• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৮:৫৩ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

কিশোরগঞ্জে আমনের আগাম চাষে মঙ্গা উধাও

News & Photo Kishorganj  12বিপিএম জয়, কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী): অগ্রহায়ন মাস আসতে এখনও ঢের বাকী। চলছে আশ্বিন মাসের শেষ সপ্তাহ। অগ্রহায়ন মাসের জন্য আর ক্ষন গণনার অপেক্ষা নয়। চলতি সময়েই উত্তরাঞ্চলের নীলফামারী সহ রংপুর বিভাগের আট জেলার বিভিন্ন এলাকায় আগাম জাতের আমন ধান কাটা ও মাড়াই শুরু হয়েছে।
এসব ধান কাটা ও মাড়াই শুরু হওযায় কৃষকদের মুখে দেখা দিয়েছে হাঁসির ঝিলিক। কৃষকদের ধান কাটার সাথে সাথে কৃষকবধুরাও থেমে নেই। ধান কেটে বাড়ী আনার পর ধান ছাড়ানো, শুকিয়ে ঘরে তোলা এ কাজ কৃষক বধু ও মেয়েদের।আগাম আমন ধানের বা¤পার ফলনও হয়েছে ভাল। কৃষকরা বলছেন আগাম আমন চাষে মঙ্গা উধাও হয়ে গেছে।
ধানের দাম ভাল থাকায় চাষীদের মন উৎফুল্য দেখা দিয়েছে। অপরদিকে মজুরি বেশি থাকায় কৃষি শ্রমিকরা রয়েছে চাঙ্গাভাবে। ধান কাটা মাড়াই করতে কৃষি শ্রমিক পাওয়াই দুস্কর হয়ে পড়েছে। দিন হাজিরায় আড়াই থেকে তিনশটাকা দিয়েও শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছেনা । উত্তরাঞ্চলের প্রায় এক কোটি কৃষি শ্রমিক আমন মৌসুমে ধান কাটা মাড়াই করে ১ মাসে প্রায় হাজার কোটি টাকা আয় করবে। গত তিন মৌসুম থেকে কৃষি শ্রমের মূল্য দ্বিগুণ হওয়ায় শ্রমিকরা অত্যন্ত খুশি।
চলতি আমন মৌসুমে উত্তরাঞ্চলের রংপুর বিভাগের ৮ জেলায় ১০ লাখ ৪৫ হাজার ৪৯ হেক্টর জমিতে আমন চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে উৎপাদন ধরা হয়েছে ২৭ লাখ ৮৬ হাজার ৬ শত ৬৩ মেট্রিক টন চাল।  এর মধ্যে আগামজাত সহ হাইব্রিট চাষ হয়েছে প্রায় ৪ লাখ হেক্টরে। ভি  মোট আবাদি জমির ৪০ শতাংশে।
বাঙালীর নবান্নের উৎসবের  আমন ধানই হলো ‘নবান্নের’ ধান। এবারের আমন আবাদের শুরুটা মোটেও ভাল ছিল না। প্রথম থেকেই কৃষকের মধ্যে ছিল শঙ্কা। প্রথমত পর্যাপ্ত বৃষ্টির অভাব, দ্বিতীয়ত অকাল বন্যা।  ক্ষুদ্র ও মাঝারি কৃষকের মাথায় পড়েছিল হাত। আমনের যে টার্গেট তারা করেছিল তা পূরণ না হওয়ার শঙ্কাই দেখা দেয়। বর্ষাকাল পেরিয়ে যাওয়ার পর আকাশে কালো মেঘের আনাগোনায় কৃষকের মুখে হাসি ফুটে ওঠে। তার পর বন্যার আঘাত। সব কিছু মোকাবেলা শেষে  মাঠ ঘুরে দেখা যায় আমনের ফলন এবার ভালই হবে।
তবে বিভিন্ন আগাম আমনের জাত যে এখন ৭৫ থেকে ৯০ দিনের মধ্যে ফলন দিতে পারে তা অবাক করে দিয়েছে কৃষকদের। দিন মাস বছর যতই পার হচ্ছে ততই যেন নতুন নতুন আগাম জাতের আমন ধান কৃষকদের উজ্জিবিত করছে।
কিশোরগঞ্জের কৃষক  সামাদ মিয়া,  বাহাগিলীর  আজিজার রহমান, ওয়াদুদ মিয়া, ও কালিকাপুরের নজরুল , রমজান আলী, বাবলু , চাঁদখানার এলাকার শাহজাহান সিরাজ , নীলফামারীর জলঢাকার কালু মিয়া, ময়েন উদ্দিন,  শ্রী রমেশ চন্দ্র, শেখ কাশেম মিয়াসহ অসংখ্য কৃষকের সাথে কথা বলে আরো জানা গেছে, হাট বাজারগুলোতে বিভিন্ন প্রজাতির আমন ধান কেনা বেচা হচ্ছে ৮৮০থেকে ৯০০ টাকা। অথচ দুই মৌসুম আগেও ধানের দাম ছিল কম ৬শ ৫০ থেকে ৭০০ টাকা মন। ক্রমাগত ধানের মূল্য বেড়ে  যাওয়ায় কৃষকদের মনে প্রফুল¬ জেগে উঠেছে।  বর্তমান বাজার দরে ধান বিক্রি করলে কৃষকদের অনেক লাভ হবে। কৃষকরা জানান তিন বছর আগেও ১ একর জমির ধান কাটা মাড়াই করতে ১ হাজার থেকে দেড় হাজার টাকা লাগত। এবার প্রায় তিনগুণ বেশি মজুরি দিতে হচ্ছে। অপরদিকে, দিন হাজিরায় যেসব শ্রমিক কাজ করত তাদেরও মজুরি দ্বিগুণ হয়েছে। দু, তিন মৌসুম আগে ১শ টাকায় যে শ্রমিক দিন হাজিরায় কাজ করত এবার তারা আড়াইশ টাকার নিচে কাজ করছে না। কোন কোন স্থানে তিন বেলা খাওয়াসহ ৩০০ টাকা হাজিরা পাচ্ছেন।
বাস্তবতায় অগ্রহায়ন মাসের আমন ওঠার আগে আগাম জাতের অনেক ধানের আবাদও হচ্ছে উত্তরাঞ্চলে। সেই ধান এখন ঘরে উঠছে। আগাম এই আবাদ উত্তরাঞ্চলে আশ্বিন-কার্ত্তিক মাসের অভাব (যা মঙ্গা নামে পরিচিত) দূর করেছে। বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের (ব্রি) উদ্ভাবিত ব্রি-৩৩ ও বাংলাদেশ আনবিক কৃষি গবেষণা ইনন্সিটিউেিটর (বিনা) উদ্ভাবিত বিনা-৭ ধান আমনের আগে ফলন দিয়েছে। ব্রি-৩৩ ও বিনা-৭ আবাদে খরচ তেমন নেই। বিঘাপ্রতি উৎপাদন ১৬ থেকে ১৮ মণ। উত্তরাঞ্চলে এখন ভর বছর কোন না কোন জাতের ধানের আবাদ হচ্ছে। ধানের ‘নির্দিষ্ট মৌসুম’ দিনে দিনে উঠে যাচ্ছে। এখন ‘ব্রি’ ও ‘বিনা’র নানা জাতের ধান উদ্ভাবন হওয়ায় ভরবছর ধানের আবাদ হচ্ছে। এই আবাদে ফসল ঘরে উঠতে সময়ও লাগে কম। ৭৫ থেকে ৯০ দিনের মধ্যে ফসল ঘরে তোলা যায়। ব্রি-৫৪ পর্যনÍ জাত উদ্ভাবিত হয়েছে। বর্তমানে আমন মৌসুমে যে ধান হয় তা ব্রি-৪৯, বিআর-১১, বিআর-৩২। হালে বঙ্গবন্ধু কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্বল্পসময়ে ফলনের এক জাতের ধান উদ্ভাবন করেছে। বিএইউ-১ জাতের এই ধানকে বলা হচ্ছে ‘বঙ্গবন্ধু-১’ ধান। পাশাপাশি বিভিন্ন এলাকায় বিনা-৭ ও ব্রি-৩৩ জাতের (উফশী) ফলন মিলেছে প্রতি হেক্টরে ২ দশমিক ৯৪ মে.টন থেকে ৩ মে.টন পর্যনÍ। এই আবাদ পেয়ে কৃষক খুশি।
রংপুর কৃষি অঞ্চলের নীলফামারী জেলা সদর কিশোরীগঞ্জ,সৈয়দপুর ,জলঢাকা ও ডোমার উপজেলায় আগাম আমন ধান কাটাই মাড়াই ধুমছে চলছে। কৃষকরা ঘরে ধান তুলছে। এরপর পুনরায় সেই জমি তৈরী করে সেখানে আবাদে নামবে আগাম আলু ও সরিষা ফসলে।নিতাই এলাকার কৃষক আইনুল,রমজান ,হামিদ,রাজ্জাক,রোজীবুদ্দিন,বশির সহ অনেক জানায় এবার আগাম আমন ধান আবাদ ভালই হয়েছে। আগাম ধান বিক্রি করে আগাম আলু লাগাতে পারছি ।
এদিকে কৃষি বিভাগের নীলফামারী অফিসের উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তা মহসিন রেজা রূপম  জানান আগাম আমন ধান আবাদ ভাল হয়েছে। কৃষকরা বর্তমান সময় তাদের মঙ্গা দুর করে প্রয়োজনীয় চাহিদা মেটাতে সক্ষম হয়েছে। তিনি আরো জানান   উত্তরাঞ্চলের রংপুর কৃষি অঞ্চলের আট জেলায় ১৭ হাজার ১৯৫ কৃষক  সরকারি ভাবে প্রণোদনা পেয়েছেন । এর মধ্যে নেরিকা জাতের ধান আবাদ করা চাষির সংখ্যা ১৪ হাজার ৪৫ জন। উচ্চফলনশীল ধান (উফশী) চাষির সংখ্যা তিন হাজার ১৫০ জন। প্রতি কৃষক কর্মসূচির অধীনে বিনামূল্যে  প্রতি বিঘা জমির জন্য ডিএপি সার ২০ কেজি, পটাশ সার ১০ কেজি করে ও  নেরিকা চাষিদের ১০ কেজি এবং উফশী চাষিদের ৫ কেজি করে বীজ প্রদান করা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ