করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে নীলফামারী সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে এই মামলাটি দায়ের করেন জলঢাকা উপজেলা জাতীয় পার্টির সহ-সভাপতি মোঃ এমরুল হক। মামলা নম্বর অন্য ১২৯/১৪।
মামলায় বাদী উল্লেখ্য করে বলেন, নীলফামারী জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক মাহবুব আলী বুলু  নিজের প্রকৃত নাম আড়াল করেছেন। তার প্রকৃত নাম মোহাম্মদ আলী বুলু। সে বাংলাদেশের নাগরিক নন। তিনি আমেরিকার নাগরিক। জাতীয় পার্টির গঠনতন্ত্রের ধারা পাঁচ উপধারা এক অনুসারে তিনি জাতীয় পার্টির প্রাথমিক সদস্য পদ পেতে পারেন না। ধারা সাত উপধারা এক অনুসারে জাতীয় পার্টির সদস্য হতে হলে তাকে বাংলাদেশের আইনানুগ নাগরিক হতে হবে।
এছাড়াও নীলফামারী পৌরসভার বাজার মৌজার দুই নম্বর ওয়ার্ডের ০২১৮ নম্বর ক্রমিকে ৭৩০৪৩০৩২৩৩৮৯ পরিচিতি নম্বরে যে ভোটার রয়েছেন তার নাম মোঃ মাহবুব আলী খান, পিতা মৃত তৈয়ব আলী খান, জন্ম তারিখ এক মার্চ ১৯৫৫ বিবাদীর বড় ভাই। তিনি তার বড় ভাই মাহবুব আলীর নাম ব্যবহার করে তার নিজ নাম বুলু সংযোজন করে মাহবুব আলী বুলু হিসাবে জাতীয় পার্টির মহাসচিব ও চেয়ারম্যানকে ভুল বুঝিয়ে নীলফামারী জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক হয়েছেন।
একই মামলায় বাদী দাবি করেন,মোহাম্মদ আলী একজন রাজাকার ছিলেন। নীলফামারী জেলার রাজাকারের তালিকায় ০১৪৩ নম্বর ক্রমিকে তার নাম রয়েছে।
মামলায় জাতীয় পার্টির মহা সচিব মোঃ জিয়া উদ্দিন বাবলুকে দুই নম্বর ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান আলহাজ্ব  হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদকে তিন নম্বর বিবাদী এবং জেলা জাতীয় পার্টির সাবেক সভাপতি মোঃ  জয়নাল আবেদীনকে চার নম্বর মোকাবেলা বিবাদী করা হয়েছে।
বাদীর আইনজীবি  আবু মোঃ সোয়েম বলেন, মামলার বাদী মো. এমরুল হক জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক মোহাম্মদ আলীকে অবৈধ দাবি করে তার কার্যকলাপের উপর অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা চাইলে, আদালতের বিচারক সিনিয়র সহকারী জজ মোঃ হাবিবুর রহমান কেন নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হবে না  জানতে চেয়ে বিবাদীকে শোকজ করেছেন। ওই আদেশে বিবাদীকে ১৫ দিনের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়েছে।
এ বিষয়ে কথা বললে জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক মাহবুব আলী বুলু বলেন, আমি মোহাম্মদ আলী বুলু নই,আমি মাহবুব আলী বুলু। এটাই আমার নিজের নাম। আমার পাসপোর্টেও ওই নাম আছে। তিনি কখনো রাজাকার ছিলেন না দাবী করে বলেন, বাদীর লোকজন অর্থের বিনিময়ে কমিটি পাশের চেষ্টা করে। আমি তাদের কথায় রাজি না হওয়ায় ষড়যন্ত্রমুলক এ মামলা দায়ের করেছেন।
জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়কের নাম মাহবুব আলী বুলু অথচো মোহাম্মদ আলী বুলু উল্লেখ করে কেন মামলা দায়ের করা হলে জানতে চাইলে জানতে চাইলে মামলার বাদী এমরুল হক বলেন, যেহেতু তিনি মোহাম্মদ আলী, তার ভাইয়ের নাম (মাবুব আলী) ব্যবহার করেছেন সে কারনে তার প্রকৃত নামেই মামলাটি করা হয়েছে। রাজাকারের তালিকায়ও তার নাম মোহাম্মদ আলী বুলু  পিতা তৈয়ব আলী খান উল্লেখ রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ