• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৬:০৪ পূর্বাহ্ন |

মেধাবী তরুণরাই টার্গেট জঙ্গিবাদের

92426_1সিসি ডেস্ক: বাংলাদেশ থেকে কর্মী সংগ্রহের মিশনে নেমেছে নৃশংসতার মাধ্যমে আবির্ভূত আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট বা আইএস। ‘নগদ অর্থ’ ও ‘আদর্শগত মতবাদ’ নিয়ে মাঠে নেমে পড়েছেন আইএসের প্রতিনিধিরা। তাদের টার্গেট এ দেশের মেধাবী তারুণ্য। শুধু অস্ত্র চালনা নয়, প্রযুক্তি ও বিজ্ঞান শিক্ষায় উচ্চশিক্ষিত ও পারদর্শীদের দিকে দৃষ্টি আইএসের। বাংলাদেশে তাদের সংযোগ স্থাপন করছেন বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে আইএসের হয়ে কাজ করা প্রবাসী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ও প্রশিক্ষণ ফেরত জঙ্গিরা। গোয়েন্দাদের এমন তথ্যের ভিত্তিতে বিশ্লেষকরা বলছেন, বাংলাদেশকে ‘উর্বর ভূমি’ হিসেবে চিহ্নিত করে কর্মী সংগ্রহের একটি অন্যতম উৎস হিসেবে তৈরির চেষ্টা চালাচ্ছে আইএস। নতুন করে এ ধরনের তৎপরতা চালাতে পারে আল-কায়েদার নবগঠিত দক্ষিণ এশিয়া শাখাটি। তবে আন্তর্জাতিক জঙ্গিবাদের এ বিস্তার রোধে জিরো টলারেন্স মিশনে আছে সরকার। শুধু জঙ্গিবাদের মূলোৎপাটনেই কাজ করছে বিভিন্ন নিরাপত্তা ও গোয়েন্দা সংস্থার বিশেষ ইউনিট। গ্রেফতার কয়েকজনের কাছ থেকে সুস্পষ্ট তথ্যও পাওয়া গেছে। নজরদারিতে রাখা হয়েছে আন্তর্জাতিক চক্রকে।

জানা গেছে, আইএসের ইন্টারনেট ইউনিট এতটাই শক্তিশালী যে, কোনো ডিজিটাল নিরাপত্তা ব্যবস্থা ভেঙে দিতে তারা সক্ষম। আবার সরকারের সব প্লাটফর্ম ব্যবহার করেও সামাজিক যোগাযোগ ব্যবস্থার মাধ্যমে প্রচার চালানো আইএস এজেন্ট বা কর্মীদের অবস্থান শনাক্ত করা যাচ্ছে। এ দেশের মেধাবী তারুণ্যকেও এভাবে মাঠে সমরাস্ত্র না নিয়েই ঘরে বসে ‘হ্যাকার’ হিসেবে আইএসের শক্তিশালী ইন্টারনেট ইউনিটকে সহায়তা করতে ব্যবহার করা হতে পারে। আরেক দল গবেষণার মাধ্যমে বিশেষায়িত সব মারণাস্ত্রের ফর্মুলা তৈরি করে। ইতিমধ্যে গবেষণার দূরনিয়ন্ত্রিত শক্তিশালী নতুন মাত্রার বোমা তৈরির সঙ্গে বাংলাদেশি তরুণ প্রকৌশলীর সংশ্লিষ্টতার তথ্যও পাওয়া গেছে। গত তিনদিনে আইএস এ সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগে অন্তত ১০ জন সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। যাদের মধ্যে প্রকৌশলী, চিকিৎসকও রয়েছেন।সূত্র জানায়, বাংলাদেশে যে ১২টি ধর্মীয় উগ্রপন্থি সংগঠন রয়েছে এর মধ্যে হিযবুত তাহ্রীর মেধাবীদের নিয়ে গড়ে উঠেছে। এ সংগঠন এখন আর প্রকাশ্যে তাদের তৎপরতা চালাতে পারছে না। এ কারণে আইএসের টার্গেট রয়েছে এ সংগঠনের মেধাবী সদস্যদের প্রতি। সূত্র জানায়, এ সংগঠনের সদস্যসংখ্যা এখন ৩০-৩২ হাজার। এদের রয়েছে প্রচুর প্রকৌশলী, চিকিৎসক, আইনজীবীসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ রয়েছেন। তারা নিজ নিজ অবস্থানে থেকে সংগঠনের কাজ করছেন। এ ছাড়াও এদের অধিকাংশ তরুণ এবং প্রত্যেকেই শিক্ষিত। গোয়েন্দাদের একটি সূত্র জানায়, হিযবুত তাহ্রীরের নিজস্ব আইনজীবী প্যানেল রয়েছে, যারা সংগঠনের নেতা-কর্মীদের জামিনের ব্যাপারে কাজ করছেন। আইএস হিযবুত তাহ্রীরের এ মেধাবী তরুণদের টার্গেট করে সদস্যসংখ্যা বৃদ্ধি করছে। গোয়েন্দা সূত্র জানায়, সম্প্রতি ঢাকার একটি রেস্টুরেন্ট থেকে বৈঠককালে গ্রেফতার হন ৭১ ছাত্র, যাদের ৫১ জন বুয়েটের। অন্যরা ঢাকা মেডিকেল, স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজসহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। এর মধ্যে ২১ জন হিযবুতের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত। অন্যরা এসেছিলেন হিযবুতের ‘দীনের দাওয়াতে’। বিভিন্ন সময় জঙ্গিরা গ্রেফতার হয়ে কিছু দিন পর ছাড়া পেয়ে আবার জড়িয়ে পড়েন পুরনো পথে। গোয়েন্দা সূত্র মতে, ‘আলোকিত ছাত্রী ফোরাম’-এর নামে কাজ করছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীরা। এর নেতৃত্বে রয়েছেন একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন সাবেক প্রভাষক। গোয়েন্দাদের কাছে খবর রয়েছে, উত্তরা, গুলশানসহ বিভিন্ন অভিজাত এলাকায় স্থাপিত ইংরেজি মাধ্যমের বেশ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অধিকাংশ শিক্ষক উগ্রপন্থি ধর্মীয় সংগঠনের নেতা ও সদস্য। শিক্ষা জীবনের শুরুতেই ছাত্রদের খেলাফত আন্দোলন ও খেলাফত রাষ্ট্রের প্রতি অনুগত করতে এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হয়েছে। এসব মেধাবী ছাত্রই এখন আইএসের অন্যতম টার্গেট। বিশ্লেষকরা বলছেন, কর্মী সংগ্রহের জন্য বাংলাদেশকে প্রাধান্য দেওয়ার কারণ এখানকার মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ জনসংখ্যার অর্ধেকের বেশি তরুণ, আদর্শ কর্মসংস্থানের প্রকট সমস্যা ও ভূ-রাজনৈতিক অবস্থান। এ দেশের মেধাবী তারুণ্য আন্তর্জাতিক সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচিত। তাদের একটি বড় অংশ পশ্চিমা বিশ্বের বিভিন্ন বৈষম্যের চাক্ষুষ সাক্ষী। দ্বিধান্বিত এ তারুণ্যের সামনে শুধু মুসলিম হওয়ায় সৃষ্ট বৈষম্যের চিত্রগুলো পরিকল্পিত বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে তুলে ধরছে আইএস। এ ক্ষেত্রে জাতীয় পর্যায়ে গণতন্ত্রহীনতা, ক্ষমতালিপ্সু ও ভোগবাদী রাজনীতির চিত্রও তুলে ধরা হচ্ছে। বলা হচ্ছে ইসলামের পথে জিহাদের জন্য নিজেকে উৎসর্গ করতে। বিপরীতে সাম্য ও নীতি-নৈতিকতার ভিত্তিতে তৈরি কল্পিত সমাজ ব্যবস্থার কথা তুলে ধরা হচ্ছে। প্রলুব্ধ হচ্ছে তারুণ্য। জড়িয়ে পড়ছে নিজের আওতার বাইরে কোনো দুঃসাধ্য কাজেও। এ ছাড়াও মেধাবী তারুণ্যের সামনে বিশ্বখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার সুযোগও তুলে ধরা হচ্ছে।

বাংলাদেশের জন্য আইএসের তৎপরতা কেন উদ্বেগের- এ প্রশ্নের উত্তরে নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল (অব.) মূনীরুজ্জামান সম্প্রতি বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, মূলত চারটি কারণে বাংলাদেশে আইএসের তৎপরতা নিয়ে উদ্বেগের যথেষ্ট কারণ আছে। এক. আইএস তাদের যে আন্তর্জাতিক ম্যাপ ইস্যু করেছে তাতে পাকিস্তান ও বাংলাদেশ আছে। দুই. গত সপ্তাহে যে চারজন বাংলাদেশে এসেছিলেন তারা এখানে আসেন মূলত আইএসে যোগ দিতে। তার মানে বাংলাদেশে আইএসের নিরাপদ কোনো পয়েন্ট আছে, যেখানে রিক্রুটমেন্ট পদ্ধতি চালানো হয়। তিন. আইএস যখন প্রথম তাদের আন্তর্জাতিক কর্মী সংগ্রহের ভিডিও প্রচার করেছিল তাতে তারা বলেছিল বাংলাদেশিরা আছেন তাদের সংগঠনে। চার. আইএসের সঙ্গে ব্রিটিশ বংশোদ্ভূত দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর বড়সংখ্যক তরুণের সংশ্লিষ্টতার তথ্য পাওয়া গেছে; যার মধ্যে বাংলাদেশি বংশোদ্ভুতও আছেন। মেজর জেনারেল (অব.) মূনীরুজ্জামান জানান, অন্যান্য সন্ত্রাসী বা জঙ্গি সংগঠন থেকে আইএসের পরিস্থিতি ভিন্ন। কারণ আইএসের কাছে রয়েছে বিশাল ভূখণ্ড, যা অন্য কোনো গ্রুপের কাছে ছিল না। এ ছাড়া কয়েক বিলিয়ন ডলার নগদ অর্থ ও অস্ত্রের বিশাল ভাণ্ডারও আছে আইএসে। এ ছাড়া এ গ্রুপের আরেকটি বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো তথ্যপ্রযুক্তিতে অত্যধিক দক্ষতা। তারা ইন্টারনেটে প্রবলভাবে তৎপরতা চালাচ্ছে এবং সরকারগুলোর পক্ষ থেকে তাদের শনাক্তও করা সম্ভব হচ্ছে না। কারণ ইউরোপের বিভিন্ন দেশের উচ্চশিক্ষিত আইটি এঙ্পার্ট এ গ্রুপের সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন।

উৎসঃ   বাংলাদেশ প্রতিদিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ