• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৩:৪০ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :

খালেদা জিয়ার পদত্যাগ করাই তো উচিত!

Masudমাসুদ মজুমদার : যেকোনো পটপরিবর্তনের আগে কিছু উপসর্গ দেখা দেয়। ঠিক রোগ-বালাইয়ের আলামতের মতো। প্রসব বেদনা তখনই শুরু হয়, যখন নতুন জন্মের সম্ভাবনা অনিবার্য হয়ে যায়। তার আগে পর্বভিত্তিক কিছু আলামত স্পষ্ট হতে থাকে। রাজনীতিতে সব সময় এ ধরনের প্রাকৃতিক নিয়ম খাটে না। আবার সব নিয়ম পাশ কাটিয়ে প্রাকৃতিক কার্যকারণ ঘটেও না। বর্তমান পরিস্থিতিতে খুব দ্রুতগতিতে দৃশ্য অদৃশ্য অনেক ঘটনা ঘটে যাচ্ছে। কিছু আমরা বিবেচনায় নিচ্ছি, কিছু নিচ্ছি না। তবে এসব ঘটনা-দুর্ঘটনা যে দৃশ্যপট পাল্টে যাওয়ার ইঙ্গিতবহ তাতে কোনো সন্দেহ নেই।
এমনিতে আমাদের জাতীয় রাজনীতি সম্পর্কে মন্তব্য করা কঠিন। কারণ রাজনীতির প্রথাসিদ্ধ নিয়ম এখানে চলে না।

রাজনীতিবিদেরাও কোনো গণতান্ত্রিক ব্যাকরণ মানেন না। সাধারণ মানুষও মনে করে নিয়মতান্ত্রিক ও প্রাকৃতিক নিয়মের স্বাভাবিকতার ব্যত্যয় ঘটলে অতিপ্রাকৃত ঘটনা ঘটে যায়। জনগণ অতীতে তাই দেখে ও জেনে আসছে। তাই জ্যোতিষীর মতো মন্তব্য করা যেমন কাক্সিত নয়, তেমনি আলামত ও উপসর্গগুলো ভুলে থাকাও সম্ভব নয়।
আওয়ামী লীগ সভানেত্রী যখন বলেন, প্রয়োজনে খালেদা জিয়াকে জেলে পাঠাতে তিনি দ্বিধা করবেন না। আওয়ামী লীগ নেতারা যখন বলেন খালেদা জিয়ার উচিত জোট ও দলের নেতৃত্ব থেকে পদত্যাগ করা, তখন কয়েকটি বিষয় বিবেচনায় নিতেই হয়। এর সহজ সমীকরণ হচ্ছে কর্তৃত্ববাদী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার সব আয়োজন সম্পন্ন হয়েছে। গণতন্ত্রের কফিনে শেষ পেরেকটি ঠুকে দেয়ার অপেক্ষা মাত্র। খালেদা জিয়া গ্রেফতার হওয়ার ঘটনা নতুন কিছু নয়। খালেদা জিয়া গ্রেফতার হলে নতুন কোনো ঘটনার জন্ম হবে না। কারণ এর আগে তিনি গ্রেফতার হয়েছেন। গৃহবন্দী হয়েছেন। বাড়িছাড়া হয়েছেন। সন্তানদের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন থাকার অভিজ্ঞতা তার আছে। তার বাড়ির সামনে বালির বস্তার ট্রাক দুর্গ নির্মাণের ঘটনাও ঘটেছে। যে মানের মামলায় শেখ হাসিনা খালাস নিয়েছেন, তার চেয়ে দুর্বল ও গুরুত্বহীন রাজনৈতিক মামলায় তিনি আছেন। তিনি গ্রেফতার হলে ‘দ্য ইকোনমিস্টের’ ক্রেডিবিলিটি বাড়বে। দ্য ইকোনমিস্ট আমাদের প্রধানমন্ত্রীর অবস্থান বিশ্লেষণ করতে গিয়ে স্পষ্ট করে বলে দিয়েছে, একজনই এখন সর্বেসর্বা। এটা সব রক্ত মাথায় উঠে যাওয়ার মতো মারণঘাতী রোগ। এখন রক্ত মাথা থেকে নামাবার ব্যবস্থাপত্র লাগবে। নয়তো রোগী মেন্টালি ডিজঅর্ডার হয়ে যেতে পারে। খোদা না করুক আমাদের নেতা-নেত্রীরা যেন নিরাপদে থাকেন। তারা যেন দুধে-ভাতে থাকতে পারেন সে দোয়াই কাম্য। এ কারণেই খালেদা জিয়ার পদত্যাগ চাই না। দ্রুত সমঝোতা চাই। অর্থবহ সমঝোতার আগে শেখ হাসিনার পদত্যাগও একই কারণে চাই না। যা চাই তা হচ্ছে, দেশ ও গণতন্ত্রের স্বার্থে অর্থবহ সংলাপের পথ ধরে সমঝোতা, যা দেয়ার মতো যোগ্যতা ও সামর্থ্য তাদের দু’জনেরই আছে। দ্রুত গ্রহণযোগ্য ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন চাই। সবার অংশ নেয়ার মতো জটিলতামুক্ত নির্বাচন ব্যবস্থা চাই, গণতন্ত্র ও আইনের শাসনের নিশ্চয়তা চাই, মানবাধিকার পরিস্থিতির উত্তরণ ও ভিন্ন মতের সহাবস্থানের পরিবেশ চাই। খালেদা জিয়ার প্রতিপক্ষ শেখ হাসিনা। যত উস্কানি দেয়া হোক, শেখ হাসিনার বিকল্প এখন পর্যন্ত খালেদা জিয়া।

বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড নিয়ে আমাদের উদ্বেগ আছে। উৎকণ্ঠা আছে। প্রতিবাদও আছে; কিন্তু প্রতিরোধের কোনো ব্যবস্থা নেই। এখন মনে হচ্ছে, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় বিষয়টি আর সোজাসাপটা করে দেখছে না। সর্বশেষ ইউরোপীয় ইউনিয়নের পার্লামেন্টে র‌্যাবকে দায়মুক্তি না দিতে প্রস্তাব পাস করেছে। র‌্যাবের পক্ষ থেকে দেয়া পাল্টা বক্তব্য অযৌক্তিক নয়; কিন্তু রাজনীতির মারপ্যাঁচের ভাষায় আচ্ছন্ন। হ্যাঁ, আমাদের নিয়ে বিদেশীদের অনেক ভাবনাই মোড়লিপনা, দাদাগিরি কিংবা ছড়ি ঘোরানোর মতো; কিন্তু মানবাধিকার পরিস্থিতি ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড নিয়ে আমরা যখন ‘আহ!’ উহ!! করছি, কিছুই করতে পারছি না, তখন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কেউ নড়েচড়ে বসলে বিষয়টিকে ষোলআনা নেতিবাচকভাবে দেখা যায় না। সবাই দেখছে আমাদের বুদ্ধিজীবীরা আক্রান্ত।

তাদের বাকস্বাধীনতাও নিয়ন্ত্রিত। নিরাপত্তাবাহিনীর সাথে পাল্লা দিয়ে সরকারি দলের পেটোয়া বাহিনীও নৈরাজ্যজনক পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে। এ কারণেই প্রফেসর ড. মাহবুব উল্লাহর ওপর পরিকল্পিত আঘাত বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। গেস্টাপো বাহিনী এভাবেই আক্রমণ করে। অব্যাহত মানবাধিকার লঙ্ঘনের ধারায় এটিও একটি কলঙ্কজনক দৃষ্টান্ত হলো।
আমাদের কথিত বুদ্ধিজীবীসমাজ এই ইস্যুতে নির্লিপ্ত থাকল দুটো কারণে। একটি গোষ্ঠী ভেবেছে আঘাতটা জাতীয়তাবাদী ঘরানার বুদ্ধিজীবীর ওপর এসেছে। তাই তিনি যেহেতু তা নন তার প্রতিক্রিয়া দেখাবার কিছু নেই। অন্যরা ভয়ে কাঁপে কাপুরুষ। এর আগে আসিফ নজরুল, নুরুল কবির, আসাফউদ্দৌলা, এমনকি ব্যারিস্টার রফিক-উল হকও ধমক খেয়েছেন। কে কার খালু তা খতিয়ে দেখা হয়েছে। আপন প্রাণ বাঁচাবার এ এক ভীতিকর পরিস্থিতি। এমন পরিস্থিতিতে সেই বিখ্যাত কাহিনী আমরা ভুলে যেতে পারি না। এক ক্যাথলিকের ওপর আঘাত আসায় প্রটেস্ট্যান্ট প্রতিবাদ করেনি। তিনি ভেবেছেন তিনি তো ক্যাথলিক নন। একসময় তিনিও আক্রান্ত হলেন, তখন ট্রেড ইউনিয়নিস্ট ভাবল, এতে তার কী আসে যায়। তিনি তো প্রটেস্ট্যান্ট নন। প্রতিবাদ প্রতিরোধ করার দায়বোধ করলেন না। শেষ পর্যন্ত তার ওপর আঘাত এলো। তখন কেউ কিছু ভাবারও রইল না। প্রফেসর মাহবুব উল্লাহ বাংলাদেশের ছাত্ররাজনীতির অন্যতম পথিকৃৎ। লড়াকু এই ছাত্রনেতার মুক্তিযুদ্ধ পর্যন্ত অবস্থান এতটাই বর্ণাঢ্য, তুলনাহীন। তার পর থেকে শিক্ষক, বুদ্ধিজীবী ও কলামিস্ট হিসেবে তার অবস্থান এমন এক ধীমানের, যিনি সবার জন্য উপকারী। তিনি সমালোচক, নিন্দুক নন। পথনির্দেশনা দেয়ার ক্ষেত্রে তিনি কোনো বিশেষ দলের নন, সমগ্র জাতির। তবে এটা সত্য যে, তিনি বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদী ধারার পক্ষে আধিপত্যবাদমুক্ত দেশ গড়ার অন্যতম পুরোধা। তাকে লাঞ্ছিত করা হলো নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা উচ্চ আদালত চত্বরে, যা সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়া কল্পনাতীত। এই বাড়াবাড়ির মাশুল সবাইকে দিতে হবে।
শ্রদ্ধেয় মাহবুব উল্লাহ ভাই, আমাদের ক্ষমা করবেন। আমরা দায়মুক্ত নই। কারণ প্রতিবাদী হতে হতে আমাদের ফুসে ওঠা উচিত ছিল। সব দল ও মতের পেশাজীবী তাৎক্ষণিক থমকে দাঁড়িয়ে প্রতিবাদ করার দাবি ছিল। আমরা কিছুই করিনি। করতে পারিনি। না পারার এ ব্যথা কষ্টকর; কিন্তু ক্ষমাযোগ্য নয়। তা ছাড়া প্রফেসর আনোয়ার উল্লাহ চৌধুরী ছাড়া আর কোনো শিক্ষক-বুদ্ধিজীবীকে কলমি প্রতিক্রিয়াটুকু প্রদর্শন করতেও দেখলাম না।

শাহবাগ মঞ্চের কথাই ভাবুন। এরা এখন বন্ধুহীন। সরকারের যখন গরজ পড়েছিল, তখন দু’টি সর্ববৃহৎ চিকিৎসাকেন্দ্র ও রাজধানীর প্রাণকেন্দ্র দখলে পুলিশ দিয়ে সাহায্য করেছে। ব্যক্তিগত নিরাপত্তাও নিশ্চিত করেছে। দিনের পর দিন, সপ্তাহের পর সপ্তাহ এরা মজমা বসিয়ে, আইন-আদালতকে চ্যালেঞ্জ করে এক ধরনের উৎসব করেছে। এখন সেই শাহবাগ চত্বরে মাত্র শতাধিক লোকের উপস্থিতি কয়েক ঘণ্টার জন্যও সহ্য করা হয় না। এবার প্যাকেট লাঞ্চ নয় জলকামান, রাবার বুলেট এবং কাঁদানে গ্যাসই তাদের ভাগ্যে জুটল। এটা যেন কনডম, ব্যবহারের পর ছুড়ে ডাস্টবিনে ফেলে দেয়া। এ আলামত কিসের! কারা এদের হ্যামিলনের বাঁশি বাজিয়ে নামালেনÑ আবার ইঁদুরের মতো ডুবালেনই বা কেন! তারুণ্যের দেশপ্রেম ও আবেগকে এভাবে বিপথ ও বিপদগামী করার দায় কি নিতে হবে না? এর কি কোনো জবাব দিতে হবে না? বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আগে থেকেই দখল বাণিজ্যের খপ্পরে। নতুন করে তাণ্ডব চালানো হচ্ছে। ঢাকা মেডিক্যালের ফজলে রাব্বি হল পর্যন্ত ছাত্রলীগের সোনার ছেলেদের তাণ্ডবে বন্ধ করতে হলো। কেন কারা এমন অস্থিরতা সর্বত্র ছড়িয়ে দিচ্ছে। কুষ্টিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকদের যারা অস্ত্র-ট্রেনিং দেয় তারাই তো সর্বত্র একই কর্ম করে বেড়াচ্ছে।

জাতীয় পার্টিকে নিয়ে লোক হাসানো ও অনৈতিক তামাশা এখন কোথায় গিয়ে ঠেকেছে ভেবে দেখা সবার কর্তব্য। এরশাদ-রওশন খেলারাম, তারা খেলছেন, বীণের শব্দে পুতুলের মতো নড়ছেন। নাচছেন। এ খেলা কি কোনো দিন সাঙ্গ হবে না! এই মেলা কি কোনো দিন ভাঙবে না! ২০ দলীয় জোটকে নিয়ে যে ভাঙাগড়া শুরু করা হয়েছেÑ তার মাজেজা বোঝার জন্য কি এতটাই বুদ্ধিমান হতে হয়!

সম্প্রচার নীতিমালা ও ষোড়শ সংশোধনী অত্যন্ত দ্রুতগতিতে পাস করা হলো, কেন? সোনালী ব্যাংক, বেসিক ব্যাংক, শেয়ারবাজার কেলেঙ্কারির ব্যাপারে এত ক্ষিপ্রতা লক্ষ করা গেল না। পদ্মা সেতু নিয়ে আইওয়াশ হলো। বিদেশে এখনো মামলা ঝুলছে। দুদক কিন সনদ দিয়ে দিলো। প্রধানমন্ত্রী বললেন, দুর্নীতি হয়নি, হয়েছে ষড়যন্ত্র। তাহলে জনগণকে সত্যটা জানাবার মতো একটা গ্রহণযোগ্য আন্তর্জাতিক তদন্ত হলো না কেন!
ফেনীর ফুলগাজীর একরাম হত্যার মর্মান্তিক ঘটনা, নারায়ণগঞ্জের সাত খুন, বিহারিপল্লীতে আগুন, কোথাও কাঙ্খিত ব্যবস্থা নেয়া হলো না। সময়ক্ষেপণ করে গডফাদারদের আড়ালে রাখা হলো। জাতি এখনো জানল না মুক্তিযুদ্ধের সনদ জালিয়াত পাঁচ সচিবসহ সংশ্লিষ্টদের কী হলো। এরা কি আইনের ঊর্ধ্বে। শত শত হাজার হাজার মুক্তিযোদ্ধা সাজিয়ে তাদের নিঃশর্ত আনুগত্য আদায় করে এখন পাপী সাজানো হচ্ছে এ কে খন্দকারকে। যুদ্ধবন্ধুদের ক্রেস্টের সোনা জালিয়াতদের কি বিচার হয়েছে! অপর দিকে প্রতিপক্ষের রাজনীতিবিদদের মামলার পর মামলার জালে জড়িয়ে দেয়া হচ্ছে। এর পরও বলবেন দেশে স্বাভাবিকতা বিরাজ করছে। দেশ এগোচ্ছে শনৈঃশনৈঃ। এ কোন বোকার স্বর্গে আমাদের বসবাস!
ভাত পচলে ধুয়ে খাওয়া যায়। পোলাও কিংবা বিরিয়ানি পচে গেলে ফেলে দিতে হয়। ঠিক মানুষের বেলায়ও এই সত্যটি প্রযোজ্য। ভালো মানুষটি একবার নীতিচ্যুত হলে তার অবস্থান পাল্টে যায়। আমাদের রাজনীতিবিদ, বুদ্ধিজীবী, পেশাজীবী, আমলা এমনকি শিক্ষকও নীতিচ্যুত হলে তাদের অবস্থা ও অবস্থান ঘৃণা করার মতো স্তরে নেমে যায়। কোনো নারী একবার সতীত্ব বিসর্জন দিলে তার আর বাছবিচার থাকে না। কোনো পুরুষ একবার পরগামী হলে তার রুচির কোনো প্রশ্ন থাকে না। এসব প্রবাদ প্রবচণের উপমা এখন শত শত।

কথাগুলো বলার কারণ, এ সরকার যত দিন ক্ষমতাচর্চা করছে মাত্র একটি ভুল সংশোধন করেছে। সেটা দিনের আলো কাজে লাগিয়ে বিদ্যুৎ সাশ্রয় করার জন্য ঘড়ির কাঁটা উল্টো ঘুরিয়ে দেয়ার পর নানামুখী নিন্দা ও সমালোচনার মুখে আগের অবস্থানে ফিরে যাওয়ার ঘটনা। আড়িয়াল বিলে বিমানবন্দর করার সিদ্ধান্তটির ভুল সংশোধন করেনি। জনপ্রতিরোধের মুখে পিছু হটেছে এবং এখনো মাঝে মধ্যে পদ্মার ওপারে আরেকটি বিমানবন্দর করার বিলাসী চিন্তার বহিঃপ্রকাশ ঘটে।
নীতিনিষ্ঠ অবস্থানে না থাকার টলারেন্স টেস্টে সরকার উৎরে গেছে। উস্কানিদাতার ভূমিকায় সরকারের মুখপাত্ররা চ্যাম্পিয়ন। তাই এরা লাশের ওপর দাঁড়িয়ে পুষ্পের হাসি হাসতে পারেন। রক্ত মাড়িয়ে পথ চলতে পারেন। সনদ জালিয়াতকে সাথে নিয়ে নিউ ইয়র্ক যেতেও বিবেকে বাধে না। প্রশ্নপত্র ফাঁসের মতো অনৈতিক বিষয়কেও এড়িয়ে যাওয়া যায়। অর্থমন্ত্রী ব্যাংকে দলীয় লোক নিয়োগের ভুল স্বীকার করলেন, দায় নিলেন না। অতশত কেলেঙ্কারির জন্য কারো বিচার হলো না। বিডিআর বিদ্রোহ থেকে বিচারবহির্ভূত হত্যার মিছিলে কালা বাবু যোগ হওয়া পর্যন্ত সব যেন উপেক্ষার বিষয়। খালেদা জিয়া বিরোধীদলীয় অবস্থান থেকে এত উস্কানির মুখেও কোনো অন্যায়কে শক্ত হাতে প্রতিরোধ করতে পারেননি। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জনসভায় জবাবি বক্তব্য ছাড়া তার যুক্তিগ্রাহ্য প্রতিক্রিয়াও চোখে পড়ে না। অতএব তার পদত্যাগ করাই তো উচিত। আওয়ামী লীগ নেতাদের এই সহজ সমীকরণ উপভোগ্যই বটে!
( নয়া দিগন্ত )


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ