• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৫:৪৫ পূর্বাহ্ন |

রাজারহাটে ভুয়া সাংবাদিকের ছড়াছড়ি

Pressরফিকুল ইসলাম, রাজারহাট (কুড়িগ্রাম): কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলায় উদ্বেগজনক হারে ভুয়া সাংবাদিকের ছড়াছড়ি বৃদ্ধি পেয়েছে। এসব সাংবাদিক ও নম্বর বিহীন মোটর সাইকেলের নেমপ্লেটে প্রেস লেখা সম্বলিত মোটর যান দিয়ে নানা অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত। এসব ভূয়া সাংবাদিকদের যন্ত্রণায় অতিষ্ট হয়ে পড়েছে উপজেলা প্রশাসন-থানা পুলিশসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষজন। অনেকে ভুয়া সাংবাদিকদের ভয়ে আতংকিত হয়ে মুখ খুলতে নারাজ। বর্তমানে অনেকে সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকতা পেশার পাশাপাশি কিছু নাম সর্বস্ব অনিয়মিতভাবে প্রকাশিত এবং কখনো ওইসব পত্রিকার নামও শোনেননি অত্র উপজেলার পত্রিকার নিয়মিত পাঠকরা। ভুয়া সাংবাদিকরা দিব্যি তারা ওই পত্রিকার কার্ড বুকে-পিঠে ও কোমরে ঝুলিয়ে বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীগণকে ভয়-ভীতি প্রদর্শন পূর্বক চাঁদাবাজি তদবিরসহ নানা অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে। এতে করে প্রকৃত সাংবাদিকরা বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন। রাজারহাট উপজেলা মাত্র ৭টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। জনসংখ্যা প্রায় ২ লাখ। ছোট এই ঘনবসতিপূর্ণ উপজেলাটির প্রত্যন্ত এলাকার রাস্তা-ঘাট ও উপজেলা শহরের রাজপথ দাপিয়ে বেড়ানো ‘সাংবাদিক’ ও প্রেস লেখা সম্বলিত মোটর সাইকেলের মালিক বেশীর ভাগই সাংবাদিক নন। অনেকে এসব সাংবাদিকের ভুয়া নেমপ্লেট ব্যবহার করে বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ড দিব্যি চালিয়ে আসছে। এমতাবস্থায় উপজেলার প্রকৃত কর্মরত সাংবাদিকরা সংবাদপত্র ও প্রেস লেখা কাগজপত্র বিহীন অবৈধ মোটর সাইকেল আটক ও মালিকদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। রাজারহাট উপজেলার কয়েকজন কর্মরত সাংবাদিক জানান, বছর দুয়েক থেকে অত্র উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় সাংবাদিক প্রেস লেখা সম্বলিত মোটর যানের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। এসব গাড়ির চালক হিসেবে যাদের দেখা যায়, তাদের বেশীর ভাগই হলুদ সাংবাদিক। নাম প্রকাশ না করার শর্তে জনৈক এক কর্মকর্তা এ প্রতিবেদককে বলেন, ভাই জীবনে অনেক এলাকায় চাকুরি করে এসেছি। কিন্তু এখানে এসে দেখলাম প্রতিদিন অফিসে দু’চারজন করে নতুন নতুন মুখের যুবক এসে হঠাৎ করে বলে আমাকে চিনেন, আমি অমুক-তমুক পত্রিকার সাংবাদিক। যখন বলি ভাই আপনার পত্রিকার যে নাম বললেন, এই প্রথমতো শুনলাম। এ কথা বলার সঙ্গে সঙ্গেই তারা রাগান্বিত হয়ে বলেন, আগামী মাস থেকে নিয়মিত পত্রিকা এলাকায় আসবে, তখন দেখবেন। এ দিকে নম্বর বিহীন প্রেস লেখা এসব মোটর সাইকেলের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার ফলে উপজেলায় চুরি, ছিনতাই ব্যাপকহারে বৃদ্ধি পেয়েছে বলে সচেতন মহলরা মনে করছেন। অপরদিকে সাম্প্রতিককালে বিভিন্ন আন্ডারগ্রাউন্ড ও নাম সর্বস্ব পত্রিকা এবং অনলাইনে যোগ দিচ্ছেন উপজেলার বিভিন্ন এলাকার চিহ্নিত দাঙ্গাবাজ, ভূমি জবরদখলকারী, ভূমি দস্যু, চাঁদাবাজ-ধান্ধাবাজ, ছিনতাইকারী ও জমির দালাল থেকে শুরু করে মামলাবাজরাও পর্যন্ত। এসব ভুয়া সাংবাদিকরা নম্বর বিহীন প্রেস লেখা মোটর সাইকেলে করে বীরদর্পে চালিয়ে যাচ্ছে নানা অপকর্ম। ট্রাফিক পুলিশ, থানা পুলিশ ও আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী মাঝে মধ্যে এসব ভুয়া সাংবাদিকদের নম্বর বিহীন মোটর সাইকেল আটক করলেও রহস্যজনক কারণে তা পরে ছেড়ে দেয়। অন্যদিকে ভুয়া সাংবাদিকরা বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেল, নাম সর্বস্ব পত্রিকা ও অনলাইন পোর্টালের জাল পরিচয়পত্র ও স্টিকার ব্যবহার করে ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন পেশার মানুষকে হুমকি দিয়ে চাঁদা আদায় করার অভিযোগ উঠেছে। এতে বিপাকে পড়েছেন এখানকার প্রকৃত পেশাদার সাংবাদিকরা। উপজেলা চত্বরের পান ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম (৪০) মস্করা করে বলেন, বর্তমান রাজারহাটে পাঠকের চেয়ে সাংবাদিক বেশী। কিছু নাম সর্বস্ব মানবাধিকার সংগঠনের কর্মীরাও নিজেদের সাংবাদিক হিসেবে জাহির করে সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করছে। সরজমিনে দেখা গেছে, রাজারহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিস, উপজেলা ভূমি অফিস, সেটেলমেন্ট অফিস, মৎস্য অফিস, উপজেলা কৃষি অফিস, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস, পিআইও’র কার্যালয়, উপজেলা প্রকৌশলীর কার্যালয়, উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তার কার্যালয়, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তার কার্যালয়, উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তার কার্যালয়, আনসার ভিডিপি’র কার্যালয় এবং ৭টি ইউনিয়নের ভূমি অফিসসহ বিভিন্ন সরকারি অফিসের বিভিন্ন অফিসারদের কক্ষে গেলে দেখা মেলে ভুয়া সাংবাদিকদের। এ বিষয়ে রাজারহাট থানার নবাগত অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আব্দুর রশিদ বলেন, মূলতঃ এখানে দু’টি সাংবাদিকদের সংগঠন থাকায় সমস্যাটা হয়েছে, এখন দু’সংগঠনের নেতৃবৃন্দ সঠিক তালিকা দিলে পুলিশ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণে প্রস্তুত রয়েছে। প্রেসক্লাব রাজারহাট-এর সভাপতি সহ. অধ্যাপক সাজেদুর রহমান মন্ডল চাঁদ বলেন, ওসি সাহেব চাইলে আমাদের প্রেসক্লাবের বৈধ সাংবাদিকদের প্রকৃত পরিচয়পত্র পূর্বক তালিকা প্রণয়ন করতে প্রস্তুত রয়েছি। সচেতন মহলের প্রশ্ন, কবে এসব ভুয়া সাংবাদিকদের কবল থেকে মুক্ত হবে অত্র উপজেলাবাসী?


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ