• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৬:১৫ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

নবাবগঞ্জে চড়ারহাটের গণহত্যা ট্র্যাজেটি দিবস পালিত

Corarhatমাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর: দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে চড়ারহাট গণহত্যা দিবস পালিত হয়েছে। ১৯৭১ সালের ১০ অক্টোবর পাক সেনারা দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার আঞ্চলিক সড়ক সংলগ্ন প্রাণকৃঞ্চপুর (চড়ারহাট) ও আন্দোলগ্রাম (সারাইপাড়া) গ্রামে ব্রাশফায়ারে ১৫৭ জন নিরীহ গ্রামবাসীকে হত্যা করে। এই গণহত্যার স্মরনে প্রতিবছর ১০ অক্টোবর এই দিনটি “চড়ারহাট গণহত্যা” দিবস হিসেবে পালন করা হয়।
শুক্রবার সকাল ১০টায় চড়ারহাটের ১৯৭১ সালের গণহত্যার স্মৃতিস্তম্ভে নবাবগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন, নবাবগঞ্জ, হাকিমপুর ও বিরামপুরের মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের পক্ষে যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যরা স্মৃতিস্তম্ভে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন এবং শহীদদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ দোয়া ও মুনাজাত করা হয়। বাদ জুমা নিহতদের স্বরনে মুনাজা করা হয়। এতে চড়ারহাটসহ আশপাশের গ্রামের শহীদ পরিবারের সদস্য ও গনহত্যা থেকে বেঁচে যাওয়া আহতরাসহ সর্বস্তরের এলাকাবাসী অংশগ্রহন করে। এ সময় তারা গণহত্যায় নিহতদের শহীদ মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃৃতি প্রদান ও যথাযথ পূনর্বাসন করা, আহতদের যুদ্ধাহত হিসেবে স্বীকৃৃতি এবং অত্র এলাকায় শহীদদের স্মরণে চড়ারহাটে শহীদ স্মৃতি মহাবিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করার জোর দাবি জানান।
উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালের ১০ অক্টোবর ভোরে দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার আঞ্চলিক সড়ক সংলগ্ন প্রাণকৃঞ্চপুর (চড়ারহাট) ও আন্দোলগ্রাম (সারাইপাড়া) শান্ত গ্রাম দু’টি অশান্ত হয়ে উঠেছিল। তখন মসজিদে ফজরের আযান দিচ্ছেন মোয়াজ্জিন। ঘুম ভাঙা চোখে গ্রামবাসীর প্রথম দৃষ্টি পড়ে হানাদার পাকিস্তানি বাহিনীর ওপর। শত শত হানাদার গোটা গ্রামটি ঘেরাও করে মেশিনগান, এসএমজি তাক করে রাখলে গ্রামবাসীর মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়লেও পালিয়ে যাবার কোনো পথ ছিল না। প্রাণে বাঁচার শেষ আশ্রয় হিসেবে প্রায় সবাই ছুটে যান গ্রামের একমাত্র মসজিদে।
এদিকে এক দল পাকহানাদার বাড়ি বাড়ি গিয়ে বৃদ্ধ, যুবক, কিশোর ও মহিলাদের ধরে এনে গ্রামের উত্তর-পূর্ব কোণের মাঠে সমবেত করে। পাকবাহিনী রাস্তায় মাটি কাটার কথা বলে মসজিদের লোকজনকে একই স্থানে নিয়ে আসে। এর পর নির্দেশ দেয় সবাইকে কালিমা পড়ার জন্য। আতঙ্কিত গ্রামবাসী কালিমা পড়ার সাথে সাথে তাদের ওপর শুরু হয় মেশিনগানের ব্রাশ ফায়ার। ভোরের নিস্তব্ধতাকে ভেদ করে এক সঙ্গে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে বৃদ্ধ, যুবক, কিশোর ও মহিলাসহ নিরীহ গ্রামবাসি।
এ নারকীয় হত্যাযজ্ঞে প্রাণকৃঞ্চপুর (চড়ারহাট) ৫৭ জন, আন্দলগ্রাম (সারাইপাড়া) ৩১ জন,  বেড়ামলিয়ায় ১ জন, আহম্মদ নগরে ৩ জন, নওদা পাড়ায় ১ জন, শিবরামপুরে ১ জন, চৌঘরিয়ায় ১ জন, আমতলায় ১ জন,  ২ জন মহিলাসহ নাম ঠিকানাবিহীন অনেক নিরীহ মানুষ শহীদ হন। এ সব শহীদের মধ্যে ৯৮ জনের লাশ শনাক্ত করা যায়।  বাকি লাশগুলো শনাক্তকরণ ছাড়াই দাফন করা হয়। তাদের ভাগ্যে জোটেনি এক টুকরো কাফনের কাপড়। শুধু মশারী, কাঁথা ও শাড়ি-লুঙ্গি দিয়ে একই কবরে ৪-৫টি করে লাশ দাফন করা হয়।
হানাদারদের নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা পাওয়া ডা. এহিয়া মন্ডল, আব্দুল হামিদ, মোজাম্মেল হক মাস্টার, ডা. আবুল কালাম, আব্দুর রশিদসহ ১১ জন এখনও সেই ভয়াল নারকীয়তার স্বাক্ষ্য বহন করে চলেছেন।
যে কারণে এই হত্যাযজ্ঞ ঃ
১৯৭১ সালের ৩ অক্টোবর চড়ারহাটের পথ ধরে গরুরগাড়ীতে করে ৮ জন পাকসেনা বিরামপুরের দিকে আসার পথে বিরামপুর থানার বিজুল ও দিওড় গ্রামের মাঝামাঝি স্থানে মুক্তিবাহিনী ৭ জন পাক সেনাকে হত্যা করে। কিন্তু ভাগ্যক্রমে ১ জন পালিয়ে গিয়ে পাক সেনাদের ক্যাম্পে খবর দিলে পাক সেনারা ক্ষোভে ফেটে পড়ে। পালিয়ে যাওয়া ওই পাকসেনার ভুল নিশানার কারণে দিওড় গ্রামের পরিবর্তে আন্দোলগ্রাম-চড়ারহাট গ্রাম দু’টিতে পাক হানাদাররা গণহত্যা চালিয়ে ১৫৭ জন নিরীহ গ্রামবাসীকে হত্যা করে। চড়ারহাটের গণকবরটির সিমানা বেষ্টনী নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। সেই হত্যাযজ্ঞের দুই মাস পর দেশ স্বাধীন হয়। শহীদদের স্মৃতিকে ধরে রাখতে এলাকাবাসী চড়ারহাটে শহীদ স্মৃতি মহাবিদ্যালয় ও শহীদ স্মৃতি বালিকা বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছে।
স্বাধীনতার ৪০ বছরের মাথায় পার্শ্ববর্তী হাকিমপুর থানার মুক্তিযোদ্ধা অজিত কুমার রায় নিজের বসতবাড়ি বিক্রি করে চড়ারহাটের বধ্যভূমিতে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণের উদ্যোগ নেন। তার এই মহানুভবতাকে শ্রদ্ধা জানিয়ে সে সময়ের নবাবগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ও বর্তমান এমপি শিবলী সাদিক, বিরামপুর উপজেলা চেয়ারম্যান খায়রুল আলম রাজু, হাকিমপুর উপজেলা চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান ও চড়ারহাটের বিশিষ্ট চিকিৎসক আবুল কালাম ইট, সিমেন্ট ও অর্থ দিয়ে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণে এগিয়ে আসেন। কৃষক নওশের আলী মন্ডলের দানকৃত জমিতে গড়ে তোলা হয়েছে চড়ারহাট শহীদ স্মৃতিস্তম্ভ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ