• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১২:১৬ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে মার্কেট-শপিং মলে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন খানসামায় র‌্যাবের অভিযান ইয়াবাসহ দুই মাদককারবারী গ্রেপ্তার ডোমার ও ডিমলায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ১০ উদ্যোগ নিয়ে কর্মশালা নীলফামারীতে ৫ সহযোগীসহ কুখ্যাত চোর ফজল গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে তথ্যসংগ্রহকারী ও সুপারভাইজারদের দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত জয়পুরহাট বিনা খরচে আইনের সেবা পেতে সেমিনার শিক্ষক লাঞ্চনা ও হেনস্তার বিরুদ্ধে সৈয়দপুরে উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর প্রতিবাদ সমাবেশ সৈয়দপুরে শহীদ আমিনুল হকের স্মরণসভা অনুষ্ঠিত ফুলবাড়ীতে বিনামূ‌ল্যে বীজ ও সার বিতরণ

পরিবেশবান্ধব ল্যাপটপ

94370_1প্রযুক্তি ডেস্ক: পরিবেশ বিপর্যয় ঠেকাতে সারা বিশ্বে একের পর এক হাতে নেয়া হচ্ছে বিভিন্ন প্রকল্প। এসব প্রকল্প সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করা গেলে পরিবেশ থাকবে বাসযোগ্য। পরিবেশ যাতে করে বাস অযোগ্য না হয় সে জন্য হাতে নেয়া হচ্ছে সচেতনতামূলক বিভিন্ন কর্মসূচি।

বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলনে বিশ্ববাসীকে সতর্ক করা হয়েছে এই বলে যে, পৃথিবীটাকে বসবাসের অযোগ্য তরে তুলবেন না। পরিবেশকে বিপর্যস্ত করে তোলার জন্য হাজারো নিয়ামক বা উপাদান কাজ করছে। এর মধ্যে ই-বর্জ্য [পুরনো, নষ্ট কম্পিউটার, প্রিন্টার, প্রিন্টারের কার্টিজ, রিবন, কালি, ফটোকপি মেশিন, এর কালি প্রভৃতি] হলো অন্যতম। দিনে দিনে ই-বর্জ্য এত ব্যাপক আকার ধারণ করছে যে, রীতিমতো তা আতঙ্কজনক পরিস্থিতি সৃষ্টি করছে। ই-বর্জ্যরে সঠিক রিসাইকিং করা গেলে তা পরিবেশকে দূষিত করবে না। এর পাশাপাশি যদি পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তি পণ্য তৈরি করা যায় তাহলে পৃথিবীটা হবে আরো সবুজ, শান্তির।

পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তি পণ্য নির্মাণে এবার এগিয়ে এসেছে বিশ্বখ্যাত প্রযুক্তি পণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান তাইওয়ানের আসুস ইনকরপোরেশন। এই আসুসেরই তৈরি ল্যাপটপ ইতোমধ্যে সারা বিশ্বে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে। আসুস তাদের ল্যাপটপের ক্ষেত্রে নিয়ে এসেছে বিশাল চমক। এবার তারা আনছে বাঁশের তৈরি ল্যাপটপ।

প্লাস্টিক, ফাইবার ও সি-শেলের পর এবার আসুস আনছে বাঁশের তৈরি ল্যাপটপ। ল্যাপটপের বহিরাবরণসহ এর ভেতরে যেখানে ফাইবার প্লাস্টিক ব্যবহৃত হতো সেসবে ব্যবহার হবে বাঁশ। প্রসেসর, মাদার বোর্ড, র‌্যামসহ অন্যান্য যন্ত্রাংশ প্রচলিত উপাদান দিয়েই তৈরি হবে। বাঁশ পরিবেশবান্ধব হওয়ায় এটি দিয়েই আসুস তাদের ল্যাপটপ তৈরি করছে। বাঁশের তৈরি ল্যাপটপগুলো দৃষ্টি নন্দন হওয়ায় তা সবার মনোযোগ কাড়বে।

প্রথমে আসুস কাঠের তৈরি ল্যাপটপের কথা ভেবেছিল। কিন্তু সবুজ বনাঞ্চল ধ্বংস হবে বলে আসুস নজর দিয়েছে ঘাস জাতীয় উদ্ভিদ বাঁশের প্রতি।

ইতোমধ্যে আসুস বাঁশের তৈরি কিছু নমুনা ল্যাপটপ তৈরি করেছে। এখন এগুলো পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর্যায়ে আছে। আসুসের প্রকৌশলীরা দেখছেন বাঁশের তৈরি ল্যাপটপে প্রসেসর, র‌্যাম, মনিটর স্যুট করে কি না। প্রসেসর ও মনিটর থেকে উৎপন্ন তাপে বাঁশের কোনো ক্ষতি হয় কি না তাও পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে।

আসুস বলছে, এ ল্যাপটগুলো এক্সিকিউটিভ ও হাই-এন্ড ল্যাপটপ ব্যবহারকারীদের জন্য হবে, যারা চামড়া এবং বিশেষ করে কুমিরের চামড়ার তৈরি কভারঅলা ল্যাপটপ ব্যবহার করেন তাদের জন্য।

প্লাস্টিক বা এ জাতীয় উপাদানে তৈরি ল্যাপটপের কেসিংয়ে [ল্যাপটপের বহিরাবরণ] থাকে বিষাক্ত পলিভিনাইল কোরাইড বা পিভিসি। এটি ক্যাথড রে টিউব মনিটর থেকে উৎপাদিত সিসার থেকেও বিষাক্ত, যা পরিবেশের জন্য মারাত্মক হুমকিস্বরূপ।

বাঁশে তৈরি ল্যাপটপের এসব ক্ষতিকারক পদার্থ থাকবে না। বরং যে প্লাস্টিক ব্যবহৃত হবে তা পুনঃপ্রক্রিয়াকরণ যোগ্য। এটি হবে নিকেল ও পিভিসি উপাদানমুক্ত ল্যাপটপ।

বিশ্বখ্যাত ল্যাপটপ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ডেল ও অ্যাপলও পুনঃপ্রক্রিয়াকরণ যোগ্য উপাদান দিয়ে ল্যাপটপ তৈরি করবে বলে জানিয়েছে। এর মধ্যে অ্যাপল সম্প্রতি ঘোষণা দিয়েছে তারা চলতি বছর ১৯ মিলিয়ন পাউন্ডের ই-বর্জ্য রিসাইকল করবে। এইচপিও ঘোষণা দিয়েছে, চলতি বছর তারা এক বিলিয়ন পাউন্ডের ই-বর্জ্য রিসাইকেল করবে। ডেল ও লেনেভো বলেছে, তারা পিভিসি কমাতে যৌথভাবে কাজ করবে।

আসুস এসব উপলব্ধি করেই তৈরি করেছে পরিবেশবান্ধব বা ইকো ল্যাপটপ কম্পিউটার।

আসুসই প্রথম পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তি পণ্য তৈরি করতে যাচ্ছে না। এ ক্ষেত্রে এগিয়ে আছে অ্যাপল কম্পিউটার। অ্যাপলের জনক স্টিভ জবস ও স্টিভ ওয়াজনিয়াক ১৯৭৬ সালে প্রথম যে পিসি [পারসোনাল কম্পিউটার] বা ব্যক্তিগত কম্পিউটার তৈরি করেন তার সার্কিট বোর্ডটা ছিল একটা কাঠের তৈরি বাক্সের। উৎসঃ   অন্যদিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ