• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০১:৪৩ পূর্বাহ্ন |

“নারীবাদী হতে যখন যুক্তির অভাব হয় না তখন আসে কিছু প্রশ্ন”

Rimiমারুনা রাহী রিমি: কেউ একজন(পুরুষ) দাবি করলো মানে কিছু নারীবাদ কথা বলে আমাকে হারাবার চেষ্টা করলো। তার মতে সে একটা নারীর দুঃখের থেকেও হাজার গুন দুঃখ পেয়ে এসেছে। তাই মেয়েরা তার দুঃখের বরাবরি কখনও করতে পারে না। আমি যুক্তি স্বরূপ বিজ্ঞানসম্মত একটি কথা তাকে বললাম- “নারীর প্রসব বেদনার ১০ ভাগের ১ ভাগ কোন পুরুষ এর যদি উঠে তবে সেই পুরুষ কয়েক মুহূর্তে মারা যাবে।” এর মানে দাড়ায় একটা নারীর কষ্টের সীমা কোন দিন কোন পুরুষ পাড় করতে পারে না তা সে যত বড় কষ্টই পাক না কেন।

আমার এই কথার পরিপ্রেক্ষিতে সে আমার সাথে যুক্তি তর্ক শুরু করলো নানা কিছু বলে। মোটকথা সে যে করেই হোক এটা প্রমান করতে চায় কোন নারী কেন, পৃথিবীর কেউ তার কষ্টের বরাবরি করতে পারে না, এমন কি কোন মা পারে না, কোন পঙ্গু পারে না, কোন প্রতিবন্ধী পারে না, কোন ধর্ষিতা পারে না, কোন এসিডদগ্ধ নারী পারে না, কোন আগুনে পোড়া মানুষ পারে না, কোন কুমারি মায়ের জীবন পারে না, কোন সন্তানহারা মা পারে না, কোন পথে ফেলে দেয়া শিশু পারে না, কোন পথের এতিম একা শিশু পারে না। তার কষ্ট এতটাই বড় যে এসব উদাহরন তো পুরাই ফালতু তার কাছে।

এমন কি সে আমাকে এমন যুক্তিও দিলো যে- একটা মেয়ে যেমন মা হতে পারে, সেও তো পারে। তাকে ছাড়া তো একটা মেয়ে মা হতে পারবে না। বাবা হতে পারার মানে যদি এই হয় যে সেই ব্যক্তি একটা নারীর প্রসব বেদনার থেকেও হাজার গুন বেশি ব্যাথা ভোগ করছে সেখানে কারো কোন জবাব থাকতে পারে কি? তবুও আমি এটা বলেছিলাম যে- “আপনি নিঃসন্দেহে হাজার হাজার নারীকে মা বানাতে পারবেন কিন্তু মা হবার সময়ের সেই ব্যথার অনুভূতি কি কল্পনা করাও সম্ভব? কথার জবাব তো দূরের কথা। তিনি আরও নানাবিধ যুক্তি তর্ক শুরু করলেন।

এক পর্যায়ে তিনি তার কষ্টের সীমা আমাকে বোঝাতে বলেই ফেললেন, নারী জাত নাকি স্বার্থপর, খারাপ, হ্যান ত্যান আরও নানাবিধ কথা। তিনি নাকি নারীদের চেনেন। তারা নাকি commitment রাখে না। ৮ বছরের সম্পর্কের পরও বেটার অপশন পেলে চলে যায় (বুঝলাম নিজের ব্যক্তিগত জীবনের কোন বিষয় উদাহরন স্বরূপ দাড় করালেন), বেটার অপশন পেলে commitment ভেঙ্গে দেয় ইত্যাদি ইত্যাদি।

তার কাছে শুধু নয়, আমার সকল বিবেকবান ব্যক্তিদের কাছে প্রশ্ন-

১. আসলেই কি একটা পুরুষের কষ্ট কোন নারীর প্রসব বেদনা বা উপরে দেয়া যে সকল উদাহরন আমি দিলাম সেসবকেও ছাড়িয়ে যেতে পারে?

২. যদিও ছাড়িয়ে যায় তবে কি এমন কোন কষ্ট সেই কষ্টের বরাবরি করতে পারে যে কারো সাথে ৮ বছরের সম্পর্ক ছিল কিন্তু সে বেটার অপশন পেয়ে চলে গেছে?

৩. আমার জানা মতে এই বিশ্ব যতই উন্নত হোক না কেন, আজও নারীর পরিচয় পুরুষের পরিচয়েই পরিচিত হয়ে থাকে। বিয়ের আগে বাবার নামে এবং বিয়ের পর স্বামীর নামে পরিচিত হয়। কিন্তু মূলত বলা হয় নারীর আসল পরিচয় স্বামীর নামে। সুতরাং একটা মেয়ে এবং তার পরিবার স্বাভাবিক ভাবেই নিজেদের থেকেও বেটার অপশন খুঁজবে। সেক্ষেত্রে যদি কেউ বেটার অপশন পায় এবং চলে যায় তবে সেখানে সেই মেয়ের অপরাধ কোথায়? একটা ছেলে যদি অসংখ্য অসুন্দরের মাঝে সবচেয়ে বেটার ও সুন্দর মেয়েটি নিজের জন্য খুঁজে নিতে পারে তবে সেখানে মেয়েদের ন্যায্য কারন আছে সেখানে একটা মেয়ে কেন বেটার অপশন পেলে যাবে না? আমাকে ফেলেও তো বহু মানুষ বেটার অপশন পেয়েছে এবং বিয়ে করে সংসারও করছে? কই আমি তো বলি নি যে কেন সে বা তারা বেটার অপশন পেয়ে চলে গেলো, স্বার্থপর, হ্যান ত্যান। তো?

৪. ছেলেদের ডিম্যান্ড কোনদিন কম হয় না তা বয়স, চেহারা, অবস্থান যাই হোক না কেন। সে যেকোনো সময় যে কাউকে গ্রহন করতে পারে, এমন কি ভাগ্যে থাকলে নিজের অবস্থান থেকেও অনেক উপরেও বিয়ে করতে পারে। কিন্তু মেয়েদের ডিম্যান্ড এতো থাকে না। কারন মেয়েরা ম্যাক্সিমাম হয় কুৎসিত হয় বা মোটা হয় বা মোটামুটি দেখতে হয় বা গরীব হয় বা খারাপ কোন অতীত থাকে ইত্যাদি। সবার সবচেয়ে বেটার মেয়ে দরকার বিশেষ করে সুন্দরী ও সুন্দর ফিগারের। সুন্দরী ও সুন্দর ফিগার হলে চরিত্র বা খারাপ হলেও কন্সিডার করে অনেক ছেলে ও অনেক ফ্যামিলি। স্বাভাবিক ভাবে সুন্দরী, সুন্দর ফিগার এবং অন্যান্য সব কিছু মিলিয়ে বেটার মেয়ে খুব কম। এখন আমার প্রশ্ন এই কম সংখ্যক মেয়ের পেছনে যদি এমন অসংখ্য ছেলে ও তার পরিবার লেগে থাকে তবে কি করে এমন মেয়েদের কাছে কোন পুরুষ সততা আশা করে? কি করে আশা করে যে এই মেয়ে এতো এতো ভালো অপশন বাদ দিয়ে কোন এক খারাপ অপশন নির্বাচন করবে জীবনযাপনের জন্য? যদিও বা এমন কোন অপশন গ্রহন করে তবে এমন মেয়েদের কাছে সততা কি করে আশা করা যায়? কি করে আশা করা যায় যে মেয়েটা পরকীয়া করবে না, অন্য কারো সাথে ভেগে যাবে না, তালাক দিয়ে অন্য বেটার অপশন চুজ করবে না, সংসারে অশান্তি করবে না? এই ধরনের আশা করা কি আসলেই সমীচীন?

৫. সাধারন, মোটামুটি দেখতে, কুৎসিত, মোটা মেয়েরাও তো মানুষ। এরাও ভালো বউ হতে পারে, সৎ থাকতে পারে, সংসার ধরে রাখতে পারে, পবিত্র ভালবাসা দিতে পারে। এদের কেউ চায়না, কেউ গ্রহন করে না। লেজ গুটিয়ে সেই সব মেয়েদের পেছনেই ছুটে বেড়ায় যাদের কাছে বেটার অনেক অপশন আছে। অনেক অপশন তারা চাইলে চুজ করতে পারে। সেক্ষেত্রে দোষ আসলে কার? বেটার অপশন আছে এমন মেয়েদের নাকি কোন অপশন নাই এমন মেয়েদের নাকি এমন সব পুরুষদের যারা কিনা ছুটে বেড়ায় বেটার থেকে বেটার অপশনওয়ালা মেয়েদের পেছনে? মেয়েদের কি? প্রেম ভালবাসার ক্ষেত্রে তো যে কারো কাছে নিজেদের শপে দিতে পারে। কিন্তু বিয়ে করে নিজের জীবনের লাটাই বেটার থেকে বেটার অপশনে দিবে না সে নিজে বা তার ফ্যামিলি এটা আশা করা কতটা সমীচীন?

কোন একজন বা কোন একজন পুরুষ বা শুধু পুরুষ জাতের প্রতি আমার এই প্রশ্ন গুলো নয়। পুরো বিশ্বের সকল বিবেকবান মানুষের প্রতি আমার এই প্রশ্নগুলো। বিবেক, সাহস, সততা, সত্যতা থাকলে আশা করি সবাই জবাব দেবে, শেয়ার করবে এই প্রশ্নগুলো এবং সকলের মুখে ছুড়ে মারবে এই সব প্রশ্ন। নইলে ধন্যবাদ। জেনে নিলাম আপনাদের সংখ্যা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ