• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০১:৪৯ পূর্বাহ্ন |

রাজধানীতে ২শ টাকা কেজি গরুর মাংস!

r18ঢাকা: স্বাভাবিক সময়ে এক কেজি গরুর মাংস কিনতে ৩০০ বা তার চেয়ে বেশি টাকা গুনতে হলেও রাজধানীতে এখন মাত্র ২০০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে গরুর মংস। তবে এই মাংসের বিক্রেতা মূলত নিম্ন আয়ের মানুষেরাই। রাজধানীর বিভিন্ন বস্তিতে বসবাসকারী ছিন্নমূল মানুষের একটি অংশ ঈদের দিন বাড়ি বাড়ি ঘুরে কোরবানির মাংস সংগ্রহ করে সেগুলো বিক্রির জন্য বিকেল থেকে ভাসমান হাটে পসরা সাজিয়ে বসেন।

সোমবার বিকেলে রাজধানীর কারওয়ান বাজার রেলগেট, কমলাপুর স্টেডিয়াম এলাকা, গোপীবাগ রেলগেট, মালিবাগ, মগবাজার রেলগেট ঘুরে গড়ে ২০০ টাকা কেজিতে গরুর মাংস বিক্রি হতে দেখা যায়।

মালিবাগ রেলগেটে কথা হয় এমনই এক মাংস বিক্রেতার সঙ্গে। যিনি কিনা সারা দিন রাজধানীর বিভিন্ন আবাসিক এলাকা ঘুরে সংগ্রহ করেছেন এসব গরুর মাংস। তার নাম কমলা খাতুন। তিনি ঈদের দিন সকাল থেকে বিকেলে পর্যন্ত রাজধানীর বিভিন্ন আবাসিক এলাকায় বাড়ি বাড়ি ঘুরে প্রায় ৩০ কেজির মতো মাংস সংগ্রহ করেছেন। পরে সন্ধ্যায় তিনি এই মাংস নিয়ে বিক্রির জন্য বসেছেন মালিবাগ রেলগেটে।

কমলা খাতুন জানান, ঈদের দিন তিনি প্রায় ৩০ কেজি মাংস সংগ্রহ করেছেন। ফ্রিজ নেই, তাই নিজেদের খাওয়ার মতো কিছু মাংস রেখে বাকিটা বিক্রির জন্য নিয়ে এসেছেন।

কমলা খাতুন বলেন, ‘প্রায় পাঁচ কেজি মাংস ইতোমধ্যেই বিক্রি করে দিয়েছি এক হাজার টাকায়।’

শুধু কমলা নয় তার মতো রহিমা, কুদ্দুসও কোরবানির মাংস বিক্রির জন্য বসে গেছেন মালিবাগ রেলগেটে।

ভাসমান এই হাটে ক্রেতারও কোনো অভাব নেই। কথা হয় ভ্যানচালক সমিরউদ্দিনের সঙ্গে। তিনি জানান, তার কোরবানি দেয়ার সামর্থ নেই। ছেলেমেয়েদের আবদার রক্ষা করতে তাই কম দামে এই হাট থেকে মাংস কিনে নিয়ে যাচ্ছেন।

সমিরউদ্দিন বলেন, ‘কোরবানি দিতে না পারলেও কোরবানির মাংস নিয়ে বাড়ি যাওয়াতে ভালোই লাগছে।’

এছাড়া এদিন সন্ধ্যায় রাজধানীর মালিবাগ ও মগবাজার রেললাইন এলাকায় দেখা যায় সেখানেও জমজমাট মাংসের বাজার। অসংখ্য ক্রেতা ও বিক্রেতা।

কম মূল্যে মাংস কেনার পর অনেককে দেখা গেল লজ্জায় ব্যাগ লুকিয়ে রাখতে। কেউ কেউ আবার দ্রুত মাংস কিনে তড়িঘড়ি সরে পড়ছেন।

এসব এলাকায় প্রতিবছরই এভাবে মাংসের বিকিকিনি চলে।

বিক্রেতারা জানান, দুই পয়সার জন্য এখানে মাংস বিক্রি করলেও এখান থেকে তাদের ভাগ দিতে হয় স্থানীয় চাঁদাবাজ তরুণদের। এখানেও যেন তাদের নিস্তার নেই। তবে এসব বিক্রেতারা কোনো চাঁদাবাজের নাম প্রকাশ করতে রাজি হননি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ