• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৫:০৮ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

ভূগোল বিষয়ের প্রভাষকের অনিয়মে উত্তাল সৈয়দপুর কলেজ ক্যাম্পাস

Saidpur Colageসিসি নিউজ: কলেজের ভূগোল ডিপার্টমেন্টে কখনই সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীদের ব্যবহারিক ক্লাস নেয়া হয় না। প্রভাষকের বাড়িতে প্রাইভেট না পড়লে মেলে না সন্তোষজনক নম্বর। আর এমন অভিযোগে গত তিন দিন থেকে উত্তরবঙ্গের ঐতিহ্যবাহি সৈয়দপুর কলেজের সদ্য ডিগ্রি পাশ করা শিক্ষার্থীরা কলেজ ক্যাম্পাসে ভূগোল বিভাগের প্রভাষক আরশেদা খানমের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সভা এবং স্বারকলিপি প্রদান করেছে অধ্যক্ষের কাছে। এর পরেও কোন পদক্ষেপ নেয়া না হলে কঠোর আন্দোলনের ঘোষনা দিয়েছে বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীরা।
সৈয়দপুর কলেজের আন্দোলনরত শিক্ষার্থিরা জানায়, এ কলেজে ভুগোল বিভাগের কখনই ব্যবহারিক ক্লাস হয় না। হোক উচ্চ মাধ্যমিক কিংবা ডিগ্রি। ব্যবহারিক বিষয়ের প্রভাষক আরশেদা খানম রংপুর থেকে এসে কৌশলে শিক্ষার্থিদের শহরের বাঁশবাড়ি এলাকার এক আত্মীয়ের বাড়িতে ডেকে বাধ্যতামুলক প্রাইভেট পড়ানোর নামে জবর-দস্তি অর্থ আদায় করে। আর কেউ প্রাইভেট পড়তে না চাইলে কিংবা টাকা না দিতে পারলে তাদের ওপর নেমে আসে স্বল্প নম্বরের শাস্তির খড়গ। এতে অনেক উচ্চ মাধ্যমিক বা ডিগ্রি পরীক্ষার্থী সামান্য নম্বরের জন্য জিপিএ এবং প্রথম বিভাগে উত্তীর্ন হতে পারেন না। আর এভাবে দীর্ঘ দিন ধরে ওই প্রভাষকের কাছে ভুগোল ব্যবহারিক বিষয়ে শিক্ষার্থীরা জিম্মি হয়ে পড়েন। এ নিয়ে কোন শিক্ষার্থী স্বল্প নম্বরের নিশ্চিত শাস্তির ভয়ে কখনও প্রতিবাদ করার সাহস পান নি। আর এ অনিয়ম অব্যহত থাকায় কয়েকদিন আগে ঘোষিত জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ডিগ্রি পাশ পরীক্ষায় এ কলেজের ১০ জন শিক্ষার্থী প্রথম বিভাগে স্বল্প নম্বরের জন্য উর্ত্তীন হতে না পারায় তারা ওই প্রভাষকের অনিয়মের প্রতিবাদে ও অপসারনের দাবিতে গত দুই দিন ধরে কলেজ ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ, প্রতিবাদ সভা ও অধ্যক্ষ বরাবর এক স্বারকলিপি প্রদান করেছে। চলতি বছর ডিগ্রি ফলাফল পাওয়া দ্বিতীয় বিভাগে পাশ করা মামুন নামে এক শিক্ষার্থী জানান, আমরা এ ডিপার্টমেন্টে মোট ২৪ জন আছি। কখনই ভূগোলের ব্যবহারিক ক্লাস পাই নি। ক্লাস করতে চাইলে বলা হয় ছাত্র কম। আবার অনেককে ওই প্রভাষক বাড়িতে গিয়ে শিখতে প্রলুব্ধ করে। পরে সেখানে আমরা ৮-১০জন ছাড়া বাকি সকলেই প্রভাষকের বাড়িতে ব্যবহারিক শিখে। কোর্স ফির নামে মোটা অংকের টাকা নগদ কিংবা বিকাশের মাধ্যমে আদায়ের পর ফাইনালে এদের ৮৫ থেকে ৯৫ পর্যন্ত নম্বর দেয়া হয়। অথচ আমি মোট ৭৬৮মার্ক পেয়েছি। ভুগোলের ব্যবহারিকে আর ১২ নম্বর পেলেই প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হওয়ার গৌরব অর্জন করতাম। একই অভিযোগ করেন স্বপন, মাসুদ, রাসেল, আসাদ সহ সদ্য ডিগ্রিতে দ্বিতীয় বিভাগ পাওয়া শিক্ষার্থীরাও। বিক্ষুদ্ধরা আরো বলেন, এ ডিপার্টমেন্টের পিয়ন পর্যন্ত ভুগোলের প্রাকটিক্যালের জন্য বিশেষ কৌশলে টাকা নেয়। তাই দীর্ঘ দিনের এ অনিয়ম বন্ধ করতে এ প্রতিবাদ। যদি সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বত্বন কতৃপক্ষ ওই প্রভাষকের বিরুদ্ধে কোন পদক্ষেপ না নেয় তাহলে আমরা আন্দোলনে কঠোর কর্মসুচি দিতে বাধ্য হব। গত শনি ও রবিবার কলেজের প্রায় তিন শতাধিক শিক্ষার্থী ও বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের ছাত্র নেতারা কলেজ ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ, প্রতিবাদসভা ও অধ্যক্ষকে স্বারকলিপি প্রদানের মাধ্যমে একাত্বতা প্রকাশ করে দ্রুত ওই প্রভাষকের অপসারন দাবি করেন।
এ নিয়ে প্রভাষক আরশেদা খানমের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তার সাক্ষাত না হওয়ায় মতামত পাওয়া যায় নি। তবে বিষয়টি নিয়ে সৈয়দপুর কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ হাফিজুর রহমান হাফিজের সাথে কথা হলে তিনি জানান, অভিযোগ পাওয়া মাত্রই ওই প্রভাষককে ৭ দিনের মধ্যে কারন দর্শানো নোটিশ দেয়া হয়েছে। তাই অপেক্ষায় রয়েছি নোটিশের জবাবের। এর পরেই যথাযথ ব্যাবস্থা নেয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ