• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০২:৩০ পূর্বাহ্ন |

নতুন আলোর ঈদ

75784_augdum-1মিতুল সাইফ:
কাউকে বলিস না, আপু। তাহলে সব মজাই কিন্তু নষ্ট হয়ে যাবে।
-বোকা! বলে দিলেই তো সব মাটি। সবাইকে সারপ্রাইজ দিতে হবে না? কাকপীতেও জানবে না, বুঝলি।
মনে মনে বুদ্ধি এঁটে কী যে সব করে বেড়াচ্ছে সুমন আর চৈতি আপু, তা কেউ বুঝতেই পারছে না। সবার কৌতূহল বাড়ছে। মাটি দিয়ে দারুণ দারুণ খেলনা তৈরি করে তাতে রঙ লাগিয়ে চমৎকার চমৎকার জিনিস বানাচ্ছে আপু আর সুমন। দু’জনেই এ কাজে খুব পটু।
স্কুলে আপু তো বরাবরই মাটির মূর্তি আর খেলনা তৈরি করে প্রথম হয়।
এসব বানাচ্ছে ভালো কথা, কিন্তু এত খেলনা কী হবে?
ছোট্ট আবির তো ভেবেই পায় না। শুধু আপুর পেছন পেছন ঘোরে আর দেখতে থাকে মজার মজার মাটির বাঘ, সিংহ, রবীন্দ্রনাথ, নজরুল কত কী! সুমন চৈতিকে দিদি বললেও আবির ডাকে আপু বলে।
সুমনের দিদি ডাকই পছন্দ, আর তাই চৈতি দিদি বলেই ডাকে সে।
বর্ষা মওসুমে সাহেব বাড়ির আমবাগানে বিশাল মেলা বসে। তারই একটা স্টল বরাদ্দ নেয় সুমন আর চৈতি আপু। কুমোরপাড়ার রথিনদা টেবিল-চেয়ারের ব্যবস্থা করে দেয়।
বড় বড় টেবিলে সাজিয়ে রাখা হয় সুমন আর চৈতি আপুর খেলনাগুলো। চোখ জুড়িয়ে যায় দেখলে। একটা বড় বাঘের খেলনা পছন্দ হয় আবিরের। কিন্তু আপুর কড়া কথা।
– এখনই যদি নিতে চাস তবে ১০ টাকা নিয়ে আয়। আর মেলা শেষ হলে যত খেলনা থাকবে এমনি এমনি পাবি। আবিরের মন খারাপ হয়ে যায়। অত সুন্দর বাঘটা নিশ্চয়ই বিক্রি হয়ে যাবে। মেলা শেষে হয়তো কিছুই থাকবে না। তাই মায়ের কাছ থেকে কান্নাকাটি করে টাকা এনে বাঘ কিনে বাড়ি ফেরে আবির। মেলার প্রথম দিনেই বিক্রি হয়ে যায় অর্ধেক খেলনা।
সুমন আর চৈতি আপু তো দারুণ খুশি। এত বিক্রি হবে তা তারা কল্পনাও করেনি।
রাতজেগে কাগজ কেটে, রঙ লাগিয়ে বানানো হলো নানা রকম ফুল, ফুলদানি। কিন্তু পরের দিনেই সব শেষ। মেলার আরো এক দিন বাকি। কী করা যায়?
আপু তার কিছু কাঠের তৈরী ভাস্কর্যও মেলায় তুলল। সুমন না করেছিল। আপু বলল, ঘরে রেখে লাভ কী? এমন ভাস্কর্য আমি চাইলেই আবার তৈরি করতে পারব।
শেষমেশ তাই হলো। মেলার শেষ দিনে কয়েকটি খেলনা ছাড়া সব বিক্রি শেষ। টাকা গুনতে গুনতে চোখ চকচকে হয়ে উঠল সুমন আর চৈতি আপুর।
তারা যা আশা করেছিল তারচেয়ে ১০ গুণ বেশি আয় হয়েছে। দারুণ খুশি আর আনন্দ নিয়ে বাড়ি ফিরল দু’জন। বাড়ি ফিরতেই বাবা চেঁচিয়ে উঠলেন। ধমক দিয়ে বললেন-
– পড়ালেখা বাদ দিয়ে এসব কী করে বেড়াচ্ছো তোমরা? সামনেই পরীা, মনে নেই? আমরা গরিব, এটা ঠিক। তাই বলে এই বয়সে তোমরা ব্যবসায় শুরু করবে?
বাবাকে কখনো এত বকাবকি করতে দেখেনি কেউ। আপুর চোখে পানি এসে গেল। সুমনও তার চোখ ভেজাল।
পরদিন বাবা শহরে যাওয়ার জন্য তৈরি হচ্ছেন। চৈতি আর সুমন গিয়ে দাঁড়াল বাবার সামনে। তাদের অর্জিত ৭০ হাজার টাকা বাবার হাতে তুলে দিয়ে আপু বলল,
-সারপ্রাইজ দেবো বলে আগে বলিনি, বাবা। ক’দিন পরই তো ঈদ। এই টাকা দিয়ে তুমি ছোট দেখে একটা গরু আর একটা খাসি কিনবে। আর কিনবে ছোট শিশুদের নতুন পোশাক। আমাদের স্কুলঘরের পাশের বস্তির ছেলেমেয়েদের জন্য এটাই হবে আমাদের ঈদের উপহার। তুমি, আমি, মা, সুমন, আবির সবাই ওদেরকে এসব পোশাক আর গোশত দিয়ে আসব। ওদের খুশিতে আমরাও পাবো নতুন এক মজার ঈদ।
বাবা চুপ করে থাকলেন কিছুণ। তার চোখ থেকে অশ্র“ ঝরতে লাগল গাল বেয়ে। সুমন আর চৈতি আপুকে বুকে জড়িয়ে ধরে কাঁদতে লাগলেন বাবা। বললেন,
– এমন কান্না আমি রোজ কাঁদতে চাই। আমার সোনারা, তোমরা যা করেছ তাতে গর্বে, আনন্দে আমার বুক ভরে গেছে। এই তো চাই, বাবা। যারা শুধু নিজেদের খুশি নিয়ে আনন্দিত তারা কি এই সুখ পাবে? এবারের ঈদ হবে আমার জীবনের সেরা ঈদ। ত্যাগের ঈদ। সারা বাড়ি ঈদের চাঁদের আলোয় যেন ঝলমল করতে লাগল। নয়াদিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ