• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৫:১৮ অপরাহ্ন |

১৩ ডাকাতদের দাফন: এলাকায় স্বস্তি

paik-gasaখুলনা: পাইকগাছায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ১৩ ডাকাতের লাশ দাফন করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের পর সোমবার বিকেলে স্বজনরা তাদের লাশ গ্রহণের পর রাতেই তাদের দাফন করা হয়। এদিকে, ডাকাতদের নিহতের ঘটনায় পাইকগাছা-দাকোপ-ডুমুরিয়া এলাকার একাধিক নদীবেষ্টিত দ্বীপসদৃশ এলাকার মানুষের মধ্যে স্বস্তি বিরাজ করছে।

অপরদিকে পাইকগাছা থানায় এই ঘটনায় অপহরণ, নিহত ও অস্ত্র উদ্ধারে পৃথক ৫টি মামলা দায়ের হয়েছে।

পাইকগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শিকদার আক্কাস আলী বাংলামেইলকে জানান, পাইকগাছা থানা পুলিশের তত্ত্বাবধানে সোমবার সকালে নিহতদের খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনা হয়। সেখানে একে একে তাদের ময়না তদন্ত শেষে বিকেলে স্বজনদের কাছে তাদের লাশ হস্তান্তর করা হয়।

এর আগে গত রোববার সকালে খুলনা জেলাধীন পাইকগাছা উপজেলার দেলুটি ইউনিয়নের জিরবুনিয়ায় ২ বনডাকাত নিহত ও ১১ ডাকাতকে আটক করে পুলিশ। পরে তাদের দেয়া তথ্যানুযায়ী আরও অস্ত্র ও ডাকাতদের ধরতে সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকায় গেলে রোববার দুপুরের দিকে কাশেম বাহিনীর সাথে বন্দুকযুদ্ধে ওই ১১ ডাকাত নিহত হয়।

এদিকে, এই ঘটনায় পাইকগাছা থানায় ৫টি পৃথক মামলা দায়ের হয়েছে। এর একটি মামলার বাদী প্রশান্ত কুমার ঢালী। এটি অপহরণ মামলা। বাকি চারটির মধ্যে দুটি অস্ত্র উদ্ধার ও দুটি হত্যা মামলা সংক্রান্ত। এগুলোর বাদী পুলিশ।

নিহত বনডাকাতরা হলেন- পাইকগাছা উপজেলাধীন দেলুটির সবুর মোড়ল (৪০), দাকোপের কালাবগীর মো: হানিফ গাজী (৩৪), মংলার চিকনের দেওয়ান এলাকার আলীম মোল্লা (২৫) এবং বাকী দশ জনই ডুমুরিয়া উপজেলার বিবিধ গ্রামের। ডুমুরিয়ার টিপনা এলাকার আখিরুল শেখ (৩৬), আফজাল শেখ (২৫), শফিকুল শেখ (২১) ও নাসরুল শেখ (২৪), সরাফপুর এলাকার মাহাবুর মোল্লা (২৩) ও মফিজুল মোল্লা (৩০),  গোলনা গ্রামের রুবেল শেখ (২২) ও জোনায়েদ খান (৩৫), ডুমুরিয়া সদর এলাকার কারিমুল শেখ (৪০) এবং তেলিখালি এলাকার  হাবিবুর রহমান ওরফে হবি (৪০)।

পুলিশ জানায়, এই বনডাকাত দলটির প্রকৃত নেতা হচ্ছেন কারিমুল শেখ এবং আখিরুল শেখ। এদের উভয়ের নামে ডুমুরিয়া থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। কারিমুল হচ্ছে ডুমুরিয়ার বানিয়াখালী পুলিশ ক্যাম্পের অস্ত্র লুট মামলার অন্যতম প্রধান আসামি। এরা দু’জনই মাস খানেক আগে কারাগার থেকে বেরিয়েছেন। সশস্ত্র জঙ্গী গোষ্ঠী জেহাদী পার্টির প্রধান জব্বারের সঙ্গী হিসেবে এরা অপরাধ কর্মকাণ্ড শুরু করে। জব্বার নিহত হওয়ার পর কারিমুল ডুমুরিয়ার এক বিএনপি নেতার ছায়াসঙ্গী হিসেবে চলাফেরা করতো। আখিরুল ছিল আওয়ামী লীগের এক নেতার ছত্রছায়ায়। এছাড়াও তেলিখালির হাবিবুর রহমান হবিও ছিল একজন আওয়ামী লীগ নেতার ছত্রছায়ায়। এরাই এবারে ডুমুরিয়ার অন্যান্যদের জোগাড় করে নিয়ে গিয়েছিল।

এদের চাঁদাবাজি ও অপহরণ করে টাকা আদায়ের ঘটনায় দাকোপ, পাইকগাছা, কয়রার নদীবেষ্টিত দ্বীপ অঞ্চলগুলো সম্প্রতি অতিষ্ঠ হয়ে ওঠে। এরই ধারাবাহিকতায় তারা ওই এলাকার বাসিন্দা রাজেন্দ্র নাথকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। থানা পুলিশ না করে চার লাখ টাকা দিয়ে দুই মাস পর তিনি অপহরণকারীদের কবল থেকে মুক্ত হন।

কিছুদিন আগে কামারখোলা এলাকার খোকন শিকদার নামের একজনকে অপহরণ করা হয়। আর চাঁদা ধরা হয় এলাকার সম্পন্ন প্রায় প্রতিটি বাড়িতে। এর প্রতিটি ঘটনাই একরকম লোকচক্ষুর আড়ালে থেকে যেত। ভুক্তভোগীরা থানা-পুলিশ করতেন না। ভয়ে এরকম সিটিয়ে ছিলেন। সাম্প্রতিক সময়ে প্রায় প্রতিরাতেই দাকোপ, কামারখোলা, হড্ডা, কুমখালি, চারবান্দা, দেলুটি প্রভৃতি এলাকায় এরা হানা দিত।

১৩ ডাকাত নিহতের ঘটনায় স্বস্তি: নিহতের ঘটনায় এসব এলাকায় এক ধরণের স্বস্তি ফিরে এসেছে। তবুও এলাকাবাসী মন খুলে কথা বলতে চাইছেন না। ওই এলাকার একটি কলেজের অধ্যক্ষ নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ’এই চাঁদাবাজ-অপহরণকারীদের অত্যাচারে আমরা অতিষ্ঠ। এলাকায় পুলিশ ফাঁড়ি আছে, তারপরও আমরা প্রতিনিয়ত আক্রান্ত হচ্ছি। মানুষ রুখে দাঁড়ানোর এই প্রক্রিয়ায় পুলিশ সহযোগিতা করায় আমরা আনন্দিত। তবে এটাতো নিশ্চিত হতে পারছি না যে, সব অপহরণকারীরা নিশ্চিহ্ন হয়েছে।’

থানায় মামলা: পাইকগাছা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শিকদার আক্কাস আলী জানান, কলেজ শিক্ষককে অপহরণ, বন্দুক যুদ্ধে ডাকাত নিহত ও অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় থানায় পৃথক ৫টি মামলা হয়েছে। প্রশান্ত কুমার ঢালী বাদী হয়ে অপহরণ মামলা দায়ের করেছেন। উপপরিদর্শক (এসআই) আব্দুল খালেক দেলুটি থেকে উদ্ধার হওয়া অস্ত্র মামলার বাদী। দেলুটি গ্রামে বন্দুক যুদ্ধে নিহত হওয়ার ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলার বাদী হচ্ছেন উপপরিদর্শক (এসআই) সাঈদ। সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকার রাঙ্গেমারী চরের অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলার বাদী হচ্ছেন উপপরিদর্শক (এসআই) জালাল। কালাবগী এলাকায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ১১ ডাকাত নিহতের ঘটনায় অপর মামলাটির বাদী হচ্ছেন পরিদর্শক (তদন্ত) শ্যামলাল নাথ।

পুলিশের খুলনা রেঞ্জের উপ মহা পুলিশ পরিদর্শক মো. মনিরুজ্জামান এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘সম্প্রতি এই এলাকায় চাঁদাবাজি, অপহরণের ঘটনা বেড়ে গিয়েছিল। এরা অপরাধ করে সুন্দরবনে আশ্রয় নিত। রোববার এরা জিরবুনিয়া থেকে প্রশান্ত নামের এক ব্যক্তিকে অপহরণের সময় দুই জন মারা যায়। পরে আটক ১১ ডাকাতকে নিয়ে সুন্দরবন এলাকায় গেলে সেখানে বন্দুক যুদ্ধের ঘটনা ঘটে এবং ১১ বনডাকাত মারা যায়। এরা সুন্দরবন এলাকায় ডাকাতি করে আসছে।’   উৎস: বাংলামেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ