• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০১:৩২ পূর্বাহ্ন |

শনিবার ঈদ পালিত হয়েছে যেসব জায়গায়

index_53688সিসি নিউজ : সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে দেশে ও বিদেশের বিভিন্ন জায়গায় শনিবার পালিত হচ্ছে মুসলিম বিশ্বের সবচেয়ে বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদ উল আযহা। দেশের বেশ কয়েকটি জেলায় ঈদ উদযাপনের খবর পাওয়া গেছে। তবে এবছর সারাদেশের ঈদ উদযাপনের সঙ্গে ব্যবধান তৈরি হয়েছে দু’দিনের।

বরিশাল: শনিবার বরিশালের কয়েকটি স্থানে পালিত হচ্ছে পবিত্র ঈদ উল আযহা। চট্রগ্রামের চন্দ্রনাইশ শাহসূফী দরবার শরীফ ও সাতকানিয়া মির্জাখালী দরবার শরীফের অনুসারীরা সৌদির সঙ্গে মিল রেখে ঈদ উল আযহার নামাজ আদায় করেছেন।

প্রায় ২ শত বছর আগে থেকে তারা সৌদিকে অনুসরণ করে রোজা, ঈদ ও কোরবানি পালন করে আসছেন।

বরিশাল সদর উপজেলার চাঁদকাঠী, জিয়া সড়ক, টিয়াখালী চৌধুরী বাড়ি দরবার শরীফে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এছাড়া বাবুগঞ্জ উপজেলার ওলানকাঠী গ্রামের সরোয়ার খলিফার বাড়ি, খানপুরা গ্রামের জাহাঙ্গীর সিকদারের বাড়ি, মাধবপাশার সাদেক দুয়ারীর বাড়ি, শরিকল গ্রামের আকন বাড়ি, কেদারপুর গ্রামের আঃ মান্নান হাওলাদারের বাড়িতে পবিত্র ঈদ উল আযহার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে বলে জানা গেছে।

পটুয়াখালী : শনিবার পটুয়াখালী জেলার ২৫টি গ্রামে পবিত্র ঈদ উল আযহা উদযাপিত হচ্ছে। পটুয়াখালী সদর উপজেলায় ৫টি, দুমকী উপজেলায় ৩টি, মির্জাগঞ্জ উপজেলায় ৪টি, বাউফল উপজেলায় ৩টি, গলাচিপা উপজেলায় ৩টি এবং কলাপাড়া উপজেলায় ৭টি গ্রামের প্রায় ৩০ থেকে ৪০ হাজার মুসলমান ঈদ উল আযহা পালন করছেন।

স্থানীয়ভাবে এসব গ্রামবাসী চট্টগ্রামের এলাহাবাদ সুফিয়া ও বদরপুর দরবার শরীফ এবং চানটুপির অনুসারী হিসাবে ধর্মীয় অনুষ্ঠান উদযাপন করছেন।

স্থানীয়ভাবে এসব গ্রামবাসী চট্টগ্রামের এলাহাবাদ সুফিয়া ও বদরপুর দরবার শরীফ এবং চানটুপির অনুসারী হিসাবে।

বরিশালের ভোলা জেলায় ২২টি গ্রামে, বরগুনার আমতলীসহ বরিশালের অন্যান্য জেলায়ও ঈদ উদযাপনের খবর পাওয়া গেছে।

মৌলভীবাজার : প্রতিবছরের ন্যায় সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে ঈদ উল আযহার নামাজ আদায় করেছেন মৌলভিবাজারের অর্ধশতাধিক মুসল্লি। শনিবার সকাল সোয়া ৬টায় শহরের সার্কিট হাউস এলাকার আহমেদ শাবিস্তা নামক বাসার ছাদে ঈদের এই জামাত অনুষ্ঠিত হয়। জামাত আদায় শেষ করে দু’টি খাসি ও একটি গরু কোরবানি দেওয়া হয়।

ঈদ উদযাপনকারীরা ‘উজান্ডি পীরসাহেব’ এর অনুসারী বলে জানা গেছে। গত ৬ বছর ধরে তারা শহরের সার্কিট হাউস এলাকায় সৌদির সঙ্গে মিল রেখে ঈদ উল ফিতর ও ঈদ উল আযহার নামাজ আদায় করে আসছেন।

জেলা শহরের আরও ৭-৮টি স্থানসহ কুলাউড়া, বড়লেখা ও শ্রীমঙ্গলেও ঈদের নামাজ আদায় হয়েছে বলে জানা গেছে।

লক্ষীপুর : সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে লক্ষ্মীপুরের মাওলানা ইসহাক (র.) অনুসারীরা গত ৩২ বছর যাবত দুই ঈদ ও রোযা পালন করে আসছেন। তারই অংশ হিসেবে জেলার কয়েকটি গ্রামে শনিবার ঈদ উল আযহা উদযাপিত হচ্ছে।

রামগঞ্জ উপজেলার নোয়াগাঁও, জয়পুরা, বিঘা, বারো ঘরিয়া, হোটাটিয়া, শারশোই, কাঞ্চনপুর ও রায়পুর উপজেলার কলাকোপা গ্রামসহ ১০টি গ্রামের প্রায় সহস্রাধিক মানুষ শনিবার ঈদ উল আযহা উদযাপন করছেন।

দিনাজপুর: সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে বিগত কয়েক বছরের মতো এবারও দিনাজপুরের ১৪টি গ্রামে পালিত হচ্ছে পবিত্র ঈদুল আযহা। শনিবার সকাল সোয়া ৮টায় শহরের ডেফোডিল কমিউনিটি সেন্টারে ঈদের প্রধান জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়। এই জাময়াতে শতাধিক মুসল্লী অংশ নেয়। এতে ইমামতি করেন মাওলানা আবু ইসাহাক। পরে পশু কোরবানী দেন তারা।

এছাড়া জেলার চিরিরবন্দর উপজেলার নশরতপুর, বারো জামায়াত চত্বর, সাইতারা রাবার ড্যাম, কাহারোল উপজেলার মুকুন্দপুর, রসুলপুর ও বিরামপুর উপজেলার কয়েকটি স্থানে পৃথকভাবে পবিত্র ঈদুল আযহা উদযাপিত হচ্ছে।

চাঁদপুর: চাঁদপুরের ৪০ গ্রামে শনিবার পবিত্র ঈদুল আযহা উদযাপিত হচ্ছে। বিগত ৮৬ বছর ধরে এসব গ্রামের মুসলমানেরা সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে ধর্মীয় অনুষ্ঠানগুলো পালন করে আসছেন। তবে অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছর বাংলাদেশের সঙ্গে ২ দিনের ব্যবধান তৈরি হয়েছে।

জানা যায়, হাজীগঞ্জ উপজেলার বড়কুল পশ্চিম ইউনিয়নের সাদ্রা হামিদিয়া দাখিল মাদ্রাসার সাবেক অধ্যক্ষ মরহুম মাওলানা আবু ইছহাক ১৯২৮ সাল থেকে ইসলামের সব ধর্মীয় রীতিনীতিতে সৌদিকে অনুসরণের প্রচলন শুরু করেন।

মাওলানা ইছহাকের মৃত্যুর পর তার ৬ ছেলে এ মতবাদের প্রচার চালিয়ে আসছেন।

এসব এলাকার পাশাপাশি দেশের আরো বেশ কয়েকটি জেলায় বিভিন্ন পীর সাহেবদের অনুসারীরা পবিত্র ঈদুল আযহা উদযাপন করছেন। তবে চাঁদের উপর নির্ভর করে সারাদেশে একযোগে কোরবানীর ঈদ পালিত হবে সোমবার-বুধবার পর্যন্ত।

এদিকে, বিশ্বের কয়েকটি দেশেও শনিবার পবিত্র ঈদ উল আযহা উদযাপিত হচ্ছে বলে জানা গেছে। এগুলোর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রভুক্ত বিভিন্ন রাজ্যে একইসঙ্গে পালিত হচ্ছে ঈদ। তবে বিদেশের ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালন মূলত চাঁদ দেখার উপরই নির্ভর করে হচ্ছে।

নিউইয়র্ক: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে শনিবার ও রোববার অনুষ্ঠিত হচ্ছে মুসলিম বিশ্বের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদ উল আযহা। তবে বেশিরভাগ নিউইয়র্কবাসী ঈদ উদযাপন করছেন শনিবার।

আগাম ঈদ পালন নিয়ে রয়েছে নানা মতভেদ। অতীতে একাধিকবার এনিয়ে সংঘাত ও সংর্ঘষের ঘটনা ঘটেছে। তবে আজও এর স্থায়ী সমাধান হয়নি। ফলে একই গ্রামের এমনকি একই পরিবারের সদ্যসদের কেউ একদিন আগে আবার কেউ একদিন পরে ঈদ উদযাপন করছেন। তাই ইসলামি চিন্তাবিদদের একত্রে বসে কোরআন-হাদীসের আলোকে একটি সুষ্ঠ সমাধান দেয়া উচিত। নইলে ভুল জানা এসব মানুষদের কুসংস্কার ও মতভেদ সংক্রান্ত দ্বন্দ্বের জেরে উম্মাদনার বলি হতে পারেন অনেকেই।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ