• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৪:১৪ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :

ঈদ আনন্দ সারা দেশে

indexসিসি নিউজ: আজ সোমবার পবিত্র ঈদুল আজহা। ত্যাগের মহিমায় ভাস্বর কোরবানির ঈদ।  ঈদের নামাজ শেষে মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে পশু কোরবানি করবেন সামর্থ্যবান মুসলমানরা।  কোরবানির ঈদের এই আনন্দ থেকে বাদ যাবে না অন্যরাও। তাই এখন উৎসব আনন্দ সারা দেশে।
আল্লাহর নৈকট্য লাভ ও সন্তুষ্টি অর্জনের উদ্দেশ্যে কোরবানি দেয়ার জন্য সামর্থ্য অনুযায়ী পশু ক্রয় করেছেন। ঈদুল আজহার নামাজ শেষে আল্লাহ তায়ালার সমীপে পশু কোরবানি করা হয়। আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য নিজের প্রিয় বস্তুকে কোরবানি দেয়ার প্রস্তুতির শিক্ষাই এই পশু কোরবানির মর্মবাণী।
প্রায় চার হাজার বছর আগে মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের জন্য হজরত ইব্রাহিম (আ.) তার ছেলে হজরত ইসমাইল (আ.)-কে কোরবানি করার উদ্যোগ নিয়েছিলেন। কিন্তু পরম করুণাময়ের অপার কুদরতে হজরত ইসমাইল (আ.)-এর পরিবর্তে একটি দুম্বা কোরবানি হয়ে যায়। হজরত ইব্রাহিম (আ.)-এর সেই ত্যাগের মহিমার কথা স্মরণ করে মুসলিম সম্প্রদায় জিলহজ মাসের ১০ তারিখে আল্লাহর অনুগ্রহ লাভের আশায় পশু কোরবানি করে থাকে। তবে ঈদের পরও দুই দিন অর্থাৎ ১১ ও ১২ জিলহজেও পশু কোরবানি করার বিধান আছে। শরিয়তে সামর্থ্যবানদের জন্য পশু কোরবানি করা ওয়াজিব।
ইসলাম ধর্মে কোরবানি অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। পবিত্র কুরআনে সূরা কাউসারে এ ব্যাপারে বলা হয়েছে- “অতএব আপনার পালনকর্তার উদ্দেশে নামাজ পড়ুন এবং কোরবানি করুন।”
কোরবানির মূল উদ্দেশ্য তাকওয়া বা খোদাভীতি। এ প্রসঙ্গে কুরআনে বলা হয়েছে- “এগুলোর গোশত আমার কাছে পৌঁছায় না। কিন্তু তোমাদের তাকওয়া পৌঁছে যায়।”
রাসূল (সা.) বলেছেন, “ঈদুল আজহার দিন কোরবানির চেয়ে আর কোনো কাজ আল্লাহর কাছে অধিক পছন্দীয় নয়।” অন্যত্র বলেছেন, “যে ব্যক্তি সামর্থ্য থাকার পারও কোরবানি দিল না, সে যেন আমার ঈদগাহে না যায়।”
ঈদুল আজহার দুই রাকাত ওয়াজিব নামাজ জামাতে আদায়ের পর গরু, মহিষ, উট, ভেড়া, ছাগল, দুম্বা প্রাণী থেকে যেকোনো একটি দিয়ে কোরবানি দেয়া যায়।  কোরবানির পশুর গোসত তিন ভাগ করে এক ভাগ আত্মীয়স্বজনকে, আরেক ভাগ গরিবদের মধ্যে বণ্টন এবং বাকি এক ভাগ নিজেরা খাওয়া সুন্নত।
ঈদুল আজহার সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে পবিত্র হজের।  শুক্রবার পবিত্র নগরী মক্কার অদূরে আরাফাতের ময়দানে সমবেত হওয়ার মধ্য দিয়ে বিশ্বের ২০ লাখের বেশি মুসলমান হজ পালন করেছেন।  হিজরি  মাসের স্থানীয় গণনা অনুযায়ী শনিবার সৌদি আরবে ঈদুল আজহা উদযাপিত হয়েছে। মুজদালিফা থেকে ফিরে হাজিরা মিনায় অবস্থান করে পশু কোরবানিসহ হজের অন্যান্য কাজ সম্পাদন করেছেন।
ঈদুল আজহা উপলক্ষে রাজধানী ঢাকার সড়ক ও সড়কদ্বীপ সাজানো হয়েছে জাতীয় ও রঙিন পতাকা দিয়ে। টেলিভিশন চ্যানেল ও রেডিও স্টেশনগুলো আয়োজন করেছে বিশেষ অনুষ্ঠানমালার। বিনোদন কেন্দ্রগুলো প্রস্তুত দর্শনার্থীদের স্বাগত জানাতে।
ঈদুল আজহা উপলক্ষে দেশের কারাগার, এতিমখানা, শিশুসদনসহ সরকারি আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে উন্নত মানের খাবার সরবরাহ করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ